ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান খুললেও মানা হয়নি স্বাস্থ্যবিধি

স্টাফ রিপোর্টার

শেষের পাতা ১০ এপ্রিল ২০২১, শনিবার | সর্বশেষ আপডেট: ১২:৫৮ অপরাহ্ন

ফাইল ছবি
করোনাভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে সরকার ঘোষিত কঠোর বিধিনিষেধের মধ্যে গণপরিবহনের পর শপিংমল ও দোকানপাট খুলে দেয়া হয়েছে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে এসব ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান খোলার কথা থাকলেও তা পুরোপুরি মানছেন না ক্রেতা-বিক্রেতারা। মার্কেটে মাস্ক পরাসহ নির্দিষ্ট দূরত্বে চলাচলের নির্দেশনা থাকলেও বেশিরভাগ মার্কেটে মানা হচ্ছে না। গতকাল রাজধানীর বিভিন্ন শপিংমল ঘুরে দেখা যায়, রাজধানীর অভিজাত মার্কেটগুলোতে মানুষের উপস্থিতি ছিল অন্যান্য সময়ের তুলনায় অনেক কম। তবে দুপুরের পর ক্রেতাদের সংখ্যা কিছুটা বেড়েছে। অধিকাংশ মার্কেটের প্রবেশমুখে রাখা হয়নি হ্যান্ডস্যানিটাইজার কিংবা স্যাভলন মিশ্রিত পানি। মার্কেটের প্রবেশের সময় দূরত্ব বজায় রেখে ক্রেতা ও দর্শনার্থী প্রবেশ করলেও ভিতরে সম্পূর্ণ উল্টো। অধিকাংশ বিক্রেতা ও ক্রেতা স্বাস্থ্যবিধি মানছেন না।
অনেকের থুতনিতে ঝুলছে মাস্ক। কারো আবার নেই। দুপুরে বসুন্ধরা সিটিতে দেখা যায়, প্রবেশমুখে স্বাস্থ্যবিধির কড়া পাহারা। প্রতিটি গেটে রয়েছে জীবাণুনাশক টানেল। সেখানে ঢুকলেই পুরো শরীরে স্যাভলন মিশ্রিত পানি ছিটানো হচ্ছে। এ ছাড়া নিরাপত্তারক্ষীদের হাতে রয়েছে হ্যান্ড স্যানিটাইজার। আগন্তুকদের হাতে তা ছিটানো হচ্ছে। ভিতরের অংশে কেউ কেউ মাস্ক ছাড়া ঘুরছেন। ছবি তুলছেন। কেউ কেউ আড্ডা দিচ্ছেন। ক্রেতাদের মতো অনেক দোকানির মুখে নেই মাস্ক। নিরাপত্তাকর্মীরা হ্যান্ড মাইক নিয়ে ঘুরে ঘুরে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে পরামর্শ দিচ্ছেন। আবার অনেককেই সতর্ক করতে দেখা গেছে। নিরাপত্তাকর্মীরা চলে গেলে ফের আগের মতো মাস্ক খুলে বেচাবিক্রি করছেন দোকানিরা। একজন নিরাপত্তাকর্মী বলেন, আমারা নিয়মিত সাবধানতা অবলম্বন করছি। স্বাস্থ্যবিধি মানতে মাইকে প্রচার করছি। নিয়মিত প্রতিটি লেভেলে অভিযান চালাচ্ছি। তবুও অনেক ক্রেতা বিক্রেতা সচেতন হচ্ছেন না। তবে অন্যান্য শপিংমলের তুলনায় এখানকার অবস্থা অনেক ভালো। গাউছিয়া মার্কেটে গিয়ে দেখা যায়, প্রবেশমুখে মানুষের উপচে পড়া ভিড়। মানা হচ্ছে না কোনো ধরনের স্বাস্থ্যবিধি। কিছুসংখ্যক ক্রেতার মুখে মাস্ক থাকলেও বিক্রেতাদের মুখে তাও নেই। কয়েকজন ব্যবসায়ী জানান, অনেক দিন পর মার্কেট খোলায় ক্রেতাদের উপস্থিতি বেড়েছে। এতে অনেক গরম লাগছে। মাস্ক পরে বেচাবিক্রি করতে সমস্যা হয়। দরদাম করা যায় না। একই অবস্থা রাজধানীর নিউ মার্কেটে। মার্কেটের প্রবেশমুখে নেই কোনো ধরনের জীবাণুনাশক টানেল। দোকানিদের মধ্যে নেই কোনো ধরনের স্বাস্থ্যবিধি। ব্যবসায়ীরা বলছেন, করোনার কারণে ব্যবসা মন্দা যাচ্ছে। এর মধ্যে গত কয়েকদিন দোকান খুলতে পারিনি। স্বাস্থ্যবিধি মেনে দোকান খোলা রাখলেও ক্রেতারা আসছেন না। এতে আমরা ক্ষতির মুখে পড়েছি। সরকারের দেয়া স্বাস্থ্যবিধি যতটুকু সম্ভব আমরা মেনে চলার চেষ্টা করছি।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

কাজি

২০২১-০৪-১৩ ২২:৩৭:০১

তারপর হাসপাতালে জায়গা পাবে না। তখন চেঁচামেচি করবে সরকার ব্যবস্থা নেয়নি। দোষারোপ করে মৃত্যু ঠেকাতে তো পারবে না। মৃত্যুর পথে গেলে মৃত্যু অবশ্যম্ভাবী। তাই বিধি মানুন। রোগ কে দূরে রাখুন। PREVENTION is better than cure.

আপনার মতামত দিন

শেষের পাতা অন্যান্য খবর

খালেদা জিয়ার অবস্থা স্থিতিশীল

১৮ মে ২০২১

রাজধানীর এভার কেয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল রয়েছে। অক্সিজেন ...

পুলিশের এএসআই বরখাস্ত

কোয়ারেন্টিনে থাকা ভারতফেরত তরুণীকে ধর্ষণ

১৮ মে ২০২১

খুলনা মহানগরীতে ভারতফেরত  কোয়ারেন্টিনে থাকা এক তরুণী (২২)কে ধর্ষণের অভিযোগে মোখলেছুর রহমান নামে পুলিশের এক ...

রিমান্ড শেষে কারাগারে বাবুল

১৮ মে ২০২১

চট্টগ্রামে আলোচিত মাহমুদা খানম মিতু হত্যায় পাঁচদিনের রিমান্ড শেষে তার স্বামী সাবেক পুলিশ সুপার বাবুল ...

সরকার লকডাউন নয়, দিয়েছে ক্র্যাকডাউন

১৮ মে ২০২১

বিএনপি’র মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, সরকার নামে মাত্র লকডাউন দিয়েছে। কিন্তু এর আড়ালে ...

করোনায় আরো ৩২ জনের মৃত্যু

১৮ মে ২০২১

করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর সংখ্যা বেড়েছে। একইসঙ্গে বেড়েছে শনাক্তের হারও। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত ...

করোনায় আরো ২৫ জনের মৃত্যু

১৭ মে ২০২১

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্ত হয়েছেন ৩৬৩ জন। এই নিয়ে দেশে সরকারি হিসাবে এখন ...

লকডাউনের মেয়াদ ২৩শে মে পর্যন্ত বাড়িয়ে প্রজ্ঞাপন জারি

১৭ মে ২০২১

চলমান লকডাউনের (বিধিনিষেধ) মেয়াদ আরো এক সপ্তাহ বাড়িয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে সরকার। ফলে করোনাভাইরাস সংক্রমণ ...



শেষের পাতা সর্বাধিক পঠিত



DMCA.com Protection Status