“চাই একটু মানসিক প্রশান্তি”

সৈয়দ আশিক মোহাম্মদ

মত-মতান্তর ২১ জুন ২০২০, রোববার

এক অস্থির সময়ের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছি আমরা প্রতিদিন। কেউ বলতে পারব না আগামীকাল কি হবে আমাদের জীবনে? আমরা স্বীকার করি আর নাইবা করি, আমাদের সকলের মধ্যে এক ধরনের চাপা উত্তেজনা ও মানসিক অশান্তি কাজ করছে। প্রতিটি দিন আমাদেরকে পার করতে হচ্ছে এক ধরনের অবশাদ ও প্রতিবন্ধকতার ভিতর দিয়ে। হটাৎ করে মনে হচ্ছে জীবন এক অনিশ্চয়তার মধ্য দিয়ে চলছে। সব সময় কি যেন এক অজানা ভয় মনের মধ্যে বাসা বেঁধে আছে। করোনা বা কোভিড-১৯ নিয়ে অনেক রকম পরামর্শ বা করনীয় আমরা সবাই ইতিমধ্যে জেনে গিয়েছি। কিভাবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলে এই ভাইরাসের হাত থেকে রক্ষা পেতে হবে তা এরই মধ্যে আমাদের সকলেরই জানা হয়ে গিয়েছে। ডঐঙ বা আমাদের স্বাস্থ্য বিভাগ বা আইইডিসিআর প্রতিনিয়ত আমাদেরকে এ ব্যপারে যথাযথ পরামর্শ প্রদান করে যাচ্ছে।
কিন্তু এত কিছুর পরও আমরা মানসিক ভাবে কতটা স্বস্তিতে আছি সেটা এক বিরাট প্রশ্ন?
আমাদের মানসিক শান্তি যেন উড়ে গেছে এই করোনা কালে। বিশেষ করে ৮ই মার্চের পর থেকে যখন আমাদের দেশে প্রথম করোনা রোগী সনাক্ত হল, তখন থেকে যেন সব সময় আমরা করোনা আতঙ্কে অস্থির হয়ে আছি। আমরা যেন একটি মুহূর্তের জন্য করোনাভাইরাসের ভয়াবহতা থেকে নিজেকে আড়াল করতে পারছি না। আমাদের চারপাশে এই করোনাভাইরাস এক বলয় তৈরি করে রেখেছে আর আমরা সেই বলয়ে নিজেকে আবদ্ধ করে ফেলেছি। তাই গত ডিসেম্বর ২০১৯ এর পর  থেকে সারা বিশ্বের সর্বাধিক আলোচিত শব্দ এই করোনা আজ আমাদের জন্য এক ভয়াবহ আতংকই নয়, এক অবিচ্ছেদ্য অংশ হয়ে গেছে। প্রতিদিন নতুন নতুন মৃত্যু সংবাদ আর আক্রান্তরোগীর ক্রমবর্ধমান সংখ্যা আমাদেরকে প্রতিনিয়ত দূর্বল করে দিচ্ছে। আমরা সামাজিক ও অর্থনৈতিক অনিশ্চয়তার এক চরমতম সময়ের ভিতর দিয়ে অতিক্রম করছি।
এখন আমাদের দরকার এক ধরনের মানসিক প্রশান্তি। আর এই মানসিক প্রশান্তি চাইলেই পাওয়া সম্ভব নয়। এর জন্য প্রয়োজন শক্ত মনোবল এবং নিজেকে দৃঢ় প্রত্যয়ের মধ্য দিয়ে এগিয়ে নিয়ে চলা। করোনার প্রথম দুই মাসে আমাদেরকে সাধারণ ছুটির মধ্যে দিয়ে কাটাতে হয়েছে যা ছিল অন্যরকম এক যুদ্ধ। এখন আমরা অতিক্রম করছি আরেক স্তরের যুদ্ধে যেখানে জীবন ও জীবিকা সচল রাখতে আমাদেরকে কাজ ও করে যেতে হচ্ছে। রয়েছে যেমন এক দিকে জীবন বিপন্ন হওয়ার ভয়, আবার অন্যদিকে এই জীবন ও জীবিকার সন্ধানের যুদ্ধে সামিল হওয়া। এই এক মিশ্র অবস্থার মধ্যে আমদেরকে এখন যেতে হচ্ছে সামনের দিকে। কারণ জীবন থেমে থাকার নয়। আমরা সকলে জানি যে এই কঠিন সময় একদিন শেষ হবে। সামনে আসবে সোনালী দিন, যেখানে আবার আমরা স্বাভাবিক জীবনে ফিরে যাব।
আমাদের কেবল মাত্র প্রয়োজন এই কঠিন সময়টা অতিক্রম করা। আমাদের যেমন প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্য বিধি মেনে এই অজানা ভাইরাসের মোকাবেলা করতে হবে, ঠিক তেমনি মানসিক প্রশান্তি অর্জনের মাধ্যমে এই করোনাকাল অতিক্রম করতে হবে। মানসিক প্রশান্তি লাভের জন্য মানসিক দুঃশ্চিন্তা ও মানসিক চাপ থাকে আমাদের মুক্ত হতে হবে। এজন্য নিয়মিত ধর্মীয় চর্চার পাশাপাশি ধ্যান বা মেডিটেশন করা যেতে পারে। ভালো বই পড়া, ভালো কোন সিনেমা দেখা আমাদের জন্য অনেক ভালো সহায়ক হতে পারে। প্রতিদিন পুষ্টিকর খাবার গ্রহণের পাশাপাশি নিয়ম করে কমপক্ষে ৩০ মিনিট হাঁটা বা ঘরের ভিতরে হাল্কা ব্যায়াম করা যেতে পারে, যা কিনা আমাদের মনকে চাঙ্গা রেখে মানসিক প্রশান্তি বাড়াতে পারে। সবচেয়ে বেশী প্রয়োজন নিজের মনকে ব্যন্ত রাখা। নানা ধরনের সখের কাজ করেও নিজের মনকে প্রফুল্ল রাখা যায়। বাগান করা, গল্প-কবিতা পড়া বা লেখা, নিজের প্রিয় কোন খাবার রান্না করা, ঘর সাজানো এসব নানাবিধ কাজের মাধ্যমে আনন্দ খুঁজে পাওয়া যায়।
মনে রাখতে হবে ভয় বা আতঙ্ক মনকে অবশাদগ্রস্থ করে তোলে। কাজেই এই সময় ভয় বা আতঙ্ক মনে জায়গা দেওয়া চলবে না। মনের সাহস ও দৃঢ় মনোবল আমাদের অনেক সময় কঠিন কাজকেও সহজ করে দেয়। আর কোন ভাবেই এই সময় নেতিবাচক কোন চিন্তা করা চলবে না। নেতিবাচক চিন্তা আমাদের মনকে ক্রমশ দূর্বল করে তোলে। সর্বদা পজিটিভ চিন্তা চেতনার মাধ্যমে এই কঠিন সময়কে অতিক্রম করতে পারাই হবে এখনকার সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ যা এখন আমাদের সকলকের অনুশীলন করা প্রয়োজন। তাই আসুন আগামী সুন্দর সকালের চিন্ত মাথায় নিয়ে আমরা এই করোনা কালের কোভিড-১৯ যুদ্ধে লিপ্ত থেকে সৃষ্টিকর্তার কাছে এই প্রার্থনা করি যেন অচিরেই নতুন সূর্য উঠে আর আমরা সেই নতুন সূর্যের আলোয় গা ভিজিয়ে প্রশান্তির শ্বাস নিতে পারি।

ঘরে থাকুন, ভালো থাকুন।
লেখকঃ সৈয়দ আশিক মোহাম্মদ।
গ্রিনরোড, ঢাকা
জুন ২০, ২০২০।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Juni mama

২০২০-০৬-২১ ১৮:৪০:১৭

Excellent. Ashik you have written an excellent expression about the recent human suffering. I congratulate you.

Md. Saiful Hasan

২০২০-০৬-২১ ০৮:৫৯:৫৮

Really true.. Good thinking.. Stay safe

কে এম আনিসুর রহমান

২০২০-০৬-২১ ০৮:৪৩:৪০

আপনার লেখাটা পড়ে খুব ভালো লাগলো। সময় উপযোগী একটি লেখা। এখন প্রয়োজন আমাদের নিজেদের সচেতন ভাবে চলাফেরা করা। সবথেকে প্রয়োজন নিজের আত্মবিশ্বাস কে সঠিক রাখা ।কোনোভাবেই ভয় পেলে চলবে না। এই কঠিন বিপদের মাঝেও নিজের আত্মবিশ্বাস ধরে রাখতে হবে। মহান আল্লাহ পাক যেমন বিপদ দিয়েছেন তেমনি ভাবে বিপদ থেকে উদ্ধারের পথ বাতলে দিয়েছেন। তাই আল্লাহ তাআলার কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করতে হবে। আল্লাহ আমাদের এই মহামারী করোনার হাত থেকে রক্ষা করুন। আর এই গ্ করোনাই যারা আক্রান্ত তাদেরকে কোনোভাবেই আমরা যেন অবহেলা না করি কারণ কাল বা আজ আমার আপনার করোনা হবে না একথা কেউ বলতে পারে না। তাই নিজ নিজ জায়গা থেকে নিজেরা সাবধানে চলাফেরা করতে হবে এবং এই অদৃশ্য ভাইরাস থেকে নিজেদেরকে রক্ষা করতে হবে। সব কাজ সঠিকভাবে পরিপালন করতে হবে। যারা করোনাই আক্রান্ত তাদের প্রতি আমাদের মানবিক হতে হবে। আপনি লিখেছেন বই পড়া সিনেমা দেখা গল্প করা গাছ লাগানো এগুলো করা যেতে পারে। এতে মানসিক প্রশান্তি বাড়বে সুন্দর সময় পার করা যাবে। সর্বোপরি আমরা সাবধানে চলাফেরা করব এবং আমাদের যার যার জায়গায় অবস্থান করে আমাদের দায়িত্ব পালন করব। মহান আল্লাহ পাক আমাদের সবাইকে রক্ষা করুন। এই মহামারী করোনা ভাইরাসের হাত থেকে পৃথিবীতে মুক্তি দান করুন।

Mosleh Uddin Parvez

২০২০-০৬-২১ ০৮:৪০:১২

Nice writing Bhaia.go ahead.

আরিফ

২০২০-০৬-২১ ০৮:০৩:৪৩

লেখার জন্য আন্তরিক ধন্যবাদ । এ রকম লেখা মানুষের মধ্যে সচেতনতা এবং মানসিক মনোবন বৃদ্ধিতে সহায়তা করবে । সুন্দর আগামীর প্রত্যশা ।

আপনার মতামত দিন

মত-মতান্তর অন্যান্য খবর

ম্যারাডোনা ও বাংলাদেশ

২৬ নভেম্বর ২০২০

এমন মৃত্যু মানা যায় না

১৬ নভেম্বর ২০২০

ভ্যাকসিন জাতীয়তাবাদ

১৫ নভেম্বর ২০২০

বাসে সিরিজ আগুন

উদ্বেগের বৃহস্পতিবার, জনমনে নানা প্রশ্ন

১৩ নভেম্বর ২০২০



মত-মতান্তর সর্বাধিক পঠিত

DMCA.com Protection Status