করোনা জয়ের গল্প ২

মনে হলো হার্টবিট বন্ধ হয়ে গেছে

মরিয়ম চম্পা

শেষের পাতা ২ ডিসেম্বর ২০২০, বুধবার | সর্বশেষ আপডেট: ৬:০০ পূর্বাহ্ন

অধ্যাপক ডা. সুলতানা শাহানা বানু। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ভাইরোলজি বিভাগের প্রধান। সম্প্রতি সুলতানা শাহানা বানু করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। ডা. সুলতানা শাহানা বানু বলেন, আমি যেহেতু সরাসরি ল্যাবে কাজ করি তাই আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি শতভাগ রয়েছে। জেনেশুনে বিষ করেছি পান। সুতরাং বিশ্ব স্বাস্থ্যের নির্দেশনা অনুযায়ী যারা করোনা নিয়ে কাজ করেন তাদের প্রতি সপ্তাহে করোনা পরীক্ষা করতে হবে। সেই হিসাবে প্রতি সপ্তাহে করোনা পরীক্ষা না করলেও জুলাইয়ে মনে হলো আমাদের প্রত্যেকেরই প্রতি সপ্তাহে করোনা পরীক্ষা করা উচিত।

এ সময় দেখলাম সকলেই মোটামুটি পজেটিভ হচ্ছে। তখন মনে মনে ধরেই নিয়েছিলাম আমারও পজেটিভ হবে।
প্রথমবার নেগেটিভ আসলো। এর ১৫ দিন পরে পরীক্ষা করে পজেটিভ হলাম। স্ট্রংলি পজেটিভ। যেহেতু আমার হাইপারটেনশন, ডায়াবেটিকসহ অন্যান্য সমস্যা রয়েছে। মানসিকভাবে যতই পূর্বপ্রস্তুতি নিয়ে থাকি না কেন হঠাৎ মনে হলো হার্টবিট বন্ধ হয়ে গেল। এ সময় আমার সহকর্মী সহযোগী অধ্যাপক যারা ছিলেন তারা খুব কষ্ট পাচ্ছিলেন আমার জন্য। ২৯শে জুলাই সকালে স্যাম্পল দিলে সন্ধ্যা ৭টায় জানতে পারলাম আমি করোনা পজেটিভ। তাদেরকে বললাম- তোমরা আবার পরীক্ষা করো। আমি একটু বসি। অবশেষে পর্যালোচনা করে দেখলাম স্ট্রংলি পজেটিভ। তখন মনে হয়েছে হয়তো আমি আর সার্ভাইব করবো না। খুব কষ্ট পাচ্ছিলাম কেন জানি না। সহকর্মীরা বললেন- আপা বাসায় চলে যান। গাড়িতে চুপচাপ বাসায় আসলাম। আসার পরে সহযোগী অধ্যাপক যখন ফোন দিলেন তখন কথা বলতে পারছিলাম না। কান্না করছিলাম। তিনিও আমার সঙ্গে কাঁদছেন। খুব মন খারাপ নিয়েই বাসায় গিয়ে গোসল করে খাওয়া-দাওয়া করলাম।

তিনি বলেন, আত্মীয়স্বজন এবং ফ্ল্যাটের প্রতিবেশী কাউকে কিছু জানালাম না। ভীতি কাজ করছিলো। কারণ, তখন দেখা যাবে আমাকে সবাই একঘরে করছে। আমার এক প্রতিবেশী লক্ষ্য করেছে অনেকদিন ধরে অফিসে যাচ্ছি না। বাসার দারোয়ানদের মাধ্যমে তখন সে জানতে পারলো আমি করোনা আক্রান্ত। একদিন আমি খাবার নিতে দরজা খুলেছি তখন দেখলাম সে কোথাও যাচ্ছিলেন। আমাকে দেখে সঙ্গে সঙ্গে মুখের ওপর দরজাটা বন্ধ করে দিলেন। এটা আমার জন্য বড় কোনো বিষয় না হলেও অনেকের জন্য খুব বড় কিছু। বিশেষ করে সাধারণ মানুষ। অথচ ভবনের সকলের যেকোনো অসুস্থতা সংক্রান্ত সমস্যা নিয়ে আমার কাছেই আগে আসতেন। তারা সকলেই আমার পেসেন্ট। সে যখন মুখের ওপর দরজা বন্ধ করে দেয় তখন আমি তাকে দেখে ফেলেছি। সে কিন্তু আমাকে একবারও জানতে চায়নি। তখন একটু খারাপ লেগেছিলো। কিন্তু পরক্ষণে এটা আমার কাছে খুবই স্বাভাবিক লেগেছে যে, একটি মানুষ ভয় পেতেই পারে। এ সময় সকলের সঙ্গে মেলামেশা এবং যোগাযোগ বন্ধ করে দিলাম। পরবর্তীতে যদিও আমার আত্মীয়স্বজনরা জেনেছে। তারাই খাবার সরবরাহ থেকে শুরু করে সবকিছু করেছে। এক মাস পরে পুনরায় পরীক্ষা করার পর দেখলাম একইভাবে পজেটিভ আমি। পরপর তিনবার পজেটিভ হলাম। আমার একটু বেশি সময় লেগেছে। সুস্থ হওয়ার পরেও একটা সময় ভাইরাসটি শরীরের বিভিন্ন স্থানে থেকে যায়। আমার ইমিউনিটি কম থাকায় ভাইরাসমুক্ত হতে পারছিলাম না।
ঢামেকের ভাইরোলজি বিভাগের এই প্রধান বলেন, ভীষণভাবে সতর্ক থাকতাম যেন আমার দ্বারা আর কেউ আক্রান্ত না হয়। এই সময়টিতে আমি কিন্তু একটি দিনও ছুটিতে থাকিনি। প্রথম দশদিন বাসায় ছিলাম। তখন সারাক্ষণ অনলাইনে জুম মিটিং, ফোনে ইত্যাদিতে ডিউটি করেছি। দেখা গেছে, দুপুরের খাবার সন্ধ্যায় খেতে হয়েছে। এই সেবাটা দিতে পেরে নিজেকে ধন্য মনে করছি। কারণ আমার বিকল্প কেউ ছিল না। তখন অক্সিমিটারসহ প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম কিনে নিলাম। চিকিৎসক হওয়াতে সুবিধা হয়েছে হাসপাতালে যেতে হয়নি। তখন করোনার অন্য কোনো উপসর্গ হয়নি। মনের জোরে ধীরে ধীরে সুস্থ হয়ে উঠলাম। আমি যেহেতু সংগীতপ্রেমী মানুষ। কঠিন এই সময়টাতে গান গেয়ে, বন্ধু ও পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলে নিজেকে মানসিকভাবে ফিট রাখার চেষ্টা করেছি। এখন করোনা পরবর্তী যে সমস্যাটা হচ্ছে প্রচণ্ড ঘাড় ব্যথা এবং মাথা ব্যথা। তখন আমার ঘুম কম হতো। একদমই ঘুম হচ্ছিলো না। এখনো কম হয়। একমাত্র ছেলে ফাহাদ ইবনে আজম বিদেশে পড়ালেখা করছে। ফাহাদ যখন জানলো তখন একেবারেই অস্থির হয়ে পড়েছে। তখন সব ধরনের ফ্লাইট বন্ধ থাকায় আসতে পারবে না ভেবে খুব কষ্ট পাচ্ছিলো। ও শুধুমাত্র আমার ছেলে নয়, ভালো বন্ধুও বটে।   
         
তিনি আক্ষেপ করে বলেন, ফ্রন্টলাইনারদের মধ্যে প্রথম সারিতে চিকিৎসকরা। এই কথাটা অনেকে ভুলে যায়। পুলিশ, সংবাদকর্মীসহ আরো বেশকিছু পেশার মানুষ ফ্রন্টলাইনার হিসেবে এই মহামারিতে ভূমিকা রেখেছে এবং এখনো রাখছে। তারা কিন্তু জানেন না কে রোগী আর কে রোগী না। সুতরাং তারা সরাসরি আক্রান্ত হচ্ছে। অথচ আমরা কিন্তু জেনে শুনে আক্রান্ত হচ্ছি। অনেকটা জেনে শুনে বিষ পান করা। এক্ষেত্রে তাদের এবং আমাদের মধ্যে একটু পার্থক্য থেকেই যায়। ব্যক্তিগতভাবে চাই এটুকু যেন আমরা একটু রিয়ালাইজড করি। কিন্তু কেউ করে না। এটা যেহেতু একটি শ্বাসতন্ত্রের ভাইরাস তাই কফ, থুথু, হাঁচি, কাশি ইত্যাদির মাধ্যমে ভাইরাসটি ছড়ায়। আমি বলবো যারা আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আছেন তারাও এতোটা ঝুঁকিগ্রস্ত না। অন্য সবাই হাঁচি, কাশি, থুথু থেকে সাবধান থাকছেন অথচ ল্যাবে সরাসরি সেটা নিয়েই আমরা কাজ করছি। চিকিৎসকদের মধ্যেও ল্যাবরেটরি পারসন প্রথম সারিতে আসবেন। অথচ আমরা সেই মূল্যায়নটা পাচ্ছি না। সরকারের পক্ষ থেকে প্রণোদনার কথা বলা হলেও চিকিৎসকরা এখনো সেটা পায়নি। যেটা পেলে অনেক জুনিয়র চিকিৎসক উপকৃত হতেন।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

মোঃ সিরাজুর রহমান

২০২০-১২-০১ ২২:৪৮:৪৯

আপনার প্রতি আল্লাহর রহমত হোক।

আপনার মতামত দিন

শেষের পাতা অন্যান্য খবর

সেক্সুয়াল ফ্যান্টাসি এবং আনুশকার করুণ মৃত্যু

পর্নোগ্রাফি যখন যৌন শিক্ষার মূল উৎস

২৮ জানুয়ারি ২০২১

১০ কোটি ছাড়ালো করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা

২৮ জানুয়ারি ২০২১

বিশ্বে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ১০ কোটি ছাড়ালো। রয়টার্স ট্যালির হিসাব অনুযায়ী বুধবার এই মাইলফলক ছুঁয়েছে ...

করোনার শতভাগ কার্যকরী ওষুধ আবিষ্কারের দাবি মার্কিন কোম্পানির

২৮ জানুয়ারি ২০২১

করোনাভাইরাসের শতভাগ কার্যকরী ওষুধ আবিষ্কারের দাবি করেছে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক কোম্পানি রেজেনারন ফার্মাসিউটিক্যালস। বর্তমানে বৃটেনে এই ওষুধটির ...

টিআইবি’র ক্ষোভ

দুদকের ভুল তদন্তে নির্দোষ ব্যক্তির সাজা

২৮ জানুয়ারি ২০২১

ভোটারদের ইভিএম ভোগান্তি

২৮ জানুয়ারি ২০২১

৪০তম বিসিএসের ফল প্রকাশ

২৮ জানুয়ারি ২০২১

৪০তম বিসিএসের লিখিত পরীক্ষার ফল প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশন (পিএসসি)। গতকাল সন্ধ্যায় পিএসসি’র ...

ঢাবি স্বাস্থ্য অর্থনীতি ইনস্টিটিউটের জরিপ

৮৪ শতাংশ লোক টিকা নিতে আগ্রহী, তবে...

২৭ জানুয়ারি ২০২১

বিনামূল্যে দেয়া হলে ৮৪ শতাংশ মানুষ টিকা নিতে আগ্রহী। কিন্তু বেশির ভাগ লোকই টিকাদান কর্মসূচি ...

স্মরণসভায় বক্তারা

মিজানুর রহমান খান সাংবাদিকতায় অনুকরণীয় হয়ে থাকবেন

২৭ জানুয়ারি ২০২১

বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও আফগানিস্তান ভ্রমণে যুক্তরাষ্ট্রের সতর্কতা

২৭ জানুয়ারি ২০২১

বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও আফগানিস্তানে নাগরিকদের ভ্রমণের ক্ষেত্রে সতর্কতা জারি করেছে যুক্তরাষ্ট্র। ভ্রমণ সতর্কতা বিষয়ক এক ...



শেষের পাতা সর্বাধিক পঠিত



সেক্সুয়াল ফ্যান্টাসি এবং আনুশকার করুণ মৃত্যু

পর্নোগ্রাফি যখন যৌন শিক্ষার মূল উৎস

১০ বছরে শিক্ষার্থী বেড়েছে তিনগুণ

যুক্তরাষ্ট্রে পড়ছে ৮৮০০ বাংলাদেশি

ঢাকা-দিল্লি কন্স্যুলার ডায়ালগ

যেসব ইস্যু আলোচনায় থাকছে

DMCA.com Protection Status