করোনা মোকাবিলায় কেন্দ্রের সঙ্গে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের সংঘাত

কলকাতা প্রতিনিধি

ভারত ২১ এপ্রিল ২০২০, মঙ্গলবার | সর্বশেষ আপডেট: ৫:০০

করোনা মোকাবিলায় পশ্চিমবঙ্গ সরকারকে না জানিয়ে প্রতিনিধিদল পাঠিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। এ নিয়ে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের সঙ্গে প্রবল সংঘাত তৈরি হয়েছে কেন্দ্রের। পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সোমবার সাফ জানিয়েছেন, উপযুক্ত কারণ না দেখালে ভারত সরকারের বিশেষ পর্যবেক্ষক দলকে রাজ্যের জেলায় জেলায় ঘুরতে দেয়া হবে না। ইতিমধ্যেই করোনা পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে দুটি কেন্দ্রীয় পর্যবেক্ষক দল কলকাতা ও উত্তরবঙ্গের জলপাইগুড়িতে পৌঁছেছে। সোমবারই ভারতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের মুখপাত্র টুইট করে মহারাষ্ট্র, রাজস্থান, মধ্যপ্রদেশ এবং পশ্চিমবঙ্গের করোনা সংক্রমিত এলাকা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। এই তালিকায় রয়েছে কলকাতা, হাওড়া-সহ পশ্চিমবঙ্গের সাত জেলা। সংক্রমিত এই সব জেলায় পর্যবেক্ষক দল পাঠানোর কথা বলা হয়েছে। এদিন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় টুইটারে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহকে ট্যাগ করে পর্যবেক্ষক দল পাঠানোর সিদ্ধান্তের পিছনে 'যৌক্তিকতা' জানতে চেয়েছেন।
তিনি লিখেছেন, কোভিড-১৯ নিয়ে কেন্দ্রের কাছ থেকে আমরা সব ধরনের গঠনমূলক সাহায্য ও পরামর্শকে স্বাগত জানাচ্ছি। তবে বিপর্যয় মোকাবিলা আইন অনুযায়ী কিসের ভিত্তিতে দেশের বেশ কিছু জেলায় প্রতিনিধিদল পাঠানোর প্রস্তাব দেয়া হয়েছে, তা অস্পষ্ট। রাজ্য সরকারের মুখ্যসচিব এদিন সাংবাদিক সম্মেলনে বলেছেন, উপযুক্ত কারণ না জানালে কেন্দ্রের দলকে জেলায় ঘুরতে দেবে না রাজ্য। অবশ্য সোমবার বিকেলেই মুখ্যসচিব রাজীব সিনহার সঙ্গে কথা বলতে নবান্নে গিয়েছেন কেন্দ্রের পর্যবেক্ষক দলের প্রতিনিধিরা। এই দলে বিশেষজ্ঞরাও রয়েছেন। মুখ্যসচিব এদিন জানিয়েছেন, কেন এরা এসেছেন তা স্পষ্ট নয়। শেষ মুহূর্তে রাজ্যকে জানিয়ে গাইডলাইন না মেনেই বিভিন্ন জায়গায় গিয়েছে কেন্দ্রীয় দল। তিনি অভিযোগ করেছেন, তার সঙ্গে কোনও কথা ছাড়াই তাঁরা ময়দানে নেমে পড়েছেন। কীভাবে জায়গাগুলি নির্বাচন করা হল, জানি না। তিনি আরও বলেছেন, কেন্দ্রীয় সরকার ফোনে প্রতিনিধি দল পাঠানোর কথা জানানোর পনেরো মিনিটের মধ্যে তা রাজ্যে পৌঁছে গেছে। এটা আসলে নমো নমো করে রাজ্যকে জানানো মাত্র। মনে রাখতে হবে আমরা যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামোয় মধ্যে কাজ করছি। বলা হয়েছিল তাদের লজেস্টিক সাপোর্ট রাজ্যকে দিতে হবে। কিন্তু তারা কলকাতা ও বাগডোগরায় নেমে বিএসএফ ও এসএসবি নিয়ে ঘুরতে শুরু করে দিয়েছে । মুখ্যসচিব কলকাতার প্রতিনিধিদলকে নবান্নতে তলব করেছেন। বাগডোগরায় যে দলটি পৌঁছেছে তাদের বলা হয়েছে মুখ্যসচিবের সঙ্গে ফোনে কথা বলার জন্য। মুখ্যসচিবের সঙ্গে কথা না বলে এলাকায় ঘুরতে পারবেন না জানানোর পর কলকাতায় আসা প্রতিনিধি দল হাওড়া ঘুরে পৌনে ছটা নাগাদ নবান্নতে পৌঁছেছেন। এদিকে গত রবিবার কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র সচিব অজয় ভাল্লা এক চিঠিতে রাজ্য সরকারকে সতর্ক করে দিয়ে লকডাউনের বিধিভঙ্গের অভিযোগ করেছেন।

আপনার মতামত দিন

ভারত অন্যান্য খবর

আনলক হওয়ার প্রথম দিনেই কলকাতায় মানুষ ঝুঁকি নিয়ে বেরিয়ে পড়েছেন, প্রবল যানজটে দুর্ভোগ মানুষের

১ জুন ২০২০

একদিকে কনটেনমেন্ট জোনের সংখ্যা বাড়ছে, অন্যদিকে জনজীবন স্বাভাবিক করার তাগিদে অফিস থেকে কলকারখানা, শপিং মল ...



ভারত সর্বাধিক পঠিত