যাত্রীরা যাবে কোথায়?

পিয়াস সরকার

মত-মতান্তর ১ এপ্রিল ২০২১, বৃহস্পতিবার | সর্বশেষ আপডেট: ৫:১৫ অপরাহ্ন

রাজধানীবাসীর বাস ভাড়া এক টাকা বৃদ্ধি পেলেও সিংহভাগ যাত্রীর সমস্যা দেখা দেয়। মানবজমিন লাইভে এমনটাই বলেছিলেন বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতির (বেলা) প্রধান নির্বাহী সৈয়দা রিজওয়ানা হাসান।

সকালে অফিসগামী যাত্রীদের দেখলে একটা মায়া হয়। সবার মুখে কেমন একটা শঙ্কা। মুখ ফুটে না বললেও, চিন্তার স্থানজুড়ে সময়মতো অফিসের দরজায় পা দিতে পারবো তো। আর নারীদের ভোগান্তিতো চরম। প্রায়শই চালকদের বলতে শোনা যায়, এই ব্যাটা মহিলা উঠাইস না।

যাক এভাবেই অভ্যস্ত ছিলো রাজধানীর অফিসগামীরা। প্রায়শই যাত্রীরা বলেন, বাদুর ঝোলা হয়ে বাসে উঠি বা অফিসে এসেছি। হঠাৎ সেই বাদুর ঝোলাটাও বন্ধ।
কারণ, করোনার সংক্রমণ বাড়ছে। বাসে বজায় রাখতে হবে দূরত্ব। এক সিট ফাঁকা করেই চলছে বাসগুলো।

বাসের সিট ফাঁকা করে আগেও চলেছি আমরা। তখন অবস্থা ছিলো ভিন্ন। চলছিলো সাধারণ ছুটি। অফিস, আদালত পাড়ায় ছিলো না কাজ। কিন্তু এখন অফিস চলছে পুরোদমে। যেখানে স্বাভাবিক সময়ে অফিসগামীদের বাস মেলা দায় সেখানে নতুন নিয়মে তারা কিভাবে গন্তব্যে পৌঁছাবেন? বাড়ানো হয়েছে কি বাসের সংখ্যা? না। কিন্তু এই যাত্রীদের যেতেতো হবেই অফিস পাড়ায়। তারা যাবেন কিভাবে?

বাস মেলা দায়। মোটর সাইকেলে করে গন্তব্যেও পথে পাড়ি দেবেন, তারও উপায় নেই। বন্ধ রাইড শেয়ারিং। কর্মের নগরী রাজধানী ঢাকা। বলা যায়, অভিযোগের নগরীও। সমাধান না মেলায় নীরবেই মেনে নিচ্ছি আমরা। বর্ষায় পানি, রাস্তা কাটা, যানজট ইত্যাদি ইত্যাদি। এবার রাজধানীবাসী বঞ্চিত বাসে বাদুর ঝোলা হওয়া থেকে। আর সেইসঙ্গে বাসের ভাড়া বৃদ্ধির সমস্যাতো আছেই।

মরণব্যধী করোনারোধে অর্ধেক সিট ফাঁকা রেখে যানবাহন চলাচল হয়ত যৌক্তিক। এটা নিয়ে আলোচনা হতে পারে। অর্ধেক লোকবল দিয়ে অফিস চালানোর কথা বলা হয়েছিল। সে সিদ্ধান্ত কার্যকরের আগেই কোন বিকল্প না রেখে সাধারণ যাত্রীদের ভোগান্তিতে ফেলাটা কতোটা যৌক্তিক?
এরই ফল স্বরূপ যাত্রীরা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন সড়কে। তাদের দাবি বাসে উঠতে চাই। আর পেটে দায়ে মোটর সাইকেল চালানো ব্যক্তিরাও একট্টা হয়েছেন যাত্রীর জন্য। দাবি তুলেছেন কর্মের, চারটা ডাল ভাতের।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Md. Shahid ullah

২০২১-০৪-০১ ১৯:০৯:০২

আগে আসা যাওয়া খরচ হতো 25 টাকা করে 50 টাকা। এখন 40 করে 80 টাকা। যাত্রীও বেশি টাকাও বেশি। বাস্তবে কী কায়িক পরিশ্রমীদের করনার হার বেশি নাকি অন্যদের তা তো ভাবা উচিত ছিল। বাড়তি টাকাটা কোথা থেকে ম্যানেজ হবে তাকি “উন্নয়ন” কান্ডারীরা ভাবেন না?

Rahat -Al-Rabbany

২০২১-০৪-০১ ১৭:৫৯:৩২

sorker matha chintha raktha hoybe, buser sonkha na bari emon sindato neowha thikno.

Masum

২০২১-০৪-০১ ০৪:৫৭:১৮

ঢাকা শহরে গনপরিবহন জনসংখ্যার তুলনায় খুবই অপ্রতুল । সব অফিসই চলছে পুরোদমে । যেখানে মানুষকে বাসে বাঁদুর ঝুলে অফিসে যেতে হয় সেখানে কোন্ বিবেচনায় বাসে যাত্রীদের বহন ক্ষমতা অর্ধেকে নামিয়ে আনা হলো ?সরকারেরতো উচিত ছিলো সরকারী/বেসরকারী সব অফিসকে নির্দেশ প্রদান করা যে তারা যেনো অর্ধেক জনবল দিয়ে অফিস চালায় । বাকী অর্ধেক অফিস করবে ভার্চুয়াল । সেটা না করে , বাসের ধারন ক্ষমতা অর্ধেকে নামিয়ে এনে অফিসগামী নগরবাসীকে এতো বড় ভোগান্তির মধ্যে ফেলা একটি খারাপ কাজ ছাড়া আর কিছুই নয় । যারা সিদ্ধান্ত নেন তারা গনপরিবহনে চড়েন না । তারা কায়েমী সার্থের কথা আগে ভাবেন বলেই ৬০% ভাড়া বৃদ্ধির সিদ্ধান্তটি সবচাইতে আগে নিয়েছে । সাধারন মানুষের স্বার্থের কথা চিন্তা করলে এমন সিদ্ধান্ত কখনোই নিতে পারতো না ।

আপনার মতামত দিন

মত-মতান্তর অন্যান্য খবর

করোনা আক্রান্ত হালখাতা

বিদায় নিয়েছে পান্তা ইলিশ, পুরনো ছবিতেই বৈশাখ

১৫ এপ্রিল ২০২১

আশুগঞ্জ গণহত্যা দিবস

১৩ এপ্রিল ২০২১

এটাও দেখতে হলো!

২৭ মার্চ ২০২১



মত-মতান্তর সর্বাধিক পঠিত



হাজী সেলিমপুত্র ইরফানকাণ্ড

আল্লাহর মাইর, দুনিয়ার বাইর

ড্রাইভার মালেকের বালাখানা

দরজা আছে, দরজা নেই

আইন পেশায় বিরল এক মানুষ ব্যারিস্টার রফিক-উল-হক

অ্যাটর্নি জেনারেল পদে বেতন নেননি, লড়েছেন দু'নেত্রীর মামলা নিয়ে

DMCA.com Protection Status