সেক্সুয়াল ফ্যান্টাসি এবং আনুশকার করুণ মৃত্যু

পর্নোগ্রাফি যখন যৌন শিক্ষার মূল উৎস

তারিক চয়ন

শেষের পাতা ২৮ জানুয়ারি ২০২১, বৃহস্পতিবার | সর্বশেষ আপডেট: ১২:৪৯ অপরাহ্ন

একটি নতুন গবেষণায় দেখা গেছে, তরুণরা মনে করে পর্নোগ্রাফি হলো যৌন শিক্ষার সেরা উৎস। যুক্তরাষ্ট্রের একটি জাতীয় প্রতিনিধি সমীক্ষা অনুযায়ী, ১৮ থেকে ২৪ বছর বয়সীদের এক চতুর্থাংশ ‘কীভাবে যৌনমিলন করা যায়’ সে তথ্য পাওয়ার ‘সবচেয়ে সহায়ক’ উৎস হিসেবে পর্নোগ্রাফিকে বেছে নিচ্ছেন। এটি পর্নোগ্রাফিকে যৌন তথ্যপ্রাপ্তির সবচেয়ে বড় উৎস হিসেবে  তালিকাভুক্ত করেছে, এমনকি যা তাদের নিজের যৌন সঙ্গীদের কাছ থেকে জানতে পারার চাইতেও বেশি।

লাইভ সায়েন্স এক প্রতিবেদনে বলা হয়-বোস্টন ইউনিভার্সিটি স্কুল অফ পাবলিক হেলথ এবং ইন্ডিয়ানা ইউনিভার্সিটি স্কুল অফ পাবলিক হেলথ-ব্লুমিংটন-এর গবেষকরা জানিয়েছেন, যৌন সঙ্গী, বন্ধুবান্ধব, পিতা-মাতা, মিডিয়া এবং স্বাস্থ্যকর্মীদের চেয়েও পর্নোগ্রাফি এক্ষেত্রে উচ্চ স্থানে রয়েছে। স্বাস্থ্যসম্মত যৌন সম্পর্কের জন্য যৌনশিক্ষার গুরুত্ব তুলে ধরে গবেষক দলনেতা এমিলি রথম্যান বলেন, পর্নোগ্রাফি বানানো হয় বিনোদনের জন্য। এগুলোর নির্মাতারা তাদের লাভের দিকটাই দেখেন। ভালো শিক্ষা দেয়ার বিষয়টা তাদের নিকট মুখ্য নয়। আর কানাডার টরেন্টো সেক্স থেরাপিস্ট কোচ কার্লাইল জ্যানসনের মতে, এটা মোটেও অবাক হওয়ার মতো কিছু নয়। কারণ, আমরা এখনো ‘সেক্স’ নিয়ে কথা বলি না।
আমরা এখনো জানি না সেক্স বিষয়ে ঠিক কোথায় জানা যায়। আর আপনি যদি সেক্স সম্পর্কে জানতে ‘গুগল’ করেন তাহলে বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই আপনি পর্নোতে গিয়ে ঠেকবেন। স্বাভাবিকভাবেই সেক্স সম্পর্কে জানতে গিয়ে পর্নোগ্রাফিতে ঝুঁকে পড়া ওই তরুণদের বেশির ভাগই ছেলে। মেয়েরা সাধারণত এসব তথ্য তাদের সঙ্গীদের কাছেই জানতে চায়।

এ চিত্র শুধু যুক্তরাষ্ট্রের কিংবা অন্য কোনো দেশের নয়। ইদানীং দেশের তরুণ প্রজন্মের মধ্যে পর্নোগ্রাফিতে আসক্তির সংখ্যা আশঙ্কাজনক হারে বেড়েছে। স্মার্টফোন ও ইন্টারনেট সহজলভ্য হওয়ায় বাচ্চা ছেলেমেয়ে থেকে শুরু করে প্রাপ্তবয়স্কদের মাঝেও আসক্তির মাত্রা প্রবল থেকে প্রবলতর হচ্ছে। কখনো কখনো সেটা রূপ নিচ্ছে করুণ পরিণতিতে।

পর্নোগ্রাফি থেকে সেক্স ফ্যান্টাসি বা বিকৃত যৌনাচারেও ঝুঁকছে অনেক তরুণ। এই সেক্সুয়াল ফ্যান্টাসিতে বিভিন্ন ‘ফরেন বডি’ বা ‘সেক্স টয়’ ব্যবহার করা হয়ে থাকে। পর্নোগ্রাফি দেখে ‘ফরেন বডি’ ব্যবহারের বড় উদাহরণ সমপ্রতি ঢাকার কলাবাগানে ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলের ‘ও’ লেভেলের ছাত্রী আনুশকার করুণ মৃত্যু। এ নিয়ে মামলায় অভিযোগ করা হয়, ‘প্রেমে প্রলুব্ধ’ করে বাসায় নিয়ে ‘বিকৃত যৌনাচারের’ মাধ্যমে আনুশকাকে হত্যা করেছে তার ছেলেবন্ধু দিহান। তদন্ত সংশ্লিষ্টরা বলছেন, আনুশকার যোনিপথ ও রেক্টামে ‘ফরেন বডি’ পুশ করায় মারাত্মক রক্তক্ষরণ হয়ে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে সে। যেটা ‘সেক্সুয়াল ফ্যান্টাসি’ থেকেই করা হয়েছে বলে তাদের মত।

এসব নিয়ে কথা হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের সহযোগী অধ্যাপক মোহাম্মদ মজিবুর রহমানের সঙ্গে। অধ্যাপক মজিবুর কমনওয়েলথ রিসার্চ ফেলো হিসেবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যৌন নিপীড়নবিরোধী গবেষণায় একজন বিশেষজ্ঞ হিসেবে কাজ করেছেন। তিনি বলেন, শুধু বাংলাদেশই নয় সারা বিশ্বেই ‘সেক্স এডুকেশন’ একটা ট্যাবু। ছেলেমেয়েরা যখন বয়ঃসন্ধিকালে পৌঁছে তখন স্বাভাবিকভাবেই তাদের সে শিক্ষা না দেয়া হলে তারা অন্য পথ খুঁজে নেয়। হাতেগোনা কয়েকটি পরিবার হয়তো সন্তানদের এই শিক্ষা দিয়ে থাকে। সেক্ষেত্রে বেশির ভাগই তাদের ‘পিয়ার গ্রুপ’ বা সমবয়সীদের কাছে এসব নিয়ে আলোচনা করে। আর সেখান থেকেই তারা পৌঁছে যায় পর্নোগ্রাফির অন্ধকার জগতে।

সমাধান কি জানতে চাইলে অধ্যাপক মজিবুর বলেন, এই যুগে স্মার্টফোন এবং ইন্টারনেটে যে কেউ যেকোনো সাইটে ‘এক্সেস’ করতে পারেন। তাই যে কারো এসব সাইটে প্রবেশ বন্ধ করতে হলে ইন্টারনেট দুনিয়ার নিয়ন্ত্রকদের সাইটগুলোতে ‘ব্যারিয়ার’ দিয়ে দিতে হবে। এক্ষেত্রে সব দেশগুলোকে মিলে একটা সমঝোতায় পৌঁছতে হবে। তাছাড়া পরিবারগুলোকে সচেতন হতে হবে। সন্তানদের পরিণত বয়সে যৌনশিক্ষা দিতে হবে। প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষায় সেক্স এডুকেশন বাধ্যতামূলক করতে হবে। নন ফরমাল বিভিন্ন ক্ষেত্রেও এ শিক্ষা দেয়া যেতে পারে। মূলধারার গণমাধ্যম, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম এক্ষেত্রে সচেতনতামূলক বিভিন্ন শিক্ষামূলক বক্তব্য প্রচার করে দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করতে পারে।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

MD. RAKIBUL HASAN SA

২০২১-০১-২৮ ০৯:৫৩:৪৪

religious education is best for problem solve

আমীমুল ইহসান

২০২১-০১-২৭ ২০:৪৬:৫৬

বাংলাদেশে কিছু মানুষ! আছে যারা প্রেজন্মের ছেলে-মেয়েদের যৌন শিক্ষা নিয়ে খুব বেশি উদ্বিগ্ন। তারা বুঝাতে চায় এ বয়সের মানুষের সব থেকে বড় সমস্যা যৌন শিক্ষা না থাকা। যে সব দেশের সমীক্ষা দিয়ে উনারা এটা বুঝাতে চান সে সব দেশেতো প্রাইমারি লেভেল থেকেই তাদের আনুষ্ঠানিক যৌন শিক্ষা দেয়া হয়। তাহলে সেখানে এত বিকৃত সাধনা কেন? মূলত এই শিক্ষাটি এমন এক শিক্ষা যা প্রকৃতি তার সৃষ্টির মধ্যে ইন্সটল করে দিয়েছে এবং যা স্বয়ংক্রিয় ভাবে বয়ঃসন্ধিতে একটিভ হয়। এর উজ্জ্বল প্রমাণ হল পৃথিবীতে কোন প্রানীর যৌন শিক্ষা লাগে না ফলে সেখানে বিকৃতিও নাই। মানুষ যেহেতু যৌন শিক্ষা দিতে চায় তার মানে, তা হলো কিছু লোকের যৌন বিকৃতির শিক্ষা দেওয়ার আপ্রান চেষ্টা যার মাধ্যমে তারা সমাজকে তাদের মানসিক বিকৃতির আঁধার বানাতে চায়।

Aftab Chowdhury

২০২১-০১-২৭ ১১:৫৬:৪৭

একমাত্র ধর্মীয় ও নৈতিক শিক্ষাই পারে বিপথগামীতা থেকে রক্ষা করতে ।

আপনার মতামত দিন

শেষের পাতা অন্যান্য খবর

ছুটির দিনে সড়কে ঝরলো ২৩ প্রাণ

২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১

তামিমাকে চ্যালেঞ্জ রাকিবের

ডিভোর্স হয়নি, কোনো প্রমাণ নেই (ভিডিও)

২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১

কলকাতা কথকতা

পশ্চিমবঙ্গে আট দফায় ভোট ফলাফল ২রা মে

২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১

অবশেষে গতকাল বহু প্রতীক্ষিত ভোটের দিন ঘোষিত হলো। জাতীয় নির্বাচন কমিশন শুক্রবার বিকালে পশ্চিমবঙ্গ সহ ...

ঢাকা-দিল্লি স্বরাষ্ট্র সচিব বৈঠক আজ

পার্বত্য অঞ্চলে বিচ্ছিন্নতাবাদ নিয়ন্ত্রণসহ একগুচ্ছ এজেন্ডা

২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১

মশা নিয়ে দুশ্চিন্তা

২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২১

কর প্রদানে মানসিকতা পরিবর্তন হওয়া প্রয়োজন

২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২১

দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে ব্যবসায়ীদের কর প্রদানে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ বিষয়ক ...

বিবিসি’র রিপোর্টের প্রতিক্রিয়ায় ঢাকা

আন্দামানে ভাসমান রোহিঙ্গা নৌকা বাংলাদেশ থেকে ১৭০০ কিলোমিটার দূরে

২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২১

আন্দামান সাগরে ভাসমান রোহিঙ্গাভর্তি নৌযান উদ্ধারে ইউএনএইচসিআর’র আহ্বান সংক্রান্ত ২২শে ফেব্রুয়ারির বিবিসি ইংরেজি মাধ্যম ও ...



শেষের পাতা সর্বাধিক পঠিত



তামিমাকে চ্যালেঞ্জ রাকিবের

ডিভোর্স হয়নি, কোনো প্রমাণ নেই (ভিডিও)

DMCA.com Protection Status