বিবিসির প্রতিবেদন

এরদোগান বললেন ফরাসি প্রেসিডেন্টের মানসিক স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা প্রয়োজন

মানবজমিন ডেস্ক

বিশ্বজমিন ২৫ অক্টোবর ২০২০, রোববার | সর্বশেষ আপডেট: ৫:৫২

ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রনকে কার্যত মানসিক রোগী বলে আখ্যায়িত করেছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তায়্যিপ এরদোগান। তিনি বলেন, ম্যাক্রনের মানসিক পরীক্ষা নিরীক্ষা প্রয়োজন। এমন অবমাননাকর উক্তিতে প্রচ- ক্ষেপেছেন ফরাসি প্রেসিডেন্ট। জবাবে তিনি পরামর্শ করতে তুরস্কে নিযুক্ত ফরাসি রাষ্ট্রদূততে দেশে তলব করেছেন। এ খবর দিয়েছে অনলাইন বিবিসি। এতে বলা হয়, কয়েকদিন আগে মহানবী হযরত মোহাম্মদ (স.)এর ব্যঙ্গচিত্র ব্যবহার করে ক্লাসে শিক্ষাদান করা ইতিহাসের একজন শিক্ষক স্যামুয়েল প্যাটির শিরñেদ করে এক চেচেন যুবক। এ ঘটনায় উগ্র ইসলামপন্থিদের বিরুদ্ধে লড়াই করতে এবং ধর্মনিরপেক্ষতা রক্ষার প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেন ইমানুয়েল ম্যাক্রন। তিনি বলেছেন, ফ্রান্স ব্যঙ্গচিত্র ত্যাগ করবে না।
এর জবাবে এরদোগান তার মানসিক স্বাস্থ্য পরীক্ষার প্রয়োজন বলে মন্তব্য করেন।
উল্লেখ্য, মহানবী হযরত মোহাম্মদ (স.)-এর চিত্রাঙ্কন ইসলামে একটি গুরুত্বর অপরাধ হিসেবে বিবেচ্য। কারণ, ইসলামিক রীতিতে মহানবী (স.) ও আল্লাহর কোনো ছবি আঁকাকে কঠোরভাবে নিষিদ্ধ করা হয়েছে। কিন্তু ফ্রান্সে জাতীয় পরিচয়ের মূলে রয়েছে রাষ্ট্রীয় ধর্মনিরপেক্ষতা। কর্তৃপক্ষ বলছে, এক্ষেত্রে একটি বিশেষ সম্প্রদায়ের অনুভূতিকে রক্ষা করতে গিয়ে মত প্রকাশের স্বাধীনতা খর্ব করলে তাতে দেশের একতা বা ঐক্য নষ্ট হবে। ইমানুয়েল ম্যাক্রন এমন মূল্যওবোধকে সমুন্নত রাখার পক্ষে কথা বলেছেন। তার এমন বক্তব্যের জবাবে শনিবার বক্তব্য রেখেছেন এরদোগান। তিনি বলেছেন, ইমানুয়েল ম্যাক্রনের মানসিক স্বাস্থ্য পরীক্ষার প্রয়োজন। ধর্মবিশ্বাসের স্বাধীনতা বোঝেন না এমন একজন রাষ্ট্রপ্রধানকে আর কি বলা যেতে পারে। ভিন্ন বিশ্বাসের সদস্য এমন কয়েক লাখ মানুষ তার দেশে বসবাস করেন। তাদের বিষয়ে তিনি এমন আচরণ করেন। ইসলাম এবং মুসলিমদের নিয়ে ম্যাক্রন নামের ব্যক্তির সমস্যাটা কি?
এরদোগানের এমন মন্তব্যের জবাবে ফরাসি প্রেসিডেন্সিয়াল এক কর্মকর্তা বার্তা সংস্থা এএফপিকে বলেছেন, তুরস্কে নিয়োজিত ফরাসি রাষ্ট্রদূতকে তলব করা হয়েছে। প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রনের সঙ্গে তাকে সাক্ষাত করতে বলা হয়েছে। ওই কর্মকর্তা আরো বলেছেন, তুর্কি প্রেসিডেন্ট এরদোগানের এমন মন্তব্য অগ্রহণযোগ্য। অতি কর্কশ ও অতি নিষ্ঠুরতা কোনো পদ্ধতি হতে পারে না। এরদোগানকে আমরা অনুরোধ করবো তার নীতির পরিবর্তন করতে। কারণ, যেকোনো দিক থেকে তার এমন আচরণ বিপজ্জনক।
উল্লেখ্য, এরদোগান একজন ধর্মপ্রাণ মুসলিম। তিনি বার বার তুরস্কে ইসলামকে রাষ্ট্রের মূল রাজনীতিতে যুক্ত করার চেষ্টা করেছেন। তার এ চেষ্টা অব্যাহত আছে ২০০২ সালে একে পার্টি ক্ষমতায় আসার পর থেকে। তবে সর্বশেষ তিনি ফরাসি প্রেসিডেন্টকে নিয়ে যে মন্তব্য করেছেন তাতে দুই দেশের মধ্যে কূটনৈতিক সম্পর্কে উত্তেজনা দেখা দিতে পারে।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Salman

২০২০-১০-২৫ ০০:৫০:১৯

সেকুলারিজম এরমানে যদি অন্যের ধরমকে আঘাত করাহয় তাহলে প্রত্যেকেরই উচিত এই মতলব বাজ ইজম থেকে দুনিয়াবাশিকে মুক্ত করা

Obak

২০২০-১০-২৫ ০০:৪৯:১২

সামনে নির্বাচন মাকরণের অবস্থা ভালো না তাই তিনি তার ব্যর্থতাকে আড়াল করতে ধর্মীয় উস্কানীতে ব্যাস্ত .একবার ভাবে না সে এখন যদি কেউ যীশুর ব্যাঙ্গচিত্র আঁকা শুরু করে সেখানে সহিংসতা শুরু হতে পারে

আবুল কাসেম

২০২০-১০-২৫ ০০:৪১:১৭

ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রম একজন উচ্চ শিক্ষিত ব্যক্তি। তাঁর রাষ্ট্রের দর্শন ধর্ম নিরপেক্ষতা। তিনি যে দর্শন গ্রহণ করেছেন তাতে বাঁধ সাধবার কারো অভিলাষ নেই। ধর্মে নিরপেক্ষ থাকতে তিনি পছন্দ করতেই পারেন। কিন্তু ধর্মে নিরপেক্ষ থাকার অর্থ তো এটা হতে পারেনা কোনো ধর্মের রীতিনীতি, শিক্ষা ও সংস্কৃতির বিরোধিতা করা। কোনো ধর্মের নেতাকে অপমান করা, ব্যঙ্গ করা, তাঁর অবয়ব বিকৃত করা এবং তাঁর মহান শিক্ষাকে তুচ্ছতাচ্ছিল্য করার নাম কী ধর্ম নিরপেক্ষতা ? বিশেষভাবে লক্ষ করা যাচ্ছে, যারা নাকি ধর্মনিরপেক্ষতার ধ্বজাধারী তারা কোনো জানি মুসলমান এবং তাদের ধর্ম ইসলামকে অহেতুক কটাক্ষ, আক্রমণ, ব্যঙ্গ ও তুচ্ছতাচ্ছিল্য এবং হীনজ্ঞান করতে বদ্ধপরিকর। কোমরে গামছা বেঁধে তারা যেনো ধনুকভাঙ্গা পণ করে বসেছে, মরন পর্যন্ত অবান্তর, অহেতুক ও অগ্রহণযোগ্য নিন্দাসূচক মন্তব্য করতে থাকবে সর্বশক্তিমান আল্লাহ তায়ালার শেষ নবী মুহাম্মদ সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এবং তাঁর প্রবর্তিত মানবতার মুক্তির ধর্ম ইসলামের বিরুদ্ধে। এটা তো কিছুতেই ধর্ম নিরপেক্ষতা নয় ; এটা তো জাজ্বল্যমান বিশেষ একটি ধর্মের চরম বিরোধিতা। এমন স্ববিরোধী আচরণ সভ্যতার দাবিদার ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট কিভাবে অবলীলায় করে যাচ্ছেন ? বোধ করি সেজন্যই এরদোয়ান এমন মন্তব্য করতে বাধ্য হয়েছেন। আর বোধ হয় এটা শুধু এরদোয়ানের একার কথা নয় ; এরদোয়ানের মন্তব্য বিশ্বের দেড়শ কোটি মুসলমানের হৃদয়ের কথা। ধর্মে নিরপেক্ষ থাকার ভান করে কেউ যদি বিশেষ কোনো ধর্মের নেতাকে অপমান করে এবং তাঁর অনুসারীদের হৃদয় বিদীর্ণ করে ও হৃদয়ে রক্তক্ষরণ ঘটিয়ে কেউ যদি মনে করে ঐ বিশেষ ধর্মের লোকেরা এমনিতেই তাকে ছেড়ে দেবে তাহলে বুঝতে হবে সেই লোক নির্বোধ, অপদার্থ ও একেবারে বোকার স্বর্গে বাস করছে। এসব ধর্ম নিরপেক্ষবাদীদের ইসলাম ধর্ম ছাড়া অন্য কোনো ধর্মের সমালোচনা, নিন্দা ও ব্যঙ্গবিদ্রুপ করতে দেখা যায় না। এতেই প্রতীয়মান হচ্ছে, ডালমে কুচ কালা হ্যায়। শুধু মাত্র ইসলামের প্রতি তাদের চরম এলার্জি দেখে মনে করা যেতে পারে, তারা প্রকৃতপক্ষে ধর্ম নিরপেক্ষ নয়। ধর্ম নিরপেক্ষতা তাদের মুখোশ। এর আড়ালে ইসলাম ধর্মের বিরোধিতা করাটাই তাদের মূল ধর্ম। কিন্তু মুসলমানরা তাদের ধর্ম নিরপেক্ষতার মেকি ও ভুয়া মুখোশ উন্মোচন করে দিয়েছে। তারা নিজেদেরকে যতোই ধর্ম নিরপেক্ষ বলে জাহির করুক এখন আর কেউ সেটা বিশ্বাস করবেনা। সুতরাং ইমানুয়েল ম্যাক্রনকে বুঝতে হবে তার ধর্ম নিরপেক্ষতার মুখোশ খসে পড়েছে এবং ধর্ম নিরপেক্ষতার আড়ালে ইসলাম বিরোধিতাও ধরা পড়ে গেছে। এখন তিনি যদি মনে করেন ইসলাম পন্থীরা সকল অপমান সহ্য করে চুপচাপ ঘরে বসে থাকবে এবং তাকে কিছুই বলবেনা তাহলে তার নিজের যোগ্যতার ও দুরদর্শিতার বিচার করার ভার তার উপরেই রইলো। মুসলমানদের আহ্বান , তিনি ইসলাম ধর্মকে হেয়, নিন্দা , অপমান ও ব্যঙ্গ বিদ্রুপ করা থেকে বিরত থাকুন। আল্লাহর কিতাবের অনুসরণ না করলে ধ্বংস অনিবার্য। মহান আল্লাহ তায়ালা বলেন, "তোমাদের মালিকের কাছ থেকে তোমাদের কাছে যা কিছু নাজিল করা হয়েছে তোমরা তার যথাযথ অনুসরণ করো এবং তা বাদ দিয়ে তোমরা অন্য কোনো কর্তৃপক্ষের অনুসরণ করবে না। আসলে তোমরা খুব কমই উপদেশ মেনে চলো। এমন কতো জনপদ আমি ধ্বংস করে দিয়েছি, তাদের উপর আমার আজাব আসতো যখন তারা রাতের বেলায় ঘুমিয়ে থাকতো, কিংবা মধ্য দিনে আহারের পর যখন তারা বিশ্রাম করতো। আর যখন তাদের নিকট আমার আজাব আসতো তখন তারা এছাড়া আর কিছুই বলতোনা, 'আমরা অবশ্যই জালেম ছিলাম।" সূরা আল আ'রাফ। আয়াতঃ ৩-৫। আল্লাহর আয়াত মিথ্যা সাব্যস্ত করা এবং আল্লাহকে অপবাদ দেয়ার শাস্তি কঠোর । "আর যারা আমার আয়াতসমূহকে মিথ্যা প্রতিপন্ন করবে এবং বড়াই করে এসত্য থেকে মুখ ফিরিয়ে নেবে তারাই হবে জাহান্নামের অধিবাসী, সেখানে তারা চিরকাল অবস্থান করবে। তার চেয়ে বড়ো জালেম আর কে হতে পারে যে আল্লাহ তায়ালা সম্পর্কে মিথ্যা আরোপ করে কিংবা তাঁর আয়াতকে মিথ্যা সাব্যস্ত করে। এরা হচ্ছে সেসব লোক, যারা কিতাবে বর্ণিত দুর্ভাগ্য থেকে তাদের অংশ পেতে থাকবে। এমনিভাবে মৃত্যুর সময় তাদের কাছে আমার ফেরেশতারা যখন এসে হাজির হবে, তখন তাদের বলা হবে যাদেরকে তোমরা আল্লাহ তায়ালার পরিবর্তে ডাকতে এখন তারা কোথায় তারা বলবে, আজ সবাই আমাদের থেকে সরে গেছে, তারা সবাই নিজেদের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দেবে, তারা সত্যিই কাফের ছিলো।" সূরা আল আ'রাফ। আয়াতঃ ৩৬-৩৭। মুসলিম বিশ্বের দেশগুলো থেকে এরদোয়ানের মতো প্রতিবাদ করা আবশ্যক। নাহয় ঈমানের দুর্বলতার শিকার হয়ে ঈমানের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়া কঠিন হয়ে যেতে পারে। আল্লাহ বলেন, "মানুষের মধ্যে এমন কিছু লোক আছে যারা বলে আমরা আল্লাহ ও পরকালের প্রতি ঈমান এনেছি। কিন্তু এদের কাজে কর্মে প্রমাণ হয় এরা ঈমানদার নয়। এরা আল্লাহ তায়ালা ও তাঁর নেক বান্দাদের সাথে প্রতারণা করে যাচ্ছে, মূলত অন্য কাউকে নয় তারা নিজেদেরকেই ধোঁকা দিয়ে যাচ্ছে, যদিও সে বিষয়ে তাদের কোনো চৈতন্য নেই। এদের মনের ভেতরে রয়েছে মারাত্মক ব্যাধি, প্রতারণার কারণে অতঃপর আল্লাহ তায়ালা সেই ব্যাধি আরো বাড়িয়ে দিয়েছেন, তাদের জন্য রয়েছে আল্লাহ তায়ালার পক্ষ থেকে পীড়াদায়ক আজাব, কেননা তারা মিথ্যা কথা বলেছিলো।" সূরা আল বাক্কারা। আয়াতঃ ৮-১০। আল্লাহ তায়ালা দয়াময় হলেও বুঝাই যাচ্ছে, অপরাধীদের জন্য তাঁর আজাব অত্যন্ত কঠোর। সুতরাং ইমানুয়েল ম্যাক্রনকে সতর্ক হওয়া আবশ্যক। আর আমরা যারা মুসলমান আছি আমরাও আমাদের দায়িত্ব যথাযথ ভাবে পালন করতে সচেষ্ট হতে হবে।

Faruque Ahmed

২০২০-১০-২৫ ১২:১৫:৩৮

যুদ্ধ সারা বিশ্ব জুড়ে আসছে। ইসলাম বনাম অন্য ধর্ম

Nasir Uddin Ahmed

২০২০-১০-২৫ ১১:৪৮:৪১

Perfect statement from Mr. Erdogan.

Talat

২০২০-১০-২৫ ১১:৪২:১২

বেক্তি স্বাধীনতার মানে এই নয় যে আমার স্বাধীন হাত কারো নাক স্পর্শ করবে । আর সেকুলারিজমের অর্থ যদি হয় কোটি কোটি মানুষের ধর্মীও অনুভূতিকে আঘাত করা তা হলে তাতো অবশ্যই পরিত্যাজ্য ।

ভেসেল

২০২০-১০-২৪ ২২:২৩:১০

এরদোয়ান ঠিকই বলেছেন । ধর্মনিরপক্ষেতার আড়াঁলে ম্যাক্রো আসলে চরম ইসলাম বিদ্বেষী । সাম্প্রতিক ইসলাম নিয়ে তার মন্তব্য ও পরে মুসলিমদের বিরুদ্ধে তার অভিযান প্রমাণ করে যে ম্যাক্রো আসলে ইসলামফোবিয়ায় আক্রান্ত । এই অসুস্থতা এমন পর্যায়ে গেছে যে তার মানসিক সুস্থতা নিয়ে প্রশ্ন উঠতেই পারে ।

আপনার মতামত দিন

বিশ্বজমিন অন্যান্য খবর

দ্য হিলের রিপোর্ট

‘ডিসেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহে আসছে করোনার টিকা’

২৫ নভেম্বর ২০২০

দৃপ্তকণ্ঠে বাইডেনের উচ্চারণ

যুক্তরাষ্ট্র আবার বিশ্বকে নেতৃত্ব দেবে, পিছপা হবে না

২৫ নভেম্বর ২০২০

পক্ষ-বিপক্ষের বিক্ষোভ

ব্যাংককে ক্রাউন প্রপার্টি ব্যুরোতে ৬০০০ পুলিশ মোতায়েন

২৪ নভেম্বর ২০২০



বিশ্বজমিন সর্বাধিক পঠিত



DMCA.com Protection Status