সমস্যা কি তাইলে বোরকায়?

মোস্তফা সরয়ার ফারুকী

ফেসবুক ডায়েরি ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২০, সোমবার | সর্বশেষ আপডেট: ৫:৫৫

আসল সমস্যাটা কোথায় ? বোরকায় না আবহমান কালের বাঙালীয়ানায়? এবার প্রশ্ন “আবহমান কালের বাঙালীয়ানা” কোনটা? ব্যাপারটা কি এমন যেটা এতো কাল ধরে সাধারণভাবে বাংলাদেশে চলে আসছে? তো বাংলাদেশে তো একসময় কালচার ছিলো মেয়েরা সন্ধ্যার পরে ঘরের বাইরে যাবে না! মেয়েদের পনেরো বছর হইলে বিয়ে দিয়ে স্বামীর ঘরে পাঠাইয়া দিতে হবে! মেয়েরা চাকরি করতে পারবে না! তারও আগে ছিলো সতীদাহ প্রথা! আমরাতো সেইসব কালচাররে ঝাড়ু পিটা কইরা তাড়াইয়া দিছি! নাকি? তার মানে আবহমান কালের বাঙালীয়ানাটা ধইরা না রাখলেও আমাদের মধ্যবিত্ত কালচারাল পুলিশদের সমস্যা নাই! সমস্যা কি তাইলে বোরকায়? কারণ এটা মধ্যপ্রাচ্য থেকে আসছে? তো আমরা কি বাইরের কিছু নিবো না? তাইলে তো সালওয়ার কামিজ, প্যান্ট-শার্ট, শর্ট এগুলাও আমাদের বাতিল করতে হয়! নাকি? এক সময় এই বাকোয়াজ পাহারাদারগুলা রক-পপ মিউজিকরে অপসংস্কৃতি বইলা চুঙ্গা ফুঁকাইছিলো দিনের পর দিন! আবহমান শুনলেই তাই আমি চশমার ফাঁক দিয়া একটু ভালো কইরা তাকাইয়া দেখি!
আমার অবশ্য ব্যক্তিগতভাবে কোনটাতেই সমস্যা নাই! বোরকাতেও নাই, বিকিনিতেও নাই! যতক্ষণ পর্যন্ত জবরদস্তি না হচ্ছে!  আগেও বলছি, যে হুজুর ফতোয়া দেয় নারী প্যান্ট-টি শার্ট পরতে পারবে না, হেন করতে পারবে না, তেন করতে পারবে না, তার সাথে আমাদের কিছু লিবারেলদের খুব পার্থক্য পাই না, যখন তাদের বোরকা নিয়া ফতোয়া শুনি! তখন আমার ইনাদেরকে একেকজন সেক্যুলার আমির হামজা মনে হয়!
আমাদের পরের প্রজন্ম এইসব পেটি এবং ফালতু জ্ঞানালাপ থেকে আশা করি দুরে থাকবে! তাদের মন চাইলে শর্ট পইরা ঘুরবে, মন চাইলে আপাদমস্তক ঢাইকা ঘুরবে!! তার গা ঢাকা বা খোলা রাখার কারণে  তাকে আমরা আলাদা করে জাজ করবো না, বৈষম্য করবো না- এইটুকু আলো আমাদের দাও গো সাঁই!
মোস্তফা সরয়ার ফারুকীর ফেসবুক টাইমলাইন থেকে নেয়া

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Shahid

২০২০-১০-১৬ ২৩:৪০:০৬

ঘুরে ফিরে নারীর দোষ। ভিন্ন ধর্মের নারীরা যদি বা বিদেশী কোন মহিলা যদি অর্ধনগ্ন হয়ে চলে সে ক্ষেত্রে? সমস্যা বোরকার না। সমস্যা অসৎ আদর্শ লালনকারী পুরুষের।

Basu

২০২০-১০-১৪ ১১:১৯:১৩

ভাই, যার যা ইচ্ছে তা পরতে পারে? যেখানে সেখানে? আপনিও কি যা ইচ্ছে তা করতে পারেন? স্থান, কাল, পাত্রভেদে আমাদেরকে খাপ খাইয়ে প্রকাশ করাটা কি উচিত নয়? বিনয়ের সাথে আপনার লেখার সাধে একটু দ্বিমত করছি যে, বিকিনি পরা একজন আর বোরকা পরা একজন রাস্তাায় হাটলে তার প্রতি দৃষ্টিভংগি, মন মানসিকতা, মেজাজ মর্জি কি একই রকম হবে? একই হওয়া কি সম্ভব? বিঞ্জান কি বলে? ভাই, যার যা ইচ্ছে তা পরে ঘুরাফেরা করুক, তাতে আমাদের কি? তাহলে কি শালীণতা ও অশালীনতার মধ্যে কোন পার্থক্য নেই। কারও স্বাধীণতায় আমরা হস্তক্ষেপ করবো না। কিন্তু কতটুকু স্বাধীণ আমরা এটা ভেবে চলাটা কি আমাদের উচিত নয়।

Habib

২০২০-১০-১৪ ১১:১১:৪৭

very poor Islamic knowledge and he should be remorse for his comments.

Sanowar

২০২০-১০-০৬ ০১:৪৬:৪০

দেখে তো মনে হয় মুসলমানদের মতই, ও আমি তো ভুলেই গেছি মুশরিকদের মুখেও দাড়ি আছে,

Md. Harun al-Rashid

২০২০-১০-০৬ ১১:৪৩:৪৭

বিপরীত লিঙ্গের প্রতি আকর্ষন বা যৌনতা দিয়েই তো আল্লাহ মানুষ সৃষ্টি করেছেন। তবে এর হেফাযত ও ব্যবহারে কঠোর বিধান ও দিয়েছেন। যৌনতার হেফাযত করা ও বিধান ভংঙ্গের জন্য কঠিন শাস্তিও নিরুপন করা আছে। সেটিকে আধুনিকতা ও ব্যক্তি স্বাধীনতার নামে অবজ্ঞা বা মধ্যযুগিয় বিষয় বলে উড়িয়ে দিয়ে আক্রান্তের জন্য অমর্যাদা ও গ্লানিকর প্রতিকার ব্যবস্হা থাকলে এমন অপরাদ রোধ করা দূঃস্কর হবে। মিডিয়ায় ধর্ষনকে মানবতাবিরোধী অপরাধ বলতে দেখা গেল না। সর্বোচ্চ প্রাধিকারে এমন জঘন্য অপরাধীদের বিচার হোক- বিচার হোক প্রকাশ্যে।

Akram

২০২০-০৯-১৫ ১৩:৪৩:৪৫

আমাদের পরের প্রজন্ম এইসব পেটি এবং ফালতু জ্ঞানালাপ থেকে আশা করি দুরে থাকবে! তাদের মন চাইলে শর্ট পইরা ঘুরবে, মন চাইলে আপাদমস্তক ঢাইকা ঘুরবে!! তার গা ঢাকা বা খোলা রাখার কারণে তাকে আমরা আলাদা করে জাজ করবো না, বৈষম্য করবো না- আপনার এই কথার একটা স্বাধীনতার আবাস পাই। কিন্তু স্বাধীনতার সংজ্ঞা কি? আপনি চাইলে সকল ব্যাপারে স্বাধীনতা প্রয়োগ করতে পারবেন না। তাহলে স্বাধীনতার একটি সীমা আছে। আমার উদাহারটি একটু খারাপ হবে তার জন্য ক্ষমা ছাচ্ছি। আপনার বোন ও স্ত্রী দুজনই মেয়ে লোক। আপনি স্বাধীনতা বিশ্বাসী হয়ে স্ত্রীর সাথে যা করতে পারবেন আপনার আপন বোনের সাথে তা করতে পারবেন না। তাহলে এই জায়গার আপনি পরাধীন! এখন আমার প্রশ্ন আপনি পারবেন না কেন? আপনি তো স্বাধীন চেতনার মানুষ। উত্তর একটি নৈয়তিকতা আপনাকে বাধা দিবে। এই নৈয়তিকতার নামই ধর্ম। আস্তিক হন বা নাস্তিক হোন আপনি নৈয়তিকতার ধর্মে বিশ্বাসী। নৈয়তিকতার ব্যাখ্যা ধর্ম, দেশ, জাতী, গোত্র, শ্রেণী, সমাজ বেদে নিয়ম বিন্নিতর হয়। উদাহার হিসাবে আমাদের দেশের মেয়েরা শাড়ী পরে কিন্তু আমেরিকানরা শর্টস পড়ে। ঠিক তেমনি ইসলাম ধর্মে বিশ্বাসী মেয়েরা যখন বাহিতে যাবে তখন যতটুকু প্রকাশের নির্দেশ দিয়েছে তা ঠিক রেখে বাহিরে যাবে। ইসলাম কাউকে যোর দবসতি করে না। আপনি বলেন আমি ধর্ম বিশ্বাস করিনা এবং ধর্ম পরিচয়হীন নিজের একটা নাম দিন। তা হলে হয়ে গেল। আপনি ধর্মৗয় লেবাসে রাখবেন আর ধর্মের নিয়মকে প্রশ্ন বিদ্ব করবেন, এটা ধর্মের প্রতি অবিচার হয়ে গেল না !!!!!!

Razu

২০২০-০৯-১৫ ০৯:৩৭:৪৩

Farooque Vai I agree with your think but we know that Islamic Rules is the best rules for a Muslims, because once a day every Muslim must be return to Allah! So, please don't ignore to Islamic rules as a Muslim. May Allah keep safe & Well you & your family.

Rifat

২০২০-০৯-১৪ ২০:১৭:১৬

Good post. Those who are attacking Mr. Farooqi should realise that we are not living in a theocracy. Thank God for that. Otherwise, we would have a country like Iran or Saudi Arabia or Afghanistan. Any misdeed by those governments are justified in the name of religion. Secondly, those who ask for religious laws in the country don't realise that women play a major role in our most important industry. Thirdly, people who shout the most about religion are completely silent when men commit crimes. Yes, most crimes are committed by men. Fourthly, how come these men have no problem when play swim in briefs or play football or hockey in shorts? Aren't men supposed to cover below the knees? Finally, if a man has a problem seeing a woman without fully covered up then that man can stay indoors. Why should women suffer because section of men have perverted mindset? If someone buys a Mercedes and it gets stolen should we blame the thief of the person who bought that expensive car? Same way here. Don't blame women because of your dark desires. Controlling one's own bad thoughts is the first teaching of every religion, including Islam. Muslims didn't become the mist powerful by talking these silly issues. They did so through knowledge, development of science. Today Muslims are more interested in burqa than finding solutions to world's problems. Wonder how many Muslim men who hate non Muslim cultures will refuse to get vaccinated when COVID vaccine is developed by the non Muslims!

Ahmed Abdullah

২০২০-০৯-১৪ ০৭:২৬:৪২

ফারুক নামটা অনেক মর্যাদাপূর্ণ। কিন্তু ফারুকি সাহেব বোরকা নিয়ে যে ধরনের মন্তব্য করেছেন, সেটা ওনার নামের সাথে যায়না। ওনার কথায় নাস্তিকের গন্ধ মিলছে। তওবা করে আল্লাহ'র নিকট মাফ চান। ইনশাআল্লাহ, আল্লাহ মাফ করবেন।

Shahab

২০২০-০৯-১৪ ০৬:৪৬:৩৫

Wow. Oil your own machine. What? Women not human. Why all question for women. The world making man and woman. Woman have rights what she will do or not. Don't interfere woman right. Properly check and read about cloth covering human body.

Mominul Kabir

২০২০-০৯-১৪ ১৬:৩২:২২

জনাব ফারুকী, আপনার মন্তব্য অনেকটা কোরআনের সাথে সাংঘর্ষিক। আল্লাহ বলেছে পর্দা করা ফরজ, আর আপনি আপনার নিজেস্ব মতামত দিয়েছেন যা আল্লাহর বিরুদ্ধাচরণ করা। আল্লাহ, পুরুষ মহিলাদের আর মহিলা পুরুষদের লেবাস ধারণ কারীদের উপর লানত দিয়েছেন আর আপনি আপনার নিজেস্ব মতামত দিয়েছেন। আপনার এই মতামত আল্লাহ এবং তার কুরআনকে অস্বীকার করা নয়!!!! আপনি যেই জগতে বসবাস করছেন তা মুসলিম ও ইসলামের সাথে পুরুটাই সাংঘর্ষিক। আপনি মুসলিম হয়ে তার পর মুসলিমদের বিষয় নিয়ে কথা বলার সাহস দেখবেন।

Tofazzel Hossain

২০২০-০৯-১৪ ১৫:২০:২৭

@ Abul Qasem, Very good writing. Thanks

Alamgir

২০২০-০৯-১৪ ১৫:১২:০৮

আস্ সালামু ওলাইকুম, আপনাকে শ্রদ্ধা রেখেই বলছি, কোন বিজ্ঞানী / ইন্জিনিয়ার কোন ইন্জিন তৈরী করলে যেমন তাদের দেওয়া ক্যাটালগ বা নিরদেশিত সিস্টেম অনুযায়ী চালাইতে হয়, তেমনি আমাদের সৃষ্টি করতা মহান রব্বুল আলামিন । সুতরাং আমাদের তাঁর নিরদেশিত পথ / গাইড বুক আল-কুরআন অনুযায়ী চলতে হবে যদি আল্লহতে বিশ্বাস করি ।

md.monir khan

২০২০-০৯-১৪ ০০:৫১:১৬

আপনি মিডিয়াতে কাজ করেনতো তাই পর্দা আপনার কাছে গুরুত্ত নেই,পবিএ কোরআনে আললাহ তায়ালা পর্দা করা ফরজ বলে দিয়েছেন। আর বোরকাই হল নারীদের জন্য খাস পর্দা, আপনি মানলে ভালো না মানলে আপনার কপাল পোড়ছে,

md.monir khan

২০২০-০৯-১৪ ০০:২৩:২১

আপনার মুখে দাড়ি কেন,নিশচুই এটা নবীর সুন্নাত, আর বোরকা পড়া সেটাতো নারীর পর্দা, আর আললাহ তায়ালা পবিএ কোরআনে পর্দা ফরজ করে দিয়েছে, আপনি মিডিয়াতে কাজ করেনতো তাই পর্দার গুরুত্ত আপনের কাছে নাই,

আবুল কাসেম

২০২০-০৯-১৪ ০০:১৬:৩০

সৃষ্টির শুরু থেকেই আবহাওয়া ও অঞ্চলভেদে মানুষের খাদ্য ও পোশাক নির্ধারিত হয়ে আসছে। সেই সৃষ্টির প্রভাতে নারী পুরুষ নির্বিশেষে সকলেই গাছের পাতা লতা দিয়ে লজ্জাস্থান ঢেকেছে। লক্ষনীয় বিষয় হচ্ছে, সেই আদিম সময়ে এমনকি এই আধুনিক কালেও বহু নারীকে দেখা যায়, সমস্ত দেহ উদাম থাকলেও শুধু বুক ও নাভির নিম্নাংশ ঢেকে রাখা যেন তাদের বিবেকের কাছে বাধ্যতামূলক। এতেই বুঝা যায়, লজ্জা নারীর জন্মগত ভূষণ। যেহেতু পোশাকের আকার আকৃতি বা ধরন নির্ধারিত হয়েছে পৃথীবির বিভিন্ন দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের আবহাওয়াকে কেন্দ্র করে। যেমন, গ্রীষ্ম ও শীত প্রধান দেশের পোশাকের ধরন একরকম নয়। কিন্তু তার পরেও যে কোনো অঞ্চলের যে কেউ যে কোনো ধরনের পোশাক পরতে ধর্মে ও সমাজে কোনো বাধা নেই। এই হিসেবে মেয়েদের টি-শার্ট, প্যান্ট ও জিন্স পরতে কোনো অসুবিধা থাকার কথা নয়। কিন্তু সকলের জন্যই ধর্মীয় বিধি বিধান রয়েছে। নিরেট নাস্তিক ছাড়া সকল আস্তিকেরা ধর্মীয় বিধি বিধান স্বীকারও করেন। যদিও কেউ তা মানেন, আবার কেউ মানেননা। আমরা যেহেতু মুসলিম তাই পোশাকের ব্যাপারে আমাদের ধর্মীয় নির্দেশনা রয়েছে। পবিত্র কুরআনে বলা হয়েছে, "হে আদম সন্তানেরা, আমি তোমাদের জন্য পোশাক পাঠিয়েছি, যাতে করে তোমারা তোমাদের গোপন স্থানসমূহ ঢেকে রাখতে পারো এবং তোমাদের সৌন্দর্যও ফুটিয়ে তুলতে পারো। তবে আসল পোশাক হচ্ছে আল্লাহর ভয় জাগ্রতকারী তাকওয়ার পোশাক। আর এটাই হচ্ছে উত্তম পোশাক এবং এটা আল্লাহর নিদর্শনসমূহেরও একটি, যেনো মানুষ এর থেকে শিক্ষা গ্রহন করতে পারে।" সূরা আল আ'রাফ। আয়াত-২৬। এক্ষেত্রে সূরা আন্ নূর এর ৩০ ও ৩১ নম্বর আয়াতদুটিও প্রণিধানযোগ্য। "হে নবী, তুমি মুমিন পুরুষদের বলো তারা যেনো তাদের দৃষ্টিকে নিম্নগামী ও সংযত করে রাখে এবং তাদের লজ্জাস্থানসমূহকে হেফাজত করে। এটাই তাদের জন্য উত্তম পন্থা। কেননা তারা যা করে আল্লাহ সবকিছুই জানেন।" "হে নবী, মুমিন নারীদেরও বলো, তারা যেনো তাদের দৃষ্টিকে নিম্নগামী ও সংযত করে রাখে এবং নিজেদের লজ্জাস্থান সমূহহের হেফাজত করে। তারা যনো তাদের সৌন্দর্য প্রকাশ না করে বেড়ায়। তবে তার শরীরের য অংশ এমনিতেই খোলা থাকে তার কথা আলাদা। তারা যেনো তাদের বক্ষদেশ মাথার কাপড় দিয়ে আবৃত করে রাখে। তারা যেনো তাদের স্বামী, তাদের পিতা, তাদের শ্বশুর, তাদের ছেলে, তাদের স্বামীর পূর্বের ছেলে, তাদের ভাই ও ভাইয়ের ছেলে, তাদের বোনের ছেলে, তাদের সচারাচর মেলামেশার মহিলা, নিজেদের অধিকারভুক্ত সেবিকা - দাসী, নিজেদের অধীনস্থ পুরুষ যাদের মহিলাদের প্রতি কামনা করার কিছু নেই , কিংবা এমন শিশু যারা এখনো মহিলাদের গোপন অঙ্গ সম্পর্কে কোনো জ্ঞান নেই। এসকল মানুষ ছাড়া তারা যেনো অন্য কারো সামনে নিজেদের সৌন্দর্য প্রকাশ না করে। চলার সময় জমিনের উপর এমনভাবে যেনো পা না ফেলে, যাতে গোপন সৌন্দর্য প্রকাশ হয়ে পড়ে। হে ঈমানদার ব্যক্তিরা তোমরা সবাই আল্লাহর দরবারে তাওবা করো, আশা করা যায়, তোমরা নাজাত পাবে।" এখন কথা হলো, যারা ধর্ম মানেন, কুরআনের এই নির্দেশনার গন্ডির ভেতরে থেকে এবং তাকওয়ার দৃষ্টিভঙ্গিকে সামনে রেখে তারা যে কোনো আকৃতির পোশাক পরতে বাধা থাকার কথা নয়। আর যারা ধর্ম স্বীকার করেননা, তারাও কুরআনের বানীর কল্যানকর বিষয়টি গভীরভাবে চিন্তা করলে তার সত্যতা সম্যক উপলব্ধি করতে পারবেন।

আজিজুল ইসলাম

২০২০-০৯-১৪ ১২:৩৮:২০

ফারুক ভাই আপনি যদি মুসলিম হন কোরআন মানতে হবে।কোরআন শিখুন জানুন। অপসাংস্কুতি আপনাকে পারাকালে রক্ষা করতে পাবে না। কোর আনে পরদা ফরজ করা হয়েছ । আপনি যদি না মানেন তবে আপনি মুসলিম নয়। বেহায়াপনা কে আপনি উদসাাহ দিতে পারেন না। ইসলাম কে জানুন বুঝুন।তবেই পাবেন বোরকায় সমস্যা না সমাজর জন্য সমাধান।

চেতনা ব্যবসায়ী

২০২০-০৯-১৪ ১১:২৩:১৩

স্যূটও এখন আর বৃটিশ না, টপস-স্কার্টও এখন আর ইউরোপিয়ান না, বিকিনিও এখন আর পশ্চিমাদের নয় খালি বোরখাটাই কেবল আফগান রয়ে গেল।

Rasu

২০২০-০৯-১৪ ১১:০৯:৪৫

লেখকের সাথে দ্বিমত নেই কিন্তু একেবারেই অশালীন পোশাখ পড়ে যাতে সমাজটাকে কোন বিশেষ ঘরের মত না বানাই, আদি যুগে ফিরে না যাই।। কারণ, সমাজটা সকলের।

আপনার মতামত দিন

ফেসবুক ডায়েরি অন্যান্য খবর

শাইখুল হাদিস থেকে আল্লামা আহমদ শফী:

আল্লামা আহমদ শফীর পাশে একজন‌ও কি ভালোবাসার মানুষ নেই?

৪ সেপ্টেম্বর ২০২০



ফেসবুক ডায়েরি সর্বাধিক পঠিত

DMCA.com Protection Status