মাস্ক পরা নিয়ে বিমানে তুলকালাম, স্টানগান ব্যবহার করলো পুলিশ

মানবজমিন ডেস্ক

বিশ্বজমিন ২৯ অক্টোবর ২০২০, বৃহস্পতিবার | সর্বশেষ আপডেট: ৬:৪০

মুখে মাস্ক পরা নিয়ে একটি বিমানের ভিতর তুলকালাম কাণ্ড। হাতাহাতি, ঘুষাঘুষি। চিৎকার, চেচামেচি। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে স্টানগান ব্যবহার করতে হলো পুলিশকে। এমন ঘটনা কল্পনা করা হলেও, আসলে কিন্তু সত্য। এ ঘটনা ঘটেছে যুক্তরাষ্ট্রের নিউজার্সির নিওয়ার্ক থেকে পুয়ের্তো রিকোর উদ্দেশে ছেড়ে যাওয়া স্পিরিট এয়ারলাইন্সের একটি বিমানে। ওই বিমানটি পুয়ের্তো রিকোর লুইস মুনোজ মেরিন বিমানবন্দরের মাটি স্পর্শ করার সঙ্গে সঙ্গে সেখানে এক নাটকীয় পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। ওই ঘটনার একটি ভিডিও ক্লিপ ছড়িয়ে পড়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।
অনলাইন মেইলকে উদ্ধৃত করে এ খবর দিয়েছে অনলাইন নিউজউইক। এতে বলা হয়, সিবিএস টেলিভিশনের সাংবাদিক ডেভিড বেগনাউদ টুইটারে ওই ভিডিওটি শেয়ার দেয়ার পর তা দ্রুতবেগে ছড়িয়ে পড়ে। এতে দেখা যায়, মুখের নিচে থুঁতনিতে মুখোশ বাঁধিয়ে রেখে চিৎকার করছেন একজন নারী। তিনি উঠে দাঁড়িয়ে অন্য যাত্রীদের সঙ্গে তর্ক করছিলেন। মুখে মাস্ক না পরেও তিনি অন্যদের সঙ্গে ধস্তাধস্তিতে লিপ্ত হন। একজন পুরুষ যাত্রী এ সময় ওই নারীর চুল ধরে টান মারেন বলে দেখে মনে হয়। অন্যরা এ সময় সবাইকে থামতে বলেন। কিন্তু মাস্ক না পরা ওই নারী তার সিটের শীর্ষস্থানে উঠে বসেন এবং অন্য যাত্রীদের সঙ্গে তর্কযুদ্ধে লিপ্ত হন। এক পর্যায়ে অন্যরা এতে হস্তক্ষেপ করেন। ঘটনাটি ঘটে স্থানীয় সময় রাত ৭টার দিকে।
খবরে বলা হয়েছে, মুখে মাস্ক না পরেই ওই নারী ও তার বন্ধুরা বিমানের ভিতর অবাধে চলাফেরা করছিলেন। এক্ষেত্রে তারা ওই বিমান সংস্থার নিয়মও লঙ্ঘন করছেন। কারণ, বিমান সংস্থার নিয়মে বলা হয়েছে, যারা বিমানে আরোহন করবেন তাদের বয়স দুই বছরের বেশি হলে অবশ্যই মুখে মাস্ক পরতে হবে। চিকিৎসাজনিত কারণে কেউ যদি মুখে মাস্ক পরতে অপারগ হন তাহলে তাকে ওই বিমান সংস্থার ফ্লাইটের জন্য অযোগ্য ঘোষণা করা হয়।
উদ্ভূত পরিস্থিতিতে ভিডিওতে দেখা যায় একজন পুলিশ সদস্যকে। তিনি ওই নারীকে নিবৃত করার চেষ্টা করছিলেন। সাংবাদিক বেগনাউদ টুইটে বলেছেন, ওই ফ্লাইটে ছিলেন এমন একজন ব্যক্তি আলফ্রেডোর সঙ্গে কথা বলেছেন তিনি। তবে এবারই যে এ ঘটনা প্রথম ঘটেছে এমন নয়। এর আগে গত সপপ্তাহে নিউজউইক এক রিপোর্ট করে একই রকম ঘটনায়। সে সময়ও মাস্কছাড়া একজন নারী যাত্রী বিমানের অন্য আরোহীদের সঙ্গে বিতণ্ডায় লিপ্ত হয়। ওই ফ্লাইটটি আয়ারল্যান্ড এবং স্কটল্যান্ডের মধ্যে চলাচল করছিল। সেই ঘটনায় ইজিজেট নিশ্চিত করেছে যে, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিতে তাদেরকে পুলিশ ডাকতে হয়েছিল। কারণ, একজন নারী মুখে মাস্ক পরতে অস্বীকৃতি জানাচ্ছিলেন। ফ্লাইট ইজেডওয়াই ৪৮১ থেকে ওই ভিডিও রেকর্ড করা হয়েছিল। এতে দেখা যায় ওই নারী বিমানের ভিতর এদিক ওদিক যাচ্ছেন এবং বার বার বলছেন, সবাইকেই মরতে হবে। এটাই বাস্তবতা।
জুলাইয়ে আমেরিকান এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটে একই রকম ঘটনা ঘটে। তখনও একজন নারী মুখে মাস্ক পরতে অস্বীকৃতি জানান। এরপর থেকে বিমান সংস্থাগুলো আরো কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করছে মুখে ফেসমাস্ক পরা নিয়ে। গত সপ্তাহে নিউজউইক এক প্রতিবেদনে প্রকাশ করে যে, করোনা বিষয়ক গাইডলাইন অনুসরণ করতে অস্বীকার করার কারণে প্রায় ৫০০ যাত্রীকে নিষিদ্ধ করেছে ডেল্টা।

আপনার মতামত দিন

বিশ্বজমিন অন্যান্য খবর

সিএনএনের রিপোর্ট

করোনায় মৃত্যুর চেয়ে এক মাসে জাপানে আত্মহত্যা বেশি

২৯ নভেম্বর ২০২০

ফাকরিজদেহর স্ত্রী বললেন

শহীদ হতে চেয়েছিলেন মোহসেন, তার আকাঙ্খা পূরণ হয়েছে

২৯ নভেম্বর ২০২০



বিশ্বজমিন সর্বাধিক পঠিত



DMCA.com Protection Status