মুসলিম মেয়ে রজঃস্বলা হলেই বিয়ে করতে পারবে, ভারতের আদালতের রায়ে চাঞ্চল্য

বিশেষ সংবাদদাতা, কলকাতা

ভারত (২ মাস আগে) ফেব্রুয়ারি ১১, ২০২১, বৃহস্পতিবার, ১২:১৪ অপরাহ্ন | সর্বশেষ আপডেট: ৮:৪৪ অপরাহ্ন

মুসলিম মেয়ে রজঃস্বলা হলেই আইনত বিয়ে করতে পারবে। পাঞ্জাব ও হরিয়ানা হাইকোর্টের এই রায়ে চাঞ্চল্য শুরু হয়েছে গোটা ভারত জুড়ে। পাঞ্জাব ও হরিয়ানা হাই কোর্টের বিচারপতি অলোকা সারিন এই আদেশটি দিয়ে বলেন বয়স এক্ষেত্রে বিষয় হবে না,  মুসলিম মেয়ে রজঃস্বলা হলেই বিবাহযোগ্য বলে পরিগণিত হবে। ৩৬ বছরের এক মুসলিম যুবক ও ১৭ বছরের এক মুসলিম তরুণীর বিয়ে সংক্রান্ত একটি মামলার রায়ে বিচারপতি এই আদেশ দেন। 

২১ জানুয়ারি এই দম্পতি ইসলামিক রীতি মেনে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। কিন্তু, দুই পরিবারের প্রবল আপত্তি ও অত্যাচারে তারা আদালতের দ্বারস্থ হন। এই মামলারই রায় দিচ্ছিলেন বিচারপতি সারিন। প্রশ্ন উঠেছে, মুসলিম মেয়েরা রজঃস্বলা হলেই বিয়ের যোগ্য আর অমুসলিম মেয়েরা রজঃস্বলা হলেও বিয়ের নূন্যতম বয়স ছাড়া তারা বিয়ের যোগ্য নয়। কেন এই তারতম্য?

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

abdullah

২০২১-০২-১৪ ১০:১৫:১০

16 years is scientific, body is not perfect before 16,

mahbubul islam

২০২১-০২-১২ ১০:২৩:৪৬

সাবাশ। ধন্যবাদ। সঠিক রায়। অথচ এ রায়টি আমাদের মুসলিম স্কলারদের থেকে আসা উচিৎি ছিল।বিচারপতিকে ধন্যবাদ যে ‍উনি ইসলামের নীতির গভীরতা বুঝতে পারছেন। দেখুন পশ্চিমা বিশ্ব, আমেরিকা প্রাপ্ত বয়স্কের ধোয়া তুলে উপযুক্ত বয়সের বাচ্চাদের নাবালাক বানিয়ে রাখার চেষ্টা করছে অথচ বিবাহ বর্হিভূত চাইল্ড গ্রহণ করে সমাজ ব্যবস্থা ভঙ্গুরের দ্বার প্রান্তে পৌছে গেছে। এগুলো শয়তানের নীতি ছাড়া কিছুই ছিল না।

ওবাইদুল

২০২১-০২-১১ ১৮:৪২:৪০

এটা শুধু মুসলমান ধর্মের মেয়েদের জন্য কেন ? অন্যান্য ধর্মের মেয়েদের কথা উল্লেখ না করায় রায়টা উদ্দেশ্যমূলক মনে হয়েছে ।

অমিত চৌধুরী

২০২১-০২-১১ ০৫:২০:৪৫

সবার ক্ষেত্রে সমান বিচার হওয়া চাই

Amir

২০২১-০২-১১ ১৭:৩৫:০১

মুসলিম মেয়েরা রজঃস্বলা হলেই আইনত বিয়ে করতে পারবে।---------- একজন চিকিৎসক হিসেবে বলছি- ৯ বছর বয়সী মেয়েরও রজঃ হয়ে থাকে , তা হলে ওটা কি বিয়ের বয়েস? মামলার রায়েও সাম্প্রদায়ীকতার বিষবাষ্প!

Khokon

২০২১-০২-১১ ০২:২১:২৭

একটা মেয়ে শারীরিক ভাবে নিজেকে পরিপূর্ণ ভেবে বিয়ে করতে আগ্রহী হলে তাঁকে সম্মান করে তার মতামতকে প্রধান্য দেওয়া উচিত, তাতে ধর্মের দিক বিবেচনা না করা-ই উচিত। কারণ ধর্ম কারো গায়ে লিখা থাকেনা, শুধু ধর্ম মানুষ দ্বারা সীমাবদ্ধ। কে হিন্দু, কে মুসলিম বা অন্য ধর্মের তা কিন্তু গায়ে নিয়ে জন্মগ্রহণ কেউ-ই করেনা। ধর্মে রূপান্তরিত হন পরিবারবর্গ দ্বারা এবং সেটা ভালো হউক বা খারাপ হউক। যেমন একটা গাছকে জন্মের পর থেকে বাঁকা করলে, সে বাঁকা-ই থেকে সম্প্রসারিত হবে, তাকে কখনো সোজা পাওয়া যাবে না, যদিনা কেউ তাকে সোজা হতে উৎসাহিত না করে। এটাই ধর্ম। তাই উচিত সমস্ত গোত্রের মানুষকে মানুষ হিসাবে সম্মান করা এবং তাদের ( বা তার) অধিকার প্রষ্ঠিত করার অনুপ্ররণা দেওয়া। এটাই জাস্টিস।

মোঃ মনিরুজ্জামান

২০২১-০২-১১ ০১:৩১:২৯

ঋতুস্রাব হলেই স্বাভাবিক ভাবে নারীকে বিয়ে দেয়া উচিৎ বিচারক ঐ রায় পবিত্র ক্বোরআন বা সহী হাদীসের প্রতি অনুগত থেকে না দিলেও রায় সময়োপযোগী

Md

২০২১-০২-১০ ২৩:৩৯:০৩

এটাই ইসলামীমতে আইন হওয়া উচিত।

আপনার মতামত দিন

ভারত অন্যান্য খবর

কোভিডের দ্বিতীয় অভিঘাতে কাঁপছে ভারত

১ দিনে আক্রান্ত ১ লক্ষ ৭০ হাজার, মৃত ৯০০

১২ এপ্রিল ২০২১



ভারত সর্বাধিক পঠিত



কোভিডের দ্বিতীয় অভিঘাতে কাঁপছে ভারত

১ দিনে আক্রান্ত ১ লক্ষ ৭০ হাজার, মৃত ৯০০

DMCA.com Protection Status