ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের খবর

প্রতিরক্ষা ও নিরাপত্তা ইস্যুতে ভারত, যুক্তরাষ্ট্র ২+২ গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক আজ

মানবজমিন ডেস্ক

বিশ্বজমিন ২৭ অক্টোবর ২০২০, মঙ্গলবার | সর্বশেষ আপডেট: ৫:৩৬

আঞ্চলিক ও বৈশ্বিক গুরুত্বপূর্ণ ইস্যুর পাশাপাশি পূর্ণাঙ্গ প্রতিরক্ষা ও নিরাপত্তা ইস্যুতে আজ মঙ্গলবার ভারত ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা। এতে অংশ নিতে একদিন আগে গতকাল সোমবার ভারতে পৌঁছেছেন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও এবং প্রতিরক্ষামন্ত্রী মার্ক এসপার। আজ তারা ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর এবং প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিংয়ের সঙ্গে ২+২ আলোচনায় অংশ নেবেন। ২+২ মন্ত্রী পর্যায়ের এটা হবে এমন তৃতীয় বৈঠক। এর মধ্য দিয়ে ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চলে সহযোগিতার পাশাপাশি দ্বিপক্ষীয় প্রতিরক্ষা ও নিরাপত্তাকে আরো উন্নত করার দিকে জোর দেয়া হবে বলে মনে করা হচ্ছে। অনলাইন ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস এ খবর দিয়েছে। তবে দু’দেশের কর্মকর্তাদের মধ্যে এ আলোচনা এমন এক সময়ে হতে যাচ্ছে, যখন চীনের সঙ্গে ভারতের সীমান্ত বিরোধ স্তিমিত হয়ে এসেছে। খবরে বলা হয়, আজকের বৈঠক ছাড়াও মার্কিন দুই কর্মকর্তার সোমবার বৈঠক হওয়ার কথা জয়শঙ্কর ও রাজনাথ সিংয়ের সঙ্গে।
এ ছাড়া তারা সাক্ষাত করবেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভালের সঙ্গে। উল্লেখ্য, ভারতের সঙ্গে সীমান্ত বিরোধ সহ বেশ কিছু বিরোধপূর্ণ ইস্যুতে, দক্ষিণ চীন সাগরে চীনের সেনাবাহিনীর উপস্থিতি, হংকংয়ে যেভাবে চীন সরকার আন্দোলনকারীদের দমন করেছে তাতে চীনের বিরুদ্ধে অবস্থান জোরালো করেছে যুক্তরাষ্ট্র। গত সপ্তাহে ভারতের পররাষ্ট্র বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র অনুরাগ শ্রীবাস্তব বলেছেন, আঞ্চলিক ও বৈশ্বিক বিভিন্ন ইস্যুতে অনুষ্ঠিত হবে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক। ধারণা করা হচ্ছে দীর্ঘদিন স্থগিত থাকা দ্বিপক্ষীয় প্রতিরক্ষা চুক্তি বেসিক এক্সচেঞ্জ এন্ড কো-অপারেশন এগ্রিমেট (বিইসিএ) এই বৈঠকেই চূড়ান্ত হতে পারে। এই চুক্তির অধীনে উচ্চ প্রযুক্তির সামরিক, লজিস্টিক এবং ভূ-সংক্রান্ত ম্যাপ বিনিময় করা হবে দুই দেশের মধ্যে।
গত কয়েক বছরে ভারত ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে প্রতিরক্ষা বিষয়ক সম্পর্ক বৃদ্ধি পেয়েছে। ২০১৬ সালের জুনে ভারতকে একটি ‘মেজর ডিফেন্স পার্টনার’ হিসেবে অভিহিত করেছে যুক্তরাষ্ট্র। এর উদ্দেশ্য প্রতিরক্ষা ও প্রযুক্তি বিষয়ক বাণিজ্য বৃদ্ধি। ২০১৬ সালে এই দু্িট দেশ লজিস্টিকস এক্সচেঞ্জ মেমোরেন্ডাম অব এগ্রিমেন্ট স্বাক্ষর করে। এর মধ্য দিয়ে দুই দেশ একে অন্যের সামরিক মেরামত ও সরবরাহে সহায়তা করে থাকে। এ ছাড়া গভীর সহযোগিতা করা হয়। এ ছাড়া ২০১৮ সালে দুই দেশ আরো একটি চুক্তি কমিউনিকেশন্স কমপ্যাটিবিলিটি এন্ড সিকিউরিটি এগ্রিমেন্ট স্বাক্ষর করে। মার্কিন সরকারের মতে, যুক্তরাষ্ট্রের বাইরে ভারতের হাতে আছে সর্ববৃহৎ সি-১৭ এবং পি-৮ যুদ্ধবিমান। এ ছাড়া ২০২০ সালে ভারতের কাছে ২০০০ কোটি ডলারেরও বেশি মূল্যের প্রতিরক্ষা সরঞ্জাম বিক্রির অনুমোদন দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। উল্লেখ্য, দুই দেশের মধ্যে ২+২ বৈঠক প্রথম হয় ২০১৮ সালের সেপ্টেম্বরে দিল্লিতে। এরপর দ্বিতীয় দফা বৈঠক হয় গত ডিসেম্বরে ওয়াশিংটনে।

আপনার মতামত দিন

বিশ্বজমিন অন্যান্য খবর

সিএনএনের রিপোর্ট

করোনায় মৃত্যুর চেয়ে এক মাসে জাপানে আত্মহত্যা বেশি

২৯ নভেম্বর ২০২০

ফাকরিজদেহর স্ত্রী বললেন

শহীদ হতে চেয়েছিলেন মোহসেন, তার আকাঙ্খা পূরণ হয়েছে

২৯ নভেম্বর ২০২০



বিশ্বজমিন সর্বাধিক পঠিত



DMCA.com Protection Status