মন্তব্য প্রতিবেদন

জাতীয় ক্রাইসিস কমিটি গঠন করুন

পলাশ চৌধুরী

মত-মতান্তর ১২ এপ্রিল ২০২০, রোববার

জাতীয় ঐক্য গড়ে তোলার এখনই উপযুক্ত সময়। দেশের রাজনীতি এখন বিভোর ঘুমে আচ্ছন্ন। রাজনীতি ঘুম ভাঙবে অথবা রাজনীতি স্বাভাবিক ধারায় ফিরে আসবে; কোন একদিন। সে আশা ক্রমেই ক্ষীণ হয়ে আসছে। পরিষ্কার ভাষায় একটি কথা বলি; করোনা ভাইরাস মোকাবিলায় জাতীয় ঐক্য হোক, একটি জাতীয় ক্রাইসিস কমিটির মধ্য দিয়ে।
করোনা ভাইরাস বাংলাদেশে একটু ব্যতিক্রমীভাবে হানা দিচ্ছে বা দিয়েছে। তবে ইউরোপের মত অবিকল রূপে নয়। এটা নিশ্চিত প্রায়।
এই করোনা ভাইরাস বহু রাজাকে ভিখারি আর ভিখারি কে রাজা বানিয়ে দেশান্তরী হবে! যেন কুদরতি করোনা ভাইরাস জানে, স্থান-কাল পাত্র ভেদে কোথায় কিভাবে হানা দিতে হবে! যাই হোক;খুব সহজেই আমরা লক্ষ্য করছি, জীবন-মৃত্যুর শূন্য রেখায় দাঁড়িয়েও থেমে নেই; ত্রাণের চাল চুরি, শিশু ধর্ষণ, চিকিৎসকদের চিকিৎসা ভীতি, চিকিৎসা দিতে অনীহা, ক্রসফায়ার, বন্দুকযুদ্ধ, হানাহানি রাহাজানি। যদিও এই ধরনের অস্থিরতা; অবক্ষয়ের সাথেই আমাদের নিত্য বাস।
এছাড়া আরো লক্ষ্য করছি, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বিভিন্ন দিক নির্দেশনা কার্যকর করতে বা করাতে হিমশিম খেতে হচ্ছে! সংশ্লিষ্টদের মধ্যে সমন্বয়হীনতা ক্রমেই বেড়ে চলেছে। এতেই স্পষ্টতই দেখা যাচ্ছে দুর্ভিক্ষ এবং চরম বিশৃঙ্খলতা আমাদের দরজায় কড়া নাড়ছে। আমরা রোগে নয় শোকে, হাতে নয় ভাতে মরবো! নিকট ভবিষ্যতে এমন আশঙ্কা তৈরি হচ্ছে।
সাধারণ স্বাভাবিক নানা রোগে আক্রান্ত হয়ে অনেকে মৃত্যুবরণ করছে। সেই হিসাব এখন আর কেউ রাখছেন না। এখন মৃত্যু মানেই করোনা উপসর্গ নিয়ে মৃত্যু!
দেখা যাচ্ছে, একজন ব্যক্তি মৃত্যুর শেষ মুহূর্তে গত ১ মাস বা ১৫ দিন থেকে জ্বর কাশি সর্দি এক কথায় করোনার উপসর্গ নিয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন। তার নাম লিপিবদ্ধ হচ্ছে করোনা আক্রান্ত হিসেবে।
আবার এমনও দেখা যায়; কোন এক প্রতিবেশী বিদেশ থেকে এসেছেন ২ মাস পূর্বে এবং তিনি দিব্যি ভালোও আছেন। কিন্তু তার অন্য আরেক প্রতিবেশী স্বাভাবিক কোন রোগে মৃত্যুবরণ করেছেন। সাথে সাথে পুরো সমাজ জুড়ে প্রপাগান্ডা ছড়িয়ে পড়ছে তিনি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। এক ভয়াবহ অবস্থা। নির্মমতা; নিষ্ঠুরতা। কেউ ঘটনার গভীরে যাচ্ছে না শীর্ষ থেকে বিন্দু! কেউ না। ফলে, অনেক মৃত ব্যক্তির জানাজা থেকে দাফন পর্যন্ত কোন কিছুই স্বাভাবিকভাবে হচ্ছে না।
ইমাম মোয়াজ্জিম থেকে শুরু করে সাধারণ মুসল্লী পাড়া-প্রতিবেশী সবার ভেতরে এক ধরনের ভয় কাজ করছে। কেউ ভয়েকে জয় করতে এগিয়ে আসছে না। প্রসঙ্গত: গতকাল শুক্রবার সারারাত ৪৮ বছর বয়সী আব্দুস সামাদ মন্ডল নামের এক ব্যক্তি ফরিদপুর খুলনা মহাসড়কের পাশে পড়েছিলেন। জ্বরে কাতরাচ্ছিলেন। পেশায় তিনি দিনমজুর। অনেকে যাতায়াত করার সময় তাকে দেখেছেন কিন্তু করোনা সন্দেহে কেউ তাকে সাহায্য করতে এগিয়ে আসেনি। আজ শনিবার সকালে স্থানীয় প্রশাসনের কর্মকর্তারা তাকে উদ্ধার করে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজে হাসপাতালে নিয়ে যান। কিন্তু দুর্ভাগ্য তার পূর্বেই তিনি মৃত্যুবরণ করেন। বর্তমানে তার লাশ হাসপাতলে পড়ে আছে অথচ স্বজনরাও আসছে না লাশ নিতে! ঘটনাটি বললাম ফরিদপুরের মধুখালী উপজেলার।
নারায়ণগঞ্জের আরেকটি ঘটনা: গত ২ দিন আগে একজন ব্যক্তি মারা যান। তিনি গিটারিস্ট। দুই বছর থেকে অসুস্থ ছিলেন। কিন্তু গত ১০ বা ১৫ দিনে তার অসুস্থতা বেড়েছে। যার কারণে প্রথমে স্বজনরা ঢাকা মেডিকেল কলেজে হাসপাতলে তাকে ভর্তি করাতে নিয়ে যান। রোগীকে ভর্তি না করিয়ে কর্তব্যরত চিকিৎসক চিকিৎসাপত্র দিয়ে বাড়িতে পাঠিয়ে দিলেন। বাড়িতে ঘরোয়া চিকিৎসা চলল!
হঠাৎ অসুস্থতা বেড়ে গেলো। অ্যাম্বুলেন্স ডাকা হলো। অ্যাম্বুলেন্সের ড্রাইভার যখন শুনলেন, রোগীর শ্বাসকষ্ট আর জ্বরের তখনই তিনি পালিয়ে গেলেন অ্যাম্বুলেন্স রেখেই। রোগীটিকে অ্যাম্বুলেন্সে উঠানো সম্ভব হলো না। কিছুক্ষণ পর তিনি মারা গেলেন। তারপর তার লাশ পুরো রাত বাড়ির সামনে পড়ে ছিল। কাপড় মোড়ানো। কেউ দেখতে, ধরতে এগিয়ে আসেনি। এমনকি স্বজনরাও। এমন ঘটনা আমাদের দেশে ক্রমেই বেড়ে চলেছে। কিন্তু আমার ভাবনা; সবাই কিভাবে নিশ্চিত হলেন, উল্লেখিত দুই ব্যক্তি করোনা আক্রান্ত ছিলেন? তাহলে বুঝুন! আমাদের সামাজিক অবক্ষয় দিনে দিনে কোথায় যাচ্ছে? এবং এর ভয়াবহ পরিণতি কি?
এর সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে অনাহারী মানুষের সংখ্যা। স্বজনদের জন্য টাকা পাঠাতে পারছেন না প্রবাসীরা। কারণ ইউরোপ-আমেরিকাসহ সারা বিশ্ব করোনা তা-বে ছিন্নভিন্ন। বেকারত্বের সংখ্যা দ্বিগুণ-তিনগুণ ছাড়িয়ে গেছে। সত্যি কি প্রিয় বাংলাদেশ একটি ‘ভিন্ন রকম অন্ধকার’ গুহার দিকে এগিয়ে যাচ্ছে?
করোনা ভাইরাস কিভাবে ভিন্নরুপে, ভিন্ন আঙ্গিকে আমাদের দেশে হানা দিয়েছে প্লিজ! একটু ভাবুন!
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, আমার ব্যক্তিগত একটি প্রস্তাব আপনার সানুগ্রহ বিবেচনার জন্য উপস্থাপন করছি। উল্লেখিত পরিস্থিতিতে আপনি একটি জাতীয় ক্রাইসিস কমিটি গঠন করুন। যার উদ্যোক্তা হবেন আপনি।
জাতীয় ক্রাইসিস কমিটির চেয়ারম্যান করুন বিএনপি'র চেয়ারপারসন সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে। আপনি প্রধান উপদেষ্টা থাকুন।
তারপর ,রাষ্ট্রের, সমাজের গুণীজন এবং রাজনীতিবিদদের এই কমিটিতে অভিজ্ঞতার আলোকে সদস্য করুন। ১০১ সদস্য বিশিষ্ট হতে পারে কমিটি। প্রস্তাবিত জাতীয় ক্রাইসিস কমিটির হাতে ন্যস্ত করুন আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে, ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ কার্যক্রম ক্রাইসিস কমিটিকে তদারকি করতে দিন। একইসাথে ক্রাইসিস কমিটি এখন এবং সংকট পরবর্তী পরিস্থিতি মোকাবিলার জন্য পরিকল্পনা তৈরি করুক। দেশের নির্বাহী প্রধান হিসাবে আপনি সেটা বাস্তবায়ন করুন। জানি বিষয়টি কঠিন এবং জটিল। তবে অসম্ভব বা অবাস্তব নয়।
প্লিজ! মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, আপনি একা কেন সবকিছুর দায় নেবেন? দেশটা সবার।
তাই দয়া করে দল-মত নির্বিশেষে সবাইকে নিয়ে এই মুহূর্তে সংকট মোকাবেলা করুন। এটি করলে ইতিহাস হয়ে থাকবে।
জীবন মরণ আল্লাহর হাতে। ভাইরাসের ছোবলে আমরা বাঁচবো কি মরবো তা নির্ধারণ করবেন একমাত্র আল্লাহ সুবহানাওয়াতায়ালা। তবে আমরা সবাই মহান সৃষ্টিকর্তার কাছে আত্মসমর্পণ করে ক্ষমা প্রার্থনা করি। তওবা করি। বারবার।
একই সাথে আমার প্রস্তাবিত কমিটি গঠন করা হলে; জাতি একটু স্বস্তি ফিরে পাবে, সাহস ফিরে পাবে। সামাজিক মূল্যবোধ শৃঙ্খলা কিছুটা হলেও সচল থাকবে। যা এই মুহূর্তে আমাদের খুবই প্রয়োজন।

লেখক: চেয়ারম্যান এবং ব্যবস্থাপনা পরিচালক
পলাশ চৌধুরী গ্রুপ অব কোম্পানিজ লিমিটেড।
সদস্য: ডিসিসিআই, বিজিএমইএ, বিটিএমইএ এবং আটাব।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

মো. টুটুল মোল্লা

২০২০-০৪-১৩ ০৭:৩৮:৫০

প্রস্তাবটি ভালো কিন্তু এটা প্রধানমন্ত্রী সদয় হতে চাইলে ও আর সবাই মানতে চাবেনা তবে ট্রাই করা যেতে পারে।

Shohag

২০২০-০৪-১২ ১৭:৩১:৫৯

সরকার ঠিক জায়গায় আছে।জাতীয় ঐক্য বলতে কি বয়ান ,

Nusrat

২০২০-০৪-১২ ১৭:০১:০৩

একতাই বল। যেকোন পরিস্থিতি সেটা ভালো হোক কিংবা খারাপ সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টায় তা নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব। বর্তমানে পৃথিবীর সবদেশ হাতে হাত রেখে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করে যাচ্ছে করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের জন্য। এখন সময় এসেছে আমাদেরও নতুন কিছু ভাবার ও করার। সবদল মত নির্বিশেষে ঃক্রাইসিস কমিটি গঠনের উদ্যোগ ।।। নতুন একটি প্রভাত এর শুভ উদ্যোগ। আল্লাহ পাক রাব্বুল আলামীন আমাদের সকলের সহায় হোন।

শাহ আলম মানিক

২০২০-০৪-১২ ১১:৩৬:৫৭

চমৎকার এবং সুন্দর প্রস্তাব। সহমত পোষন করলাম বস

রাকিব

২০২০-০৪-১২ ১০:৪০:২৫

আসসালামুয়ালাইকুম দেশের এ কান্তি লগ্নে সকল রাজনৈতিক দল একত্রিত হয়ে সমস্যা সমাধান করতে হবে।,, না হলে,, আমরা যারা ৭১ এর স্বাধীন এর আগে পরের কথা শুনছি, নিজ চোখে দেখিন তা হয়তো আমরা এবার নিজ চোখে দেখবো।তখন তো অস্র দিয়ে প্রতিপক্ষ কে প্রতিহত করছি, এখন তো আর আমাদের প্রতিপক্ষ খালি চোখে দেখা যায় না, যে অস্র দিয়ে প্রতিহত করবো। আমাদের কে জয় করতে হবে সবাই একত্রিত হয়ে। """"মাননীয় প্রধানমত্রী""""'' শ্রদ্ধেয় স্যার যে লেখা গুলা লিখছেন প্রতিটা কথার যুক্তি আছে, আপনার এতো ব্যস্ততার মাঝে ও যদি সংবাদ টা দেখেন একটু বিবোচনা করবেন।

মোঃ মাহমুদুল ইসলাম

২০২০-০৪-১২ ০৯:৩৪:৫৭

দেশের এই ক্রান্তিলগ্নে আমরা যদি তা রাজনৈতিক ভাবে মোকাবিলা করতে যাই তাহলে পরিস্থিতি হবে আরও মারাত্মক। আর যদি তা সম্মেলিত ভাবে দল-মত নির্বিশেষে মানবতার জন্য সবাই মিলে একে অপরের সাহায্যে এগিয়ে আসি তবে মহান সৃষ্টিকর্তা ও আমাদের সহায় হবেন। লেখকে অসংখ্য ধন্যবাদ এই নিবন্ধন লিখার জন্য।

Mohammad Muhin

২০২০-০৪-১২ ০৯:১৩:৪২

In this time.. We need to follow.. United we stand and divided we fall..

শহীদ

২০২০-০৪-১২ ২২:১২:৫৪

যা অসম্ভব তা নিয়ে চিন্তা না করাই ভাল। আওয়ামীলীগের নেতৃত্বে অন্য দল যাবে তা কীভাবে ভাবলেন? আওয়ামীলীগের কোন স্তর নেতৃত্ব ছেড়ে অন্য কোন দলের নেতৃত্বে কাজ করবে না তা পাগলেও বুঝে। কেহ ত্রাণ দেয় আর কেহ লুটে নেয়। অন্তত: লুটেরাদের দমন করলেই চলে।

Md.Sorwer Kabir

২০২০-০৪-১২ ০৯:১১:২৯

আসসালামু আলাইকুম। উল্লেখিত পরিস্থিতিতে একটি জাতীয় ক্রাইসিস কমিটি গঠন করা হোক। যা দেশের জন্য এই সময়ে খুব প্রয়োজন বলে আমি মনে করি ।

Advocate Sayed Taluk

২০২০-০৪-১২ ০৯:১০:৪৪

To form the national crisis committee is the national necessity of the moment!

মুরছালিন

২০২০-০৪-১২ ০৯:১০:৩৪

সরকারের উচিত এখনই সঠিক সিদ্ধান্ত নেবার

মির সেন

২০২০-০৪-১২ ০৯:১০:১৪

টি খুব গুরুত্ব পূর্ন , মুহূর্তে আমাদের খুবই প্রয়োজন।

Mohammad Muhin

২০২০-০৪-১২ ০৯:০৫:২২

আমরা সবাই যখন এক হতে পারব। সেই দিন আল্লাহ তায়ালা আমাদের এই দূর দিন থেকে মুক্তির অা লো দেখতে পারবো। জনাব অাপনাকে ধন্যবাদ।

মুরছালিন

২০২০-০৪-১২ ০৮:৪২:১৯

সরকারের উচিৎ এখনই পদক্ষেপ গ্রহণ করা।

মোঃতুষার ইমরান

২০২০-০৪-১২ ০৮:৩৯:২২

বিশ্বের ও প্রিয় মাতৃভূমির এই ক্লান্তি লগ্নে আপনার এই সুনিপন চিন্তাভাবনা দেশ ও জাতির কল্যানকর ভূমিকা যোগ্যতা রাখে।

Mostafizur Rahman

২০২০-০৪-১২ ০৮:৩২:০৪

অরণ্যে রোদন।

রাফি

২০২০-০৪-১২ ০৮:১৮:৩১

এই দুঃসময়ে দলমত নির্বিশেষে সকলের এগিয়ে আসা উচিৎ।

আপনার মতামত দিন

মত-মতান্তর অন্যান্য খবর

বাংলাদেশে টিকা আসবে কবে?

১ ডিসেম্বর ২০২০

ম্যারাডোনা ও বাংলাদেশ

২৬ নভেম্বর ২০২০

এমন মৃত্যু মানা যায় না

১৬ নভেম্বর ২০২০

ভ্যাকসিন জাতীয়তাবাদ

১৫ নভেম্বর ২০২০



মত-মতান্তর সর্বাধিক পঠিত

DMCA.com Protection Status