শিবির সন্দেহে এবার চট্টগ্রামে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রকে নির্যাতন

অনলাইন ডেস্ক

শিক্ষাঙ্গন ২৮ জানুয়ারি ২০২০, মঙ্গলবার | সর্বশেষ আপডেট: ১০:১৫

শিবির সন্দেহে পিটিয়ে বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার হত্যা ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে চার ছাত্রকে নির্মম নির্যাতনের পর এবার একই কারণ দেখিয়ে চট্টগ্রামে আদনান নামের এক বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রকে নির্যাতন করেছে ছাত্রলীগ। আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্বববিদ্যালয় চট্টগ্রামের (আইআইইউসি) ওই ছাত্রকে শিবির সন্দেহে নির্মম নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে শাখা ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতার বিরুদ্ধে। নির্যাতনের শিকার ওই শিক্ষার্থী কুরআনিক সাইন্সেস অ্যান্ড ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের প্রথম বর্ষের দ্বিতীয় সেমিস্টারের ছাত্র।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় নির্যাতিত ছাত্র জানান, সোমবার রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের ওসমান (রা) হলে রড, লাঠি, স্ট্যাম্প ও বেল্ট দিয়ে শিবির সন্দেহে তাকে কয়েক দফায় বেধড়ক পেটানো হয়। এতে অংশ নেন ছাত্রলীগের রাজনীতিতে জড়িত আইন বিভাগের ছাত্র উ চো মারমা, রবিউল ইসলাম রনি, শফিউল ইসলাম, অনিক ও মৃদুল।

আদনান বলেন, সোমবার রাতে আমাকে আমার কক্ষ থেকে ডেকে নিয়ে যাওয়া হয় আরেকটি কক্ষে। সেখানে গিয়ে দেখি ছয়-সাতজন ছাত্রলীগের কয়েকজন সিনিয়র আছেন। তারা প্রথমে আমার মোবাইল কেড়ে নেন।
এরপর ছাত্র শিবির বিষয়ে আমাকে বিভিন্ন প্রশ্ন করতে থাকেন। তারা জোর করে আমাকে দিয়ে শিবির করি এটা বলাতে চান। তা না পেরে ক্ষিপ্ত হয়ে অন্তত পাঁচ দফায় মারধর করেন। আমার বন্ধুরা এ সময় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে খবর দেয়। প্রশাসন আমাকে ফোন দিলে মারধরকারীরা হুমকি দিয়ে বলেন সব স্বাভাবিক আছে এটা বলতে। না হলে আবার নির্যাতনের হুমকি দনে। আমিও সেভাবে প্রশাসনকে বলি। এরপর খবর পেয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরিয়াল টিম ঘটনাস্থলে গিয়ে আমাকে আহতাবস্থায় উদ্ধার করে।

শিক্ষার্থীরা জানান, ওই ছাত্রকে বিশ্ববিদ্যালয় মেডিকেল সেন্টারে নেয়া হয়। সেখানে অবস্থার অবনতি হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য চট্টগ্রামের একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এ বিষয়ে আইআইইউসি শাখা ছাত্রলীগের প্রস্তাবিত কমিটির সাধারণ সম্পাদক জুবায়ের ইসলাম ডলারের সঙ্গে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি। এ ছাড়া বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টর কাউসার আহমেদও ফোন ধরেননি।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

SAIFUL

২০২০-০১-২৯ ১৪:৪৬:০৩

ছাএলীগকে মারার অধিকার কে দিয়েছে?আমরা বুঝিনা একজন ছাএ কিভাবে আরেক জনের গায়ে হাত তোলে

ফারুক হোসেন

২০২০-০১-২৯ ১২:১৮:১৫

দেশের শিক্ষাঙ্গনে স্বাধীন দেশের গণতন্ত্রের নমুনা।

Mohammed Ali

২০২০-০১-২৮ ১১:২০:২০

প্রায় ১০ বৎসর আগে আমার ছোট মেয়ে, মা এবং গিন্নিকে নিয়ে চট্টগ্রাম নাসিরাবাদ এম ই এস কলেজের সামনে ছাত্রলীগের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার মধ্য পড়ি। হঠাৎ একটা পাথর বা এই জাতীয় কিছু আমার গাড়ির উপর পড়ে। সবাই ভয়ে আতংকিত। সামনের সিটে বসা(আমি ড্রাইভ করছিলাম)আমার জান্নাতবাসী মা বলেন এরা কি ছাত্র? সাথে সাথে পিছন থেকে আমার ৮ বৎসরের মেয়ে বললো "না না দাদু ওরা ছাত্র নয়, ওরা ছাত্রলিগ"। ইতালির Ancona শহরে বসে প্রিয় পত্রিকা মানবজীবন পড়তে অতীতের কথা মনে পড়লো। আমার মেয়ে এখন ইতালিতে Superior Final এর পরিক্ষার্থী। তাকে ডেকে বললাম, দেখ মা তোকে কেন দেশে পড়াচ্ছি না। মেয়ে আপসোস করলো এবং আল্লাহর কাছে সাহায্য চাইতে বল্লো।

Rizvi

২০২০-০১-২৮ ২১:২২:৪৭

বিবেকবান মানুষ - আসুন, শুধু এদেরকে নয় ;এরা যে পিতা-মাতা'র সন্তান সেই পরিবারের সকল সদস্য/সদস্যাদের-মুখে থু থু দেই

আপনার মতামত দিন

শিক্ষাঙ্গন অন্যান্য খবর

এইচএসসি পরীক্ষার ফল ডিসেম্বরেই

পিছিয়ে যাচ্ছে ২০২১ সালের এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা

২৫ নভেম্বর ২০২০



শিক্ষাঙ্গন সর্বাধিক পঠিত



DMCA.com Protection Status