বাংলাদেশের জার্নাল

আরোপিত ও জন্মগত সম্পর্কের নির্মম পরিণতি!

যুক্তরাজ্য থেকে ডা: আলী জাহান

মত-মতান্তর ৫ জুন ২০২০, শুক্রবার | সর্বশেষ আপডেট: ১১:৫৩

ভেতরে ভেতরে আমাদের কার কী অবস্থা বাইরের লোকজন না জানলেও আমরা নিশ্চয়ই জানতাম। হয়তো কেউ কেউ অবচেতন মনে জানলেও তা প্রকাশ করতে পারতেন না। এখন আমাদের সেই প্রকাশের সময় এসেছে। আমরা প্রকাশ করছি। আমরা ঘোষণা করছি পৃথিবীতে কেউ কারো নয়।

মনুষ্যত্বের আড়ালে আমাদের কারো কারো ভেতরে যে অমানবিকতার ডালপালা ছড়িয়ে আছে তা করোনা না আসলে হয়তো বুঝতে পারতাম না।

গত একমাস ধরে বাংলাদেশের প্রথম সারির পত্রিকাগুলোর নির্দিষ্ট কিছু রিপোর্ট আমি ফলো করছিলাম। বলতে পারেন ফলো করতে বাধ্য হচ্ছিলাম। দেখতে চাইছিলাম আমরা কী দাবি করি এবং কী করছি। মানুষ হিসেবে আমরা যে দাবি করে আসছিলাম তা আসলে কতটুকু সঠিক? সেই বিষয়টি আমি পর্যবেক্ষণ করছিলাম।

আমি দেখতে চাইছিলাম আমরা কতটুকু নিচে নামতে পারি।
আমার সেই পর্যবেক্ষণ আপাতত শেষ হয়েছে। মনুষ্যত্বের আড়ালে আমাদের ভেতরের অন্ধকার দিকের পর্যবেক্ষণ আমার এই মুহূর্তে শেষ হয়েছে। আমাদের ভেতরের অন্ধকার দিকটা ভয়াবহ ভাবে প্রকাশ পেয়েছে। প্রমাণিত হয়েছে এতোদিন আমরা যা দাবি করতাম করতাম তা শুধু ফাঁকা বুলি ছিল। আমরা আসলে যা বলি তা নই।পৃথিবীতে বেঁচে থাকার জন্য আমাদের কিছু করতে হয় এবং বলতে হয়। আমরা তাই বলছিলাম এবং করছিলাম। আসলে আমাদের ভেতর ছিল অন্তঃসারশূন্য ধু ধু মরুভূমি। আমরা মনুষ্যত্বের কাতার থেকে অনেক পেছনে পড়েছিলাম। করোনা মহামারীতে এসে আমরা সেই প্রমাণ দিয়েছি।

অন্ধকারের কোন দিকটি আমরা উন্মোচিত করিনি? সবগুলো দিকই উন্মোচন করেছি। জন্মগত বা আরোপিত সম্পর্ক দুটি যে মাঝেমধ্যে খুব ঠুনকো হয়ে যায় তার প্রমাণ আমরা দিয়েছি।

জন্মগত সম্পর্ক বলতে আমি মা-বাবা, ভাই-বোন ছেলে-মেয়ের সম্পর্কের কথা বলছি।আরোপিত বা অর্জিত সম্পর্কে বলতে আমি স্বামী-স্ত্রীর, শশুর শাশুড়ির সম্পর্কের কথা বলছি।

ঘটনাটি প্রথমে শুরু হয়েছিল নারায়ণগঞ্জ থেকে। একজন পরিচিত গিটারিস্ট করোনার উপসর্গ নিয়ে কয়েক হাসপাতাল ঘুরে কোথাও ভর্তি হতে না পেরে যখন বাসায় ফিরে আসেন তখন সে রাতেই তিনি শ্বাসকষ্ট নিয়ে মারা যান। জন্মগত এবং আরোপিত সম্পর্কের আত্মীয়-স্বজনরা তার সেই লাশ বাসা থেকে বের করে রাস্তায় ফেলে রাখেন। নিমিষেই আমাদের সম্পর্ক ঠুনকো হয়ে গেল! প্রিয় স্বামী, প্রিয় ভাই বা সন্তানকে বাসায় না রেখে আমরা রাস্তায় ফেলে রাখলাম! অবশ্য ওনার কপাল ভালো উনার লাশ রাস্তায় ফেলে রাখা হয়েছিল। জীবিত অবস্থায় উনাকে রাস্তায় ফেলে রাখা হয়নি।


অবশ্য আমার এ ভুল ভাঙতে সময় যায়নি। পরের সংবাদে দেখলাম করোনা উপসর্গ সন্দেহে আপন সন্তানরা তার জীবিত মাকে জঙ্গলে ফেলে রেখে এসেছে। আমরা কত নিচে নেমে গেলাম। কতো অন্ধকারে আমরা হারিয়ে গেলাম। জন্মদাত্রী মাকে জ্বর আর কাশি থাকার কারণে জীবিত অবস্থায় জঙ্গলে ফেলে আসলাম যারা আমরা কি মানুষ?একটু খেয়াল করে দেখুন আপনার সন্তানরা যদি আপনাকে এভাবে জঙ্গলে রেখে আসে তখন আপনার অনুভূতি কেমন হবে? মানবতার কি ভয়াবহ পরিণতি! জন্মগত সম্পর্কের কি নির্মম ট্রাজেডি!

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে করোনা সন্দেহ ভর্তি হবার পর স্বামী মারা গেছেন। লাশ ফেলে প্রিয় স্ত্রী এবং বাদবাকি আত্মীয়-স্বজন পালিয়ে গেছেন। আরোপিত সম্পর্কের কি ভয়াবহ পরিণতি!

ফেনীর সোনাগাজীতে ৫৫ বছর বয়সে শাহাব উদ্দিন সাহেবের কপালটা আরো খারাপ। জ্বর কাশি এবং শ্বাসকষ্ট ওঠায় ঘরের ভেতর তালাবদ্ধ রেখে তার স্ত্রী, ছেলেমেয়ে এবং জামাতা তাকে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দেন। তালাবদ্ধ ঘরে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। আহারে জীবন!

টঙ্গীতে করোনা সন্দেহে দুই শিক্ষকের মৃত্যু। পাঁচ তলায় লাশ পড়ে আছে। কেউ নামাতে এগিয়ে আসছে না। আহারে আমাদের সমাজ ব্যবস্থা!

করোনা সন্দেহে মারা যাওয়া গার্মেন্টস শ্রমিকের লাশ আত্মীয়-স্বজন এবং গ্রামবাসী তিস্তায় ভাসিয়ে দিয়েছেন। পরে পরীক্ষা করে জানা গেল তার করোনা ছিল না। ততক্ষণে অবশ্য অনেক দেরি হয়ে গেছে। আমরা আমাদের পশুত্বের প্রমাণ দিয়ে দিয়েছি!

অসুস্থ মাকে রাস্তায় ফেলে দিল প্রবাসী দুই ছেলের স্ত্রী। আরোপিত সম্পর্কের ভয়াবহ পরিণতি। নিজের সন্তানরা যেখানে মাকে জঙ্গলে ফেলে আসছে সেখানে সন্তানের স্ত্রীরা এমনটা করলে আপনার নিশ্চয়ই খুব অবাক হবেন না!

করোনা সন্দেহ থাকা মৃত ব্যক্তির কবর খুঁড়তে রাজি হননি এলাকার মানুষ। কবর খুঁড়তে গেলে তো আপনার করোনা হবে না। আপনি কেন এমন নির্মম হলেন? আপনার বুঝি করোনা হতে পারে না?

কারাগারে থাকা করোনা রোগীর মৃত্যু হলে করোনা সন্দেহে আত্মীয়-স্বজন গ্রহণ করেনি। হায়রে সম্পর্ক!

উপরের কাহিনীগুলো হলো আমাদের চারপাশে গত কয়েক সপ্তাহে ঘটে যাওয়া জন্মগত এবং আরোপিত সম্পর্কের কিছু নির্মম এবং ভয়াবহ উদাহরণ।

আমরা কোথায় গেলাম? আমাদের কোথায় যাবার কথা ছিল? আমাদের মনুষ্যত্ব এতো নিচে নামল কীভাবে? এই প্রশ্নগুলো কয়েকদিন থেকে থেকে আমার মাথায় ঘুরপাক খাচ্ছে। আমি জবাব পাচ্ছি না। মনুষ্যত্ব আর মানবিকতাকে জাগ্রত করার জন্য যে অবলম্বনকে আমরা এতোদিন উৎসাহিত করেছি তা আসলেই কোন অবলম্বন নয়। করোনা এসে তাই বলে যাচ্ছে।

বারবার একটি কথাই আমার মাথায় ঘুরে ফিরে আসছে।ব্যক্তিগত, পারিবারিক এবং সামাজিক জীবনে আমাদের যে সম্পর্কগুলো তা আসলেই খুব ঠুনকো। বালির বাঁধের মতো। নিমিষেই শেষ হয়ে যায়। মুহূর্তেই অন্ধকার নেমে আসে। চোখ বুজলেই আপনি টের পাবেন আপনি যাদের জন্য জীবন যৌবন খরচ করেছেন তারা আসলে আপনার কেউ নয়। তারা ছিল আপনাকে ঘিরে বেঁচে থাকার অবলম্বন। আপনি এখন নেই। আপনার প্রয়োজন নেই। আপনি এখন কবরের বাসিন্দা। কবরে যাবার আগেই আপনার জীবনকে গোরস্থান করে ফেলেছে আপনার প্রিয় আত্মীয়-স্বজন। আপনি তাদের জন্য ছুটছেন? কোথায় ছুটছেন?

কাদের জন্য আপনি ছুটে চলছেন? কাদের জন্য আপনি মানুষকে কষ্ট দিয়ে নিজের পরিবারকে খুশি রাখার চেষ্টা করছেন? একবার নিজেকে প্রশ্ন করুন। হঠাৎ করোনা এসে আপনাকে স্পর্শ করলে আপনার পরিণতি কী হবে? একটু ভাবুন। সময় না থাকলে কিছু সময় নিয়ে চিন্তা করুন। আসলেই পৃথিবীতে কেউ কারো নয়। করোনা এসে সেই নির্মম সত্যটা কি আবার প্রমাণ করে দিচ্ছে?


ডা: আলী জাহান
বিলেতে কর্মরত বাংলাদেশী চিকিৎসক (সাইকিয়াট্রিস্ট)
ইমেইল- [email protected]il.com

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Mohammed Mohsin Khan

২০২০-০৬-১৭ ০৯:০৫:৩১

অনেক ধন্যবাদ, আপনার লেখায় অসংখ্য মানুষের হৃদয়ে বহমান ধারণা ভাষা পেয়েছে। সবিনয়ে বলতে চাই যে, মানুষের জন্মগতভাবে যা পায় তা অর্পিত - এটি সে চায়নি তাকে আল্লাহ তা'য়ালা অর্পণ করেছেন, যেমন পিতামাতা, ভাই বোন বংশ , সৌন্দর্য, বুদ্ধিমত্তা প্রভৃতি। বড় হয়ে নিজে পরিশ্রম বা পছন্দ করে যা সে অর্জন করে তা অর্জিত যেমন শিক্ষা, স্বামী/স্ত্রী, পদ পদবী, ঐশ্বর্য, সম্পদ প্রভৃতি।

শরীফ আহমেদ

২০২০-০৬-০৭ ১৩:১৫:২৫

আসসালামু আলাইকুম ভাই। লেখাটি পড়লাম এবং খুবই ভালো লাগলো। দৈনিক পত্রিকাতে প্রতিদিন যে তথ্যগুলি পাচ্ছি সেটাই আপনি খুবই সুন্দর করে ফুটিয়ে তুলেছেন।। আসলে স্বার্থের কাছে মানবতা আজ বিপন্ন। সারাজীবন কুরআন-হাদিস চর্চা করে যে তথ্যটি পেয়েছিলাম দেখতেসি এটাই নির্ভুল সত্য। আল্লাহ এবং আল্লাহর রাসূল ছাড়া দুনিয়াতে কেউ আপন নয়। এটাই চিরন্তন সত্য।

কামাল উদ্দিন

২০২০-০৬-০৫ ০৮:৪৫:৫৫

এইসব ঘটনা দেখলে বেঁচে থাকার আশাটাই যেন শেষ হয়ে যায়। মনের মধ্যে একটা কথা বারবার জিজ্ঞেস করে কে তুমি কার জন্য কি করতেছো।কেউ কি আছে তুমার জন্য কিছু একটা করবে ?

sdd

২০২০-০৬-০৫ ২১:৩২:০৩

শঙ্করাচার্য বলেছিলেন 'কা তব কান্তা কস্তে পুত্র সংসারমোহতীব বিচিত্রম'। তবে বিপরীত চিত্রও রয়েছে এবং সংখ্যায় সেটাই বেশী। এখনো মানুষ মানুষকে ভালোবাসে, জন্মগত ও অর্জিত দুটো সম্পর্ককেই মর্যাদা দেয়। সুখে দুঃখে একসাথেই থাকে। এমনকি সম্পর্কহীন মানুষের প্রতিও মমতা দেখায়। যে দুটি চিত্র আলোচনা করা হয়েছে, সম্পর্কিতরা ফেলে দিলেও অসম্পর্কিতরা মানবতা দেখিয়েছে। আমরা অতটা নিরাশ নই।

S M Nazrul Islam

২০২০-০৬-০৫ ০৭:২৭:০৫

নিজস্ব ধর্ম ও সংস্কৃতি মানবিক মূল্যবোধ প্রতিস্টার প্রধান উপাদান হওয়া সত্ত্বেও আমরা বিগত ৫০ বছর যাবত নিজস্ব ধর্ম ও সংস্কৃতির বিপক্ষে জাতিকে পরিচালিত করার কর্মসূচি বাস্তবায়ন করেছি।ফলে আমাদের অবস্থা না ঘরকা না ঘাটকা। কোন জাতিই নিজস্ব ধর্ম ও সংস্কৃতি চর্চা ব্যতীত টিকেথাকতে পারেন। আমরা এমন অবস্থায় উপনীত হয়েছি।

জুলফিকার আলী

২০২০-০৬-০৫ ০৬:৫১:০২

আসলামু আলাইকুম ধন্যবাদ বাংলাদেশের গর্ব আলী জাহান ভাইকে আমাদের ঘুনে ধরা সমাজ ব্যবস্থার বাস্তব চিত্র তুলে ধরার জন্য।করোনার মধ্য দিয়ে আল্লা আমাদেরকে শিক্ষা দিচ্ছেন যে তুমি তোমার রবের সকল বিধি নিষেধ অমান্য করে যাদেরকে সুখি করার জন্য মিথ্যা মরিচিকার পিছনে ছুঠছো এরা কেউই তোমার কৃতকর্মের ভাগ নিবে না এবং ইহকাল পরকালে কেউ তোমার পাশে থাকবে না।আল্লা আমাদের সকলকে বুঝার তৌফিক দান করুন।

Wahid Murad

২০২০-০৬-০৫ ১৮:৩৩:০১

I liked your write up. Thank you.

আপনার মতামত দিন

মত-মতান্তর অন্যান্য খবর

ওয়ার্ল্ড রিপোর্টার

শিষ্টাচার

৮ জুলাই ২০২০



মত-মতান্তর সর্বাধিক পঠিত