হাসপাতালের হিসাবরক্ষকের বিপুল সম্পদ

মারুফ কিবরিয়া

প্রথম পাতা ২ ডিসেম্বর ২০২০, বুধবার | সর্বশেষ আপডেট: ৬:০০ পূর্বাহ্ন

সরকারি হাসপাতালের হিসাবরক্ষক তিনি। সবমিলিয়ে ২৬-২৭ হাজার টাকা বেতন পান। অথচ থাকেন বিলাসবহুল ফ্ল্যাটে। গড়েছেন আরো একাধিক ফ্ল্যাট। রয়েছে প্লট, দোকান। সেই সঙ্গে ব্যক্তিগত গাড়িও আছে। তিনি ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্স ও হাসপাতালের হিসাবরক্ষক জাকির হোসেন। সরকারি চাকরি পেয়ে রাতারাতি অঢেল সম্পদের মালিক হওয়ার অভিযোগ তার বিরুদ্ধে।
জাকিরের বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ ও দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) টেবিলেও জমা পড়েছে।

মাত্র আট বছরের চাকরি জীবনে জাকিরের কোটিপতি হওয়ার বিষয়টি রূপকথার গল্পকেও হার মানায়। নিউরোসায়েন্স হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, হিসাব রক্ষক পদ হলেও সর্বক্ষেত্রে প্রভাব বিস্তার করেন তিনি। কাউকে তোয়াক্কা না করেই আধিপত্য বিস্তার করে আর্থিক অনিয়মের মাধ্যমে কোটি কোটি টাকার অবৈধ সম্পদ গড়েছেন জাকির।  জানা যায়, টেন্ডার বাগিয়ে নিজের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে অবৈধ অর্থ আয়ের অন্যতম পথ হিসেবে বেছে নিয়েছেন। একাধিক অস্তিত্বহীন প্রতিষ্ঠানের নামে টেন্ডার করিয়ে হাসপাতালের যন্ত্রপাতি কেনাকাটায় টাকা আত্মসাত করার অভিযোগ রয়েছে জাকিরের বিরুদ্ধে। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, নিউরোসায়েন্স হাসপাতালে টেন্ডারবাজির সঙ্গে হিসাবরক্ষক ছাড়াও আরো কয়েকজন তৃতীয় শ্রেণীর কর্মচারি জড়িত।

২০১২ সালে ১৪ই জুন হাসপাতালটির হিসাবরক্ষক হিসেবে যোগ দেন জাকির। তার বাড়ি ঢাকার নবাবগঞ্জ উপজেলায়। শ্রমজীবী বাবার সন্তান হিসেবে চাকরিতে যোগদানের আগে কিছুই ছিল না জাকিরের। কিন্তু নিউরোসায়েন্সে হিসাবরক্ষক পদে যোগ দিয়েই ভাগ্য খুলে যায় তার। মাত্র আট বছরেই ঢাকায় তিনটি ফ্ল্যাটের মালিক হয়ে যান জাকির। রাজধানীর কল্যাণপুরের মাদরাসা রোড, কমিশনার গলিতে ‘মাতৃছায়া কমপ্লেক্সে এপার্টমেন্টে’ একটি ফ্ল্যাট রয়েছে এই হিসাবরক্ষকের। ১৩৫০ বর্গফুটের ওই ফ্ল্যাটের মূল্য কোটি টাকা। একই এলাকায় ৫৬/৯ নং দাগে আরেকটি ফ্ল্যাট রয়েছে জাকিরের। যা তার এক আত্মীয়ের নামে কেনা। এই ফ্ল্যাটের বাজার মূল্য আশি লাখ টাকার বেশি। কল্যানপুরেই রোজ গার্ডেন এপার্টমেন্টে আরেকটি ফ্ল্যাট কেনেন জাকির। এটিও প্রায় কোটি টাকা দাম। তিনটি ফ্ল্যাট ছাড়াও রাজধানীর মোহাম্মদপুরের ঢাকা উদ্যান এলাকায় আড়াই কাঠা পরিমাণের প্লট রয়েছে জাকিরের। যার বর্তমান বাজার মূল্য এক কোটি টাকা। হিসাব রক্ষক জাকিরের অবৈধ সম্পদের গল্প এখানেই শেষ নয়। কিছুদিন আগেই ঢাকার অদূরে সাভারের স্বপ্নপুর আবাসিক এলাকায় তেত্রিশ শতাংশের একটি প্লট কিনেছেন বলে অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে। এই প্লটটি ২ কোটি টাকা দিয়ে তিনি কেনেন বলে জানা গেছে। এছাড়াও  ঢাকার পশ্চিম আগারগাঁওয়ে একটি হার্ডওয়্যার দোকানও রয়েছে জাকিরের। অনুসন্ধানে জানা যায়, গ্রীন হার্ডওয়্যার নামের এই দোকানটি তার বাবা বশির শিকদার পরিচালনা করেন।

জাকিরের সম্পদের তালিকায় আরো রয়েছে তিনটি বিলাসবহুল গাড়ি। এর মধ্যে একটি নোয়াহ, একটি হায়েস ও একটি এলিয়ন কার। দুর্নীতির অর্থে কেনা এই গাড়ির মালিকানায় তার নাম রাখেননি জাকির। গাড়িগুলো তার বড় বোন বিলকিস আক্তার ও তার স্বামীর নামে রেজিস্ট্রেশন করা।
জাকির হোসেনের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ বহুদিনের। এ বিষয়ে দুর্নীতি দমন কমিশনেও চলছে অনুসন্ধান। অবশ্য একই অভিযোগে জাকিরকে দুদকের শরণাপন্ন হতে হয়েছিল আগেও। তবে সেসময় অজানা কারণে তার বিরুদ্ধে অনুসন্ধান থেমে যায়। এদিকে দুদকের পাশাপাশি স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের স্বাস্থ্য সেবা বিভাগেও জমা পড়ে জাকিরের বিরুদ্ধে অভিযোগ। গত বছর ১১ই ডিসেম্বর স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের সচিব বরাবর জাকিরের বিরুদ্ধে সেসব অভিযোগপত্র জমা দেয়া হয়। অভিযোগের প্রেক্ষিতে হিসেবে বিভাগের প্রশাসন-১ অধিশাখার যুগ্মসচিব শাহিনা খাতুন ১৮ই ডিসেম্বর নিউরোসায়েন্স হাসপাতালের পরিচালক বরাবর মতামত প্রদানের জন্য চিঠি পাঠান। প্রায় এক বছর কেটে গেলেও নিউরো সায়েন্সের পক্ষ থেকে কোনো বক্তব্য পায়নি স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ। পরবর্তীতে বিভাগের উপসচিব জাকিয়া পারভীন জাকিরের আর্থিক অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগে মতামত প্রদানের জন্য চলতি বছরের ১১ই নভেম্বর আবারো চিঠি দেন। এ চিঠির বিষয়ে এখনও নিউরো সায়েন্স হাসপাতাল কোনো বক্তব্য বা মতামত দেয়নি।

চিঠির বিষয়ে জানতে চাইলে স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের উপসচিব জাকিয়া পারভীন মানবজমিনকে বলেন, জাকিরের বিষয়ে চিঠি পাঠানো হয়েছে। তবে এখনো কোনো মতামত দেয়নি। পেলে জানা যাবে।
এদিকে জাকিরের বিষয়ে জানতে নিউরোসায়েন্সের উপপরিচালক ফারুক আহমেদের কাছে জানতে চাইলে তিনি মানবজমিনকে বলেন, এ বিষয়ে আমি কিছু জানি না। আমার কাছে কোনো তথ্য নেই।  অপরদিকে অভিযোগের ব্যাপারে জাকিরের সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে  তার কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Alamin Hossain

২০২০-১২-০৩ ০৮:১১:৫৫

এগুলোকেই বলে অপসাংবাদিক।সাংবাদিক পেশাকে যথেস্ট সম্মান করি।কিন্তু বাংলাদেশে একদল অসাধু সাংবাদচক্র যারা অর্থের লোভেপরে সঠিক তথ্য না যেনে সংবাদ প্রচার করে।এতে করে সাধারন জনগন সংবাদপত্রের উপর থেকে বিশ্বাস হারিয়ে ফেলছে।সঠিক তথ্যের ভিত্তিতে সংবাদ প্রচার করুন।

Razib

২০২০-১২-০২ ১১:১৫:১৪

এইগুলোকেই হলুদ সাংবাদিকতা, গ্রীণ হার্ডওয়্যার আমার বাবা তার নিজের কস্টের টাকা দিয়ে শুরু করেছে আর এখন পর্যন্ত তার নিজের পরিশ্রমে বহু কস্টে চালিয়ে যাচ্ছেন, আর এইসব হলুদ সাংবাদিক একজনের সম্পদ আর একজনের নামে বানিয়ে দিচ্ছে। এইসব হলুদ সাংবাদিকদের বিচারের আওতায় আনা দরকার। আমি এই সাংবাদিককে বলব যদি সত্য প্রকাশের সাহস থাকে তাহলে প্রমান নিয়ে আসুক যে এই দোকান হিসাব রক্ষক জাকিরের আর তা তার বাবা পরিচালনা করে।

MD.NASRUL ISLAM RIPO

২০২০-১২-০২ ১৭:০১:০৯

একজন দুর্নীতিবাজ বা অন্য কোনো অপকর্মকারী নাগরিকরা দেদারসে জমি, বাড়ি, গাড়ি, ফ্লাট, সোনা দানা–কিনছেন, ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানে একাধিক হিসাব খুলছেন, ফিক্সড ডিপোজিট করছেন । আজব ব্যাপার ক্রেতার আয়ের উৎস নিয়ে রাষ্ট্রের কোনো সংস্থা প্রশ্ন করছে না....। এই সুযোগে একশ্রেণীর দুর্নীতিবাজ বা অন্য কোনো অপকর্মকারী নাগরিকরা দুর্নীতি-লুটপাট-বা অন্য কোনো অপকর্ম করে আঙুল ফুলে কলাগাছ হচ্ছেন । দুর্নীতি, বেআইনি ব্যবসা, চাঁদাবাজি, প্রতারণা, জালিয়াতির মাধ্যমে অর্জন করেছেন বিপুল সম্পদ। দুর্নীতি-লুটপাট করে তা এতো শান্তিতে ভোগ করা পৃথিবীর অন্য কোথাও সম্বভ বলে মনে হয় না...। অবৈধ অর্থের জোরে সমাজসেবী বা সংস্কৃতিসেবী হিসেবেও তকমা মিলতে দেরি হচ্ছে না এদের অনেকের । দেশে দুর্নীতিবাজদের ধরা হচ্ছে , বিচারের ব্যাবস্তা হচ্ছে -এটা ঠিক , কিন্তু দুর্নীতি যেনো করতে না পারে সে লক্ষে তেমন কোনো জোরালো উদ্যোগ রাষ্ট্রর পক্ষে থেকে চোখে পড়ছে না | যে কোনো সম্পদ ক্রয়ের আগে রাষ্ট্রের কোনো সংস্থার নিকট থেকে আর্থিক সামর্থের অনুমোদন নেয়ার বিধান করলে দুর্নীতি কিছুটা হলেও কমবে । দুদককে এ ব্যাপারে দায়িত্ব দেয়া যেতে পারে ।

Kazi

২০২০-১২-০২ ০২:০৯:৫৭

এদের জন্য দেশের হাসপাতাল গুলির দুরবস্থা ।

আশিকুল ইসলাম

২০২০-১২-০১ ২০:৩২:৪৭

হিসাব ভক্ষক!

আপনার মতামত দিন

প্রথম পাতা অন্যান্য খবর

নতুন অধ্যায়ে বাংলাদেশ

২৮ জানুয়ারি ২০২১

নিহত ২

চট্টগ্রামে ভোটে রক্তপাত

২৮ জানুয়ারি ২০২১

অনলাইনে রেজিস্ট্রেশন আজ থেকে, ৭ই ফেব্রুয়ারি সারা দেশে শুরু

ভ্যাকসিন যুদ্ধ

২৭ জানুয়ারি ২০২১

যেভাবে হবে করোনা টিকার রেজিস্ট্রেশন

৫০ লাখ ভ্যাকসিন এসেছে, দু’-একদিনের মধ্যে যাবে সারা দেশে

২৬ জানুয়ারি ২০২১



প্রথম পাতা সর্বাধিক পঠিত

DMCA.com Protection Status