নোয়াখালীতে ফের গৃহবধূ ধর্ষণ,যুবলীগ নেতা গ্রেপ্তার

অনলাইন ডেস্ক

অনলাইন ২১ অক্টোবর ২০২০, বুধবার, ৯:৫৪ | সর্বশেষ আপডেট: ১২:৩৮

নোয়াখালীর  বেগমগঞ্জের ধর্ষণ ও ভিডিও ধারনের ঘটনা নিয়ে দেশ তোলপাড় চলছে। এর মধ্যে জেলার সেনবাগ ও চাটখিলে অন্তঃসত্ত্বাসহ দুই গৃহবধূকে ধর্ষণ ও বিবস্ত্র করে ভিডিও করার অভিযোগ উঠেছে। নির্যাতনের শিকার দুই নারী থানায় মামলা করেছেন।
জানা গেছে, চাটখিলে গৃহবধূকে ধর্ষণ ও বিবস্ত্র করে ভিডিও ধারণের অভিযোগে একজনকে  গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। আজ বুধবার নোয়াখলা ইউনিয়নের স্থানীয় বাজার থেকে অভিযুক্ত মুজিবুল রহমান শরীফ (৩২) কে  গ্রেপ্তার করা হয় বলে জানান চাটখিল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আনোয়ারুল ইসলাম। পুলিশ জানায়, অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে আজ ভোরে  প্রবাসীর স্ত্রীকে ধর্ষণ ও বিবস্ত্র করে ভিডিও ধারণ করার অভিযোগে শরীফকে  গ্রেপ্তার করা হয়েছে। দুপুরে নির্যাতনের শিকার ওই নারী চাটখিল থানায় ধর্ষণ মামলা করেন।  গ্রেপ্তাকৃত শরীফ উপজেলার নোয়াখলা ইউনিয়ন যুবলীগের মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটির সভাপতি।  এদিকে সেনবাগে আরো একটি ধর্ষনের ঘটনা ঘটেছে। এই ঘটনায় মামলার পর পুলিশের অভিযানে এ পর্যন্ত ৩ জনকে  গ্রেপ্তার করা হয়েছে ।
অভিযুক্ত বাকিদের ধরতে অভিযান চলছে। এদিকে গত ৯ অক্টোবর উপজেলার ছাতারপাইয়া এলাকায় তিন মাসের অন্তঃসত্ত্বা নারীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ ও ভিডিও ধারণের অভিযোগে গতকাল মঙ্গলবার রাতে সেনবাগ থানায় মামলা করেন নির্যাতনের শিকার ওই নারী। সেনবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুল বাতেন মৃধা এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, ওই নারী বাদী হয়ে আট জনের নাম উল্লেখ করে মামলা করেন। আজ ভোরে পুলিশ অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত শুভ (১৮), রকি (১৭) ও হাছান (১৮) কে  গ্রেপ্তার করেছে। তবে, মামলার মূল আসামি পারভেজকে (২৫) গ্রেপ্তার করতে পারেনি।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Faruque Ahmed

২০২০-১০-২২ ০৯:০৭:৪৫

Shoot him

Sadik md. iqball hos

২০২০-১০-২২ ০৮:৩৬:৩৫

সরকারের নিকট আবেদন অতি দ্রুত সময়ের মধ্যে এ্ই জানয়ারের ফাঁসির ব্যবস্থা করা হোক ।

Amir Hossain

২০২০-১০-২১ ১৮:২৪:১৭

দেশে কি ভয়াবহ অবস্থা শুরু হয়ে গেল ? চোখের সামনে কঠিনতম শাস্তি দেখতে পেয়েও ধর্ষন করার দিকে মানুষ যাচ্ছে কিভাবে ? পঙগ পালের মত নির্বোধের পরিচয় দিয়ে আগুনে ঝাঁপিয়ে পড়ছে । কেয়ামত অতি নিকটে এসে পড়েছে বলে মনে হচ্ছে । অতএব সবাই সাবধান !

Nannu chowhan

২০২০-১০-২১ ১৭:১১:৩৮

I lost my voice to rise against all this worst situation doing by the member or leaders of the administrative party & some individual persons. Why is this kind of crime continue going on in our society ,is there is any answer & solutoions by administration ?

ঊর্মি

২০২০-১০-২২ ০০:১০:৩৩

জেলাটি কিন্তু ক্ষমতাসীন ও বিরূধি - উভয় দলেরই দুই বিশিষ্ট কেন্দ্রীয় নেতার আবাসস্থল!!!

Milton

২০২০-১০-২১ ২২:৫৪:৫৭

They are not stopping, they have endless inspiration and energy. They are our future. No, who will stop us as we will be under their leadership someday?

kazi

২০২০-১০-২১ ২২:৩৬:৫২

"ইউনিয়ন যুবলীগের মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটির সভাপতি"...মেয়াদোত্তীর্ণ কথাটা দিয়ে এখানে কী বোঝানো হচ্ছে? সাবেক নাকি এখন ক্ষমতাসীন?

আপনার মতামত দিন

অনলাইন অন্যান্য খবর



অনলাইন সর্বাধিক পঠিত



স্বাধীন নাগরিক নাও থাকতে পারেন ট্রাম্প

যেসব কারণে ট্রাম্পের বিচার করতে সকলের হাত-পা বাঁধা

DMCA.com Protection Status