মর্মান্তিক, অমানবিক: এক এম্বুলেন্সে ২২ লাশ

মানবজমিন ডেস্ক

বিশ্বজমিন (২ সপ্তাহ আগে) এপ্রিল ২৮, ২০২১, বুধবার, ১১:৫৭ পূর্বাহ্ন | সর্বশেষ আপডেট: ৫:১৯ অপরাহ্ন

মর্মান্তিক এক দৃশ্য। দেখলে মানবাত্মা কেঁদে ওঠে। চোখে অশ্রু চলে আসে। এমন ভয়াবহতা, অমানবিকতাও কি সম্ভব? ভারতের মহারাষ্ট্রে একটি এম্বুলেন্সের ছবি দেখে কেঁদে উঠতে পারে আপনার হৃদয়ও। করোনায় মারা যাওয়া ব্যক্তিদের শেষ পরিণতি এত নিষ্ঠুর হতে পারে! তারা কি একটুও সম্মান, ভালবাসা পাওয়ার যোগ্য নন! মহারাষ্ট্রে একটি হাসপাতালের মর্গের বাইরে রাখা এই এম্বুলেন্স। তা দেখে কেন আপনার মন কেঁদে উঠবে! হ্যাঁ, এ জন্যই যে- এই একটি এম্বুলেন্সের ভিতর আটার বস্তার বন্দি করে একে একে ২২টি মৃতদেহ ফেলে রাখা হয়েছে। একটির ওপর আরেকটি। একটি লাশের মাথার দিকটা একটি আসনের ওপরে।
শরীরের বাকি অংশ এম্বুলেন্সের ভিতরেই নিচে পড়ে আছে। এম্বুলেন্সে করে এসব লাশ নিয়ে যাওয়া হচ্ছে কোনো শ্মশানে। না, কোনো আত্মীয়-স্বজন নেই পাশে। তারা যখন এ দৃশ্য দেখবেন, একবার ভাবুনতো তাদের মানসিক অবস্থা কি দাঁড়াবে! এমনিতেই স্বজন হারানোর বেদনায় তারা মুষড়ে পড়েছেন, তার ওপর নিহত প্রিয়জনের মৃতদেহের সঙ্গে এমন অসম্মান কি করে মেনে নেবেন তারা! এ ঘটনা ঘটেছে মহারাষ্ট্রের বিড জেলার অম্বেজোগাইয়ে। সেখানকার স্বামী রামানন্দ তীর্থ মরাঠাওয়াড়া সরকারি মেডিকেলল কলেজের ঘটনা এটি। এ নিয়ে এবিপি টেলিভিশন চ্যানেল সচিত্র রিপোর্ট প্রচার করেছে। তাতে বলা হয়েছে স্থানীয় সূত্র বলেছে, মৃতদেহ এভাবে তোলার সময় সেখানে উপস্থিত ছিল পুলিশ। তারা এভাবে মৃতদেহ একটির ওপর আরেকটি এলোপাতাড়ি করে রাখতে বাধা দেয়নি। অভিযোগ আছে, মৃত রোগীর আত্মীয়রা এম্বুল্যান্সের এ দৃশ্যের ছবি তুলতে গেলে তাদের মোবাইল কেড়ে নেয়া হয়। দেহগুলো দাহ করার পর তাদের মোবাইল ফোন ফেরত দেয়া হয়েছে।

ওদিকে আনন্দবাজার পত্রিকা লিখেছে, ঘটনার কথা ছড়িয়ে পড়তেই নড়েচড়ে বসেছে সেখানকার প্রশাসন। ঘটনা নিয়ে বিড জেলার জেলা প্রশাসক রবীন্দ্র জগতপ এক সংবাদমাধ্যমকে বলেছেন, অম্বেজোগাইয়ের অতিরিক্ত জেলাশাসককে ঘটনা নিয়ে তদন্তের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। যদি কারও দোষ থাকে, তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। ওই হাসপাতালের ডিন শিবাজি সুকরে বলেছেন, সৎকার করতে দেহ নিয়ে যাওয়ার জন্য মাত্র দু’টি এম্বুল্যান্স রয়েছে। আমরা আরও এম্বুল্যান্সের দাবি জানিয়েছি। কেউ মারা গেলে স্থানীয় প্রশাসনের হাতে দেহ তুলে দেয়া অবধি আমাদের দায়িত্ব। তারা কীভাবে তা নিয়ে যাবে, তা আমাদের নিয়ন্ত্রণে নেই।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

কাজী

২০২১-০৪-২৮ ০৪:২৭:৪৭

আমেরিকার কাহিনী ভুলে গেছেন সবাই। কনটেইনার ভাড়া করে কোল্ড স্টরেজ বানিয়ে লাশের উপর লাশ স্তূপ করে রাখতে বাধ্য হয়েছিল নিউইয়র্ক হাসপাতাল গুলি। এসব দেশে মানবিক মূল্যবোধ থাকলে ও বিজেপি হ সরকারের শীর্ষ নেতাদের মাঝে তার লেশমাত্র নাই। তখন ট্রাম্পের মাঝে ও ছিল না।

Salam

২০২১-০৪-২৮ ১৩:৫৮:৫২

মহামারীর এরূপ দৃশ্যে আলোচনা-সমালোচনা দেখি অনেক অনেক। কিন্তু কাউকে দেখি না বলতে- আল্লাহ তুমি আমাকে এরূপ পরিনতি করোনা, যাদের যা ক্ষতি করেছি তার ক্ষতিপূরণ দিব, তাদের খুজিয়া। ভবিষ্যত জীবনে কারও ক্ষতি করব না। স্রষ্টা, তোমার আদেশের বাহিরে যাব না। তুমি আমার সহায় হও।

AMIR

২০২১-০৪-২৮ ১৩:১৪:৩৬

তুমি জাতি,বর্ণ,ধর্ম নির্বিশেষে মাখলুকাত সৃষ্টি করেছ, তোমার সৃষ্টিকে তুমি কষ্ট দিলে তোমারতো কোন লাভ ক্ষতি হবেনা: অতএব পৃথিবীব্যাপী এই শেরা মাখলুকাত (মানুষ)কে কষ্ট থেকে রেহাই দাও আল্লাহ্!

আককাস

২০২১-০৪-২৮ ০০:০৮:৪৯

এখানে স্বজনদেরও তো দায় আছে? নিজ দায়িত্বে লাশগুলো নিয়ে যেত তাহলে এমন দৃশ্য দেখতে হতো না, এখানে ধনি গরীব সব ধরণের লাশ আছে জীবত ব্যক্তির সবাই ছিলো, মৃত ব্যক্তির সমপদের ভাগীদার সবাই আছে লাশের ভাগীদার নাই কেন ?

খান

২০২১-০৪-২৭ ২৩:৩০:৩৪

বিএসএফ-এর হাতে নিহত ফালানি, যার মৃত দেহ সিমান্তের কাটা তারে ঝুলিয়ে রেখেছিল, আজ সে বেঁচে থাকলে সে-ও কাঁদতো !

Md. Harun al-Rashid

২০২১-০৪-২৮ ১২:২৫:৫০

ধর্মান্ধতার রাজনীতির অসাড়তা এতটাই প্রকট হয়ে উঠে যে নিদানকালে মানুষ হিসেবে সামান্য মর্যাদাটুকুও রাষ্ট্র দিতে ব্যর্থ হয়।

Samsulislam

২০২১-০৪-২৭ ২৩:১৯:১০

আবেগ বাদ দিয়ে বাস্তব্তায় আসুন।জীবন্তদের খোজ নাই আর মৃতদের নিয়ে খবর।ভারতের মত ১৫০ কোটিমানুষ সামলানো কত সমস্যা।আমেরিকার মত দেশের কি অবস্থা হয়েছিল আমরা দেখেছি।এর মধ্যে মুমিনুলরা তো খাকবেন।

আপনার মতামত দিন

বিশ্বজমিন অন্যান্য খবর



বিশ্বজমিন সর্বাধিক পঠিত



DMCA.com Protection Status