ছয় মাসে কতো মানুষ ভ্যাকসিন পাবে?

ফরিদ উদ্দিন আহমেদ

প্রথম পাতা ১৪ জানুয়ারি ২০২১, বৃহস্পতিবার | সর্বশেষ আপডেট: ৪:২৪ অপরাহ্ন

সরকারের প্রচেষ্টায় দেশে করোনার টিকা আসছে চলতি মাসেই। এই সঙ্গে বেসরকারি উদ্যোগেও কিছু পরিমাণ টিকা আনার পরিকল্পনা করা হচ্ছে। এমনই আশার কথা বলছেন সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা। চুক্তি অনুযায়ী জুনের মধ্যে অক্সফোর্ডের তিন কোটি ডোজ টিকা পাবেন দেড় কোটি মানুষ। আর বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার উদ্যোগে কোভ্যাক্সের মাধ্যমে আরো ৬ কোটি ৮০ লাখ ডোজ টিকা মে-জুন আসবে বলে আশা করছেন সংশ্লিষ্টরা। অর্থাৎ ৩ কোটি ৪০ লাখ লোক এই টিকা ধীরে ধীরে নিতে পারবেন। বেসরকারি উদ্যোগে প্রায় ৩০ লাখ ডোজ টিকা আনার কার্যক্রম শুরু হচ্ছে আগামী মাস থেকে। সবমিলিয়ে ৫ কোটির বেশি মানুষ চলতি বছরের প্রথমার্ধে টিকার আওতায় আসবে।
স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানিয়েছে, ফেব্রুয়ারির প্রথম সপ্তাহেই দেশে করোনার ভ্যাকসিন প্রয়োগ শুরু হবে।
আগামী ২১ থেকে ২৫শে জানুয়ারির মধ্যেই দেশে আসবে ভ্যাকসিন। ২৬শে জানুয়ারি থেকে শুরু হবে অনলাইন নিবন্ধন। এদিকে সরকার ফাইজারের টিকা নেয়ার ক্ষেত্রেও নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে। কোভ্যাক্সের শর্ত অনুসারে ৪ লাখ সম্মুখসারির মানুষকে ফাইজারের টিকা দিতে হবে। ১৮ই জানুয়ারির মধ্যে চিঠির জবাব দিতে বলেছে কোভ্যাক্স। দরিদ্র দেশের মানুষের টিকার চাহিদা মেটানোর জন্য বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা, দ্য গ্লোবাল অ্যালায়েন্স ফর ভ্যাকসিনস অ্যান্ড ইমুনাইজেশন (গ্যাভি) ও কোয়ালিশন ফর এপিডেমিক প্রিপেয়ার্ডনেস ইনোভেশনস (সিইপিআই) যৌথভাবে একটি উদ্যোগ গড়ে তুলেছে। এর নাম: কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন গ্লোবাল অ্যাকসেস বা কোভ্যাক্স। উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে বিনা মূল্যে, স্বল্পমূল্যে টিকা কিনে মজুত গড়ে তুলবে কোভ্যাক্স। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় কোভ্যাক্সের টিকা পাওয়ার জন্য উদ্যোগ নিয়েছে। কোভ্যাক্সের টিকা যৌক্তিকভাবে বিশ্বব্যাপী বণ্টনে নেতৃত্ব দেবে ইউনিসেফ।
স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সম্প্রসারিত টিকাদান কর্মসূচির (ইপিআই) লাইন ডিরেক্টর ডা. মো. শামসুল হক বলেন, মাঠ পর্যায়ে টিকা দেয়া শুরু হবে ফেব্রুয়ারির প্রথম সপ্তাহে। অক্সফোর্ডের ৩ কোটি ডোজ টিকা আনতে ভারতের সিরাম ইনস্টিটিউটের সঙ্গে গত ৫ই নভেম্বরে যে চুক্তি হয়েছিল, তাতে প্রথম চালানে ৫০ লাখ ডোজ টিকা পাওয়ার কথা বাংলাদেশের। ৬ মাসে ৩ কোটি ডোজ টিকা আসবে দেশে।  আর কোভ্যাক্সের ৬ কোটি ৮০ ডোজ টিকা মে-জুন আসবে। তাতে বিশ্বের ৯২টি দেশের মতো বাংলাদেশ মোট জনসংখ্যার শতকরা ২০ ভাগ জনগোষ্ঠী তথা ৩ কোটি ৪০ লাখ মানুষ এই টিকা পাবেন।
অন্যদিকে, সরকারি কর্মসূচির বাইরে বেসরকারিভাবে বাংলাদেশের বাজারে বিক্রির জন্য ভারতের সিরাম ইনস্টিটিউট থেকে প্রায় ৩০ লাখ ডোজ করোনা ভ্যাকসিন কিনছে দেশের শীর্ষ ওষুধ উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালস। আগামী মাসেই এ কার্যক্রম শুরু হতে পারে। ৩০ লাখের মধ্যে এরইমধ্যে ১০ লাখ ডোজের জন্য চুক্তি সম্পন্ন হয়েছে। এখন আরো ২০ লাখ ডোজ সংগ্রহের পরিকল্পনা করা হচ্ছে।
বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার হিসেবে, ১৮ বছরের নিচে যারা তার এর আওতায় আসবে না। বাদ যাবেন গর্ভবতী মায়েরা। তাছাড়া প্রায় এক কোটি মানুষ দেশের বাইরে রয়েছেন আর শারীরিক নানা জটিলতার কারণে অনেকেই নিতে পারবেন না করোনা ভ্যাকসিন। প্রাপ্ত ভ্যাকসিনের মাসভিত্তিক বিতরণ তালিকা দেখা যায়, ফেজ-১; স্টেজ ১ এ; ৮ দশমিক ৬৮ শতাংশ জনগোষ্ঠী টিকা পাবেন।  অর্থাৎ ১ কোটি ৫০ লাখ সম্মুখসারির করোনার যোদ্ধারা এই টিকা পাবেন।

আপনার মতামত দিন

প্রথম পাতা অন্যান্য খবর

অনলাইনে রেজিস্ট্রেশন আজ থেকে, ৭ই ফেব্রুয়ারি সারা দেশে শুরু

ভ্যাকসিন যুদ্ধ

২৭ জানুয়ারি ২০২১

যেভাবে হবে করোনা টিকার রেজিস্ট্রেশন

৫০ লাখ ভ্যাকসিন এসেছে, দু’-একদিনের মধ্যে যাবে সারা দেশে

২৬ জানুয়ারি ২০২১

মন্ত্রিসভা বৈঠকে সশরীরে প্রধানমন্ত্রী

২৬ জানুয়ারি ২০২১

করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যে প্রায় ১০ মাস পর মন্ত্রিসভা বৈঠকে সশরীরে অংশ নিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ...



প্রথম পাতা সর্বাধিক পঠিত



অনলাইনে রেজিস্ট্রেশন আজ থেকে, ৭ই ফেব্রুয়ারি সারা দেশে শুরু

ভ্যাকসিন যুদ্ধ

কাল থেকে রেজিস্ট্রেশন শুরু

৫০ লাখ ভ্যাকসিন আসছে আজ

যেভাবে হবে করোনা টিকার রেজিস্ট্রেশন

৫০ লাখ ভ্যাকসিন এসেছে, দু’-একদিনের মধ্যে যাবে সারা দেশে

DMCA.com Protection Status