পাকিস্তান হাইকমিশনারকে প্রধানমন্ত্রী

’৭১ সালের নৃশংসতা অমার্জনীয়

স্টাফ রিপোর্টার

অনলাইন (১ মাস আগে) ডিসেম্বর ৩, ২০২০, বৃহস্পতিবার, ৮:২২ পূর্বাহ্ন | সর্বশেষ আপডেট: ৬:০০ পূর্বাহ্ন

পাকিস্তান ১৯৭১ সালে যে নৃশংসতা চালিয়ে ছিল তা বাংলাদেশ ভুলতে এবং ক্ষমা করতে পারবে না বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ঢাকায় নিযুক্ত পাকিস্তানি হাইকমিশনার ইমরান আহমেদ সিদ্দিকী প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে গেলে তিনি বলেন, একাত্তরের ঘটনা ভুলে যাওয়া বা ক্ষমা করা যায় না। বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে এই সাক্ষাৎ অনুষ্ঠান হয়।
‘সিক্রেট ডকুমেন্টস অব ইন্টেলিজেনস ব্রাঞ্চ অন ফাদার অব দ্য নেশন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান’ গ্রন্থের প্রসঙ্গ টেনে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এ বই থেকে সবাই ১৯৪৮-৭১ সময়ের অনেক ঐতিহাসিক ঘটনা জানতে পারবে। তিনি জানান, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের লেখা ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’র উর্দু সংস্করণ পাকিস্তানে অন্যতম বহুল বিক্রিত বই। ‘এটি অন্যান্য দেশের পাশাপাশি পাকিস্তানেও বহুল পঠিত।’ হাইকমিশনার পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের শুভ কামনা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে পৌঁছে দিলে তিনিও পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীকে শুভেচ্ছা জানান।


হাইকমিশনার বলেন, পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী তাদের উপদেশ দিয়েছেন বাংলাদেশের উন্নয়নের বিস্ময় সম্পর্কে জানতে। বিভিন্ন দ্বিপক্ষীয় এবং আঞ্চলিক ফোরাম নিষ্ক্রিয় রয়েছে জানিয়ে তিনি দুই দেশের মধ্যকার পররাষ্ট্র বিষয়ক পরামর্শক (এফওসি) কার্যক্রম সক্রিয় করতে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর সাহায্য কামনা করেন।
জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এটা নিয়মিতভাবে চালিয়ে যেতে এখানে কোনো বাধা নেই। নতুন দূত বলেন, পাকিস্তান কোনো বাধা ছাড়াই বাংলাদেশের সাথে সম্পর্ক উন্নয়ন করতে চায়। এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী জবাব দেন যে তিনি আঞ্চলিক সহযোগিতায় বিশ্বাস করেন। বাংলাদেশের পররাষ্ট্র নীতি ‘সকলের সাথে বন্ধুত্ব, কারও সাথে বৈরিতা নয়’ উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, তিনি অন্যান্য দেশের সাথে বিভিন্ন পরিপ্রেক্ষিতের ভিত্তিতে সম্পর্ক বজায় রাখায় বিশ্বাস করেন। বিশ্ব মঞ্চে শেখ হাসিনার নেতৃত্বের প্রশংসা করেন হাইকমিশনার। প্রধানমন্ত্রী নতুন হাইকমিশনারকে স্বাগত জানান এবং দায়িত্ব পালনে সব ধরনের সহযোগিতার আশ্বাস দেন।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Dr Abdul Momin

২০২০-১২-০৪ ০৬:২৮:৪৭

Pakistan Should Seek Appolosize for their Crimes during Our Liberation War1971.Otherwise,they will not be Considered as a Civilized Nation.The Sooner,the Better!

Sheful Chowdhury

২০২০-১২-০৩ ২৩:৩০:১৯

Right decision Madam . This decision should keep every Government .

Muquit Ahmed

২০২০-১২-০৩ ২৩:০৩:৪০

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ঠিকই বলেছেন । আমরা উনার কথার সাথে একমত । তাছাড়া পাকিস্তান সরকার কিন্তু এখন পর্যন্ত তাদের বর্বরতার জন্য ক্ষমা চায়নি ।

আবুল কাসেম

২০২০-১২-০৩ ০৮:২৪:৫৬

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যেমন বর্বর পাকিস্তানিদের নৃশংসতা ভুলতে ও ক্ষমা করতে পারবেননা আমরাও তেমনি তাদের পশুত্ব ভুলতে ও ক্ষমা করতে পারবোনা। ভাবতে আমার গা শিউরে ওঠে, পাকিস্তানিরা কেমন মুসলমান! যখন শীত এবং গরমের আতিশয্য ও প্রাবল্য ছিলোনা। বসন্তের মৃদুমন্দ সমীরণে গা ভাসিয়ে কোকিল ডাকছিলো শিমুল পলাশের রাঙা ডালে বসে। সেই পঁচিশে মার্চের সুন্দর রজনীটিকে তারা বারুদের কালো ধোঁয়া দিয়ে আচ্ছন্ন করে দিয়েছিলো। বারুদের উৎকট গন্ধে আমাদের দম বন্ধ হয়ে গিয়েছিলো। রাজারবাগ পুলিশ লাইনস্ সহ ঢাকা শহরের ঘুমন্ত মানুষের ওপর কীভাবে তারা নারকীয় হত্যাযজ্ঞ চালিয়েছিলো আমাদের স্মৃতি থেকে এখনো সেই ভয়াল রাতের নির্মম দৃশ্য মুছে যায়নি। রাস্তার ওপর, ফুটপাতে, ডোবা নালায় কতো যে নিরীহ মানুষের লাশ পড়েছিলো তার কোনো ইয়ত্তা নেই। লাশের মাংস নিয়ে কাড়াকাড়ি করেছিলো কাক ও কুকুর এক হয়ে। পাকিস্তানিরা এখনো সেই অপরাধের জন্য অনুতপ্ত হয়নি, ক্ষমাও চায়নি। তারা মুসলমান হয়ে কীভাবে আমাদের মা-বোনদের ধর্ষণ করতে পারলো? কীভাবে আমাদের বাড়িঘরে লুটপাট করলো এবং জ্বালিয়ে পুড়িয়ে ভস্ম করে দিলো? আমাদেরকে সর্ব শান্ত করে দিয়েছিলো তারা। দীর্ঘ পঁচিশ বছর ধরে তারা আমাদের ওপর অত্যাচারের স্টিমরোলার চালিয়েছিলো। লুটপাট করেছিলো এই বাংলার সম্পদ। শিক্ষাক্ষেত্র, চাকরি ও ব্যবসা বানিজ্যে তারা বৈষম্য করেছিলো সর্বক্ষেত্রে আমাদের সঙ্গে। বিহারিদের দাপটে আমাদের ত্রাহি ত্রাহি অবস্থা হয়েছিলো। আমাদের মুখের ভাষা, মায়ের ভাষা কেড়ে নিয়েছিলো তারা। মাতৃভাষার অধিকার আদায়ের জন্যও আমাদেরকে শহীদ করা হয়েছিলো। ৭০ সালের নির্বাচনে জয়লাভ করেও আমাদের কাছে তারা ক্ষমতা হস্তান্তর না করে হত্যালীলায় মেতে ওঠেছিলো। আমার বিচারে এমন নৃশংস ও বর্বর জাতি পৃথিবীর ইতিহাসে আর নেই। চীন ও মার্কিনীদের প্রশ্রয়ে তারা আমাদের ওপর ভয়ানক নিপীড়ন ও গণহত্যা চালিয়েছিলো। তাদেরকে কোনো ক্রমেই ক্ষমা করা যায় না।

আনিস উল হক

২০২০-১২-০৩ ০৭:৫৮:৪৯

ধন্যবাদ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী।একাত্তরের দগদগে ঘা বাংলাদেশের সর্বাঙ্গ জুড়ে এখনো বিদ্যমান।ক'দিন আগেই রংপুরে একাত্তরের শহীদের হাড়গোড় পাওয়া গেল।আমাদের সত্যিকারের শুভাকাঙ্খী পাকিস্তান কখনও হতে পারে না।

আপনার মতামত দিন

অনলাইন অন্যান্য খবর

পুতিন-ট্রাম্প সম্পর্ক নির্ধারণে তদন্ত কমিশনের প্রস্তাব

ক্যাপিটলে হামলার সময় হয়তো পুতিনের সাথে কথা বলছিলেন ট্রাম্প: হিলারি

১৯ জানুয়ারি ২০২১



অনলাইন সর্বাধিক পঠিত



কক্সবাজারের ‘পাওয়ার আলী’

গৃহপরিচারক থেকে হাজার কোটি টাকার মালিক

DMCA.com Protection Status