মি. বেকারের ব্যাংক হিসাব জব্দ

স্টাফ রিপোর্টার

অনলাইন ২৩ অক্টোবর ২০২০, শুক্রবার, ৫:৫৩

একটি ফেসবুক স্ট্যাটাসের সূত্র ধরে তিন দিন আগে ভ্যাট ফাঁকির অভিযান চালান ভ্যাট গোয়েন্দারা। অভিযানে ভ্যাট ফাঁকির প্রাথমিক সত্যতা পাওয়ায় বৃহস্পতিবার মিষ্টান্ন পণ্যের বিক্রেতা প্রতিষ্ঠান ‘মি. বেকারের’ ব্যাংক হিসাব জব্দ করা হয়েছে। এখন প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে ভ্যাট ফাঁকির বিস্তারিত তদন্ত করা হচ্ছে। জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) ভ্যাট নিরীক্ষা, গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তর এ অভিযান চালিয়েছে। তদন্তও করছে সংস্থাটি। কোন সূত্র ধরে ভ্যাট গোয়েন্দারা অভিযান চালিয়েছে, অভিযানে কী পেয়েছে, এক বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

গত ১৮ই অক্টোবর সাবেক সচিব আসিফ জামান নিজের ফেসবুক স্ট্যাটাসে উত্তরা ৩ নম্বর সেক্টরের ৪ নম্বর রোডে অবস্থিত ‘মি. বেকার’-এর বিক্রয়কেন্দ্রের বিরুদ্ধে ভ্যাট চালান না দেয়ার সুনির্দিষ্ট অভিযোগ করেন। তিনি ওই স্ট্যাটাসে এনবিআরের চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিমের কাছে প্রতিকার চেয়ে উল্লেখ করেন, ভোক্তারা ভ্যাট দিলেও তা সরকার পাচ্ছে না। ওই বিক্রয়কেন্দ্রটিতে ভ্যাট কাটার একটি কাঁচা চালান ক্রেতাকে বুঝিয়ে দেয়া হয়।
এ অভিযোগের ভিত্তিতে এনবিআরের চেয়ারম্যান তদন্ত করার জন্য ভ্যাট গোয়েন্দাকে নির্দেশ দেন।

এনবিআরের চেয়ারম্যানের নির্দেশে ২০শে অক্টোবর মি. বেকারের টঙ্গী ও গাজীপুরের তারগাছ প্রধান কার্যালয়ে অভিযান চালান ভ্যাট গোয়েন্দারা। প্রধান কার্যালয়ের বিভিন্ন কাগজপত্র যাচাই–বাছাই করে ব্যাপক পরিমাণ ভ্যাট ফাঁকির প্রাথমিক তথ্য পান তারা। এখন অধিকতর তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানা গেছে।

ভ্যাট নিরীক্ষা, গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মইনুল খান বলেন, প্রতিষ্ঠানটিতে অভিযান করে ভ্যাট ফাঁকির সপক্ষে নানা ধরনের অসংগতি পাওয়া গেছে। সেখানে ভ্যাট ফাঁকির অরাজকতা চলছে। ইতিমধ্যে ব্যাংক হিসাব জব্দের পাশাপাশি যাবতীয় হিসাব তলব করা হয়েছে। এখন তদন্ত করে দেখা হচ্ছে, কত টাকার ভ্যাট ফাঁকি দেয়া হয়েছে।

২০শে অক্টোবর অভিযানকালে ভ্যাট গোয়েন্দারা মি. বেকারের টঙ্গী ও প্রধান কার্যালয় তথা কারখানায় ক্রয় হিসাব পুস্তক (মূসক-৬ দশমিক ১) ও বিক্রয় হিসাব পুস্তক (মূসক-৬ দশমিক ২) পাননি। অথচ ভ্যাট আইন অনুযায়ী, উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানকে এই দুটি হিসাব সংরক্ষণের বাধ্যবাধকতা আছে। ২১শে অক্টোবর রাজধানীর বেইলি রোডের ওই প্রতিষ্ঠানের বিক্রয়কেন্দ্রে গিয়ে ভ্যাট গোয়েন্দারা দেখেছেন মূসক চালান ছাড়াই পণ্য সরবরাহ করা হচ্ছে।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Mustafa Ahsan

২০২০-১০-২৪ ০৪:১৫:৪৭

শুধু মি: বেকার নয় ঢাকার বেশির ভাগ মিষ্টির শোরুম গুলি যেমন মুসলিম সুইটমিট থেকে প্রিমিয়াম আলিবাবা অলিম্পিয়া লাবামবা বেকারিতে যেয়ে খাবার কিনে ভ্যাট রিসিট পাইনি এদের কর ফাঁকি ধরা হোক।

তপু

২০২০-১০-২৩ ০৫:৪৭:০৭

মি.বেকারে প্রতিবার ক্যাশ ম্যামো চেয়ে নিতে হয়েছে।গ্রাহককে রিসিট দিতে তাদের খুব অনীহা।

আপনার মতামত দিন

অনলাইন অন্যান্য খবর

বিভ্রান্তি ও বিভেদ সৃষ্টির অপচেষ্টার বিরুদ্ধে সতর্ক থাকার আহ্বান

২৫ নভেম্বর ২০২০

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্য নির্মাণের বিরোধিতার নামে জনমনে বিভ্রান্তি ও বিভেদ সৃষ্টির ...

হাটহাজারীতে পরিত্যক্ত পুকুরে যুবকের লাশ উদ্ধার

২৫ নভেম্বর ২০২০

চট্টগ্রাম হাটহাজারীতে পরিত্যক্ত একটি পুকুরে মো. শরীফ (২৪) নামে এক যুবকের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

দুই নবজাতকের মৃত্যু

হাইকোর্টে ৩ হাসপাতালের প্রতিবেদন

২৫ নভেম্বর ২০২০



অনলাইন সর্বাধিক পঠিত



বাংলাদেশ জার্নাল

দেখার কেউ নেই!

DMCA.com Protection Status