পেট্রোল পাম্প ধর্মঘট প্রত্যাহার

স্টাফ রিপোর্টার

শেষের পাতা ৩ ডিসেম্বর ২০১৯, মঙ্গলবার | সর্বশেষ আপডেট: ১:০৫

ধর্মঘট প্রত্যাহারের ঘোষণা দিয়েছে পেট্রোল পাম্প ও ট্যাঙ্কলরি মালিক-সমিতি। গতকাল কাওরান বাজারে বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশনের (বিপিসি) লিয়াজোঁ কার্যালয়ে সমঝোতা বৈঠক থেকে এই ঘোষণা আসে। এর আগে রংপুর, রাজশাহী ও খুলনা বিভাগের ২৬ জেলায়  রোববার সকাল থেকে  জ্বালানি তেল বিক্রি বন্ধ করে দেয়া হয়। বৈঠক শেষে বাংলাদেশ জ্বালানি তেল পরিবেশক সমিতির সভাপতি সৈয়দ সাজ্জাদুল করিম কাবুল বলেন, আমাদের দাবিগুলো মেনে নেয়ার বিষয়ে উনারা আমাদের আশ্বস্ত করেছেন তাই মানুষের ভোগান্তির কথা চিন্তা  করে আমরা ধর্মঘট কর্মসূচি প্রত্যাহার করছি। আমরা আশাবাদী তারা আমাদের যৌক্তিক দাবিগুলো মেনে নিবেন। প্রত্যাহার নাকি স্থগিত? জানতে চাইলে তিনি বলেন, আগামী ১৫ই ডিসেম্বর বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রীর আহ্বানে আন্ত:মন্ত্রণালয় বৈঠকে আমাদের দাবিগুলো নিয়ে আলোচনা করা হবে তাই ১৫ই ডিসেম্বর পর্যন্ত আমরা এটা প্রত্যার করছি, তবে এটা প্রত্যাহারই ধরে নিতে পারেন। আমরা জনগণের ভোগান্তি চাই না, আমাদের ক্রেতাদের ভোগান্তির জন্য তাদের কাছে ক্ষমা চাইছি। জ্বালানি তেল আমদানি ও সরবরাহকারী রাষ্ট্রায়াত্ত প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশন-বিপিসির পরিচালক (অপারেশন ও প্ল্যানিং) সৈয়দ মেহদী হাসান বলেন, আমাদের মধ্যে একটি ইতিবাচক আলোচনা হয়েছে।
আসলে তাদের যে ১৫ দফা দাবি রয়েছে এর মধ্যে আমাদের জ্বালানি বিভাগে দুই-তিনটি দাবি রয়েছে বাকি দাবিগুলো অন্য মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট রয়েছে। তাই এ বিষয়ে ১৫ই ডিসেম্বর জালানি প্রতিমন্ত্রীর সাথে আলোচনার করে বাকি দাবিগুলোর বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।  তাদের সাড়ে সাত শতাংশ কমিশন বৃদ্ধির যে দাবি রয়েছে এবিষয়ে আগামীকাল জ্বালানী বিভাগে মিটিং রয়েছে তবে এটা বাড়বে বলে আশা করছি। এবিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর বিদ্যুত জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিষয়ক উপদেষ্টা ড. তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী বলেন, তাদের কিছু দাবি যৌক্তিক। হাইওয়েতে পুলিশি হয়রানি বন্ধ ও বিভিন্ন জেলায় জোরপূর্বক চাঁদা আদায় বন্ধে আমরা উদ্যোগ নিব। মোট কথা তাদের ভোগান্তি কমাতে আমরা একটা ওয়ানস্টপ সার্ভিস চালু করতে চাই । হয়রানি বন্ধে সবকিছু একটা ছাতার নিচে নিয়ে আসতে চাই। এবিষয়ে আমরা আলোচনা করবো।
গত ২৬শে নভেম্বর বগুড়া প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে ১লা ডিসেম্বর থেকে অনির্দিষ্টকালের এই ধর্মঘটের ঘোষণা দিয়েছিলেন পেট্রোল পাম্প ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন ও ট্যাংক লরি মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদের কেন্দ্রীয় মহাসচিব ও রাজশাহী বিভাগীয় সভাপতি মিজানুর রহমান রতন। সে অনুযায়ী তিন বিভাগের সব জেলায় রোববার সকাল থেকে  পেট্রোল পাম্পে তেল বিক্রি বন্ধ করে দেয়া হয়। পাশাপাশি পদ্মা, মেঘনা ও যমুনা তেল ডিপোর শ্রমিকরা তেল উত্তোলন, বিপণন ও সরবরাহ বন্ধ রাখায় ২৬ জেলায় জ্বালানি তেল সরবরাহ বন্ধ হয়ে যায়। এই অবস্থায় বিপাকে পড়েন গাড়ি চালকরা।

আপনার মতামত দিন

শেষের পাতা অন্যান্য খবর

নেপালি গণমাধ্যমের খবর

বাংলাদেশ সফরে আসছেন চীনা প্রতিরক্ষামন্ত্রী

৩০ নভেম্বর ২০২০

তাজরীনে আগুনের ৮ বছর

১০৪ সাক্ষীর মধ্যে সাক্ষ্য হয়েছে মাত্র ৮ জনের

২৯ নভেম্বর ২০২০

রোহিঙ্গা গণহত্যায় গাম্বিয়ার মামলা

ওআইসি তহবিলে ৫ লাখ ডলার দিলো বাংলাদেশ

২৯ নভেম্বর ২০২০

শেয়ার বাজারে আশার আলো

২৯ নভেম্বর ২০২০

২৫ পৌরসভায় আওয়ামী লীগের প্রার্থী ঘোষণা

২৯ নভেম্বর ২০২০

আসছে ২৮শে ডিসেম্বর ২৫ পৌরসভায় ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। এ নির্বাচনকে সামনে রেখে মেয়র প্রার্থী চূড়ান্ত ...



শেষের পাতা সর্বাধিক পঠিত



রোহিঙ্গা গণহত্যায় গাম্বিয়ার মামলা

ওআইসি তহবিলে ৫ লাখ ডলার দিলো বাংলাদেশ

DMCA.com Protection Status