ভাসমান টুকরো ধরে প্রশান্ত মহাসাগরে ১৪ ঘন্টা

মানবজমিন ডেস্ক

বিশ্বজমিন (১ মাস আগে) ফেব্রুয়ারি ২৫, ২০২১, বৃহস্পতিবার, ১২:২১ অপরাহ্ন | সর্বশেষ আপডেট: ৮:২৬ অপরাহ্ন

কার্গো জাহাজ থেকে প্রশান্ত মহাসাগরের পানিতে পড়ে গিয়েছিলেন ৫২ বছর বয়সী ভিদাম পেরেভেরটিলোভ। এরপর তিনি সমুদ্রে ভাসমান একটুকরো ‘রাবিশ’ ধরে ভেসেছিলেন ১৪ ঘন্টা। এরপর তাকে উদ্ধার করা হয়েছে জীবিত। নিউজিল্যান্ডের ওয়েবসাইট স্টাফ’কে উদ্ধৃত করে এ খবর দিয়েছে অনলাইন বিবিসি। এতে বলা হয়েছে, ঘটনার সময় ভিদাম পেরেভেরটিলোভ লাইফ জ্যাকেট পরা ছিলেন না। জাহাজ থেকে পড়ে গিয়ে তিনি কয়েক কিলোমিটার দূরে একটি ‘কালো কিছু’ দেখতে পান। এটা হতে পারে মাছ ধরার কাজে ব্যবহৃত কোনো বয়া। তিনি সাঁতরে সেখানে চলে যান।
ওই বয়া ধরে তিনি ১৪ ঘন্টা পানিতে ভেসে থাকেন। এরপর তাকে উদ্ধার করা হয়। তার ছেলে মারাত বলেছেন, তার পিতাকে ২০ বছর কম বয়সী দেখাচ্ছে। তবে তিনি বেশ ক্লান্ত। উল্লেখ্য, নিউজিল্যান্ডের তাউরাঙ্গা বন্দর থেকে বৃটিশ ভূখণ্ড বিচ্ছিন্ন টিকেয়ার্নের মধ্যে পণ্য সরবরাহ করে সিলভার সাপোর্টার নামে কার্গো জাহাজ। এর প্রধান প্রকৌশলী ভিদাম পেরেভেরটিলোভ। তার ছেলে বলেছেন, তার পিতা ইঞ্জিন রুমে কাজ করছিলেন। সেখানে প্রচণ্ড গরমে তার মাঘা ঘুরতে থাকে। এমন অবস্থায় তিনি ১৬ই ফেব্রুয়ারি ভোর ৪টার দিকে ডেকের ওপর উঠে হাঁটাহাঁটি করছিলেন। সেখান থেকে আকস্মিকভাবে সমুদ্রে পড়ে যান। বিষয়টি জাহাজের অন্য কেউ টের পাননি। ফলে জাহাজ তার গতিতে গন্তব্যে ছুটতে থাকে। এ অবস্থায় সূর্যোদয় পর্যন্ত তিনি সাঁতরাতে থাকেন। দূরে একটি কালো কিছু দেখতে পান। সেদিকে সাঁতরে এগিয়ে যেতে থাকেন। আসলে সেটা কোনো বোট বা অন্য কিছু নয়। শুধুই একটুকরো ‘ভাসমান রাবিশ’। মাছধরা জেলেরা হয়তো ফেলে গেছেন। সেটাই ধরে ভেসে থাকার চেষ্টা করেন ভিদাম পেরেভেরটিলোভ। ওদিকে তিনি জাহাজে নেই এ বিষয়টি বুঝতে ক্রুদের সময় লেগে যায় প্রায় ৬ ঘন্টা। এক পর্যায়ে তারা গতি ঘুরান। ছুটে যান পিছনে। ভিদাম পেরেভেরটিলোভ দেখতে পান জাহাজ। তিনি ক্ষীণকণ্ঠে উদ্ধারের আকুতি জানাতে থাকেন। জাহাজের কেউ একজন তা শুনতে পায়। হাত উঁচু করেন ভিদাম পেরেভেরটিলোভ। তা দেখে তাকে উদ্ধার করেন ক্রুরা।

আপনার মতামত দিন

বিশ্বজমিন অন্যান্য খবর



বিশ্বজমিন সর্বাধিক পঠিত



অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটির গবেষণা

অ্যাজমার ইনহেলার করোনা সারায় দ্রুত

DMCA.com Protection Status