দ্বিতীয় দফা ময়নাতদন্ত রিপোর্ট

নির্মম নির্যাতনেই রায়হানের মৃত্যু

ওয়েছ খছরু, সিলেট থেকে

প্রথম পাতা ২৩ অক্টোবর ২০২০, শুক্রবার | সর্বশেষ আপডেট: ৬:১৭

নির্মম নির্যাতনেই মারা গেছে রায়হান উদ্দিন। অতিরিক্ত আঘাতের কারণেই তার মৃত্যু ঘটেছে। এমন তথ্য উঠে এসেছে ওসমানী মেডিকেল কলেজের ফরেনসিক বিভাগের দ্বিতীয় দফা ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনেও। গতকাল ফরেনসিক বিভাগের তরফ থেকে মামলার তদন্ত সংস্থা পিবিআইয়ের কাছে এ রিপোর্ট হস্তান্তর করা হয়। এর আগে প্রথম দফার তদন্ত প্রতিবেদনও পিবিআইয়ের কাছে হস্তান্তর করেছিল ওসমানী মেডিকেল কলেজ কর্তৃপক্ষ। ফরেনসিক বিভাগের চিকিৎসকরা জানিয়েছেন- প্রথম দফার ময়নাতদন্ত এবং দ্বিতীয় দফার ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনে কোনো অমিল নেই। বরং প্রথম দফায় মৃত্যুর যেসব কারণ চিকিৎসকরা উল্লেখ করেছিলেন দ্বিতীয় দফার প্রতিবেদনেও একই তথ্য উঠে এসেছে। গত ১১ই অক্টোবর সিলেটের বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়িতে নির্মমভাবে পিটিয়ে খুন করা হয় নগরীর নেহারীপাড়ার যুবক রায়হান উদ্দিনকে।
ফাঁড়িতে নির্যাতনের পর ওইদিন সকালে হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়। মারা যাওয়ার পর রায়হানের মরদেহ পাঠিয়ে দেয়া হয় মর্গে। সেখানেই প্রথমে রায়হানের লাশ দেখেন রায়হানের সৎ পিতা মো. হাবিবউল্লাহ ও ভাই আব্দুর রহমান। মর্গে থাকা লাশে নির্যাতনের চিহ্ন দেখেই তারা দাবি করেন রায়হানকে পুলিশ ফাঁড়িতে নিয়ে নির্মমভাবে নির্যাতন চালিয়ে হত্যা করা হয়েছে। তাদের এ দাবি মর্গে তোলা ছবিতে লাশের শরীরে অমানুষিক নির্যাতনের বিষয়টি স্পষ্ট ধরা পড়ে। এরপর থেকেই রায়হান হত্যা নিয়ে তোলপাড় শুরু হয় সর্বত্র। ঘটনার দিনই মর্গে পুলিশের পক্ষ থেকে রায়হানের সুরতহাল রিপোর্ট করা হয়। এরপর চিকিৎসকরা তার ময়নাতদন্ত করেন। ওই ময়নাতদন্তেই ধরা পড়েছিলো রায়হানের মরদেহে ১১৩টি আঘাতে চিহ্ন রয়েছে। এবং অতিরিক্ত আঘাতের কারণেই তার মৃত্যু হয়। ফরেনসিক বিভাগের ডাক্তাররা জানান- প্রথম দফা রিপোর্টে রায়হানের শরীরে ১১৩টি আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়। লাঠির আঘাতের কারণে চামড়া ছিলে যাওয়ার ১৪টি জখম ছিলো। তার দু’টি আঙুলের নখ উপড়ে ফেলাসহ পুরো শরীরে শুধু লাঠির আঘাত রয়েছে ১১১টি। নির্যাতনের সময় রায়হানের পাকস্থলীও খালি ছিল। ডাক্তাররা জানিয়েছেন- একের পর এক লাঠির আঘাতের কারণেই রায়হানের শরীরের পা ও হাত থেঁতলে যায়। পা ও হাতের নখ উপড়ে ফেলা হয়। রক্ত জমাট বেঁধে যায়। প্রতিটি আঘাত ছিল ?খুবই গুরুতর। অতিরিক্ত আঘাতের কারণে রায়হানের হৃদযন্ত্র রক্ত পায়নি। সেজন্য তার মৃত্যু হয়। লাঠির আঘাতের কারণে হাইপোভলিউমিক শক ও নিউরোজেনিক শকে মস্তিষ্ক, হৃৎপিণ্ড, ফুসফুস, কিডনিসহ গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গগুলো কর্মক্ষমতা হারায়। প্রথম দফার ময়নাতদন্ত রিপোর্ট ১৫ই অক্টোবর পিবিআইয়ের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এই প্রতিবেদনে একই বিষয়গুলো উল্লেখ ছিল। পুলিশি হেফাজতে মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করতে সিলেটের জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের অনুমতি সাপেক্ষে গত ১৫ই অক্টোবর কবর থেকে উত্তোলন করা হয় রায়হানের মরদেহ। এরপর দু’জন ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতে পিবিআই রায়হানের মরদেহের সুরতহাল প্রতিবেদন করেন। পরে লাশ দ্বিতীয় দফা ময়নাতদন্তের জন্য ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করা হয়। সেখানে ওসমানী মেডিকেল কলেজের ফরেনসিক বিভাগের ডাক্তার শামসুল ইসলামের নেতৃত্বে তিন সদস্যর একটি মেডিকেল টিম রায়হানের মরদেহের দ্বিতীয় দফা ময়নাতদন্ত করেন। এই প্রতিবেদন গতকাল পিবিআইয়ের কাছে আনুষ্ঠানিক হস্তান্তর করা হয়েছে। ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ডা. শামসুল ইসলাম জানিয়েছেন- প্রথম দফার ময়নাতদন্ত এবং দ্বিতীয় দফার ময়নাতদন্ত রিপোর্টে খুব বেশি পার্থক্য নেই। আগের যে রকম ছিল সে রকমই রিপোর্ট এসেছে। দ্বিতীয় দফা ময়নাতদন্তেও জানা গেছে- অতিরিক্ত আঘাতের কারণে মারা গেছে রায়হান। তার শরীরের পায়ে ও হাতে নির্যাতনের চিহ্ন ছিল। তার পাকস্থলী শূন্য ছিল। তিনি বলেন- এই প্রতিবেদনটি ইতিমধ্যে সংশ্লিষ্টদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

আপনার মতামত দিন

প্রথম পাতা অন্যান্য খবর

জীবনটাকে জুয়া হিসেবে খেলে গেলেন যিনি

২৭ নভেম্বর ২০২০

বিশ্বনন্দিত ফুটবল সাংবাদিক ব্রায়ান গ্ল্যানভিল লিখেছিলেন, দিয়েগো ম্যারাডোনা হলেন ফুটবলের সেই ছুরি যা দিয়ে মসৃণভাবে ...

আমরা তোমাকে ভুলবো না

২৭ নভেম্বর ২০২০

ইউনিক আইডি

কীভাবে হবে কারা করবে

২৭ নভেম্বর ২০২০

মৃত্যুর মিছিলে আরো ৩৭

২৭ নভেম্বর ২০২০

দেশে করোনার মৃত্যুর মিছিল দীর্ঘই হচ্ছে। মৃত্যু তালিকায় নাম উঠেছে সাড়ে ৬ হাজারের বেশি। দেশে ...

২৭ জনের মৃত্যু

১০৪৭ গণমাধ্যমকর্মী আক্রান্ত

২৭ নভেম্বর ২০২০

টাকা উড়ছে শুধুই উড়ছে

২৬ নভেম্বর ২০২০

চাই অধিকতর গণতন্ত্র

২৬ নভেম্বর ২০২০

প্রথম-নবম ভর্তি লটারিতে

পেছাচ্ছে এসএসসি এইচএসসি

২৬ নভেম্বর ২০২০

কাস্টমস গেটে স্ক্যানার স্থাপন

প্রকল্প ব্যয় বেড়েছে ২০ ভাগ, বিলম্বের নেপথ্যে-

২৬ নভেম্বর ২০২০



প্রথম পাতা সর্বাধিক পঠিত

DMCA.com Protection Status