নেতাকর্মীদের বার্তা

ষড়যন্ত্র চলছে সতর্ক থাকুন

কাজী সোহাগ

প্রথম পাতা ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, শনিবার | সর্বশেষ আপডেট: ৩:৩২

যেকোনো সময় দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি উত্তপ্ত হওয়ার শঙ্কায় নেতা-কর্মীদের সতর্ক থাকার নির্দেশ দিয়েছে আওয়ামী লীগ। দেশ ও সরকারের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছে বলে তাদেরকে বার্তা দেয়া হয়েছে। বিএনপি-জামায়াত এ নিয়ে যড়যন্ত্রে লিপ্ত বলে জানানো হয়েছে। দলটির পক্ষ থেকে নেতা-কর্মীদের আরো বলা হয়, বিএনপি-জামায়াত অবৈধ পথে চোরাগলি দিয়ে ক্ষমতায় আসার জন্য ষড়যন্ত্রের অলিগলি খুঁজে বেড়াচ্ছে। দুঃস্বপ্নে তারা বিভোর হয়ে আছেন। গণবিরোধী ও দেশবিরোধী কোনো ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হলে দেশের জনগণকে সঙ্গে নিয়েই তার দাঁতভাঙ্গা জবাব দেয়ার জন্য প্রস্তুত থাকার কথা বলা হয়েছে। গতকাল বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আওয়ামী লীগের সম্পাদকমণ্ডলী, দলের ঢাকা মহানগর শাখা এবং সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দের সঙ্গে মতবিনিময়কালে এসব নির্দেশনা দেয়া হয়। বৈঠকে উপস্থিত নেতারা বলেন, সারা দেশে সাংগঠনিক তৎপরতা বাড়ানোর নির্দেশ দেয়া হয়েছে।
বিশেষ করে রাজধানী ঢাকার কমিটিগুলোকে ঐক্যবদ্ধভাবে দলীয় কর্মসূচি পালনের কথা বলা হয়েছে। এদিকে আওয়ামী লীগের গতকালের বৈঠকের জন্য পরপর দু’টি প্রেস রিলিজ পাঠানো হয় গণমাধ্যমে। প্রথম প্রেস রিলিজে বলা হয়, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ-এর সম্পাদকমণ্ডলীর সঙ্গে সহযোগী সংগঠনসমূহের এক সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত হবে। এক ঘণ্টা পরেই সংশোধিত দ্বিতীয় প্রেস রিলিজে বলা হয়, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ-এর সম্পাদকমণ্ডলীর সঙ্গে ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ আওয়ামী লীগ এবং সহযোগী সংগঠনসমূহের এক সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত হবে। দলের নেতাকর্মীরা জানান, রাজধানী ঢাকার কমিটিগুলোকে আরো বেশি তৎপর করতে বৈঠকে ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ আওয়ামী লীগকে যুক্ত করা হয়। মূলত নেতা-কর্মীদের সতর্কবার্তা পৌঁছে দিতে এ উদ্যোগ। বৈঠক শেষে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা দখলের গভীর ষড়যন্ত্রের তথ্য উদ্‌ঘাটন করেছে গোয়েন্দা সংস্থা। যা ইতিমধ্যে গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে। বিএনপি-জামায়াত জোট কখনোই জনগণের ইচ্ছার প্রতিনিধিত্ব করতে চায় না। সর্বদাই তাদের ষড়যন্ত্রের রাজনীতি। তাদের আস্থা স্বাধীনতাবিরোধী ও দেশবিরোধী অপশক্তিতে। আওয়ামী লীগ এদেশের মানুষের আবেগ ভালোবাসা আশা-আকাঙ্খা ধারণ করে। কাজে-কর্মে জনগণের ইচ্ছার প্রতিফলন ঘটায়। আওয়ামী লীগ কখনো ষড়যন্ত্রের রাজনীতি করে না। ষড়যন্ত্রের রাজনীতি বরদাস্ত করে না। কিন্তু বারে বারে আওয়ামী লীগই ষড়যন্ত্রের শিকার হয়। তিনি বলেন, আমরা বিএনপি নেতৃবৃন্দের প্রতি হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলতে চাই গণবিরোধী ও দেশবিরোধী কোনো ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হলে দেশের জনগণকে সঙ্গে নিয়েই তার দাঁতভাঙ্গা জবাব দিতে প্রস্তুত আওয়ামী লীগ। দলীয় সভাপতির ৭৩তম জন্মবার্ষিকীতে আমরা এ শপথ গ্রহণ করছি। বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য বেগম মতিয়া চৌধুরী, ড. আব্দুর রাজ্জাক ও এডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ ও ডা. দীপু মনি, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, বি এম মোজাম্মেল হক ও আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, উপ-দপ্তর সম্পাদক সায়েম খান, কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সদস্য আনোয়ার হোসেন, শাহাবুদ্দিন ফরাজীসহ অন্যরা। এছাড়া ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ উত্তর ও দক্ষিণসহ সহযোগী সংগঠনের নেতারা উপস্থিত ছিলেন। এদিকে বৈঠকে দলের সাংগঠনিক তৎপরতা বাড়ানোর তাগিদ দিয়েছেন ওবায়দুল কাদের। ২১তম জাতীয় সম্মেলনের আগে-পরে ৩১টি সাংগঠনিক জেলার কাউন্সিল শেষ হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, করোনা মহামারিতে পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনের একটু দেরি হয়েছে। তবে অধিকাংশ পূর্ণাঙ্গ কমিটি কেন্দ্রীয় দপ্তরে জমা পড়েছে। আমি একটি বিষয় পরিষ্কারভাবে বলতে চাই, কমিটি গঠনে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সভায় আমাদের নেত্রী যে নির্দেশনা দিয়েছেন, সেই নির্দেশনা মেনেই পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করতে হবে। দলের দুঃসময়ে ত্যাগী নেতাদের মূল্যায়ন করতে হবে। হঠাৎ করে কেউ দলে এলেই তাকে নেতা বানাতে হবে এমন কোনো কথা নেই। আর সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠীকে কোনো অবস্থাতেই অনুপ্রবেশের সুযোগ দেয়া হবে না। এ বিষয়ে আমি আবারও নেত্রীর নির্দেশ আপনাদের স্মরণ করিয়ে দিচ্ছি। তিনি আরো বলেন, আটটি বিভাগের জন্য আটটি টিম সাংগঠনিকভাবে প্রস্তুত করে আমরা নেত্রীর কাছে জমা দিয়েছি। তিনি অনুমোদন দিলে এই টিমগুলো আটটি বিভাগে আমাদের সাংগঠনিক কার্যক্রম পরিচালনা করবে। তিনি জানান, কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের সভা আগামী ৩রা অক্টোবর গণভবনে আওয়ামী লীগ সভাপতির সভাপতিত্বে আহ্বান করা হয়েছে। বৈঠক শেষে ব্রিফিংয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপি-জামায়াত জোট নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া দুর্নীতির দায়ে দণ্ডপ্রাপ্ত একজন আসামি। করোনা সংক্রমণকালে প্রধানমন্ত্রী সর্বোচ্চ মানবিকতা ও উদারতার পরিচয় দিয়ে তাকে জামিনে মুক্তির ব্যবস্থা করেন। এই মানবিকতা বা উদারতাকে বিএনপি দুর্বলতা মনে করলে ভুল করবে। জনগণের প্রতি আস্থাহীন হয়ে বিএনপি নেতৃবৃন্দ বারবার ভুল করে আসছে বলেই তারা জনগণের দ্বারা প্রত্যখ্যাত হয়েছে। দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে ওবায়দুল কাদের বলেন, সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠী যাতে আওয়ামী লীগে জায়গা না পায় তার জন্য দল ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দকে সতর্ক থাকতে হবে। সকল বাধা বিপত্তি ডিঙ্গিয়ে পথ চলাই এদেশের মানুষের চিরায়ত রীতি উল্লেখ করে তিনি বলেন, দেশের মানুষ কাজে ফিরতে শুরু করেছে। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে জীবনের সঙ্গে জীবিকার চাকা সচল হয়েছে। আওয়ামী লীগ ইতিমধ্যে সীমিত পর্যায়ে সাংগঠনিক কর্মকাণ্ড শুরু করেছে। ওবায়দুল কাদের ১৯৭৪ সালের ২৫শে সেপ্টেম্বর জাতিসংঘে বঙ্গবন্ধুর বাংলায় ভাষণ দেয়ার ঘটনা স্মরণ করে বলেন, এই দিনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে দাঁড়িয়ে মাতৃভাষা বাংলায় বক্তৃতা করে সারা দুনিয়ার সকল বাঙালিকে ধন্য করেন, গৌরবান্বিত করেন। তিনি বলেন, কোনো সংকটই মানবসভ্যতাকে থামিয়ে রাখতে পারেনি, থেমে থাকে না। করোনা মহামারির মধ্যেও থেমে থাকেনি মানুষের জীবন। অদৃশ্য করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধে সচেতনতা বৃদ্ধিসহ স্বাস্থ্য সুরক্ষা বিধি মানতে দেশের মানুষের সম্মিলিত প্রয়াস ছিল উল্লেখ করার মতো। প্রধানমন্ত্রীর আহ্বানে সারা দেশের মানুষ সাড়া দিয়েছে এবং করোনাকালে তিনি একমাত্র ট্রাস্টেড সিঙ্গেল ফেস হিসাবে দেশে-বিদেশে প্রতিষ্ঠিত হয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী মানুষের কষ্ট লাঘবে দিনরাত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, প্রধানমন্ত্রী ও দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে আমরা ঘূর্ণিঝড় আম্ফান ও করোনা মোকাবিলায় সফলভাবে দায়িত্ব পালন করতে পেরেছি। মন্ত্রী বলেন, করোনা সংক্রমণকালে তার সুনিবিড় পর্যবেক্ষণ ও সুনিপুণ ব্যবস্থাপনায় মানুষের দুর্ভোগ লাঘবে অন্যান্য দেশের চেয়ে আমরা তুলনামূলকভাবে অনেক সক্ষম হয়েছি। তিনি দক্ষ নাবিকের মতো দিশাহারা জনগোষ্ঠীকে সুদক্ষ নেতৃত্বের মাধ্যমে পথ দেখিয়েছেন। দেশের মানুষের দুর্ভোগ দুর্দশা লাঘবে ৭৩ বছর পেরিয়েও তিনি অবিরাম ছুটে বেড়িয়েছেন। তিনি বলেন, শেখ হাসিনার জন্মদিন বাংলাদেশের জন্য একটি ঐতিহাসিক ঘটনা। বঙ্গবন্ধু আমাদের রাজনৈতিক স্বাধীনতার রোল মডেল। শেখ হাসিনা আমাদের উন্নয়ন এবং অর্জনের রোল মডেল। নিজে যা অর্জন করেছেন তা নজিরবিহীন। বিশ্ব দরবারে বাংলাদেশকে বিশেষ মর্যাদায় উন্নীত করেছেন। তার জন্মদিন পালন না করলে আমরা জাতির কাছে অকৃতজ্ঞ থেকে যাবো। এ সময় ওবায়দুল কাদের দলীয় সভাপতি শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষে কর্মসূচি ঘোষণা করেন। আওয়ামী লীগ দিনটি উপলক্ষে সারা দেশে সকল মসজিদে দোয়া মাহফিল এবং মন্দির, প্যাগোডা গির্জাসহ বিভিন্ন ধর্মীয় উপাসনালয়ে বিশেষ প্রার্থনার আয়োজন করেছে।

আপনার মতামত দিন

প্রথম পাতা অন্যান্য খবর

আলু কিনতে দীর্ঘ লাইন

২৩ অক্টোবর ২০২০

গোয়েন্দা তথ্য

বাজার অস্থির করছে অসাধু সিন্ডিকেট

২৩ অক্টোবর ২০২০

দ্বিতীয় দফা ময়নাতদন্ত রিপোর্ট

নির্মম নির্যাতনেই রায়হানের মৃত্যু

২৩ অক্টোবর ২০২০

করোনায় আরো ২৪ জনের মৃত্যু

২৩ অক্টোবর ২০২০

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আরো ২৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ পর্যন্ত করোনায় মোট ...

জুয়া খেলার সময় পুলিশ আতঙ্কে পালাতে গিয়ে নির্মাণ শ্রমিকের মৃত্যু

২২ অক্টোবর ২০২০

রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের আগাঁরগাঁও জনতা হাউজিং এর সাত তলার পাঁচ ভবনে জুয়া খেলার সময় পুলিশ ...

লাইফ সাপোর্টে রফিক-উল হক

২২ অক্টোবর ২০২০

সুপ্রিম কোর্টের জ্যেষ্ঠ আইনজীবী ব্যারিস্টার রফিক-উল হককে আদ-দ্বীন হাসপাতালে লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়েছে। তার অবস্থা ...



প্রথম পাতা সর্বাধিক পঠিত



দ্বিতীয় দফা ময়নাতদন্ত রিপোর্ট

নির্মম নির্যাতনেই রায়হানের মৃত্যু