প্রদীপের রাজ্য টেকনাফ স্বাধীন হলো

শামীমুল হক

মত-মতান্তর ৭ আগস্ট ২০২০, শুক্রবার | সর্বশেষ আপডেট: ৩:০৯

প্রদীপ মানে বাতি। আর এ বাতির প্রয়োজন হয় অন্ধকারে। অর্থাৎ আঁধারকে দূরে ঠেলে দেয়াই হলো প্রদীপের কাজ। কিন্তু টেকনাফের ওসি প্রদীপ নিজ নামের সঙ্গেই প্রতারণা করেছেন। বেঈমানি করেছেন। যে নিজ নামের সঙ্গে এমন করতে পারে তার কাছে কি আসা করা যায়। তাছাড়া বাংলাদেশের কর্মকর্তা হয়ে আরেকটি দেশে সম্পদ করার অর্থ কি? তিনি সে দেশের আনুগত্য। অন্য দেশের প্রতি যার এতো প্রেম? সে বাংলাদেশকে ভালোবাসবে কি করে? তাইতো সে এ দেশকে বানিয়েছে টাকা বানানোর মেশিন হিসাবে।
এ দেশের মানুষকে প্রজা হিসাবে ব্যবহার করেছে। ভাবা যায়? মাত্র ২২ মাসে টেকনাফ থানা পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হয়েছে ১৭৪ জন। যার প্রত্যেকটি ঘটনার সঙ্গে জড়িত প্রদীপ কুমার দাশ। অভিযোগ আছে, চাহিদা মতো টাকা না পেলে ক্রসফায়ারে দেয়ার নির্দেশ দিতেন প্রদীপ নিজে। এমনকি নিজে সরাসরি অংশ নিতেন কথিত বন্দুকযুদ্ধের প্রক্রিয়ায়। এত ঘটনার পরও সে কিভাবে টিকেছিল? এটা এখন বিরাট প্রশ্ন। মেজর (অব.) সিনহা  মোহাম্মদ রাশেদ খানকে হত্যার পর একের পর এক বেরিয়ে আসছে প্রদীপের কুৎসিত কাহিনী। কত বড় শক্তিশালী হলে কোন কিছুকে পরোয়া না করে একের পর এক ঘটনা ঘটিয়ে গেছেন অবলীলায়। দম্ভ করে প্রকাশ্যে শত লোকের সামনে বলেছেন, টেকনাফে যা করার আমি নিজ হাতে করব। মারতে হলে মারব। বাহ! কি চমৎকার। জনগণের চাকর হয়ে জনগণকে প্রকাশ্যে মারার হুমকি এ দেশেই সম্ভব। ইয়াবা গডফাদার ওসি প্রদীপ- এমন রিপোর্ট করায় এক সংবাদিককে আটকে রেখে বেদম প্রহার করেছেন। মুখ থেতলে দিয়েছেন। ওই সাংবাদিক আজও এর ক্ষত নিয়ে বেড়াচ্ছেন। এত যে ক্রসফায়ার, অত্যাচার চালিয়েছেন প্রদীপ তাতে কি নাফ নদী পেরিয়ে ইয়াবার চালান আসা বন্ধ হয়েছে? না, বন্ধ হয়নি বরং বেড়েছে। কারণ একটাই। প্রদীপ ছিলেন ইয়াবা গডফাদারের গডফাদার। তার সম্পদের বিবরণ এখন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভেসে বেড়াচ্ছে। তার স্ত্রীর ভারত বাংলাদেশের পাসপোর্টের কপিও এখন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে জায়গা করে নিয়েছে। টেকনাফের এক বৃদ্ধ গতকাল এক টিভি চ্যানেলে বলছিলেন, আামার ভাতিজা দুপুরে ভাত খাচ্ছিল।  পুলিশ তাকে ধরে নিয়ে যায়। আমি নিজ হাতে ৫ লাখ টাকা দিয়ে ছাড়িয়ে আনি। আমার মূল্যবান জায়গা দখল করা হচ্ছিল। টাকা দিয়ে ভাতিজাকে ছাড়াতে পারলেও জায়গা রক্ষা করতে পারিনি। ওসি প্রদীপের মদদে জায়গাটি দখল করে নেয় সন্ত্রাসীরা। আমি এ ব্যাপারে ওসির বিরুদ্ধে মামলা করব। কত ধুরন্ধর এই প্রদীপ। টেকনাফকে আলাদা রাজ্য বানিয়ে সেই রাজ্যের রাজা বনে যান তিনি। উপর মহলকে ভুল বুঝিয়ে ভাগিয়ে নেন একের পর এক পদক। এখন রিমান্ডে আরো তথ্য বেরিয়ে আসবে। সবচেয়ে বড় কথা ২২ মাস পর টেকনাফ স্বাধীন হলো। মুক্ত হলো প্রদীপের রাহু থেকে। টেকনাফবাসী এমনটাই বলছেন।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

জামাল

২০২০-০৯-২৬ ০৩:৪৭:৩৯

দূদক হল তালপাতার সেপাই তারা চোখ কান খোলা রেখে ঘুমায়। দাদার বউ টাকা নিয়া পারী দিল পাশের দেশে তাকে কি ফিরিয়ে আনা উচিত না যে রকম বাবার হতর‍্যাকারীদের ফিরিয়ে এনে সাজা দেওয়া হয়

জামশেদ পাটোয়ারী

২০২০-০৮-০৯ ১৮:৩৪:৪৩

পুলিশের কলঙ্ক এই প্রদীপকে তার সময়ে ঐ এলাকায় যাদের ক্রস ফায়ারে হত্যা করেছে তাদের পরিবার পরিজনদের মাঝে ছেড়ে দেয়া হোক। এই প্রদীপ যদি তাদের হাতেই নিভে তাহলে তারা স্বজন হারানোর বেদনা কিছুটা হলেও ভূলতে পারবে। সুতরাং এই প্রদীপ ক্রস ফায়ারে নিহত স্বজনদের মাধ্যমেই নিভানো হোক। এই প্রদীপের আলো আমাদের দরকার নাই। এই প্রদীপ নিভে যাওয়াই ভালো।

S.alam

২০২০-০৮-০৭ ১০:৪১:৪৯

এমন আরো হাজারো প্রদীপ পুরো দেশে ছড়িয়ে আছে। সবাই সতর্ক হয়ে খোঁজ নিলে আরো অনেক কিছু বেরিয়ে আসবে......

মাসুম

২০২০-০৮-০৭ ১০:১৯:০৭

উপর মহল অবুঝ বা শিশু নয় যে ভুল বুঝিয়ে পুরস্কার আদায় করে নিয়েছে । তারা এই অপরাধেরই অংশ। জেনেশুনে এবং বখড়ার ভাগ নিয়েই তাকে পুরস্কৃত করেছে।

মোঃ আলাউদ্দিন আল আজা

২০২০-০৮-০৭ ২০:২৫:০৯

প্রত্যেক থানার ওসি এবং এসপিদের সম্পদের হিসাব নেয়া দরকার।

মোহাম্মদ আলী, দঃ রহম

২০২০-০৮-০৭ ০৪:২৫:১৪

স্বাধীন টেকনাফে সবাই মিলে বলি, জয় বাংলা ! হানাদার প্রদীপের হাত থেকে মুক্ত টেকনাফ।

সৈয়দ হাসান ইমাম

২০২০-০৮-০৭ ০৩:৩৯:৪১

এক প্রদীপ আলোয় এলেও এমন অনেক হাজারো প্রদীপ অন্ধকারেই রয়ে যাবে যতদিন না বাংলাদেশ নামক দেশটির মীরিয়মান প্রদীপ চিরতরে নিভে যাবে

Muhi choudhury

২০২০-০৮-০৭ ০৩:৩৭:২০

There are so many more pradip's in our civil administration and in uniforms has to be removed as soon as possible to save the country. Corruption has taken presidence over everything's in the country. This needs to be stopped and requires drastic actions and only God knows how it's going to happen and by whom ? Is there anyone whom the nation can truly trust ?

জিলানী

২০২০-০৮-০৭ ০০:৪৫:৫৫

অবাক করা কান্ড!

আপনার মতামত দিন

মত-মতান্তর অন্যান্য খবর

গণধর্ষণের নেপথ্যে

২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০

ঐতিহ্য হাইজ্যাকের পর ধর্ষকের আস্তানা

নারী, মাদকই ওদের নেশা

২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০

তাহলে সিইসি কবুল করলেন

২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০

ভিপি নুর, ধর্ষণ এবং আট মাস

২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০

ড্রাইভার মালেকের বালাখানা

দরজা আছে, দরজা নেই

২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০

আ/ম/ব/য়া/ন

একটি স্বপ্নের চাকরি এবং...

২১ সেপ্টেম্বর ২০২০

রাজনীতিতে কোরাসবাজি

২১ সেপ্টেম্বর ২০২০

পিয়াজ কথন

ভারতের অনুতাপ এবং দোজখপুর

১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০

চীন-ভারত দ্বন্দ্বের নেপথ্যে

১৭ সেপ্টেম্বর ২০২০

বয়াতির আসর আর রাজনীতির মঞ্চ

১৭ সেপ্টেম্বর ২০২০



মত-মতান্তর সর্বাধিক পঠিত