টোকেন নয়, অগ্রাধিকার ভিত্তিতে টিকিট চান সৌদি প্রবাসীরা

স্টাফ রিপোর্টার

প্রথম পাতা ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০, রোববার | সর্বশেষ আপডেট: ২:১০

চাকরিতে ফিরতে চান সৌদি প্রবাসীরা। দীর্ঘদিন আয়হীন, অসহায় তারা। বাংলাদেশের সব থেকে বড় চাকরির বাজার সৌদি আরব। দেশটিতে কাজ করেন প্রায় ২২ লাখ প্রবাসী। আর করোনার সময়টাতে দেশে এসে আটকে পড়েছেন লক্ষাধিক প্রবাসী। সৌদিতে ফিরতে মরিয়া হয়ে চেষ্টা করছেন তারা। ফ্লাইট চালু হওয়ায় টিকিটের জন্য হন্যে হয়ে ফিরছেন প্রবাসীরা। সৌদি এ্যরাবিয়ান এয়ারলাইন্স এবং বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স টিকিট ইস্যু করছে।
তবে বিমানের নিয়মিত ফ্লাইট শুরু হবে ১লা অক্টোবর। সৌদি এয়ারলাইন্স টিকিট দিচ্ছে টোকেন সিস্টেমে। যারা আগে টোকেন নিচ্ছেন তারা আগে টিকিট পাচ্ছেন। তবে টিকিট প্রত্যাশীদের দাবি যাদের আকামা বা ভিসার মেয়াদ শেষ পর্যায়ে তাদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে টিকিট দিতে। এ দাবিতে গতকাল রাজধানীর সোনারগাঁ হোটেলের পাশে সড়কে বিক্ষোভ করেন তারা। এর আগে টানা কয়েকদিন টিকিটের জন্য বিক্ষোভ করেন তারা। গতকাল প্রবাসীদের বিক্ষোভ চলাকালে ঘটনাস্থলে  যান পুলিশের তেজগাঁও বিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। এ সময় তাদের একজন মাইকিং করে বিক্ষোভকারীদের উদ্দেশ্যে বলেন, আপনারা শান্তিপূর্ণভাবে থাকুন। সড়ক ছেড়ে দিন। এছাড়া খেয়াল রাখবেন আপনাদের এই ভিড়ের মধ্যে টিকেট প্রত্যাশী ছাড়া অন্য কেউ যাতে ঢুকতে না পারে।
প্রবাসীরা দাবি করে আসছেন রিটার্ন টিকিট কেটে আসার পরেও তারা টিকিট পাচ্ছেন না। কিন্তু নতুন করে টিকিট বিক্রি করা হচ্ছে। আবার তাদের অভিযোগ কাউন্টারে টিকিটের জন্য না বলা হলেও দালালদের হাতে ঠিকই টিকিট আছে। এখন তাদের দাবি যারা রিটার্ন টিকিট করে দেশে এসেছিলেন তাদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে টিকিট দেয়া হোক।
রংপুর থেকে টিকিটের আশায় ঢাকায় ৬ দিন ধরে আছেন ইয়ামিন মোল্লা। তিনি বলেন, সবাইকে টোকেন দেয়া হচ্ছে। তাহলে আমি যে রিটার্ন টিকিট করে আসলাম আমার লাভটা হলো কী? এখন আমাদের একটাই দাবি রিটার্ন টিকিট করে আমরা যারা এসেছি তাদের আগে টিকিট দেয়া হোক। তিনি আরো অভিযোগ করে বলেন, যারা বেশি টাকা দিচ্ছেন তাদেরকেই টোকেন দেয়া হচ্ছে। আমার টিকিট ছিল মার্চ মাসে তারপরও আমি টিকিট পাচ্ছি না। আর যাদের টিকিট দুই তিন মাস আগের তারাই আগের সিরিয়াল পান।
আজ রোববার ১২০১ থেকে এক হাজার ৫০০ পর্যন্ত টোকেনধারীদের টিকিট দেয়া হবে বলে সৌদিয়া কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে।
সড়কের ধারে ব্যাগ মাথায় দিয়ে শুয়ে ছিলেন আবুল হাসনাত। তিনি সৌদি আরবের রিয়াদে পেট্রোল পাম্পে কাজ করেন। দেশে করোনার আঘাত হানার আগেই ছুটিতে এসেছিলেন তিনি। তার শরীর বেশ খারাপ। ব্যাগে থাকা কাথা গায়ে দিয়ে শুয়ে ছিলেন। কথা বলবার মতো শক্তিটাও যেনো নেই। বলেন, ভাইরে আমরা কি চুরি করতে চাইছি। এমনভাবে আমাদের মানসিক নির্যাতন করতেছে।
তিনি আরো বলেন, আমাদের দাবি সুষ্ঠুভাবে যেনো সৌদিতে যেতে পারি। তিনদিন যাবৎ এখানে অপেক্ষা করছি কোনো সিডিউল নাই। আমাদের ভিসার মেয়াদ শেষ হচ্ছে ৩০ তারিখ। আবার টিকিটি বিক্রি করছে এক লাখ ২০ হাজার টাকা থেকে দুই লাখ টাকা পর্যন্ত।
শুধু তাই নয়, অনলাইনে টিকিট কেটেও দ্বিধায় আছেন অনেকে।  মানিকগঞ্জ থেকে আসা জলিল মিয়া বলেন, বিমানের টিকিট কেটেছি অনলাইনে কিন্তু কোনো শিডিউল পাচ্ছি না। ২৬ তারিখ একটা শিডিউল ছিল সেটাও আর নেই।

আপনার মতামত দিন

প্রথম পাতা অন্যান্য খবর

ক্ষমতার দাপট

২৭ অক্টোবর ২০২০

আক্রান্ত ছাড়ালো ৪ লাখ

২৭ অক্টোবর ২০২০

করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েই চলছে। মৃত্যুর মিছিলও দীর্ঘ হচ্ছে। সংক্রমণ শুরুর ২৩৩ দিনের মাথায় করোনা ...

মানুষকে মাস্ক পরাবে কে?

২৬ অক্টোবর ২০২০

নো মাস্ক নো সার্ভিস

২৬ অক্টোবর ২০২০

মাস্ক না পরলে সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান থেকে কোনো সেবা মিলবে না। এমনই নির্দেশনা দিয়েছে ...

পহেলা নভেম্বর থেকে সবার জন্য খুলছে ওমরাহ’র দরজা

২৬ অক্টোবর ২০২০

আগামী ১লা নভেম্বর থেকে ওমরাহ পালন করতে পারবেন বিশ্বের সকল দেশের মুসল্লিরা। করোনা পরিস্থিতি কিছুটা ...

অনশন ভাঙালেন মেয়র আরিফ

রায়হানের মায়ের কান্না

২৬ অক্টোবর ২০২০



প্রথম পাতা সর্বাধিক পঠিত