বৈরুত ট্র্যাজেডি

রাশেদের লাশ ছুঁয়ে দেখতে মায়ের আকুতি

স্টাফ রিপোর্টার, নারায়ণগঞ্জ থেকে

এক্সক্লুসিভ ১২ আগস্ট ২০২০, বুধবার

২০০৮ সালে হাফিজুর রহমান মারা যাওয়ার আগেই তার পরিবারের হাল ধরেন তার মেজ সন্তান মো. রাশেদ। হাফিজুর রহমানের ২ মেয়ে ২ ছেলের মধ্যে রাশেদ দ্বিতীয়। তবে রাশেদের ছোট ভাই শারীরিক প্রতিবন্ধী হওয়ায় রাশেদই ছিলেন হাফিজুর রহমানের একমাত্র অবলম্বন। স্থানীয় একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে মৃত্যুর আগ মুহূর্ত পর্যন্ত সামান্য বেতনে চাকরি করতেন তিনি। তাই বাবাকে সাহায্য করতে ওয়েল্ডিংয়ের কাজ শিখে রাশেদ। এরপর স্থানীয় একটি প্রতিষ্ঠানে কাজ শুরু করেন তিনি। ৫ বছর আগে ২০১৫ সালে লেবাননে যাওয়ার আগ পর্যন্ত রাশেদ এলাকার ওয়েল্ডিংয়ের দোকানেই কাজ করতেন। বাবার মৃত্যুর পর পরিবারের ভাগ্য আর মায়ের মুখে হাসি ফোটাতে রাশেদ পাড়ি জমান লেবাননে।
এই ৫ বছরে আর দেশে ফেরেননি। সঙ্গের অনেকে করোনা পরিস্থিতির আগে দেশে ফিরলেও পরিবারের স্বচ্ছলতা আনতে আরও দুই বছর পর দেশে ফেরার পরিকল্পনা ছিল তার। ওই দুই বছরে বাবার রেখে যাওয়া ৩ শতাংশ জমিতে মায়ের জন্য একটি বাড়ি করার পরিকল্পনা ছিল। কিন্তু তার আগেই সব শেষ হয়ে গেছে পরিবারটির।

বৈরুতের ঝিমাইজি এলাকার একটি রেস্টুরেন্ট কাজ করতেন তিনি। গত মঙ্গলবার লেবাননের রাজধানী বৈরুতে ভয়াবহ এক বিস্ফোরণে যে ৫ বাংলাদেশি নিহত হন। তাদের একজন নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার পাগলা নন্দলালপুর এলাকার মৃত হাফিজুর রহমানের ছেলে মো. রাশেদ। বিস্ফোরণের ঘটনার পর থেকে রাশেদ নিখোঁজ ছিলেন। ঘটনার ৫ দিন পর গত শনিবার দুপুরে বৈরুতের জলদ্বীপ এলাকার হারুন হাসপাতাল থেকে মৃত অবস্থায় তার লাশ শনাক্ত করেন নিহতের খালাতো ভাই জনি। জনিই রাশেদের পরিবারকে ফোন করে তার মৃত্যুর খবর জানায়।
নিহত রাশেদের ছোট বোন নাসরিন আক্তার বলেন, বাবা মারা যাবার আগেই রাশেদ ভাই পরিবারের সব দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলে নিয়েছিলেন। আমরা ২ বোন ২ ভাই হলেও রাশেদ ভাই ছিলেন সবার মধ্যে দ্বিতীয়। আর তিন নম্বর ভাই খোরশেদ শারীরিক প্রতিবন্ধী হওয়ায় বাড়িতেই থাকে। ফলে পরিবারের ভরন পোষণের সব দায়িত্ব ছিল রাশেদ ভাইয়ের। রাশেদ ভাইয়ের স্বপ্ন ছিল মায়ের জন্য বাবার রেখে যাওয়া ৩ শতাংশ জমিতে একটি বাড়ি করার। এরপর বাড়ি ফিরে বিয়ে করার পরিকল্পনা ছিল তার। পরিবারের ঘানি টানতে টানতে তার বিয়ে করা হয়নি। আমাদের দু’বোনকে বিয়ে দিয়েছেন। নাসরিন আরও বলেন, লেবাননে গিয়ে ঋণ পরিশোধ করে কোনো মতো থাকার জন্য বাবার রেখে যাওয়া জমিতে ২টি রুম করেন। কিন্তু সেই ঘরগুলোরও বেহাল অবস্থা। টিনের চালা ফুটো হয়ে বৃষ্টির পানি ঘরে পড়ে। মা লুৎফুননেছার অবস্থা জানাতে গিয়ে নাসরিন বলেন, আমাদের সবার ভরসার পাত্রকে আল্লাহ নিয়ে গেছেন। কর্মক্ষম ছেলেকে হারিয়ে মা নাওয়া খাওয়া ছেড়েছেন। এখন তার একটিই চাওয়া যেন ছেলের লাশটি একটু ছুঁয়ে দেখতে পারেন। আদরের ছেলের মুখে নিজের হাতটি শেষ বারের মতো একটু বুলিয়ে দিতে পারেন। সরকারের প্রতি রাশেদের বোনের আকুতি যেন এই অসহায় পরিবারটির পাশে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেয়া হয়।

এদিকে গতকাল সোমবার দুপুরে নিহত রাশেদের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানাতে তাদের ফতুল্লার পাগলার নন্দলালপুরের বাড়িতে ছুটে যান নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা নাহিদা বারিক। তিনি শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়ে তাদের পাশে থাকার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।  
উল্লেখ্য, লেবাননের রৈরুতে গত ৪ঠা আগস্ট ভয়াবহ দুটি বিস্ফোরণে বাংলাদেশ নৌবাহিনীর ২১ সদস্যসহ ১০৮ প্রবাসী আহত হন। এই বিস্ফোরণে মারা গেছেন পাঁচ বাংলাদেশি।

আপনার মতামত দিন

এক্সক্লুসিভ অন্যান্য খবর

নিজেদের করোনা আক্রান্ত ভাবা অর্ধেক বৃটিশই আক্রান্ত নন: গবেষণা

২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০

করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) উপসর্গে ভোগা অর্ধেক বৃটিশই আদতে ভাইরাসটিতে আক্রান্ত নন। নতুন এক গবেষণায় এ তথ্য ...

অতিরিক্ত সচিব হলেন ৯৮ কর্মকর্তা

২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০

 প্রশাসনের অতিরিক্ত সচিব পদে ৯৮ জনকে পদোন্নতি দিয়েছে সরকার। গতকাল জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকে ৯৮ জন ...

স্মরণ

আতাউস সামাদ

২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০

ইন্ডিপেন্ডেন্টের রিপোর্ট

জেএন্ডজের সিঙ্গেল ডোজ পরীক্ষা শুরু

২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০

৪ঠা অক্টোবর থেকে ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইন শুরু

২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০

আগামী ৪ থেকে ১৭ই অক্টোবর পর্যন্ত দুই সপ্তাহব্যাপী ধাপে ধাপে সারা দেশে জাতীয় ভিটামিন ‘এ’ ...



এক্সক্লুসিভ সর্বাধিক পঠিত