হৃদরোগে দেশে বছরে পৌনে ৩ লাখ মানুষের মৃত্যু

ফরিদ উদ্দিন আহমেদ

শেষের পাতা ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, মঙ্গলবার | সর্বশেষ আপডেট: ২:০১

দেশে হৃদরোগজনিত মৃত্যু এবং অসুস্থতার চিত্র অত্যন্ত উদ্বেগজনক। বাংলাদেশে বছরে ২ লাখ ৭৭ হাজার ৯৯২ জন হৃদরোগে মারা যান। যার ৪ দশমিক ৪১ শতাংশের জন্য দায়ী ট্রান্সফ্যাট। কার্ডিওভাসকুলার ডিজিজ বা হৃদরোগ পৃথিবীব্যাপী মৃত্যুর একক কারণ হিসেবে শীর্ষে। যেসব কারণে হৃদরোগের ঝুঁকি বাড়ছে ট্রান্সফ্যাট তারমধ্যে অন্যতম এবং আশঙ্কার কথা হলো ট্রান্সফ্যাটজনিত হৃদরোগে মৃত্যুর সর্বাধিক ঝুঁকিপূর্ণ ১৫টি দেশের মধ্যে রয়েছে বাংলাদেশ। পারশিয়ালি হাইড্রোজেনেটেড অয়েল বা পিএইচও’র অনিয়ন্ত্রিত ব্যবহার এবং খাদ্যের মাধ্যমে উচ্চ মাত্রায় ট্রান্সফ্যাট গ্রহণ অসংক্রামক রোগে মৃত্যুঝুঁকি বহুগুণ বাড়িয়ে তুলছে বলে বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ বুলেটিন ২০১৭ এর তথ্যমতে, ২০০৯ থেকে ২০১৬ সময়কালে জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটের বহির্বিভাগে সেবা নিতে আসা রোগীর সংখ্যা বেড়েছে ৪১ দশমিক ৩ শতাংশ। বাংলাদেশে প্রতিবছর যতো মানুষ মারা যায় তার ৬৭ শতাংশের জন্য দায়ী অসংক্রামক রোগ।

ট্রান্সফ্যাট গ্রহণ এবং হৃদরোগ ঝুঁকির উচ্চহার ব্যাপকভাবে সম্পর্কযুক্ত।
বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার হিসাব অনুযায়ী, বিশ্বে প্রতিবছর ১ কোটি ৭৯ লাখ মানুষ হৃদরোগে মৃত্যুবরণ করে (মোট মৃত্যুর ৩১%) এবং কেবল ট্রান্সফ্যাট গ্রহণের কারণেই হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যায় ২ লাখ ৫০ হাজার মানুষ।  উদ্বেগজনক বিষয় হলো, হৃদরোগীদের করোনা সংক্রমণে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়ার ঝুঁকি অনেকগুণ বেশি বলে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন।    

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে হৃদরোগজনিত অসুস্থতা ও মৃত্যু এতোটাই দ্রুত বৃদ্ধি পাচ্ছে যে, জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা একে ‘প্যানডেমিক’ বা পৃথিবীব্যাপী মহামারি বলে আখ্যা দিয়েছেন। বাংলাদেশেও প্রতিবছর ২ লাখ ৭৭ হাজার ৯৯২ জন হৃদরোগে মারা যায়, যা অত্যন্ত উদ্বেগজনক। এ অবস্থা চলতে থাকলে ২০৩০ সালের মধ্যে অসংক্রামক রোগজনিত অকাল মৃত্যু এক-তৃতীয়াংশে কমিয়ে আনা সংক্রান্ত টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (লক্ষ্য ৩ দশমিক ৪) অর্জন কার্যত অসম্ভব হয়ে পড়বে। সুতরাং হৃদরোগ প্রতিরোধসহ জনস্বাস্থ্যের কার্যকর উন্নয়নের জন্য ট্রান্সফ্যাট নির্মূলের কোনো বিকল্প নেই বলে সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন। হৃদরোগের অন্যতম কারণ শিল্পোৎপাদিত ট্রান্সফ্যাটের অনিয়ন্ত্রিত ব্যবহার এই সার্বিক পরিস্থিতিকে আরো ভয়াবহ করে তুলছে।

শিল্পোৎপাদিত ট্রান্সফ্যাটি এসিডের ক্ষতিকর প্রভাব থেকে জনস্বাস্থ্য সুরক্ষায় বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত কোনো আইন বা নীতি নেই। তবে, বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ (বিএফএসএ) খাদ্যে ট্রান্সফ্যাট নিয়ন্ত্রণে নীতিগত সিদ্ধান্ত গ্রহণ এবং বিশেষজ্ঞদের সমন্বয়ে একটি টেকনিক্যাল কমিটি গঠন করেছে। কমিটির আওতায় ইতিমধ্যে ট্রান্সফ্যাটি এসিড নিয়ন্ত্রণে একটি ধারণা পত্র (চড়ংরঃরড়হ চধঢ়বৎ) তৈরি করা হয়েছে। এ ছাড়াও বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস অ্যান্ড টেস্টিং ইনস্টিটিউশন (বিএসটিআই) ট্রান্সফ্যাট প্যারামিটারটি সংশ্লিষ্ট পণ্যের জাতীয় মানে অন্তর্ভুক্ত করার জন্য প্রস্তুতি শুরু করেছে।

গত ৯ই সেপ্টেম্বর ২০২০ তারিখে বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) প্রকাশিত প্রতিবেদনে আরো বলা হয়, বিশ্বে ট্রান্সফ্যাট গ্রহণের কারণে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর প্রায় দুই-তৃতীয়াংশই ঘটে ১৫টি দেশে। যার মধ্যে বাংলাদেশ অন্যতম। ট্রান্সফ্যাট গ্রহণের ফলে হৃদরোগ ও হৃদরোগজনিত মৃত্যু প্রতিরোধযোগ্য। বিশ্বজুড়ে ট্রান্সফ্যাট নির্মূলে প্রশংসনীয় অগ্রগতি হলেও থেমে নেই এই মৃত্যু।

ভেজিটেবল অয়েল বা উদ্ভিজ্জ তেল (পাম, সয়াবিন ইত্যাদি) যান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় পারশিয়ালি হাইড্রোজেনেশন করা হলে তেল তরল অবস্থা থেকে কঠিন আকার ধারণ করে অর্থাৎ জমে যায়, এই প্রক্রিয়ায় ট্রান্সফ্যাটও উৎপন্ন হয়। এ ছাড়া ভাজা পোড়া খাদ্যে একই ভোজ্যতেল উচ্চ তাপমাত্রায় বারবার ব্যবহারের কারণেও খাদ্যে ট্রান্সফ্যাট সৃষ্টি হয়। তবে পারশিয়ালি হাইড্রোজেনেটেড অয়েল বা পিএইচও ট্রান্সফ্যাটের প্রধান উৎস। এই পিএইচও বাংলাদেশে ডালডা বা বনস্পতি ঘি নামে অধিক পরিচিত। হু’র পরামর্শ অনুযায়ী, একজন ব্যক্তির দৈনিক ট্রান্সফ্যাট গ্রহণের পরিমাণ হওয়া উচিত মোট খাদ্যশক্তির ১ শতাংশের কম, অর্থাৎ দৈনিক ২০০০ ক্যালোরির ডায়েটে তা হতে হবে ২ দশমিক ২ গ্রামের চেয়েও কম।

এদিকে, সমপ্রতি ঢাকার শীর্ষস্থানীয় পিএইচও (পারশিয়ালি হাইড্রোজেনেটেড অয়েল) ব্র্যান্ডসমূহের নমুনার ৯২ শতাংশে ডব্লিউএইচও সুপারিশকৃত ২ শতাংশ  মাত্রার চেয়ে বেশি ট্রান্সফ্যাট (ট্রান্স ফ্যাটি এসিড) পেয়েছেন ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশন হসপিটাল অ্যান্ড রিসার্চ ইনস্টিটিউটের গবেষকগণ। গবেষণায় ঢাকার পিএইচও নমুনা বিশ্লেষণ করে প্রতি ১০০ গ্রাম পিএইচও নমুনায় সর্বোচ্চ ২০ দশমিক ৯ গ্রাম পর্যন্ত ট্রান্সফ্যাটের উপস্থিতি লক্ষ্য করা গেছে, যা ডব্লিউএইচও এর সুপারিশকৃত মাত্রার তুলনায় ১০ গুণেরও বেশি। বাংলাদেশে ট্রান্সফ্যাট নিয়ন্ত্রণে নীতিমালা না থাকায় মারাত্মক ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে জনস্বাস্থ্য। এমতাবস্থায়, দ্রুততম সময়ের মধ্যে সবধরনের ফ্যাট, তেল এবং খাদ্যদ্রব্যে ট্রান্সফ্যাটের সর্বোচ্চ সীমা মোট ফ্যাটের ২ শতাংশ নির্ধারণ এবং তা কার্যকর করার দাবি জানিয়েছে গবেষণা ও অ্যাডভোকেসি প্রতিষ্ঠান প্রজ্ঞা (প্রগতির জন্য জ্ঞান)। বিশ্ব হার্ট দিবস উপলক্ষে এক প্রতিক্রিয়ায় গবেষণা ও অ্যাডভোকেসি প্রতিষ্ঠান প্রজ্ঞা’র (প্রগতির জন্য জ্ঞান) নির্বাহী পরিচালক এবিএম জুবায়ের বলেন, ট্রান্সফ্যাট নিয়ন্ত্রণে সারাবিশ্ব একত্রিত হচ্ছে। এক্ষেত্রে বিলম্ব করার কোনো সুযোগ বা অজুহাত থাকতে পারেনা। খাদ্যদ্রব্যে ট্রান্সফ্যাট নিয়ন্ত্রণ এমন এক সাশ্রয়ী পদক্ষেপ যা একইসঙ্গে হৃদরোগজনিত অসুস্থতা ও মৃত্যুঝুঁকি হ্রাস এবং অসংক্রামক রোগ সংক্রান্ত টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা ৩ দশমিক ৪ অর্জনে সহায়তা করবে।

এ পরিস্থিতিতে বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও সরকারি- বেসরকারি উদ্যোগে নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে আজ ২৯শে সেপ্টেম্বর বিশ্ব হার্ট দিবস পালন করা হচ্ছে। এ বছরের প্রতিপাদ্য-“হৃদয় দিয়ে হৃদরোগ প্রতিরোধ”।

আপনার মতামত দিন

শেষের পাতা অন্যান্য খবর

মাটির নিচ দিয়ে নেয়ার প্রতিশ্রুতি

ঝুলন্ত তার অপসারণ অভিযান আপাতত বন্ধ

১৯ অক্টোবর ২০২০

মৌলভীবাজার জেলা পরিষদ উপনির্বাচন

একই ঘরানার দুই প্রার্থী নানা কৌতূহল

১৯ অক্টোবর ২০২০

করোনায় আরো ১৪ জনের মৃত্যু শনাক্ত ১২৭৪

১৯ অক্টোবর ২০২০

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আরো ১৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ পর্যন্ত মোট ...

নির্বাচন কমিশন মিথ্যাচার করেছে

১৯ অক্টোবর ২০২০

নির্বাচন কমিশন সরকারের ‘বশংবদ ক্রীড়ানক’ হিসেবে কাজ করছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ...

ময়মনসিংহে স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা খুন

১৯ অক্টোবর ২০২০

ময়মনসিংহের গৌরীপুর উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক মাসুদুর রহমান শুভ্র হত্যায় উপজেলা বিএনপির যুগ্ম-আহ্বায়ক ও ...

মানবজমিনকে আর্মেনিয়ান এমপি নারেক মার্কেচান

আজারবাইজান যুদ্ধটিকে মুসলিম দেশগুলোর কাছে ধর্মীয় প্রেক্ষাপট থেকে দেখাচ্ছে

১৯ অক্টোবর ২০২০



শেষের পাতা সর্বাধিক পঠিত



মৌলভীবাজার জেলা পরিষদ উপনির্বাচন

একই ঘরানার দুই প্রার্থী নানা কৌতূহল

মাটির নিচ দিয়ে নেয়ার প্রতিশ্রুতি

ঝুলন্ত তার অপসারণ অভিযান আপাতত বন্ধ