নানা আলোচনা, ফেসবুক লাইভে যা বললেন মামুনুল হক

স্টাফ রিপোর্টার

অনলাইন (১ মাস আগে) এপ্রিল ৮, ২০২১, বৃহস্পতিবার, ৪:০৭ অপরাহ্ন | সর্বশেষ আপডেট: ১০:৪২ পূর্বাহ্ন

হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মামুনুল হক বলেছেন, ইসলামে চারটি বিয়ের অনুমোদন দেয়া হয়েছে। দেশের আইনেও একাধিক বিয়েতে বাধা নেই। কাজেই আমি দ্বিতীয় বিয়ে করেছি এতে কার কী? যদি আমি স্ত্রীদের কোনো অধিকার থেকে বঞ্চিত করে থাকি, তবে আমার বিরুদ্ধে আমার পরিবার অভিযোগ দিতে পারে। কিন্তু আজ পর্যন্ত কেউ কি দেখাতে পারবে যে আমার পরিবার কোনো বিষয়ে আমার বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ দিয়েছে? তিনি বলেন, আমার স্ত্রীর সঙ্গে আমি কি কথা বলবো না বলবো সেটা আমার ব্যক্তিগত ব্যাপার। কিন্তু আমার ব্যক্তিগত ফোনালাপ ফাঁস করে আমার ব্যক্তিগত অধিকার ক্ষুন্ন করা হয়েছে। এটি যেমন দেশের আইনেও অপরাধ তেমনি ইসলামী বিধানেও চরম গুনাহের কাজ। সুতরাং আমার ব্যক্তিগত ফোনালাপ যারা ফাঁস করেছে তাদের বিরুদ্ধে আমি আইনি ব্যবস্থা নেব। আজ এক ফেসবুক লাইভে এসে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, যেভাবে একেরপর এক মানুষের ব্যক্তিগত ফোনালাপ ফাঁস করা হচ্ছে, এটি দেশের জন্য ভালোকিছু বয়ে আনবে না। মাওলানা রফিকুল ইসলামকে গ্রেপ্তার করে তার নামেও অপবাদ দেয়া হয়েছে। তিনি বলেন, এইযে এতোগুলো ফোনালাপ ফাঁস করা হল তাতে কি প্রমান মিলেছে যে সে আমার বিবাহিতা স্ত্রী নয়? অথচ শুধু শুধু আমার একান্ত ব্যক্তিগত কথাগুলো কোন উদ্দেশ্যে ফাঁস করা হল?
আমি সেদিন নারায়নগঞ্জের রয়াল রিসোর্টে যে ঘটনা ঘটেছে সেটি নিয়ে প্রশ্ন করা হয়েছে যে আমি কেন এই পরিস্তিতিতে রিসোর্টে গেলাম। হ্যা আমি স্বীকার করছি যে এমন অসাবধানতাবশত সেখানে আমার যাওয়া সমীচিন হয়নি। তবে আমি জানতাম না যে দেশের মানুষের ব্যক্তিগত নিরপাত্তা চরমভাবে ভেঙ্গে পড়েছে। সন্ত্রাসীরা আমার চরিত্র হরনের উদ্দেশ্যে পরিকল্পিতভাবে এই ঘটনা ঘটিয়েছে।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Md Imtiyaz Imti

২০২১-০৪-০৮ ১৬:৫৩:০৮

মামুনুল হকের পরিবার,বন্ধু-বান্ধব,প্রতিবেশি সবাই দ্বিতীয় বিয়ের কথা জানে;শুধু প্রথম স্ত্রী বাদে। ফ্যাক্টঃমানবিক বিয়ে

Abu Saleh Chy

২০২১-০৪-০৮ ২৩:৫০:০৩

"আমার স্ত্রীর সঙ্গে আমি কি কথা বলবো না বলবো সেটা আমার ব্যক্তিগত ব্যাপার "। হা তা হয়তো ব্যাক্তিগত ব্যাপার তবে স্ত্রীর সাথে সে কথা গুলি যখন সত্য বলে স্বীকার করলেন তখনই প্রমাণিত হয় যে যেসব ওয়াজ নসিয়ত করেন নিজের জন্যে নয় এবং ইসলামের জন্যে নয়, তবে আর সকলের জন্যে। সবাই যেন ইসলামিক নিয়ম -কানুন মেনে চলে। নিজেকে ইসলামিক নিয়ম -কানুন মানতে হবে না বা এর উর্ধে স্থাপন করলেন !?!?!? যদি তা না হয় আর যথারীতি দ্বিতীয় স্ত্রী হয় তবে কিভাবে প্রথম স্ত্রী জানেনা এবং ফোনে তাকে এই , ঐ বলে বুজাতে হয় ও বাসাতে ফিরলে সব বুজিয়ে বলব বলা হয় ? ইসলামে বহু বিবাহের অনুমোদন আছে যুক্তিক কারণে ঘরে থাকা স্ত্রীর অনুমতি নিয়ে। সেচ্ছাচারীভাবে ভোগের জন্যে নয়। আর তাই হলো ইসলামিক নিয়ম - কানুন না মেনে চলা বা নিয়ম - কানুন এর উর্ধে চলে যাওয়া।

Mohammed Nurul Kalam

২০২১-০৪-০৮ ২১:২৬:৪২

Why there are black spot on your forehead? Prostration/Sijdah does not make any black spot at all if you know how to do prostration. Is it making your wife happy or cheating with your wife? To tell a lie is a great sin in Islam. How many relations now do you have 2 or more? Messenger Muhammad PBUH advised if someone want to be a good person; that person had to give up only one thing first that is "Telling lie".

Masud

২০২১-০৪-০৮ ০৭:৫৮:৪৭

এখন পর্যন্ত এবং আগামী কয়েক দশক বাংলাদেশে আওয়ামী লীগের বিকল্প হিসেবে বিএনপি ই থাকবে। আওয়ামী লীগের যখনই পতন হোক না কেন তখন ক্ষমতায় আসবে বিএনপি। একথা না বুঝে যেসকল হুজুর আন্দোলন করছে তা নিতান্তই বোকামি। কোন দেশের ক্ষমতায় আসতে হলে 50% জনমত থাকতে হবে যা বর্তমানে বিএনপির আছে।

SJ

২০২১-০৪-০৮ ০৭:৫৪:৫৪

মামুনুল হক সাহেব আপনি আমার এ মতামত পাঠ করে থাকলে অনুসরন করুন। আপনার সবকিছু ঠিকঠাক থাকলেও আপনার ধৈর্য অত্যন্ত কম মাত্রায় আছে। ইসলাম সংযম ও দৈর্যকে সমর্থন করে। আপনি কথা বলে বুঝানোর চেয়ে নীরবতা আপনাকে বর্তমান ও অতীত সংকট থেকে ভবিষ্যতে মুক্তি দিবে।

Mahmud

২০২১-০৪-০৮ ০৭:৩৭:৩২

আপনার কথা শুনে মনে হলো না আপনি মানুষের শ্রদ্ধা পাবার যোগ্য কোন আলেম । মানুষ ভুল করতেই পারে । যদি সে ভুল স্বীকার করে অনুশোচনা বা দুঃখ প্রকাশ করে তা'হলে বুঝতে হবে তার মধ্যে সংশোধনের ইচ্ছে আছে এবং একই ভুলের পুনরাবৃত্তি হবার সম্ভাবনা কম । কিন্তু আপনার কথাবার্তা শুনে মনে হচ্ছে আপনি একটা গোঁয়ার এবং অসভ্য । আপনার যারা অনুসারী তারা যদি আপনার কিসিমেরই হয় তা'হলেতো আমাদের জন্য আতঙ্কের অনেক কারন আছে । আপনি হেফাজতে ইসলাম নামক বিশাল সংগঠনের ষুগ্ম সাধারন সম্পাদক । সারাদেশের মানুষ ইদানিং আপনার নাম জানে । আপনার প্রতিটি আচরনের প্রতি মানুষের আগ্রহ থাকবে । আপনার চরিত্রের যদি কোন বিচ্যুতি প্রকাশ্যে আসে , সেটা নিয়ে মানুষ আলোচনা করবে , চুলচেরা বিশ্লেষন করবে এবং মিডিয়ারও নিশ্চুপ বসে থাকার কথা নয় । এটা যদি আপনি না জানেন , তা'ঽলে এতো বড় এবং গুরুত্বপুর্ন পদে আপনি আসলেন কীভাবে ? আপনি একাধিক বিয়ে করতে পারেন , কিন্তু তার শর্তগুলো কি সেটা এখানে আনিস উল হক সাহেব অত্যন্ত সুন্দরভাবে ব্যাখ্যা করেছেন । আপনি যেভাবে দ্বিতীয় বিয়ে করেছেন সেটা দেশের প্রচলিত আইনেও শাস্তিযোগ্য অপরাধ । আমরা আপনার বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থার প্রত্যাশায় থাকলাম ।

Md Alamgir hossain

২০২১-০৪-০৮ ০৭:৩১:৩৫

Why come live now?

Badsha Wazed Ali

২০২১-০৪-০৮ ১৯:৪২:৫৬

একজন বড় মাপের আলেম আপনি। নেতাও বটে। আপনার একটি পরামর্র্শ কমিটি থাকবে। আপনার কোন কাজটি করতে হবে, তাদের থেকে আলোচনা আসতে হবে। সেটা আপনি করেননি। এটা আপনার মারাত্মক ভুল। সরকারের বিরুদ্ধে কোন সমালোচনা করতে হলে এতো উত্তেজিত হলে, আপনার সাথে আর সাধারণ রাজনীতিবীদদের পারথক্য থাকলো কোথায়? যারা মৃত্যবরন করেছেন, আপনার আদর্শের জন্য, তাদের ভুল শুধরানোর আর কোন সুযোগ থাকলো না। কারণ, তারা মৃত। আপনার কারনে, কউমি শিক্ষা হুমকির মুখে। সরকারের সিদ্ধান্তের বাইরে সব অচল। সেটা বুঝতে হবে। আপনাকে নসিহত করার সাধ্য আমার নেই। তবে, আপনার উচিৎ প্রতিটি কথা আলোচনা করে বলা। পদত্যাগের কথা বলবো না। সেটা সমাধান নয়।

M I Khan

২০২১-০৪-০৮ ১৯:২২:২৮

তার মানে ২ টা পাওয়া গেল বাকি ২ টা থাকলে এখনই জানান, পরে আবার ধরা খাবেন! ছি;

Mahbub

২০২১-০৪-০৮ ০৪:৫৫:১৫

As a citizen of Bangladesh I, want to know what are doing our law enforcement agency? Why Mamun move freely? We would like to see Mr. Mamun behind the bar and punish him according to the land law

খোকন

২০২১-০৪-০৮ ০৪:৩৮:৪৫

আপনি বলেছেন ইসলামে ৪টি বিবাহ করার অনুমতি দিয়েছেন কিন্তু কেনো দিয়েছেন, সেটা আপনি বলেন নাই ? আপনারা কথায় কথায় মুহামদ সা: সুন্নাত পালন করে বিয়ে করেন কিন্তু সে তো আনন্দের জন্য বিয়ে করেন নাই ? সেই কালের ইসলাম ধর্ম প্রচারের জন্য, সে বিয়ে করেছেন ? কিনতু আপনি ? আপনি ক্লান্ত হয়ে চুরি করে বিয়ে করে, সেই বউকে নিয়ে প্রথম স্ত্রীকে না জানিয়ে বাড়ি থেকে মাত্র ২৫/৩০ কিলোমিটার দূরে হোটেলে গিয়েছেন ? সেটা তো আপনার প্রথম স্ত্রীর ই প্রাপ্য ছিল ? আপনার ক্ষেত্রে সরকারে দায়িত্ব আছে, গোপনীয়তা রক্ষা করা এবং প্রকাশ করা।

আনিস উল হক

২০২১-০৪-০৮ ০৪:১৮:৩৭

প্রথম স্ত্রী থাকা অবস্থায় দ্বিতীয় বিয়ে করার আগে তার প্রয়োজনীয়তা দেখিয়ে অনুমতি পাওয়ার জন্যে ইউনিয়ন পরিষদ /পৌরসভায় দরখাস্ত করতে হয়। সেখানে পাঁচ সদস্য বিশিষ্ট শালিস পরিষদ গঠন করা হয়। দুজন সদস্য স্ত্রীর দুজন স্বামীর মনোনয়নকৃত হয় এবং একজন থাকেন নিরপেক্ষ। দ্বিতীয় বিয়ের অনুমতি দেয়া হয় তিনটি কারণে-১।স্ত্রী সন্তানহীন হলে২।স্ত্রীর কোন দূরারোগ্য রোগ থাকলে ৩।শারিরীক ভাবে স্ত্রী যৌনমিলনে অসমর্থ হলে।শালিস পরিষদ অনুসন্ধান করে যদি কোন একটি কারণ খুঁজে পায় তাহলে স্বামী কে দ্বিতীয় বিয়ে করার লিখিতভাবে অনুমতি দিবে। শালিস পরিষদের অনুমতি ছাড়া দ্বিতীয় বিয়ে করা ১৯৬১ খ্রিস্টাব্দের পারিবারিক আইন অধ্যাদেশের ৬(৫) ধারায় দন্ডযোগ্য অপরাধ।যার দন্ড হোল ১বছর জেল বা ১০ হাজার টাকা অর্থ দন্ড। আর বিয়ে করে ৬ মাসের মধ্যে নিকাহ রেজিষ্ট্রার এর কাছে তা রেজিষ্ট্রি না করাও রাষ্ট্রিয় আইনে দন্ডযোগ্য অপরাধ। জনাব মামুনুল হক তাঁর নিজের ক্ষেত্রে দেশের এই দুটি আইন লংঘন করা বিষয়ে কি ব্যাখ্যা দিবেন?

ওমর ফারুক

২০২১-০৪-০৮ ০৪:১৫:৩০

সেদিন আপনার সঙ্গিয় নারীর নাম কি লিখেছিরেন রিসোর্টের ডায়রিতে ও কেন তা করেছিলেন? এ কি ইসলাম ও শরিয়া সম্মত?

সাইফুলইসলাম

২০২১-০৪-০৮ ১৭:১৩:১৪

আপনি সীকারুক্তী দিলেন যে ফেনালাপ আপনার ?

জাফর আহমেদ

২০২১-০৪-০৮ ০৩:৪৬:২৭

ধরে নিলাম আপনি সঠিক কথা বলছেন, তাহলে আজকে পর্যন্ত আপনি কেন কোন মামলা দায়ের করেননি, যেখানে আপনার নামে মামলা দায়ের করা হয়েছে, অথচ আপনার কাছে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করার যথেষ্টই প্রমান রয়েছে,

SUZA

২০২১-০৪-০৮ ১৬:২৬:৪০

U R WRITE

Aminul HAQUE

২০২১-০৪-০৮ ১৬:২১:৫৯

Whatever you can say or invent,, It's up to you. You have lost your credibility.

আবুল কাসেম

২০২১-০৪-০৮ ০৩:১৯:৫৩

আপনার নেতৃত্বে সারা দেশে বিক্ষোভ হয়েছে। মিছিল হয়েছে। গুলিতে যাঁরা নিহত হয়েছেন তাদের রক্তের দাগ না শুকাতেই আপনি গা ঝাড়া দিয়ে বের হয়ে পড়েছেন। এটা কি কোনো মামুলি ব্যপার? আপনার পেছনে বহু লোকের সমর্থন আছে এই আত্মপ্রসাদে যদি পেয়ে বসে তাহলে পরাজয় অনিবার্য। কিন্তু দেখা যাচ্ছে, যারা ইসলামের পক্ষে কাজ করেন মনে হচ্ছে তারা যেনো মাঝে মধ্যে কিছুটা হলেও পথের ভারসাম্য হারিয়ে ফেলেন। বিশ কোটি জনগণের মধ্যে অন্তত কতো কোটি ঘোরতর সমর্থক হলে শক্তি প্রদর্শনের অন্তত কিছুটা ফল পাওয়া যাবে তা বিবেচনায় রাখতেই হবে। নিজেদের আদর্শের পক্ষে ব্যপক আকারে জনমত ও দূরদর্শী নেতৃত্ব গড়ে তোলা ছাড়া লক্ষ্য হাসিল অধরাই থেকে যাবে। কিন্তু এজন্যে শক্তি প্রদর্শন হিতে বিপরীত হবে। মিয়ানমারের সেনা বিরোধী আন্দোলনে পেশাজীবি সহ গরিষ্ঠ জনগণ একাট্টা হওয়ার পরেও অবলীলায় প্রাণ দিয়ে যাচ্ছে, কিন্তু শক্তি প্রদর্শন থেকে বিরত থাকছে। বঙ্গবন্ধু পাকিস্তানীদের জুলুম, নির্যাতন ও বৈষম্যের বিরুদ্ধে ২৩ বছর ধরে অবিরাম জনমত গঠনের কাজে আত্মনিয়োগ করেছেন। কিন্তু কস্মিনকালেও শক্তি প্রদর্শন করেননি। ঢাকা, চট্টগ্রাম, রাজশাহী ও খুলনা সহ বিভিন্ন স্থানে আওয়ামী লীগের কর্মীদের গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। বঙ্গবন্ধু চরম ধৈর্যের পরিচয় দিয়েছেন। কর্মীদের কখনো সহিংস হতে দেননি। এরপর যখন সকল প্রকার আপোষের রাস্তা বন্ধ করে দিয়ে ২৫ মার্চের কালোরাতে টিক্কা খানের নির্দেশে ঘুমন্ত মানুষের ওপর সামরিক জান্তা ঝাঁপিয়ে পড়ে তখন বাংলার দামাল ছেলেরা গেরিলা যুদ্ধের প্রস্তুতি গ্রহণ করে। কিন্তু তাও সম্ভব হয়েছে ভারতের প্রত্যক্ষ সহযোগিতায়। ভারতের সাহায্য সহযোগিতা না থাকলে বাংলাদেশের মাটিতে মুক্তি যুদ্ধের সংগঠন ও গেরিলা বাহিনীর ট্রেনিং কিছুতেই সম্ভব হতোনা। ভাবনার বিষয় হচ্ছে ইসলাম পন্থীদের দিকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে আসার আশেপাশে কেউ নেই। তাই অহেতুক আবেগ নিয়ন্ত্রণে রাখাটা খুবই জরুরি। এখনো দেখা যাচ্ছে বিরোধী শিবিরে 'ওমর' ও 'খালেদ বিন ওলীদ'-এর মতো গুণী নেতৃত্ব রয়ে গেছে। তাই নিরলস ও নিরবচ্ছিন্ন ভাবে হকের দাওয়াত জারি রাখাটাই একমাত্র কাজ হওয়া উচিত। তবে ভেতরের হিসেবের যা-ই হোক না কেনো আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক হিসেব নিকেশ একটি গুরুত্বপূর্ণ ফ্যক্টর। অতীতের মতো দাওয়াতের কাজেও বিরোধিতা হবে সন্দেহ নেই। এভাবেই ত্যাগী নেতৃত্ব গড়ে ওঠার চিরন্তন নিয়ম। পথিমধ্যে আবেগ তাড়িত হয়ে পাতানো সংঘর্ষে পা দিয়ে নিঃশেষ হওয়া থেকে সতর্ক থাকাটাই একটা চ্যলেঞ্জ। দেশের অভ্যন্তরীণ রাজনৈতিক সমীকরণ, আঞ্চলিক ও বৈশ্বিক প্রভাব-পরিবেশ ইসলামের আনুকুল্যের বিপক্ষেই চরম রূপে বিদ্যমান। দেশের মধ্যে ইসলামের রাজনীতি মানে সাম্প্রদায়িক অপশক্তি। আর ইউরোপ ও মার্কিন মুল্লুকে সন্ত্রাসী কার্যক্রম। তাই দেশে-বিদেশে তাদের তেমন কোনো শক্তিশালী মিত্র দেখা যায়না। মধ্যপ্রাচ্য আমেরিকা ও ইসরায়েলের কুটিল রাজনীতির ঘূর্ণাবর্তে নিপতিত। এমতাবস্থায় ধৈর্যের চরম পরাকাষ্ঠা প্রমাণের পরীক্ষায় অবতীর্ণ হওয়া ছাড়া উপায় নেই এবং এ পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে না পারলে সবকিছু চোখের নিমিষেই নিঃশেষ হয়ে যাবে। সবর একটি মহৎ গুণ। যারা হাজারো উস্কানির মুখেও সবর করে, ধৈর্য ধারণ করে সর্বশক্তিমান আল্লাহ তায়ালা স্বয়ং তাদের সঙ্গী হয়ে যান। আল্লাহ তায়ালা যাদের সঙ্গে থাকেন তাদের পরাজয় অসম্ভব। যতোদিন ইসলামের আদর্শকে দেশের ভেতরে-বাইরে মোটামুটি গ্রহণ যোগ্য করা না যাবে ততোদিন মক্কী জীবনের পরীক্ষায় অবতীর্ণ থাকতেই হবে। কথা বলার সময় মুখের লাগাম টেনে ধরতে হবে। সুন্দর আচার ব্যবহার ও সম্মানজনক আলাপ আলোচনা করতে হবে। কথাবার্তায় আক্রমনাত্মক হওয়া এবং কারো সম্মানে আঘাত করা বিষ পানের শামিল। উগ্র আচরণ আত্মঘাতী হবে। উস্কানির মুখেও সবর ও সংযম প্রদর্শন করতে হবে। তাই দাওয়াতের ক্ষেত্রে আল্লাহ তায়ালা যে নিয়ম নীতি অবলম্বন করতে বলেছেন অক্ষরে অক্ষরে তা রক্ষা করতে হবে। ইরশাদ হচ্ছে, 'হে নবী, সৎ কাজ ও অসৎ কাজ সমান নয়। তুমি অসৎ কাজকে সেই নেকি দ্বারা নিবৃত্ত করো যা সবচেয়ে ভালো। তাহলে দেখবে যার সাথে তোমার শত্রুতা ছিলো সে অন্তরঙ্গ বন্ধু হয়ে গিয়েছে। ধৈর্যশীল ছাড়া এগুণ আর কারো ভাগ্যে জোটেনা। এবং অতি ভাগ্যবান ছাড়া এ মর্যাদা আর কেউ লাভ করতে পারেনা। যদি তোমরা শয়তানের পক্ষ থেকে কোনো প্ররোচনা আঁচ করতে পারো তাহলে আল্লাহর আশ্রয় প্রার্থনা করো। তিনি সবকিছু শোনেন এবং জানেন।' সূরা হা-মীম আস্ সাজদাঃ৩৪-৩৬। জটিল ও কুটিল রাজনীতির আবর্তে একবার নিপতিত হলে সেখান থেকে ওঠে আসা খুবই কঠিন হবে। ইসলামী আদর্শের বৈশ্বিক গ্রহণ যোগ্যতা নেই বলে মিশর, আলজেরিয়া, সুদান, মালয়শিয়া ও বাংলাদেশের ইসলাম পন্থীদের জয়-পরাজয় এপিট-ওপিট লেপ্টে আছে। সুতরাং, কুরআনে বর্ণিত দাওয়াতী কাজের নীতিমালা অনুসরণ করে দাওয়াতের সম্প্রসারণে মনোযোগী হওয়ার বিকল্প নেই।

আপনার মতামত দিন

অনলাইন অন্যান্য খবর

সরকারি নথি সরানোর অভিযোগ

প্রথম আলোর সাংবাদিককে আটকের পর পুলিশে সোপর্দ

১৭ মে ২০২১



অনলাইন সর্বাধিক পঠিত



জেরুজালেম পোস্টের মূল্যায়ন

ছোট যুদ্ধে ইসরাইল, দীর্ঘ যুদ্ধে জিতবে হামাস

DMCA.com Protection Status