কমলগঞ্জে ছুরিকাঘাতে ছাত্রলীগের সাবেক সম্পাদক শাহেদ আহত

কমলগঞ্জ (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি

অনলাইন ৮ নভেম্বর ২০১৯, শুক্রবার, ১২:২১ | সর্বশেষ আপডেট: ৮:০৪

তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে কমলগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক শাহেদুল আলম শাহেদকে ছুরিকাঘাত করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় নিজ গ্যারেজে তাকে ছুরিকাঘাত করে জাকের নামের এক ছাত্রলীগকর্মী। গুরুতর আহতবস্থায় শাহেদকে ঢাকায় নেওয়া হয়েছে। তার শারীরিক অবস্থা সংকটাপন্ন বলে জানিয়েছেন শাহেদের বড় ভাই শাহীন আলম। এ ঘটনায় উত্তেজিত লোকজন কমলগঞ্জ উপজেলা চৌমুহনা এলাকায় থাকা হামলাকারীদের স্বজনদের দুটি দোকান ভাংচুর করেন। খবর পেয়ে কমলগঞ্জ থানার পুলিশ উপ-পরিদর্শক চম্পক দামের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করেন।
জানা গেছে, বৃহস্পতিবার দুপুরে কমলগঞ্জ সরকারী গণ মহা বিদ্যালয় ক্যাম্পাসে এক ছাত্রলীগ কর্মীর সঙ্গে দুর্ব্যবহার করে পৌর এলাকার নছরতপুর গ্রামের শওকত মিয়ার ছেলে কলেজ ছাত্র জাকের মিয়া। এ সময় শাহেদ জাকেরকে দুটি থাপ্পর দিয়ে তাৎক্ষনিক বিষয়টি মিটিয়ে দেন। এ ঘটনায় ক্ষিপ্ত হয়ে জাকের তার দুই মামা রইছ ও রোকনসহ অপর সহযোগীদের নিয়ে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় শাহেদের নিজ গ্যারেজে তার উপর হামলা করে।
এ সময় জাকেরসহ অন্যরা শাহেদের গলা ও পিঠে উপর্যুপরি ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়। রক্তাত্ববস্থায় স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে প্রথমে কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এ নিয়ে যান। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসার পর আশংঙ্কাজনক অবস্থায় দ্রুত তাকে মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। মৌলভীবাজার হাসপাতালে ভর্তির পর শাহেদের গলার ডান পাশের ও পিঠের আঘাত গুরুত্বর হওয়ায় এবং রক্তক্ষরন বন্ধ না হওয়ায় দ্রুত তাকে সিলেট নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেন কর্তব্যরত চিকিৎসক। পরে সেখান থেকে রাত ৮টায় আশংকাজনক অবস্থায় তাকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার শারীরিক অবস্থার আরো অবনতি হলে বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ২টায় এয়ারএ্যাম্বুলেন্সে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে তার শারীরিক অবস্থা সংকটাপন্ন হলে দ্রুত তাকে বক্ষব্যাধি হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। সেখান থেকে শুক্রবার বেলা সাড়ে ১০টার দিকে তাকে স্কয়ার হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে বলে শাহেদের বড় ভাই শাহীন আলম জানান। এদিকে হামলার প্রতিবাদে শুকবার রাত ৮টার দিকে কমলগঞ্জ উপজেলা চৌমুহনা চত্বরে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সভা করা হয়েছে।  এতে ছাত্র লীগ নেতৃবৃন্দ  ছাড়াও দলীয় নেতাকর্মীরা বক্তব্য রাখেন। কমলগঞ্জ থানার ওসি আরিফুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন,হামলার সঙ্গে জড়িতদের আটকে চেষ্টা করছে পুলিশ।

আপনার মতামত দিন

অনলাইন অন্যান্য খবর

‘টিকা সবাই পাবে’

২৬ নভেম্বর ২০২০



অনলাইন সর্বাধিক পঠিত



বাংলাদেশ জার্নাল

দেখার কেউ নেই!

DMCA.com Protection Status