একদিনে ১৪১ পদে নিয়োগ-

তদন্ত কমিটিকে যা বললেন রাবি’র বিদায়ী ভিসি

স্টাফ রিপোর্টার, রাজশাহী থেকে

অনলাইন (১ মাস আগে) মে ৮, ২০২১, শনিবার, ৯:২৯ অপরাহ্ন | সর্বশেষ আপডেট: ১০:৩৬ পূর্বাহ্ন

রাজশাহী বিশ্ববিদালয়ে বিতর্কিত ১৪১ পদে এডহকের নিয়োগের বিষয়ে সদ্য বিদায়ী ভিসি অধ্যাপক ড. এম আব্দুস সোবহান বলেছেন, আমি মনে করি যারা নিয়োগ পেয়েছে তারা সবাই নিয়োগ ডিজার্ভ করে। এখানে মানবিক দিকটি বিবেচনা করা হয়েছে। এছাড়াও বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৯৭৩ এর অধ্যাদেশে একটা আইন আছে। সেই আইনে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যকে একটা ক্ষমতা দেয়া আছে। সেই আইনের বলে আমি নিয়োগটা দিয়েছি। যেখানে সুস্পষ্ট আইন আছে সেখানে নিষেধাজ্ঞা আসতে হলে তো ওই আইনটা বাতিল হওয়া উচিত। শনিবার বিকাল ৩টায় উপাচার্যের কার্যালয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয় কর্তৃক গঠিত তদন্ত টিমের সঙ্গে বৈঠক শেষে তিনি এসব কথা বলেন।
তদন্ত কমিটির সঙ্গে প্রায় দুই ঘন্টা বৈঠক শেষে ভিসি বলেন, দীর্ঘদিন থেকে ক্যাম্পাসে কোনো নিয়োগ হয়নি।
আমরা নিয়োগ প্রক্রিয়াটা অনেক আগেই শুরু করেছিলাম। কিন্তু এর মধ্যেই করোনাভাইরাস আসলো। এরই মধ্যে কিছু শিক্ষক বলে যে নিয়োগ দেয়া যাবে না, নিষেধাজ্ঞা আসবে। এরপরেই আমার ই-মেইলে নিষেধাজ্ঞাটি আসে। আমি বিষ্মিত হয়েছি, সেই শিক্ষকরা আগে থেকেই নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি কি করে জানলো?
এদিকে শনিবার বিকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার অধ্যাপক আব্দুস সালাম স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সদ্য বিদায়ী উপাচার্য অধ্যাপক আব্দুস সোবহানের দেয়া ‘অবৈধ’ নিয়োগে নিয়োগপ্রাপ্তদের যোগদান স্থগিত করা হয়েছে।
বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গত বুধবার (৫ই মে) রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে এডহকে যে নিয়োগ দেয়া হয়েছে তা শিক্ষা মন্ত্রণালয় অবৈধ ঘোষণা করেছে। একইসঙ্গে বিষয়টি খতিয়ে দেখতে মন্ত্রণালয় কর্তৃক একটি তদন্ত কমিটিও গঠন করা হয়েছে। এই কমিটির রিপোর্টের প্রেক্ষিতে কোনোরূপ সিদ্ধান্ত না হওয়া পর্যন্ত নিয়োগপত্রের যোগদান এবং তদসংশ্লিষ্ট সব কার্যক্রম স্থগিত করার জন্য অনুরোধ করা হলো।
শিক্ষা মন্ত্রণালয় গঠিত তদন্ত কমিটির আহ্বায়ক অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ আলমগীর সাংবাদিকদের বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে যে পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে তা নিয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয় একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে। আমরা বিষয়টি খতিয়ে দেখতে এসেছি যাতে দ্রুত সময়ের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে পারি। তিনি বলেন, মন্ত্রণালয় যেভাবে বলেছে আমরা সেভাবে কাজ করছি। আমরা এই বিষয়টির সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সকলের সঙ্গেই কথা বলেছি। আমরা সকল তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করেছি, সংশ্লিষ্ট কাগজপত্র দেখেছি। আমরা সেসব কাগজপত্র পর্যালোচনা করে আমাদের প্রতিবেদন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে জমা দেবো। আমরা চাই যে উদ্দেশ্য নিয়ে এই বিশ্ববিদ্যাল প্রতিষ্ঠিত হয়েছে সেই উদ্দেশ্য যেন সফল হয়।
উল্লেখ্য, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও গত বুধবার (৬ই মে) ক্যাম্পাসে মেয়াদের শেষ দিন শিক্ষকসহ ১৪১ জনকে বিভিন্ন পদে নিয়োগ দেন রাবি’র বিদায়ী এই উপাচার্য। সেই নিয়োগকে অবৈধ ঘোষণা করে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Dr Shameem Hassan

২০২১-০৫-০৯ ১৪:৩৭:২৮

দেখবেন আর ক'দিন পর ইনিই, "টক শো' তে এসে জ্ঞান বিতরন করবেন।

Capt. Harunur Rashid

২০২১-০৫-০৯ ১০:১২:৫৫

Satan laughs to him (Satan thinks I am nothing compare to him).

C.A.HALIM

২০২১-০৫-০৯ ১০:১১:৫৩

If the V.C applied his power in any type of development sides of the Versity in the last day of his retirement the Versity & the Nation always remain greatful upon him.But the V.C. has done that type of development on which question arises for self economic development .This may be defined as a criminal offence. Always the criminal offence prosecuted under the law of criminal procedure code & Trial by the law of penal code in relevant section in the ld.. open court if no irregularty arises in the light of the University ordinance/1971.

Mustafa Ahsan

২০২১-০৫-০৮ ১৯:২৯:৪৪

মিলিয়ন মিলিয়ন টাকা আর টাকা .....ব্যাংকে লেনদেন তার এবং তার পরিবারের লোকজনের একাউন্ট চেক করলেই নিয়োগটা কেন শেষ মূহুর্তে দেওয়া হয়েছে তা বুঝা যাবে ,এবং এটা নিয়েও আশা করি মানবিক গল্প জাতি শুনবে। যে ব্যাকতি নিয়ম বহির্ভূত ভাবে নিজ মেয়ে এবং মেয়ের জামাইকে পর্যন্ত শিক্ষক নিয়োগ দিয়েছে ,তার মতো নির্লজ্জ লোক কি করে এতদিন একটা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি থাকে ছি লজ্জার স্তর কত নিম্নে নামলে পরে অবসরে যাওয়ার চব্বিশ ঘন্টা আগে টাকার লোভ সামলাতে পারলো না। আর এই বয়সে নিয়ম ভেংগে অন্যায় করতে বিবেকে বাধলো না বাঁচবেন আর কতো দিন?

মোঃ রবিউল ইসলাম

২০২১-০৫-০৯ ০৬:৩২:০৬

আমা একজন বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মচারী । আমি দেখেছি ৩০ বৎসরের অধিক বয়সের ব্যক্তিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন পদে নিয়োগ করা হয়েছে। প্রয়োজনীয় শিক্ষাগত যোগ্যতা না থাকা সত্ত্বেও শিক্ষক/কর্মকর্তা / কর্মচারী পদে নিয়োগ । ভূয়া অভিঞ্গতা সনদধারীদের ঐ সনদ ব্যবহার করে নিয়োগ। বিভিন্ন পদে অস্থায়ীভিত্তিতে নিয়োগ দিয়ে পরবর্তীতে নিয়মিত করা ও এডহক ভিত্তিতে পছন্দের ব্যক্তিকে নিয়োগ প্রদান করে পরবর্তীতে নিয়মিত করা। এসব কাজ করলে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি মহোদয়দের কোন বিচার হয়না। এজন্য কোন প্রতিফলন হবে না। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি যেসব কাজ করেছেন, তা অনিয়ম হলে অন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি মহোদয়েদের ক্ষেত্রে কি হবে ? অনিয়মরে তদন্ত কমিটির সদস্যদের মধ্যে যারা বিশববিদ্যালয়ে অধ্যাপনা করতেন। তাঁরা ও এ চরিত্রের লোক বলে আমি দৃঢ়ভাবে বলতে পারি।

Nam Nai

২০২১-০৫-০৯ ০১:৪৮:৩০

His appearance seems to perfect Religious person, most likely goes to Mosque 5 times a day but his behavior ( despite being a former VC ) is of a perfect criminal . An educated person who follows religion so closely - how could be this much Criminal ? Answer : He is FAKE !!

Md. Rashid

২০২১-০৫-০৯ ০১:৩১:১৯

Beta ekta chor

nasym

২০২১-০৫-০৮ ১১:৫৬:৪৩

HE IS A "CHETONA SAINIK" SO YOU CAN NOT CALL IT CORRUPTION.IT IS VERY NORMAL FOR THEM.THE WHOLE COUNTRY IS UNDER THEIR PALM.FEW DAYS BACK WE SAW THREE CHETONA SAINIKS OPEN FIGHT ON THE STREET LIKE STREET D.....S!THEY HAVE ALREADY MADE" HOLY FREEDOM FIGHT" A STINKY PHRASE.

এ,টি,এম,তোহা

২০২১-০৫-০৮ ১১:০৯:১৪

এত তদন্ত না করে উনার এবং উনার আত্মীয় স্বজনদের ব্যাংক এ্যাকাউন্ট তদন্ত করুন। সব লেটা চুকে যায়।

Md. Harun al-Rashid

২০২১-০৫-০৮ ২৩:৪১:৪৪

মেয়াদ উত্তীর্ন বিষয়টি ব্যবহারের অযোগ্যতা নির্দেশক। ভিসি মহোদয় নিজের ক্ষমতার ব্যবহারিক অপ্রয়োজনীয়তার বিষয়টি চাপের মুখে ও ক্ষমতা প্রয়োগের মোহে ভুলে গিয়ে এমন কাজ না করে তা থেকে বিরত থাকলে পারতেন। এখন পলে পলে ও পদে পদে অনৈতিক কর্মের যথার্থতা প্রমানে জের বার হচ্ছেন। লাভ নাই-দুহিলে দুধু কী বান্টে সামায়!

ঊর্মি

২০২১-০৫-০৮ ২৩:৩১:২৫

"বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৯৭৩ এর অধ্যাদেশে একটা আইন আছে। সেই আইনে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যকে একটা ক্ষমতা দেয়া আছে। সেই আইনের বলে আমি নিয়োগটা দিয়েছি" -সে আইনে ক্ষমতা দেয়া হয়েছিল সম্মানিত Vice-Chancellor দেরকে, স্তাবক, তৈলবাজ, দুর্নীতিবাজ, গুন্ডাদেরকে নয়

Shobuj Chowdhury

২০২১-০৫-০৮ ২৩:১৮:০১

Appointment by humanitarian ground! Wow !! RU students, prepare for humanitarian assistance in the next semester.

তপু

২০২১-০৫-০৮ ০৯:৪৭:৫৬

দুর্নীতিবাজ ভিসির বড় গলা।

আপনার মতামত দিন

অনলাইন অন্যান্য খবর

বাড্ডায় বাসের ধাক্কায় মা নিহত, মেয়ে আহত

১৯ জুন ২০২১

রাজধানীর উত্তর বাড্ডার সুবাস্তু নজরভ্যালি শপিংমলের বিপরীতে বাসের ধাক্কায় মা শেখ ফৌজিয়া (৪৭) নিহত হয়েছেন। ...

ক্যাপশন নিউজ

১৮ জুন ২০২১

শনাক্তের হার ১৮.৫৯

একদিনে আরও ৫৪ জনের মৃত্যু,শনাক্ত ৩৮৮৩

১৮ জুন ২০২১



অনলাইন সর্বাধিক পঠিত



পরীমনিকে ধর্ষণচেষ্টা মামলা

নাসির উদ্দিনসহ গ্রেপ্তার ৩

DMCA.com Protection Status