ঘাটাইলে মাস না যেতেই ধসে গেল কোটি টাকার রাস্তা

ঘাটাইল ( টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি

বাংলারজমিন ২০ মে ২০২০, বুধবার

টাঙ্গাইলের ঘাটাইল উপজেলায় এক মাস যেতে না যেতেই প্রায় কোটি টাকা ব্যায়ে নির্মিত উপজেলার গৌরাঙ্গী উত্তর পাড়া থেকে একাশি স্কুল পর্যন্ত ১ কি.মি. সড়কের বিভিন্ন অংশ ধসে গেছে। সড়কটির পুঃসংস্কার চেয়ে ইউএনও বরাবর আবেদন করেছে এলাকাবাসি।
উপজেলা এরজিইডি অফিস সূত্রে জানা যায়, ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে উপজেলার গৌরাঙ্গী উত্তরপাড়া থেকে একাশী স্কুল পর্যন্ত ১ কি.মি. রাস্তাটি পাকা করনের জন্য ৯৪,৯৪০০৪.৫৫ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়। সড়ক নির্মাণে কাজ পান  ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান মেসার্স শোভা এন্টারপ্রাইজ। আর বাস্তবায়ন করেন মেসার্স লৌহজাং এন্টারপ্রাইজ।
বহুদিনের কাঙ্খিত সড়কটি বছর যেতে না যেতেই বিভিন্নস্থানে ধসে যাওয়ায় কারনে ক্ষোভ জানিয়েছেন এলাকার সর্বস্হরের মানুষ।সরজমিনে গিয়ে ও এলাকাবাসির সাথে কথা বলে জানা যায়,রাস্তাটি এখনো শতভাগ নির্মান কাজ শেষ হওয়ার আগেই   পুঃসংস্কার চেয়ে ইউএনও বরাবর আবেদন করেছি আমরা।একাশি গ্রামের স্হানীয়- মিন্টু ও মাসুদ মিয়া বলেন,রাস্তা দিয়ে এখন পর্যন্ত হাটতেই পারলাম না,অথচ পুনরায় আবার রাস্তাটি সংস্কার করা জরুরী।তাহলে কেমন কাজ হয়েছে বুঝে নিন।এখানে কাজের কাজ কিছুই হয়নি।ব্যাক্তি উন্নয়ন হয়েছে।এলাকাবাসির পক্ষ থেকে আবেদনে উল্লেখ করেছেন নির্মাণের বিশ দিন যেতে না যেতেই সামান্য বৃষ্টিতে সড়কের বিভিন্ন অংশ ধসে গেছে। এতে করে যান চলাচলের অনুপোযোগী হয়ে পড়েছে। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চলছে যানবাহন।
স্থানীয় সাবেক ইউপি সদস্য খসরু তালুকদার বলেন,রাস্তাটি এলাকা বাসির বহু দিনের প্রত্যাশার ফসল ছিল।নিম্ন মানের কাজ করার দরুন বিশ দিনেই আমাদের সেই প্রত্যাশা রাস্তার ইট ও বালুর সাথে মিশে গেছে। এ ব্যাপারে উক্ত গ্রামের বাসিন্দা ও বর্তমান উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান কাজী আরজু  বলেন, সড়কটি আমার গ্রামের হলেও আমার খুব একটা যাতায়াত নেই। পরে এলাকাবাসীর মাধ্যমে জানতে পেরে সরেজমিনে গিয়ে বেহাল দশা দেখতে পাই।
গ্রামবাসীর সাথে আলোচনা করে সড়কটির পুনঃসংস্কার চেয়ে সবাই মিলে ইউএনও বরাবর লিখিত আবেদন করা হয়েছে।
ঘাটাইল উপজেলা সহকারি প্রকৌশলি আশরাফ উদ্দিন জানান, কাজটি এখনো শেষ হয়নি। এলাকাবাসীর অভিযোগের ভিত্তিতে পরির্দশনে গিয়ে অভিযোগের সত্যতা পেয়িছি। রাস্তাটি পূনসংস্কার দরকার। এ বিষয়ে প্রয়োজনিয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার অঞ্জন কুমার সরকার মানবজমিনকে বলেন, লিখিত অভিযোগ পেয়ে উপজেলা স্থানীয় সরকার প্রকৌশলি অধিদপ্তর, সংশিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যানের সাথে কথা বলে ঘটনার সত্যতা জেনেছি। বিষয়টি জেলা প্রশাসককে অবহিত করা হয়েছে। তিনি সড়কটি পুনঃসংস্কার না করা পর্যন্ত বিল ছাড় না দেয়ার জন্য আমাদের নির্দেশ প্রদান করেছেন।

আপনার মতামত দিন

বাংলারজমিন অন্যান্য খবর

ঝিকরগাছায় দুই মোটর সাইকেলের সংঘর্ষে নিহত ২

৩১ অক্টোবর ২০২০

যশোরের ঝিকরগাছায় দুইটি মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে ২জন নিহত ও ৩জন আহত হয়েছেন। আহতদের মধ্যে দুইজনের ...

সেনবাগে কিশোরের কঙ্কাল উদ্ধার

৩১ অক্টোবর ২০২০

নোয়াখালীর সেনবাগ থেকে এক কিশোরের কঙ্কাল উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার রাত পৌনে ১০ টার দিকে ...

রাজশাহী বিভাগীয় পরিবহণ ধর্মঘট প্রত্যাহার

৩১ অক্টোবর ২০২০

প্রশাসনের আশ্বাসের ভিত্তিতে রাজশাহী বিভাগে ডাকা ১লা নভেম্বর থেকে পরিবহন ধর্মঘট স্থগিত করা হয়েছে। শুক্রবার ...

খুলনায় ভ্যানচালক হত্যায় ৩ জনের মৃত্যুদণ্ড

৩০ অক্টোবর ২০২০

খুলনার বটিয়াঘাটা উপজেলার ভ্যানচালক রাশেদুল ইসলাম গাজী (১৭) হত্যা মামলায় তিন আসামিকে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়েছে। ...

জায়গা দখলে জড়িত থাকার অভিযোগ অস্বীকার কাউন্সিলরের

৩০ অক্টোবর ২০২০

অন্যের জায়গা দখলে জড়িত থাকার অভিযোগ অস্বীকার করেছেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর শাহ মো. ...

গিলাতলা ইউপিবাসীর মানববন্ধন

৩০ অক্টোবর ২০২০

ফুলতলা উপজেলার আটরা গিলাতলা ইউনিয়ন রক্ষা সম্মিলিত নাগরিক কমিটির উদ্যোগে গিলাতলা ইউনিয়নের   ৫টি মৌজা সিটি ...



বাংলারজমিন সর্বাধিক পঠিত