রোহিঙ্গা ইস্যু

মার্কিন মন্তব্য অসঙ্গত-চীনা দূতাবাস

কূটনৈতিক রিপোর্টার

প্রথম পাতা ২৫ অক্টোবর ২০২০, রোববার | সর্বশেষ আপডেট: ১:৫৩

রোহিঙ্গা সংকটের সমাধানে চীন খুব কম কাজ করেছে বলে সম্প্রতি ওয়াশিংটনের তরফে যে মন্তব্য করা হয়েছে তাকে ‘অসঙ্গত এবং গঠনমূলক নয়’- বলে আখ্যা দিয়ে প্রতিবাদ জানিয়েছে চীন। ঢাকাস্থ চীনা দূতাবাসের অফিসিয়াল ফেসবুক পোস্টে বলা হয়, সম্প্রতি ভারত ও বাংলাদেশ সফর শেষে মার্কিন উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী স্টিফেন ই বিগান ওয়াশিংটনে এক সংবাদ ব্রিফিংয়ে বলেছেন, এটি দুর্ভাগ্যজনক যে, ‘চীন রোহিঙ্গা ইস্যুর সমাধানে সহায়তা করার জন্য খুব কম কাজ করেছে।’ বিগানের বাংলাদেশ সফর ঢাকা-ওয়াশিংটন সম্পর্ক বৃদ্ধির জন্য গুরুত্বপূর্ণ উল্লেখ করে চীন দূতাবাস বলেছে, সবার প্রত্যাশা তারা সেদিকেই নজর দেবে। দূতাবাস মনে করে করে চীন-ভারত সীমান্ত সংঘাত, তাইওয়ান প্রণালিতে উত্তেজনা, দক্ষিণ চীন সাগরের সমস্যা এবং হংকংয়ের জাতীয় সুরক্ষা আইন প্রসঙ্গে ১৫ই অক্টোবর বিগান বাংলাদেশ ছাড়ার আগে বেইজিংয়ের বিরুদ্ধে ভিত্তিহীন অভিযোগ করেছেন। এসব ইস্যুর সঙ্গে বাংলাদেশের কোনো সম্পর্ক নেই দাবি করে চীন বলেছে, তাদের এহেন আচরণ কেবল কূটনৈতিক নীতিমালার লঙ্ঘন নয়, বরং সফরটির আয়োজক বাংলাদেশের প্রতি অশ্রদ্ধা। বাংলাদেশ একটি শান্তিপ্রিয় দেশ। যাদের নীতি সকলের সঙ্গে বন্ধুত্ব এবং কারও সাথে শত্রুতা নয়- এমনটি উল্লেখ করে দূতাবাস বলেছে, বিগানের ২০শে অক্টোবরের মন্তব্য কেবল এ রকম আচরণের ধারাবাহিকতা, যেখানে বাংলাদেশের গুরুতর উদ্বেগের বিষয় রোহিঙ্গা ইস্যুকে ব্যবহার করা হয়েছে চীনের সমালোচনা এবং নিজের পক্ষপাতিত্ব প্রচার করতে। চীন এবং যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যকার বিষয় বা সমস্যা নিয়ে আলোচনার (দ্বিপক্ষীয়) অনেক চ্যানেল রয়েছে দাবি করে বেইজিংয়ের তরফে বলা হয়- বিদ্যমান কূটনৈতিক চ্যানেলকে অগ্রাহ্য করে চীনের সম্মতি ছাড়া এসব ইস্যুতে তৃতীয় পক্ষকে টেনে আনা মার্কিন মন্ত্রীর উচিত হয়নি। চীন দূতাবাস জানায়, ২০১৭ সাল থেকে রোহিঙ্গা সংকটের সমাধানে বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের মন্ত্রীদের নিয়ে তিন দফা মন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠক এবং কর্মপর্যায়ে বহু দ্বিপক্ষীয় ও ত্রিপক্ষীয় পরামর্শ সভা করেছে চীন।
রোহিঙ্গা সংকটের রাজনৈতিক এবং মানবিক প্রচেষ্টায় চীন সর্বদা তৎপর দাবি করে বলা হয়, সমাধান না পাওয়া পর্যন্ত চীনের প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Jesmin Anowara

২০২০-১০-২৫ ০৬:৩৯:৪০

China , India and and France are number one enemy of Islam in this planet

Siddq

২০২০-১০-২৪ ১৬:৫১:৪৩

China & USA none of them are at all interested about the chronic issue of Bangladesh. While India is the beneficiary out of this problem. Bangladesh has to fight against all these three criminal countries through other international forum. Depending on any of these criminal countries will be a big blunder.

আপনার মতামত দিন

প্রথম পাতা অন্যান্য খবর

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বললো, একেবারে অনুমাননির্ভর

চীনা বিজ্ঞানীদের দাবি করোনা ছড়িয়েছে ভারত, বাংলাদেশ বা অন্য দেশ থেকে

২৯ নভেম্বর ২০২০

পরমাণু বিজ্ঞানী হত্যা

ইসরাইলকে দায়ী করেছে ইরান

২৯ নভেম্বর ২০২০

আরো ৩৬ জনের মৃত্যু

২৯ নভেম্বর ২০২০

দেশে সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আরো ৩৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ...

ভাস্কর্য নিয়ে অনাহূত বিতর্কের ভিন্ন উদ্দেশ্য আছে

২৯ নভেম্বর ২০২০

যারা ভাস্কর্য নিয়ে অনাহূত বিতর্ক সৃষ্টি করছে তাদের ভিন্ন কোনো উদ্দেশ্য আছে বলে মন্তব্য করেছেন ...

নিভে গেল আলো

২৮ নভেম্বর ২০২০

শেষবার একটু দেখা

২৮ নভেম্বর ২০২০



প্রথম পাতা সর্বাধিক পঠিত

DMCA.com Protection Status