বিদেশে থেকে দেশের পক্ষে কথা বলা যাবে না, লিখলে বলবে দেশের সমালোচনা করছি

ড. জিয়াউদ্দিন হায়দার

ফেসবুক ডায়েরি ২৪ মার্চ ২০২১, বুধবার | সর্বশেষ আপডেট: ৪:২৪ অপরাহ্ন

অর্থনৈতিকভাবে বাংলাদেশের চেয়ে কম্বোডিয়া অনেক বেশি অনুন্নত। সামাজিক উন্নয়নের বিভিন্ন সূচকেও পিছিয়ে। অথচ কম্বোডিয়ায় এখন পর্যন্ত করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ১৭৮৮ জন, আর মারা গিয়েছেন ৩ জন। আক্রান্ত হওয়া আর মারা যাওয়ার হার এই বছরের প্রথম মাস পর্যন্ত একেবারেই কম ছিল। কিন্তু গত ২০ ফেব্রুয়ারি থেকে দেশটিতে সর্বপ্রথম করোনার কমিউনিটি ট্রান্সমিশন শুরু হয়। যার পরিপ্রেক্ষিতে বেশ দ্রুতই দেশটিতে নতুন সংক্রমণের হার বাড়তে থাকে। স্কুল-কলেজ অনেক আগে থেকেই বন্ধ ছিল। নতুন করে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা বাড়তে থাকায় এখানে সকল জনসমাবেশ সহ সরকারি এবং সামাজিক অনুষ্ঠান, খেলাধুলা, আনন্দফুর্তি, সবই আপাতত বন্ধ রয়েছে।
বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া লোকজন রাস্তায় বের হচ্ছেন না। সীমিত আকারে পালা করে সবাই অফিস এবং ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে যাচ্ছেন। মাস্ক ছাড়া রাস্তায় মানুষজন দেখা যায় না বললেই চলে। করোনাকে সম্মলিতভাবে প্রতিহত করার মানসিকতা সবার মধ্যেই কমবেশি আছে।

অন্যদিকে, বাংলাদেশের কথা লিখতে ভয় হয়। কারণ লিখলেই বন্ধুরা বলবেন আমি নিজ দেশের সমালোচনা করছি। বিদেশে বসে বড়বড় কথা বলছি। দেশে আসি, দেশে থাকি .....তার পর পরিবেশ-পরিস্থিতি বুঝে কথা বলা যাবে।

@আমরা বিভিন্ন বর্ষ, দিবস, ইত্যাদি পালনের নামে
দেশপ্রেমিকের খাতায় নাম লেখাবো - তাতে তোমার কি?
@আমরা রাস্তায়-রাস্তায় মিটিং মিছিল করে দেশ উদ্ধার করবো - তাতে তোমার কি?
@আমরা ধর্মীয় সমাবেশ করে বেহেশতবাসি হবো - তাতে তোমার কি?
@আমরা বিয়ে-শাদীতে আনন্দ করে কচ্চি বিরিয়ানি খাবো - তাতে তোমার কি?
@আমরা কক্সবাজার-কুয়াকাটায় সঙ্গীসাথী নিয়ে সমুদ্রমন্থন করবো - তাতে তোমার কি?
@আমরা পকেটের পয়সা দিয়ে পাড়ার দোকানে চা বিস্কুট সহ বন্ধুদের সাথে গপ্পো করবো - তাতে তোমার কি?

তোমার বৃদ্ধ মা-বাবা, বৌ-স্বামী, বোন-ভাই, অসুস্থ? অক্সিজেন দরকার? চিকিৎসক নেই? ঔষধ নেই? হাসপাতালে শয্যা নেই? আইসিইউ তে জায়গা নেই? মারা যাচ্ছে? কবরে জায়গা নেই? আলহামদুলিল্লাহ। দোয়া করি। আল্লাহ সহায় হোক। বিপদ-আপদ থেকে দূরে রাখুক। আমাদের কিছুই হবে না। আর হলেইবা কি করার আছে! আমরা বাঙালি - আমরা স্বাধীন!!!

[লেখকঃ স্বাস্থ্য ব্যবস্থা উন্নয়ন ফোরামের প্রতিষ্ঠাতা। লেখাটি ফেসবুক থেকে নেয়া]

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Mahmud

২০২১-০৩-২৪ ০৮:১৭:১৪

এখানে কম্বোডিয়ার প্রসঙ্গ কেনো আনলেন বুঝলাম না । পৃথিবীর সব উন্নত দেশগুলো যেখানে করোনা নিয়ে হিমসিম খাচ্ছে সেখানে বাংলাদেশ এখন পর্যন্ত অত্যন্ত দগ্খতার সাথে এটাকে মোকাবেলা করেছে । বাংলাদেশকে উদাহরন হিসাবে না টেনে , কম্বোডিয়াকে টানার তো কোন মানে হয় না । আসলে আমদের কিছু মানুষ নিজের দেশের চাইতে অন্য দেশকে বড় করে দেখতে পছন্দ করে ।

আবুল কাসেম

২০২১-০৩-২৪ ০৭:৩৮:২৭

ড. জিয়া উদ্দিন হায়দার যে তথ্য দিলেন তা যেনো মাথায় আকাশ ভেঙে পড়ার মতো! তিনি লিখেছেন, "অর্থনৈতিকভাবে বাংলাদেশের চেয়ে কম্বোডিয়া অনেক বেশি অনুন্নত। সামাজিক উন্নয়নের বিভিন্ন সূচকেও পিছিয়ে। অথচ কম্বোডিয়ায় এখন পর্যন্ত করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ১৭৮৮ জন, আর মারা গিয়েছেন ৩ জন।" তার মানে আমাদের চেয়ে তারা বেশি দরিদ্র। গৃহহীন, কর্মহীন, অশিক্ষিত বেকারের সংখ্যা আমাদের চেয়ে তাদের বেশি আছে। আমাদের চেয়ে বুভুক্ষু মানুষের সংখ্যাও তাদের বেশি থাকার কথা। অর্থনৈতিক সূচকে তারা পিছিয়ে আছে। তাহলে বক্তব্যটির সারমর্ম হলো, বাংলাদেশের চেয়ে অর্থনৈতিকভাবে এবং সামাজিক ও উন্নয়নের বিবিধ সূচকে বহুদূরে পিছিয়ে থাকা কম্বোডিয়া এতোটাই স্বাস্থ্য সচেতন যে, তারা ম্যাজিকের মতো মরন ব্যাধি করোনা ভাইরাস বাংলাদেশের চেয়ে বহু বহু গুণ সফলভাবে নিয়ন্ত্রণ করতে সক্ষম হয়েছে। তারা পালা করে দোকান পাট ও অফিস আদালত খোলে এবং প্রয়োজন ও মাস্ক ছাড়া বাইরে বের হয়না। এখন প্রশ্ন হচ্ছে, কম্বোডিয়ার চেয়ে সকল ক্ষেত্রে এগিয়ে থেকেও আমরা কেনো স্বাস্থ্য বিষয়ে সচেতন হতে পারছিনা। আমরা কম্বোডিয়ার চেয়ে সকল ক্ষেত্রেই এগিয়ে গিয়ে সম্ভবত আবেগের আতিশয্যে আপ্লূত হওয়ার ক্ষেত্রে এগিয়ে গিয়েছি আকাশ পাতাল ব্যবধানে। বিজ্ঞজনেরা বলেন, সাহসী হওয়া ভালো হলেও দুঃসাহসী হওয়া বিপজ্জনক। তেমনি কোনো কোনো ক্ষেত্রে আবেগ সুফল দিলেও আবেগের আতিশয্য ধ্বংস ডেকে আনে। তাছাড়া আমরা সম্ভবত সবকিছুকে রাজনৈতিক রূপ দিতে বেশি সাচ্ছন্দ্যবোধ করি। একটা মহামারী পরিস্থিতির মধ্যেও রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড দেখানো আমাদের ফ্যাশনে পরিনত হয়েছে। আমেরিকা বিশ্বের সবচেয়ে উন্নত দেশ হওয়া সত্ত্বেও ট্রাম্পের উদাসীনতা তাদেরকে মৃত্যুপুরিতে পরিনত করেছে। ইউরোপের বিভিন্ন দেশ উন্নয়নে আমাদের চেয়ে যোজন যোজন এগিয়ে থাকা সত্ত্বেও আমাদের মতো করে মহামারী নিয়ন্ত্রণ করতে সক্ষম হয়নি। তারা অবাধ মেলামেশা ও অনাচার পাপাচারেও আমাদের চেয়ে যোজন যোজন এগিয়ে আছে। এটাই তাদের ব্যর্থতার কারণ। পক্ষান্তরে আমাদের সমাজে অনাচার ও পাপাচার তাদের থেকে অনেক কম। আমাদের সমাজে আলেম ওলামা তথা আল্লাহর ওলী বা বুজুর্গ ব্যক্তির সংখ্যা অনেক বেশি। তাদের উছিলায়ও আল্লাহ তায়ালা আমাদের রক্ষা করতে পারেন। আল্লাহ তায়ালা সর্বশক্তিমান আমরা দৃঢ়তার সঙ্গে একথা বিশ্বাস করি। তবে মনে রাখতে হবে যে, আল্লাহর কোনো ফর্মুলাই অযৌক্তিক ও অবৈজ্ঞানিক নয়। তাই স্বাস্থ্য বিধি না মানলে রোগ ব্যাধির সংক্রমণ থেকে সুরক্ষা দেয়া আল্লাহর নীতি নয়। সুতরাং, মহামারী নিয়ে রাজনীতি নয় ; বরং জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করে স্বাস্থ্য সচেতন করাই সঙ্গত।

Mohammed Musa

২০২১-০৩-২৪ ০৪:০৯:৩৯

আপনাকে ছালাম ও শ্রদ্ধা জানাচ্ছি-শুধু আপনার সঠিক উপলব্ধির জন্য। ভাই আপনি হঠাত করে কম্বোডিয়াকে কেন বেছে নিলেন তা আমার বোধগম্য নয়। ইউরোপ আমেরিকার মত পশ্চিমা ধনী দেশ গুলো যখন করোনা নিয়ে হিমশিম খাচ্ছে সেখানে বাংলাদেশের মত একটি স্বল্পোন্নত দেশে করোনার থাবা তাদের তূলনায় খুবই নগন্য বলে মনে হয়। করোনা প্রভাবের কয়েক মাস যেতে না যেতই সিংগাপুরকে এমনি ভাবে আপনার মত করে আমার এক কাজিন বাংলাদেশের সংগে তুলনা করেছিল। তার কিছুদিন যেতে না যেতেই সেখানে অনেক মানুষের আক্রান্ত হওয়ার খবর বিশ্ব মিডিয়ায় ছাপা হল। আমার কাজিন চুপসে গেলেন এবং আক্রান্তদের প্রতি সকলের সহানুভূতি কামনা করে একটা পোষ্ট দিলেন। কথা হল করোনা পানডেমির ভয়াবহতা এখনো শেষ হয়ে যায়নি। আপনি ব্রাজিলের দিকে তাকিয়ে দেখুন সেখানে কী অবস্থা। সম্প্রতি প্রতিবেশী ভারতে আক্রানতের হার অত্যন্ত উর্ধমূখী। সুতরাং বাংলাদেশ এখনো অনেক দেদ্র তূলনায় ভাল অবস্থানে। হ্যাঁ এটা সত্য যে আরো ভালো কিভাবে থাকা যায়? কিন্তু ভাই আপনার প্রতিবেশী যখন আক্রান্ত হব তার প্রভাব আপনার উপর ও একটু হলেও পরবে//

আপনার মতামত দিন

ফেসবুক ডায়েরি অন্যান্য খবর



ফেসবুক ডায়েরি সর্বাধিক পঠিত



পিতার জন্মদিনে মেয়ের আবেগঘন স্ট্যাটাস

‘মির্জা আলমগীরের সারাজীবনের রাজনীতি বৃথা যাবে না’

DMCA.com Protection Status