সালমান শাহ'র অপমৃত্যু, চূড়ান্ত প্রতিবেদনের ওপর শুনানি ২০শে এপ্রিল

স্টাফ রিপোর্টার

বিনোদন ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২১, মঙ্গলবার | সর্বশেষ আপডেট: ৩:৫১ অপরাহ্ন

চিত্রনায়ক সালমান শাহ’র অপমৃত্যু মামলায় পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) দেয়া চূড়ান্ত প্রতিবেদনটি গ্রহণের ওপর শুনানির জন্য আগামী ২০ এপ্রিল দিন ধার্য করেছেন আদালত। আজ ঢাকা মহানগর হাকিম সাইদুজ্জামান শরীফের আদালতে মামলার চূড়ান্ত প্রতিবেদনটি গ্রহণের জন্য দিন ধার্য ছিল। এদিন মামলার বাদী সালমান শাহ’র মা লন্ডনে থাকায় সময়ের আবেদন করেন তার আইনজীবী। আদালত আবেদন মঞ্জুর করে নতুন এ দিন ধার্য করেন। ২০২০ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে ৬০০ পৃষ্ঠার চূড়ান্ত প্রতিবেদনটি জমা দেন পিবিআইয়ের পুলিশ পরিদর্শক সিরাজুল ইসলাম। তার আগের দিন (২৪ ফেব্রুয়ারি) আলোচিত এ মামলার তদন্ত প্রতিবেদন তুলে ধরেন পিবিআই প্রধান বনজ কুমার মজুমদার।
পিবিআইয়ের প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলা চলচ্চিত্রের তুমুল জনপ্রিয় নায়ক সালমান শাহ হত্যাকাণ্ডের শিকার হননি, পারিবারিক কলহের জেরে আত্মহত্যা করেছিলেন তিনি।
প্রতিবেদন তুলে ধরে পিবিআই প্রধান বলেন, তদন্তকালে ঘটনার সময় উপস্থিত ও ঘটনায় সংশ্লিষ্ট ৪৪ সাক্ষীর জবানবন্দি ফৌজদারি কার্যবিধির ১৬১ ধারায় লিপিবদ্ধ করা হয়। ১০ সাক্ষীর সাক্ষ্য ফৌজদারি কার্যবিধির ১৬৪ ধারায় লিপিবদ্ধ করা হয়। পাশাপাশি ঘটনার সংশ্লিষ্ট আলামত জব্দ করা হয়।
এসব বিষয় পর্যালোচনায় দেখা যায়, চিত্রনায়ক সালমান শাহ পারিবারিক কলহের জেরে আত্মহত্যা করেছেন। হত্যার অভিযোগের কোনো প্রমাণ মেলেনি।
পিবিআইয়ের তদন্ত প্রতিবেদনে সালমান শাহের আত্মহত্যার পাঁচটি কারণ উল্লেখ করা হয়। সেগুলো হলো- চিত্রনায়িকা শাবনূরের সঙ্গে সালমানের অতিরিক্ত অন্তরঙ্গতা, স্ত্রী সামিরার সঙ্গে দাম্পত্য কলহ, মাত্রাধিক আবেগপ্রবণতার কারণে একাধিকবার আত্মঘাতী হওয়া বা আত্মহত্যার চেষ্টা, মায়ের প্রতি অসীম ভালোবাসা জটিল সম্পর্কের বেড়াজালে পড়ে পুঞ্জীভূত অভিমানে রূপ নেয়া এবং সন্তান না হওয়ায় দাম্পত্য জীবনে অপূর্ণতা।
তবে সালমান শাহের পরিবার পিবিআইয়ের এই প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যান করে পুনরায় তদন্তের জন্য আদালতে আবেদন করেন।
১৯৯৬ সালের ৬ সেপ্টেম্বর রাজধানীর ইস্কাটন রোডে নিজের বাসা থেকে চিত্রনায়ক চৌধুরী মোহাম্মদ শাহরিয়ার (ইমন) ওরফে সালমান শাহর লাশ উদ্ধার করা হয়। ওই সময় এ বিষয়ে অপমৃত্যুর মামলা দায়ের করেন তার বাবা কমরউদ্দিন আহমদ চৌধুরী। পরে ১৯৯৭ সালের ২৪ জুলাই ছেলেকে হত্যা করা হয়েছে অভিযোগ করে মামলাটিকে হত্যা মামলায় রূপান্তরিত করার আবেদন জানান তিনি।

আপনার মতামত দিন

বিনোদন অন্যান্য খবর

‘কোনো শিল্পীই বসে ছিল না’

২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২১

ডিরেক্টরস গিল্ড’র নির্বাচন আজ

২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২১

এবার অন্যরূপে

২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২১

টপ নিউজ

নতুন করে শুরু

২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২১

পানির নিচে কেটের ৭ মিনিট

২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১

বাজিমাত ‘গাঙ্গুবাঈ’ আলিয়ার

২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১

আলাপন

এটা অন্যরকম একটি অভিজ্ঞতা -কোনাল

২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১

জল্পনার অবসান

২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১

টপনিউজ

নয়া মিশন

২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১



বিনোদন সর্বাধিক পঠিত



DMCA.com Protection Status