জরিপে বাইডেনের জয়

সংযত আক্রমণ

মানবজমিন ডেস্ক

প্রথম পাতা ২৪ অক্টোবর ২০২০, শনিবার | সর্বশেষ আপডেট: ১২:৫৭

শেষ হলো যুক্তরাষ্ট্রে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের শেষ দফা প্রেসিডেন্সিয়াল বিতর্ক। করোনা মহামারি থেকে শুরু করে ব্যক্তিগত আক্রমণ- সবই ছিল এতে। সিএনএনের জরিপ বলছে, ৫৩ শতাংশই মনে করেন বাইডেন শেষ বিতর্কে জয়ী হয়েছেন। বিতর্কে করোনা মহামারিতে গৃহীত পদক্ষেপ নিয়ে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের কড়া সমালোচনা করেন জো বাইডেন। কিন্তু তার বিরুদ্ধে ব্যক্তিগত আক্রমণে চলে যান ট্রাম্প। প্রমাণিত হয়নি এমন ব্যবসায়িক স্বার্থ নিয়ে জো বাইডেনকে ঘায়েল করার চেষ্টা করেন ট্রাম্প। একপর্যায়ে তিনি কিছু ব্যতিক্রম বাদে নিজেকে যুক্তরাষ্ট্রের শ্রেষ্ঠ প্রেসিডেন্ট হয়ে ওঠার দাবি করেন। নিয়ন্ত্রিত বিতর্কে করোনা মোকাবিলায় তিনি গৃহীত পদক্ষেপের কথা উল্লেখ করেন।
তিনি জানান, এসব পদক্ষেপের ফলে রক্ষা করা গেছে অনেক জীবন। কিন্তু মাইক জ্বলে ওঠার সঙ্গে সঙ্গে জো বাইডেন তা খণ্ডন করলেন। ট্রাম্পকে অভিযুক্ত করলেন। বললেন, তিনি করোনাভাইরাসের ঝুঁকিকে ছোট করে দেখেছেন। এর দায়িত্ব নিচ্ছেন না। এ ছাড়া বাইডেনের ছেলে হান্টার বাইডেনের ইউক্রেনে ব্যবসায়িক স্বার্থ নিয়ে দুই নেতা তীব্র বিতর্ক করেন। উল্লেখ্য, রিপাবলিকান দল থেকে নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প ও বিরোধী ডেমোক্রেট দল থেকে আগামী ৩রা নভেম্বরের নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন জো বাইডেন। তাদের মধ্যে নির্বাচনের আগে মুখোমুখি আর কোনো বিতর্ক হবে না। বৃহস্পতিবার যুক্তরাষ্ট্রের পূর্বাঞ্চলীয় সময় রাত ৯টায় শুরু হয় এই বিতর্ক। প্রথম বিতর্কে তাদের মধ্যে অনভিপ্রেত ঘটনার অবতারণা হওয়ায় এবার নেয়া হয়েছিল ব্যতিক্রমী ব্যবস্থা। প্রথম বিতর্কে জো বাইডেনের কথার মাঝে বার বার বিঘ্ন সৃষ্টি করছিলেন ট্রাম্প। এজন্য তাকে মারাত্মক সমালোচনা সহ্য করতে হয়েছে। দ্বিতীয় দফা বিতর্ক বাতিল হয়েছে। নিয়ম পাল্টে তৃতীয় দফা বিতর্ক হলো। এতে একজন প্রার্থী যখন বক্তব্য রাখছিলেন তখন অন্যজনের মাইক বন্ধ করে দেয়া হয়েছিল, যাতে তিনি বক্তব্যের মাঝে বিঘ্ন সৃষ্টি করতে না পারেন। এতে মডারেটর হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন সাংবাদিক ক্রিশ্চেন ওয়েলকার। এদিন বিতর্কে উঠে আসে জলবায়ু পরিবর্তনের মতো ইস্যু। এ ইস্যুতে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বলেন, তিনি পরিবেশ ভালোবাসেন। প্রত্যাশা করেন পরিষ্কার পানি ও বাতাস। তার ভাষায়, আমাদের আছে সবচেয়ে ভালো, সর্বনিম্ন কার্বন নির্গমন। কিন্তু চীন ও রাশিয়াকে এক্ষেত্রে ‘নোংরা’ বলে অভিহিত করেন তিনি। জবাবে বাইডেন বলেন, জলবায়ু পরিবর্তন নিয়ে কাজ করতে নৈতিক বাধ্যবাধকতা আছে আমাদের। ট্রাম্পকে আরো চার বছর রাখা হলে দূষণ নির্মূল বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রকে সমস্যায় ফেলবে। বাইডেন দাবি করেন, তিনি জলবায়ু বিষয়ক যে পরিকল্পনা নিয়েছেন তাতে লাখ লাখ কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে। যুক্তরাষ্ট্রে কৃষ্ণাঙ্গ ইস্যুতে উত্তপ্ত বিতর্ক হয় দুই নেতার মাঝে। ট্রাম্প বার বার দাবি করতে থাকেন, তিনি কৃষ্ণাঙ্গ মার্কিনিদের জন্য আব্রাহাম লিঙ্কনের কিছু ব্যতিক্রম বাদে, একজন শ্রেষ্ঠ প্রেসিডেন্ট হওয়ার চেষ্টা করে যাচ্ছেন। উল্লেখ্য, প্রেসিডেন্ট আব্রাহাম লিঙ্কন দাসপ্রথার ইতি ঘটিয়েছিলেন। জো বাইডেনের দিকে সমালোচনার তীর ছুড়ে দিয়ে ট্রাম্প বলেন, জো বাইডেন বহু দশক ধরে রাজনীতিতে। কিন্তু কৃষ্ণাঙ্গ সম্প্রদায়ের জন্য তেমন কিছু করেন নি। কংগ্রেসে একবার কৃষ্ণাঙ্গদের ‘সুপার প্রিডেটর’ বলে আখ্যায়িত করেছিলেন বলে এ মন্তব্য সামনে নিয়ে আসেন ট্রাম্প। তবে বাইডেন এ অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। ট্রাম্প বলেছেন, কৃষ্ণাঙ্গদের ঐতিহাসিক কলেজ ও ইউনিভার্সিটিগুলোকে তিনি রক্ষা করেছেন। জবাব দিতে গিয়ে ব্যঙ্গাত্মক মন্তব্য করেন জো বাইডেন। তিনি বলেন, আমাদের মধ্যে এ যাবতকালের সবচেয়ে বর্ণবাদী প্রেসিডেন্ট আব্রাহাম লিঙ্কন।
উল্লেখ্য, যুক্তরাষ্ট্রের টিনেসি রাজ্যের নাশভিলে অনুষ্ঠিত এই বিতর্ক যুক্তরাষ্ট্র সহ সারা বিশ্বের কোটি কোটি দর্শক পর্যবেক্ষণ করেন। যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টকে দেখা হয় সারা বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষমতাধর হিসেবে। সেই প্রেক্ষাপটে এই বিতর্কের দিকে দৃষ্টি ছিল বিশ্ববাসীর। যখন করোনাভাইরাসে যুক্তরাষ্ট্রের কমপক্ষে দুই লাখ ২১ হাজার মানুষ মারা গেছেন, তখন এই নির্বাচনে নিজেকে বিজয়ী করার নতুন এক সুযোগ হিসেবে উপস্থাপনের চেষ্টা করেছেন ট্রাম্প। এখনো পুরো যুক্তরাষ্ট্রে জনমত জরিপে এগিয়ে আছেন জো বাইডেন। তবে নির্বাচনের ফল নির্ধারণকারী সুইংস্টেটগুলোতে তাদের ব্যবধান কম। করোনাভাইরাস ইস্যুতে ট্রাম্পকে কড়া ভাষায় আক্রমণ করেন জো বাইডেন। তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্রে এত মানুষের মৃত্যুর জন্য যে ব্যক্তি দায়ী তার এই দেশের প্রেসিডেন্ট থাকা উচিত নয়। জবাবে ট্রাম্প বলেন, ভয়াবহ মহামারি এখন শেষ হয়ে গেছে। আমরা প্রতিটি বিষয় দেখছি। এই ভাইরাস এখন বিদায়ের পথে। মাত্র কয়েক সপ্তাহের মধ্যে একটি টিকা চলে আসবে বলে তিনি দাবি করেন। তবে বেশির ভাগ প্রশাসনিক কর্মকর্তা এবং বিশেষজ্ঞ মনে করেন, আগামী বছরের মধ্যভাগ ছাড়া টিকা পর্যাপ্ত আকারে পাওয়া যাবে না। ওদিকে বৃহস্পতিবার সুইংস্টেট বলে পরিচিত ওহাইও রাজ্যে একদিনে রেকর্ড সংক্রমণ ঘটেছে। আরো কিছু রাজ্যে সংক্রমণ বৃদ্ধি পেয়েছে। বিতর্ক শুরুর পর পরই প্রতিজন প্রার্থীর বিদেশের সঙ্গে অবৈধ সম্পর্কের বিষয়ে একে অন্যকে ঘায়েল করেন। জো বাইডেন ও তার ছেলে হান্টার বাইডেন অনৈতিকভাবে চীন ও ইউক্রেনের সঙ্গে যুক্ত রয়েছেন বলে অভিযোগ করেন ট্রাম্প। তবে এক্ষেত্রে যথাযথ কোনো প্রমাণ দিতে পারেননি তিনি। ট্রাম্পের এ অভিযোগকে মিথ্যা ও অপমানজনক বলে আখ্যায়িত করেন বাইডেন। তিনি নিজের ও পরিবারের সদস্যদের বিষয়ে আত্মপক্ষ সমর্থন করেন। বলেন, বিদেশ থেকে একটি পয়সাও নেননি তারা। বাইডেন দাবি করেন, এসব মিথ্যা বলে ট্রাম্প ভোটারদের দৃষ্টি ঘুরিয়ে দেয়ার চেষ্টা করছেন। সরাসরি ক্যামেরার দিকে তাকিয়ে জো বাইডেন বলেন, তার এসব কাণ্ডজ্ঞানহীন অভিযোগ আনার কারণ আছে। এটা তার পরিবার বা আমার পরিবারের বিষয় নয়। এটা আপনাদের পরিবারকে নিয়ে বলা হচ্ছে, আপনাদের পরিবারকে খারাপভাবে আঘাত করা হচ্ছে। একপর্যায়ে ডনাল্ড ট্রাম্পের আয়কর ফাঁকি দেয়ার ইস্যু সামনে তুলে আনেন জো বাইডেন। কয়েকদিন আগে নিউ ইয়র্ক টাইমস যে তদন্ত করেছে তা তুলে ধরেন। নিউ ইয়র্ক টাইমস রিপোর্টে বলেছে, ট্রাম্পের আয়কর রিটার্নে দেখা যাচ্ছে তিনি কমপক্ষে ২০ বছরের ওপরে কোনো ফেডারেল আয়কর দেননি। এ সময় ট্রাম্পের উদ্দেশে জো বাইডেন বলেন, আপনার আয়কর রিটার্ন প্রকাশ করুন, না হয় দুর্নীতি নিয়ে কথা বলা বন্ধ করুন।

এখানে উল্লেখ্য, যুক্তরাষ্ট্রে পূর্ববর্তী সব প্রেসিডেন্ট তাদের আয়কর রিটার্ন প্রকাশ করেছেন। কিন্তু দশকের পর দশক ধরে চলে আসা এই রীতি ভঙ্গ করেছেন ট্রাম্প। তিনি আয়কর রিটার্ন প্রকাশ করেননি। বাইডেনের জবাবে বলেছেন, তিনি লাখ লাখ ডলার পরিশোধ করেছেন। ট্রাম্প আরো একবার বলেন, দীর্ঘমেয়াদি একটি অডিট চলছে। এটা শেষ হলেই তিনি আয়কর রিটার্ন প্রকাশ করবেন। এ ছাড়া দুই প্রার্থী স্বাস্থ্যসেবা ও চীন নীতি নিয়েও ঘোরতর বিরোধে জড়িয়ে পড়েন। এ সময় ট্রাম্পকে সবচেয়ে বর্ণবাদী প্রেসিডেন্টদের একজন বলে উল্লেখ করেন জো বাইডেন। তিনি বলেন, ট্রাম্প প্রতিটি বর্ণবাদী উত্তেজনায় রশদ যুগিয়েছেন।

বাইডেনকে জয়ী বলছে সিএনএন: বিতর্কের পরপরই চালু করা সিএনএনের অনলাইন পোলে এগিয়ে রয়েছেন জো বাইডেন। ভোট দেয়া ৫৩ শতাংশই মনে করেন বিতর্কে বাইডেন ট্রাম্পের থেকে ভালো করেছেন। অপরদিকে ট্রাম্পের পক্ষে ভোট পড়েছে ৩৯ শতাংশ। এ ছাড়া, ট্রাম্পের যেসব সমালোচনা বাইডেন করেছেন তা যুক্তিযুক্ত ছিল কিনা এমন প্রশ্নের পক্ষে ভোট পড়েছে ৭৩ শতাংশ। ২৬ শতাংশ বলছে এগুলো অযৌক্তিক ছিল। আবার বাইডেনের বিরুদ্ধে আনা ট্রাম্পের অভিযোগকে সত্যি মনে করেন ৫০ শতাংশ মানুষ। ৪৯ শতাংশ মনে করেন এসব অভিযোগ অযৌক্তিক।

তবে সিএনএনের জরিপে প্রথম বিতর্কের তুলনায় এবার ভালো করেছেন ট্রাম্প। প্রথম বিতর্কের পর সিএনএনের পোলে মাত্র ২৮ শতাংশ ট্রাম্পকে সমর্থন দিয়েছিলেন। ৬৭ শতাংশই জানিয়েছেন যে তারা মনে করেন, বাইডেনের যেসব সমালোচনা ট্রাম্প করেছেন তা অযৌক্তিক ছিল। বিতর্ক শেষে সিএনএন জানিয়েছে, বিতর্কের ফলে দুই প্রার্থীর প্রতি মানুষের দৃষ্টিভঙ্গি একই রয়েছে।

শেষ বিতর্কে ট্রাম্প অর্থনীতি নিয়ে যে পয়েন্ট তুলে ধরেছেন তা মার্কিনিরা বেশি পছন্দ করেছেন। ৫৬ শতাংশই মনে করেন ট্রাম্প অর্থনীতি বাইডেনের থেকে ভালো সামলাতে পারবেন। এখানে বাইডেন পেয়েছেন ৪৪ শতাংশের সমর্থন। পররাষ্ট্রনীতির ক্ষেত্রে দু’জনই প্রায় অর্ধেক করে ভোট পেয়েছেন। তবে করোনাভাইরাস মোকাবিলায় ট্রাম্প থেকে বাইডেনকে যোগ্য বলে মনে করেন ৫৭ শতাংশ মানুষ। ৪১ শতাংশ মনে করেন ট্রাম্প যা করছেন তা ঠিক চলছে। জলবায়ু ইস্যুতে যদিও বাইডেন ধরাছোঁয়ার বাইরে সমর্থন পেয়েছেন। ৬৭ শতাংশই এক্ষেত্রে বাইডেনের ওপর ভরসা করছেন। মাত্র ২৯ শতাংশই জলবায়ু নিয়ে ট্রাম্পের নীতিতে বিশ্বাস করেন। এ ছাড়া, নারীদের মধ্যে বাইডেন বেশি জনপ্রিয় বলে জানিয়েছে সিএনএন। ৬০ শতাংশ নারীই মনে করেন বিতর্কে বাইডেন জয়ী হয়েছেন। ৩৫ শতাংশ মনে করেন ট্রাম্প জিতেছেন। অপরদিকে পুরুষদের মধ্যে ৪৭ শতাংশ বাইডেনের পক্ষে এবং ৪৪ শতাংশ ট্রাম্পের পক্ষে বলে জানিয়েছে গণমাধ্যমটি।

আপনার মতামত দিন

প্রথম পাতা অন্যান্য খবর

শনাক্ত সাড়ে চার লাখ ছাড়ালো

মৃত্যু ঝুঁকিতেও হেঁয়ালিপনা

২৫ নভেম্বর ২০২০

বাইডেনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ব্লিংকেন

তার পরিচয় তাদের পররাষ্ট্রনীতি

২৪ নভেম্বর ২০২০



প্রথম পাতা সর্বাধিক পঠিত

DMCA.com Protection Status