রয়টার্সের রিপোর্ট

নির্বাচনের আগেই স্বস্তিতে নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী

মানবজমিন ডেস্ক

বিশ্বজমিন ১৫ অক্টোবর ২০২০, বৃহস্পতিবার | সর্বশেষ আপডেট: ৭:৫৭

শনিবার নিউজিল্যান্ডে জাতীয় নির্বাচন। জনমত জরিপ বলছে, এ নির্বাচনে বিরোধীদের চেয়ে ১৫ পয়েন্টে এগিয়ে আছে প্রধানমন্ত্রী জাসিন্দা আরডেনের নেতৃত্বাধীন লেবার পার্টি। সেখানে সরকার গঠন করতে হলে একটি দলকে কমপক্ষে ৬১ আসন পেতে হয়। তবে জনমত জরিপের ওপর ভিত্তি করে বলা হচ্ছে, লেবার পার্টি ৫৯টি আসন পেতে পারে। যদি তাই হয়, তাহলে সরকার গঠন করতে হলে গ্রিন পার্টির সঙ্গে জোট গঠন করতে পারেন জাসিন্দা আরডেন। এই দলটি বামধারার। জাসিন্দা তাদের ওপর ভর করে সরকার গঠন করলে এটা ১৯৯৯ সালের পর প্রথম এমন ঘটনা হবে। এ খবর দিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

এতে আরো বলা হয়, নির্বাচনের আর মাত্র দু’দিন বাকি থাকলেও ১নিউজ-কোলমার ব্রানটন জরিপে আগের চেয়ে কিছুটা পিছিয়ে পড়েছেন জাসিন্দা আরডেন। ৮ই অক্টোবরে জনমত জরিপের চেয়ে শতকরা এক ভাগ মানুষ তাকে কম সমর্থন করছেন। শতকরা হিসেবে তার এখন সমর্থন ৪৬ ভাগ। ওদিকে প্রধান বিরোধী দলের সমর্থন রয়েছে শতকরা ৩১ ভাগ। এর অর্থ হলো জাসিন্দা আরডেনের লেবার পার্টি ১৫ পয়েন্টে এগিয়ে আছে। ২০১৭ সালের পর নিজেদের সর্বোচ্চ সমর্থনে ফিরেছে গ্রিন পার্টি। তাদেরকে সমর্থন করছে শতকরা ৮ ভাগ মানুষ। এর অর্থ হলো তারা নির্বাচনে ১১টি আসন পেতে পারে। ১৯৯৬ সালে আনুপাতিক হারে ভোটিং সিস্টেম চালু হয়েছে নিউজিল্যান্ডে। এর ফলে আরডেন লেবার দলকে একক সংখ্যাগরিষ্ঠতার দিকে নিয়ে যেতে চেষ্টা করছেন। কিন্তু সাম্প্রতিক জরিপগুলো বলছে, তিনি বামপন্থি গ্রিনের সঙ্গে জোট বাঁধতে পারেন।
উপপ্রধানমন্ত্রী উইনস্টোন পিটারসের নেতৃত্বাধীন জাতীয়তাবাদী দল নিউজিল্যান্ড ফার্স্ট বর্তমানে জাসিন্দা আরডেনের সঙ্গে জোটের অংশীদার। জরিপ বলছে, তাদের সমর্থন রয়েছে শতকরা ৩ ভাগ। ফলে তারা পার্লামেন্টের কোনো আসন নাও পেতে পারে। যদি তাই হয়, তাহলে পার্লামেন্টের বাইরে থাকবে এই দলটি। শনিবারের এই ভোটে ভোট দেবেন কমপক্ষে ১৪ লাখ ভোটার।

আপনার মতামত দিন

বিশ্বজমিন অন্যান্য খবর

বৃটিশ বিজ্ঞানীর হুঁশিয়ারি

করোনা ভাইরাস পুরো নির্মূল হবে না, থেকে যেতে পারে সিজনাল ফ্লুর মতো

২১ অক্টোবর ২০২০

নিউ ইয়র্ক টাইমসের রিপোর্ট

চীনা ব্যাংকে আছে ট্রাম্পের একাউন্ট

২১ অক্টোবর ২০২০



বিশ্বজমিন সর্বাধিক পঠিত



ব্লুমবার্গে প্রকাশিত নিবন্ধ

প্রথমে বাংলাদেশকে পরাজিত করতে হবে ভারতকে