বিএনপির রাজনীতি এখন ফেসবুক স্ট্যাটাসেই সীমাবদ্ধ: কাদের

অনলাইন ডেস্ক

অনলাইন ৩১ অক্টোবর ২০২০, শনিবার, ৬:৫২

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন,  বিএনপির রাজনীতি এখন ফেসবুক স্ট্যাটাস ও গণমাধ্যমেই সীমাবদ্ধ। রাজপথের রাজনীতিতে তাদের এখন হাজার পাওয়ারের বাতি জ্বালিয়েও খুঁজে পাওয়া যায় না। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়ন ও অর্জনের কথা বললেই বিএনপির গাত্রদাহ হয়। আওয়ামী লীগ কখনোই বিএনপির বিরুদ্ধে নয়, তাদের নেতিবাচক ও অপরাজনীতির বিরুদ্ধে। আজ শনিবার নোয়াখালীর চৌমুহনী পৌরসভার উদ্যোগে নবনির্মিত পৌরপার্ক ও টার্মিনালের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। সরকারি বাসভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে অনুষ্ঠানে যুক্ত হন তিনি।
 
এ সময় তিনি বলেন, পঁচাত্তরের খুনি ও খুনের মদদদাতা, গ্রেনেড হামলার খুনের মাস্টারমাইন্ড ও সাম্প্রদায়িক অপশক্তি বগলে নিয়ে যারা দেশের রাজনীতি বিষাক্ত করেছে, তাদের কাছে শেখ হাসিনার উন্নয়ন ও সমৃদ্ধির কথা শুনতে ভালো না লাগাই স্বাভাবিক। শেখ হাসিনার উন্নয়নের কথা শুনলে ‘হাওয়া ভবন তন্ত্রের’ কুশীলবদের গাত্রদাহ তো হবেই।
 
নোয়াখালীর বেগমগঞ্জের ঘটনা সম্পর্কে ওবায়দুল কাদের বলেন, গুটিকয়েক অপরাধীর জন্য সরকারের উন্নয়ন-অর্জন ম্লান হতে পারে না। এ ধরনের ঘটনা যেন না ঘটে।
শেখ হাসিনার সরকার যেকোনও অন্যায়-অপরাধের বিরুদ্ধে অত্যন্ত কঠোর। দলীয় পরিচয়ে কেউ রেহাই পাবে না। তিনি বলেন, যতোই উন্নয়ন হোক, সবকিছু ম্লান হয়ে যায় দু-একটি ঘটনায়। নোয়াখালীর ঘটনায় তিনি নিজে লজ্জিত বলে জানান। এ সময় জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারদের এসব অপরাধ রোধে শক্ত ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দেন মন্ত্রী। তিনি বলেন, অপকর্মকারীরা আওয়ামী লীগের হলেও তারা যেন ছাড় না পায়। শাস্তির পাশাপাশি এসব অপরাধীর জন্য আওয়ামী লীগের দরজা চিরতরে বন্ধ বলে উল্লেখ করেন তিনি।
 
ওবায়দুল কাদের বলেন, দেশের মানুষ সুখে আছে। করোনাকালেও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্বের কারণে জনগণের জীবন-জীবিকার ভারসাম্য তৈরি হয়েছে। দেশের অর্থনীতি পার্শ্ববর্তী দেশগুলোর চেয়ে অনেক ভালো আছে। কিন্তু বিএনপি এসব দেখে না বরং পূর্ণিমার রাতেও অন্ধকার দেখতে পায়।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Sadek ali

২০২০-১০-৩১ ২২:৩৮:৩২

কি করার আছে তাদের? দেশে স্বাধীনতা বলতে কিছু আছে?

Banga

২০২০-১০-৩১ ২১:৪৯:০৯

We observed Mr. Qader is more focused on BNP affairs rather than his ministry. This might be due to his 2nd role as a Secretary of AL. He should choose some associate to delegate responsibility for BNP or other party affairs, in order to be more accountable in his job as a Minister, he is paid for?

Kazi

২০২০-১০-৩১ ১২:০৩:৫৯

কি করবে তারা। প্রতিবাদ করলে আইন প্রয়োগকারি লেলিয়ে দেওয়া হয়। রাতের আঁধারে নির্বাচন হয়।

আপনার মতামত দিন

অনলাইন অন্যান্য খবর

মতামত জানতে চার অ্যামিকাস কিউরি

কোনো মুসলিম হিন্দু নারীকে বিয়ে করতে পারে কিনা

৩ ডিসেম্বর ২০২০

পাকিস্তান হাইকমিশনারকে প্রধানমন্ত্রী

’৭১ সালের নৃশংসতা অমার্জনীয়

৩ ডিসেম্বর ২০২০



অনলাইন সর্বাধিক পঠিত



DMCA.com Protection Status