ইরফান সেলিম কাউন্সিলর পদ থেকে বরখাস্ত

স্টাফ রিপোর্টার

অনলাইন (১ মাস আগে) ২৭ অক্টোবর ২০২০, মঙ্গলবার, ০৭:১৭ পূর্বাহ্ন | সর্বশেষ আপডেট: ০৬:০০ পূর্বাহ্ন

নৌবাহিনীর কর্মকর্তাকে মারধর ও হত্যার হুমকির মামলায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের দণ্ডে কারাগারে যাওয়া ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ৩০ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মোহাম্মদ ইরফান সেলিমকে কাউন্সিলর পদ থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় এ সংক্রান্ত একটি প্রজ্ঞাপন জারি করেছে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়।

উপসচিব আ ন ম ফয়জুল হক স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, স্থানীয় সরকার (সিটি কর্পোরেশন) আইন, ২০০৯ এর ধারা ১২ এর উপ-ধারা (১) এর প্রদত্ত ক্ষমতাবলে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের ৩০নং সাধারণ ওয়ার্ডের নির্বাচিত কাউন্সিলর পদ থেকে তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হল। এর আগে, মঙ্গলবার সকালে এ বিষয়ে সচিবালয়ে স্থানীয় সরকার মন্ত্রী তাজুল ইসলাম বলেন, আইন অনুসারে প্রথমে তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হবে। এরপর স্থায়ীভাবে বরখাস্ত করা হবে। যেহেতু বিচারাধীন বিষয়, তাই তার বিষয়ে কোর্টের আদেশ আমলে নিয়ে আমরা ব্যবস্থা নেব। আমরা আইনের শাসনে বিশ্বাস করি। মন্দ কাজ করলে তাকে শাস্তি পেতেই হবে।
তিনি কোন দলের, কি পদবীধারী তা বিবেচনা করা হবে না।

গত রোববার রাতে ধানমন্ডিতে এমপি হাজী মো. সেলিমের ‘সংসদ সদস্য’ লেখা সরকারি গাড়ি থেকে নেমে নৌবাহিনীর এক কর্মকর্তাকে মারধরের ঘটনায় সোমবার ভোরে হাজী সেলিমের ছেলে ইরফানসহ সাতজনের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়। এ মামলায় সোমবার দুপুরে ইরফানকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। পরে পুরান ঢাকায় তার বাসায় অভিযান চালানো হয়। অভিযানে ৩৮টি ওয়াকিটকি, পাঁচটি ভিপিএস সেট, অস্ত্রসহ একটি পিস্তল, একটি একনলা বন্দুক, একটি ব্রিফকেস, একটি হ্যান্ডকাফ, একটি ড্রোন এবং সাত বোতল বিদেশি মদ ও বিয়ার উদ্ধার করা হয়। বাসায় বিদেশি মদ ও অনুমোদনহীন ওয়াকিটকি রাখায় কাউন্সিলর ইরফান সেলিম ও তার দেহরক্ষী মোহাম্মদ জাহিদকে এক বছর করে জেল দেন র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত।  রাতেই তাদের কেরানীগঞ্জের ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠানো হয়েছে।  সেখানে তাদের কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়।  পরে ইরফান সেলিমকে শোন অ্যারেস্ট দেখানো হয়। এদিকে নৌবাহিনীর কর্মকর্তাকে মারধর ও হত্যার হুমকির মামলায় ইরফান সেলিমকে সাতদিনের রিমান্ডে চাইবে পুলিশ। বুধবার ঢাকার অতিরিক্ত মহানগর হাকিম আসাদুজ্জামান নূরের আদালতে এ আবেদনের বিষয়ে শুনানি অনুষ্ঠিত হবে।

উল্লেখ্য, গত ফেব্রুয়ারিতে অনুষ্ঠিত সিটি করপোরেশন নির্বাচনে দলের বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে ৩০ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পদে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীকে হারিয়ে জয়ী হন ইরফান। বিদেশে লেখাপড়া করে আসা ইরফান বাবার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান মদিনা গ্রুপের পরিচালকদের একজন।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Abdul Mannan

২০২০-১০-২৮ ১০:৫৩:৩১

বাপকা বেটা

ইউসুফ কুয়েত

২০২০-১০-২৭ ০৮:৩৫:০৫

আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করছি, সেলিম সাহেব একজন সংসদ সদস্য হয়ে তার ছেলে কি করছেন তিনি অবগত নন, মানুষ কনফিউশান ফিল করছেন। আর বাংলাদেশ সরকারকে ফাঁকি দেয়া, পুলিশকে ফাঁকি দেয়া, বাংলাদেশ রেপকে ফাকি দেয়ার জন্যই ওয়াকিটকি ব্যবহার করা সত্যিই আশ্চর্য, সেলিম সাহেবকে রিমান্ড নেয়া দরকার কারণ তার ছেলেকে আর কোন কোন কাজের সুযোগ দিয়েছেন।

Milton

২০২০-১০-২৭ ২০:২৩:৪৭

This is funny. Nothing will change with removing him from the post. Need to go to root and find the underlying cause that is responsible for all these malices. You need a womb for a fetus to grow, and thus you need a fair election to beget a prosperous and a reasonable state. Who is holding the leash of all misdeeds? Yes, everybody knows the answer. see the result of licking the boots of power without being logical; none can escape oppression if there is tyranny in the state.

Jamshed Patwari

২০২০-১০-২৭ ১৯:৩৯:৩৫

বাপকা বেটা। তার বাবাও লালবাগ হত্যাকান্ডের প্রধান আসামী ছিলেন।

আপনার মতামত দিন

অনলাইন অন্যান্য খবর

মতামত জানতে চার অ্যামিকাস কিউরি

কোনো মুসলিম হিন্দু নারীকে বিয়ে করতে পারে কিনা

৩ ডিসেম্বর ২০২০

পাকিস্তান হাইকমিশনারকে প্রধানমন্ত্রী

’৭১ সালের নৃশংসতা অমার্জনীয়

৩ ডিসেম্বর ২০২০



অনলাইন সর্বাধিক পঠিত

DMCA.com Protection Status