পাবনায় মিশু হত্যার একবছরেও গ্রেপ্তার হয়নি প্রধান আসামি

বাংলারজমিন

স্টাফ রিপোর্টার, পাবনা থেকে | ৯ নভেম্বর ২০১৯, শনিবার | সর্বশেষ আপডেট: ১২:৫৮
পাবনা সরকারি এডওয়ার্ড কলেজের রসায়ন বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের মেধাবী ছাত্র এসএম মিশকাত আহমেদ মিশু হত্যার এক বছর পেরিয়ে গেলেও এই হত্যাকাণ্ডের মূল আসামি রয়েছে ধরাছোঁয়ার বাইরে। গত বছরের ৭ই নভেম্বর রাতে পাবনা সরকারি এডওয়ার্ড কলেজ মাঠে দুর্বৃত্তরা উপর্যুপরি ছুরিকাঘাত করে তাকে নির্মমভাবে হত্যা করে। এদিন সন্ধ্যায় মোবাইল ফোনে ডেকে নিয়ে দুর্বৃত্তরা এই ঘটনা ঘটায়। মিশু পাবনা কলেজের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সৈয়দ গোলাম মোস্তফার ছেলে। পরিবারের অভিযোগ, মিশুকে হত্যা করা হয়েছে পূর্বপরিকল্পিতভাবে। প্রথমে মিশু হত্যা মামলাটি পাবনা সদর থানা পুলিশ তদন্ত করে মূল আসামিদের বাদ দিয়ে দায়সারা চার্জশিট দাখিল করে। কিন্তু পরিবারের পক্ষ থেকে আদালতে জমা দেয়া চার্জশিটের ওপর নারাজি পিটিশন দায়ের করা হয়। পরে আদালত অধিকতর তদন্ত ও প্রয়োজনীয় আইনগত পদক্ষেপ গ্রহণে মামলাটি পিবিআই’র ওপর ন্যস্ত করে।
পরিবারের অভিযোগ মিশু হত্যার এক বছর পেরিয়ে গেলেও ধরাছোঁয়ার বাইরে রয়েছে প্রধান আসামি।

নিহত মিশুর বাবা সৈয়দ গোলাম মোস্তফা জানান, অজ্ঞাতদের আসামি করে পাবনা সদর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়। পুলিশ তদন্ত করে ৬ জনকে এই হত্যার সঙ্গে সংশ্লিষ্টতার প্রমাণ পায়। এই মামলার এক আসামি ইয়াছিন আলী রাহাতকে ঢাকা থেকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। আদালতের ম্যাজিস্ট্রেটের নিকট ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেয় সে। তার দেয়া স্বীকারোক্তিতে এই হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে ক্ষমতাসীন দলের ছাত্র সংগঠনের এক প্রভাবশালী নেতা এবং তার সহযোগী তসলিম হোসেন সেতু সংশ্লিষ্ট ছিল বলে জানায়। তিনি অভিযোগ করেন, পুলিশ অজ্ঞাত কারণে তদন্তে গ্রেপ্তার হওয়া রাহাতের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি মোতাবেক তদন্ত প্রতিবেদন না দিয়ে আদালতে দাখিলকৃত চার্জশিট থেকে ক্ষমতাসীন দলের ছাত্র সংগঠনের এক প্রভাবশালী নেতা ও তার সহযোগী তসলিম হোসেন সেতুর নাম বাদ দিয়ে দেয়। তিনি বলেন, দাখিলকৃত ওই চার্জশিটে আমি নারাজি পিটিশন দায়ের করি। আদালত চার্জশিট দাখিলের এক মাস পর মামলাটি অধিকতর তদন্তের স্বার্থে পাবনাস্থ পিবিআইয়ের ওপর ন্যস্ত করা হয়।

নিহত মিশকাতের মা লুৎফা শিরিন লুনা আবেগআপ্লুত হয়ে বলেন, মিশু আর ফিরবে না। তবে আমার মিশুকে যারা মেরেছে। সেই সব খুনিদের গ্রেপ্তার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হোক এটাই আমার চাওয়া। প্রকৃত আসামিদের যেন মামলা থেকে বাদ দেয়া না হয়। পুলিশ প্রশাসনের কাছে এটা আমার জোর দাবি। এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পাবনাস্থ পিবিআই কার্যালয়ের উপ-পরিদর্শক (এসআই) সবুজ বলেন, মামলার অগ্রগতি যথেষ্ট সন্তোষজনক। সমস্ত টেকনিক্যাল বিষয়গুলো এবং পূর্ববর্তী তদন্ত প্রতিবেদন, জবানবন্দি সকল বিষয়গুলোকে গুরুত্ব দিয়েই এই মামলার তদন্ত কার্যক্রম চলছে। খুব দ্রুত সময়ের মধ্যেই এই হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িতদের শনাক্ত করে চূড়ান্ত প্রতিবেদন আদালতে দাখিল করা হবে। এসআই সবুজ আরো বলেন, মামলার অন্যতম এক আসামি পলাতক রয়েছে। তাকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। এই হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত ব্যক্তি যত বড় ক্ষমতাধরই হোক না কেন তাকে আইনের আওতায় এনে উপযুক্ত শাস্তি নিশ্চিত করা হবে।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

সারাদেশে স্বেচ্ছাসেবক দলের বিক্ষোভ সোমবার

অপহৃত পাক তরুণীকে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কুরুচিপূর্ন মন্তব্যের ঝড়

রাস্তা কেটে পুকুর, ভোগান্তিতে ১০ গ্রামের মানুষ

ফেন্সিংয়ে একটি ও ভারোত্তোলনে দুটি স্বর্ণ জিতলো বাংলাদেশ

রোহিঙ্গাদের অধিকার বিষয়ক অফিস বন্ধের নির্দেশ বাংলাদেশের

রুম্পা হত্যা: উত্তাল স্টামফোর্ড

৩ দিন ঘিরে রাখার পর জানা গেলো বোম নয়

ইংরেজির পাশাপাশি বাংলায়ও রায় লেখার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

‘জাবি ভিসির দুর্নীতির তথ্য-উপাত্ত যাবে ইউজিসির কাছে’

ভারতীয় মুসলিমদের বিষয়ে বাংলাদেশও উদ্বিগ্ন: পাকিস্তানি প্রেসিডেন্ট

আগামীকাল সারাদেশে বিএনপির বিক্ষোভ

আবারো স্বর্ণ জিতলেন মাবিয়া

আমাদের ন্যায় বিচার পাওয়ার সুযোগ ছিলো না: প্রধানমন্ত্রী

ইভটিজিংয়ের প্রতিবাদ করায় ছুুরিকাঘাতে যুবক নিহত

অবশেষে হেরে গেলেন ধর্ষিতা!

চট্টগ্রামে আওয়ামী লীগের দু’পক্ষের চেয়ার ছোড়াছুড়ি, মারামারি