শিক্ষার্থীকে চড় মেরে পদ হারালেন ইবির সহকারী প্রক্টর

ইবি প্রতিনিধি

শিক্ষাঙ্গন (১ মাস আগে) এপ্রিল ২৭, ২০২১, মঙ্গলবার, ৪:২২ অপরাহ্ন

ক্যাম্পাসের গাছ থেকে আম পাড়ায় এক শিক্ষার্থীকে চড় মারার অভিযোগে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী প্রক্টর আরিফুল ইসলামকে অব্যাহতি দিয়েছে প্রশাসন। মঙ্গলবার রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) আতাউর রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, বায়োমেডিকেল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের প্রভাষক আরিফুল ইসলামকে সহকারী প্রক্টর পদ থেকে অব্যাহতি দিয়েছেন ভিসি ড. শেখ আবদুস সালাম। ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীর লিখিত অভিযোগ ও প্রক্টরিয়াল বডির প্রতিবেদনের প্রেক্ষিতে তাকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে।

প্রসঙ্গত, গত শুক্রবার (২৩শে এপ্রিল) বিশ্ববিদ্যালয়ের হিসাববিজ্ঞান ও তথ্যপদ্ধতি বিভাগের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী হাসান আলী তার স্ত্রীকে নিয়ে ক্যাম্পাসে ঘুরতে এসে গাছ থেকে কয়েকটি আম পাড়েন। এসময় সেখানে সহকারী প্রক্টর আরিফুল ইসলাম উপস্থিত হলে তার সঙ্গে ওই শিক্ষার্থীর কথা-কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে তিনি ওই শিক্ষার্থীকে চড় মারেন। পরে তাকে ও তার স্ত্রীকে আবাসিক হলে আটক করে রাখেন। প্রায় এক ঘণ্টা পর তাদের ছেড়ে দেয়া হয়।

এ ঘটনায় ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী ওইদিন বিকেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর বরাবর লিখিত অভিযোগ দেন। অভিযোগপত্রে সহকারী প্রক্টর আরিফ কর্তৃক শারীরিক ও মানসিকভাবে লাঞ্ছনার বিষয়টি তুলে ধরে ঘটনার সুষ্ঠু বিচারের দাবি জানানো হয়।
এনিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রতিবাদের ঝড় তোলেন শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। ঘটনার পরদিন ক্যাম্পাসে দিনব্যাপী আমপাড়া কর্মসূচি পালন করে শিক্ষার্থীরা। ওইদিনই বিকেলে বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টরিয়াল বডির এক মিটিংয়ে ঘটনার উপর ভিত্তি করে প্রতিবেদন তৈরির জন্য তিন সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়। পরে ভিসি বরাবর প্রতিবেদন দাখিল করেন প্রক্টরিয়াল বডি।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Hasan

২০২১-০৪-২৮ ১৯:৩৪:১৮

He should not be so arrogant. It was a silly matter. It was a fun. It was a joke. More over his wife was with him. His prestige was involved with it. Picking a mango was not a serious rime. Mr. Ariful Islam is not fit on his post. At best he could be a teacher of a primary school. Mr. Ataur Rahman took the correct step.

Md. Anwar Hossain

২০২১-০৪-২৭ ২০:০৪:৫৯

Lack of teacher like attitude.

অনামিকা

২০২১-০৪-২৭ ০৫:১১:৪৪

সহকারী প্রক্টর পদ থেকে অপসারিত হয়েছেন বটে, কিন্তু প্রভাষক পদে বহাল তবিয়তে সমাসীন আছেন । বেতন, সুবিধা, রাজনীতি ইত্যাদি চলবে আগের মতোই।

শহীদ

২০২১-০৪-২৭ ১৬:৩১:১২

ন্যায় বিচার হয়েছে। বেয়াদবরা যেন অন্তত শিক্ষাক্ষণে না থাকে।

আপনার মতামত দিন

শিক্ষাঙ্গন অন্যান্য খবর



শিক্ষাঙ্গন সর্বাধিক পঠিত



DMCA.com Protection Status