শেষের পাতা

কার্ড জালিয়াতি করে যেভাবে গ্রাহকের টাকা আত্মসাৎ

রুদ্র মিজান

২১ মার্চ ২০২০, শনিবার, ৯:১০ পূর্বাহ্ন

ব্যাংকে টাকা রাখা নিয়ে নিরাপত্তাহীনতায় সাধারণ মানুষ। প্রায়ই বিভিন্ন ব্যাংকে ঘটছে ক্রেডিট কার্ড জালিয়াতির ঘটনা। উধাও হয়ে যাচ্ছে টাকা। অতীতে কার্ড জালিয়াতি, পিন কোড চুরি থেকে শুরু করে নানাভাবে টাকা গায়েবের ঘটনা ঘটেছে। এবার ভিন্ন পদ্ধিতিতে বেসরকারি মালিকানাধীন ন্যাশনাল ব্যাংক থেকে ক্রেডিট কার্ড জালিয়াতির ঘটনা ঘটেছে। প্রতারক চক্রের কবলে পড়েছেন ব্যাংক কর্তৃপক্ষই। ব্যাংক থেকেই তথ্য সংগ্রহ করে ক্রেডিট কার্ড জালিয়াতির ঘটনা ঘটেছে। ক্রেডিট সংক্রান্ত তথ্য থেকে শুরু করে ফোন নম্বর ক্লোন করে এই চক্রটি জালিয়াতির আশ্রয় নেয়। ন্যাশনাল ব্যাংকের বেশ কয়েক শাখা থেকে এ ধরণের অভিযোগ জমা হতে থাকে কর্তৃপক্ষের কাছে। শেষ পর্যন্ত এ ঘটনায় আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সহযোগিতা চেয়েছেন ব্যাংক কর্তৃপক্ষ। ব্যাংক কর্মকর্তা মাহফুজুর রহমান বাদী হয়ে রাজধানীর ধানমন্ডি থানায় মামলা করেছেন। এতে অজ্ঞাতদের আসামি করা হয়েছে।

ব্যাংক সূত্রে জানা গেছে, একের পর এক ক্রেডিট কার্ড জালিয়াতির চেষ্টা ধরা পড়লে দুশ্চিন্তায় পড়ে যান তারা। এরমধ্যে একজন গ্রাহকের টাকাও হাতিয়ে নিয়েছে প্রতারক চক্র। এ অবস্থায় হুমকির মুখে পড়ে ব্যাংকটির ডিজিটাল নিরাপত্তা ব্যবস্থা। বিষয়টি চিন্তা করেই ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করা হয়। গত ২রা মার্চ থেকে ৩রা মার্চ পর্যন্ত বিভিন্ন সময়ে ব্যাংকের ক্রেডিট কার্ড সংক্রান্ত তথ্য সংগ্রহ করে একটি চক্র। ন্যাশনাল ব্যাংকের ঢাকার আসাদগেইট, বংশাল, নোয়াখালীর চৌমুহনী, মুন্সিগঞ্জের নাগরা বাজার, চট্টগ্রামের চাকতাই শাখা থেকে এ ধরণের অভিযোগ পেয়েছেন ব্যাংক কর্তৃপক্ষ।  

অজ্ঞাতনামা ব্যক্তি ন্যাশনাল ব্যাংকের আসাদ গেইট শাখায় ফোন করে ক্রেডিট কার্ড সংক্রান্ত তথ্য জানতে চায় ওই শাখার ম্যানাজার ফরহাদের কাছে। নিজেকে সে ক্রেডিট কার্ড ডিভিশনের কর্মকর্তা তানভির হিসেবে পরিচয় দেয়। এসময় ক্রেডিট কার্ডের দায়িত্বে থাকা ফারজানা তাসনিমকে ফোনটি ধরিয়ে দেন ম্যানাজার। এ বিষয়ে দায়েরকৃত মামলায় উল্লেখ করা হয়েছে, এসময় ফোনের অপর প্রান্ত থেকে অজ্ঞাতনামা ব্যক্তি জানতে চায় গত ফেব্রুয়ারি মাসে কতগুলো কার্ড গ্রাহকদের দেয়া হয়েছে। পাসপোর্টে কার্ডের লিমিট লিপিবদ্ধ হয়েছে কি-না। এসময় কার্ডের নম্বর, গ্রাহকের নাম ও মোবাইলফোন নম্বর সংগ্রহ করে ওই ব্যক্তি। একইভাবে চট্টগ্রাম, নোয়াখালীসহ বিভিন্ন এলাকায় ওই ব্যাংকের শাখাগুলোতে ফোন দিয়ে এ ধরণের তথ্য সংগ্রহ করে।

৩রা মার্চ ন্যাশনাল ব্যাংকের চাকতাই শাখায় ফোন দিয়ে  মোহাম্মদ মামুন নামে এক গ্রাহকের তথ্য সংগ্রহ করে চক্রটি। পরবর্তীতে বেলা ২টা ১৫ মিনিটে ২৯৯.৩০ ডলার, এর এক মিনিট পরে ২১৪.২৩ ডলারসহ মোট ৫১৩.৫৩ ডলার হাতিয়ে নেয় এই চক্রটি।

চক্রটি গ্রাহকদের কাছ থেকে তথ্য সংগ্রহের সময় নানা কৌশল অবলম্বন করে। অনেক ক্ষেত্রে ব্যাংকের কার্ড ডিভিশনের ফোন নম্বর ক্লোন করে কল দিয়ে গ্রাহকের বিশ্বাস অর্জনের চেষ্টা করে। ব্যাংক সূত্রে জানা গেছে, ৩রা মার্চে ন্যাশনাল ব্যাংকের চৌমুহনী শাখার গ্রাহক মধুসূদন ভৌমিককে কল দিয়ে ক্রেডিট কার্ড সংক্রান্ত বিভিন্ন তথ্য জানার চেষ্টা করে প্রতারক চক্রের সদস্যরা। কিন্তু মধুসূদন ভৌমিক এসব তথ্য জানাতে অস্বীকৃতি জানান। এসময় তার বিশ্বাস অর্জনের জন্য ব্যাংকের কার্ড ডিভিশনের ফোন নম্বর থেকে মধুসূদন ভৌমিককে কল দেয়া হয়। ব্যাংক কর্তৃপক্ষ দাবি করেছেন ফোন নম্বরটি ক্লোন করে ওই কল দেয়া হয়েছিলো।

ওই দিন সন্ধ্যায় ন্যাশনাল ব্যাংকের ধানমন্ডির সীমান্ত স্কয়ার শাখার কার্ড ডিভিশনের ফোন নম্বরে গ্রাহক পরিচয় দিয়ে একজন কল করে। ওই ব্যক্তি জানায়, সে দেশের বাইরে যাবে তাই সেখানে ব্যবহার করার জন্য কার্ডটি খুলে দিতে হবে। এসময় কার্ড ডিভিশনের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা  কার্ডের নিরাপত্তা সংক্রান্ত বিভিন্ন প্রশ্ন করলে ওই ব্যক্তি তার জবাব দিতে ব্যর্থ হয়। এতে ব্যাংক কর্তৃপক্ষের সন্দেহ হলে তারা ব্যাংকে সংরক্ষিত গ্রাহকের মোবাইলফোনে কল দিলে একই ব্যক্তি রিসিভ করে বিদেশে ব্যবহারের জন্য কার্ডটি খুলে দিতে অনুরোধ করে। শেষে ব্যাংকের কার্ড ডিভিশন থেকে তাকে সংশ্লিষ্ট শাখায় যোগাযোগ করতে অনুরোধ করা হয়। তদন্ত সংশ্লিষ্টরা মনে করছেন, এক্ষত্রে ওই গ্রাহকের ফোন নম্বরটিও ক্লোন করেছিলো প্রাতরক চক্র।

এ বিষয়ে ধানমন্ডি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হুমায়ুন কবির জানান, বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে তদন্ত করা হচ্ছে। আশা করা যায় শিগগিরই প্রতারক চক্রকে শনাক্ত করে আইনের আওতায় আনা হবে।
   
Logo
প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে
মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত।
ফোন : ৫৫০-১১৭১০-৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০
ই-মেইল: [email protected]
Copyright © 2023
All rights reserved www.mzamin.com
DMCA.com Protection Status