কাশ্মীর ইস্যুতে ভারত সরকারের কড়া সমালোচনায় অমর্ত্য সেন

মানবজমিন ডেস্ক

বিশ্বজমিন ২০ আগস্ট ২০১৯, মঙ্গলবার

কাশ্মীর ইস্যুতে ভারত সরকারের কড়া সমালোচনা করেছেন অর্থনীতিতে নোবেল পুরস্কার বিজয়ী ড. অমর্ত্য সেন। তিনি বলেছেন, গণতন্ত্র ছাড়া কাশ্মীরে কোনও সমাধান হবে না। কাশ্মীর নিয়ে ভারত সরকার যে পদক্ষেপ নিয়েছে তাতে সংখ্যাগরিষ্ঠের কথা মনে রাখা হয় নি। তাই এ পদক্ষেপে তিনি খুশি নন। অমর্ত্য সেন বলেছেন, এ জন্য ‘ভারতীয় হিসেবে গর্বিত নই’। এনডিটিভিকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে এ কথা বলেন তিনি।

কাশ্মীর ইস্যুতে এবার এটাই তার মুখ খোলা। সোমবার নোবেলজয়ী ওই অর্থনীতিবিদ কাশ্মীর নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকারের পদক্ষেপের (অনুচ্ছেদ ৩৭০ বাতিল করা) তীব্র সমালোচনা করে বলেন, এটি যে শুধু সমস্ত মানুষের অধিকার বজায় রাখার বিরোধিতা করেছে’ তা নয়।
এই পদক্ষেপে সংখ্যাগরিষ্ঠের কথাও ভাবা হয়নি। সাক্ষাৎকারে তিনি  বলেন, ‘আমি মনে করি না যে গণতন্ত্র ছাড়া কোনও ভাবে কাশ্মীর সমস্যার সমাধান করা সম্ভব’। কাশ্মীর পদক্ষেপে একাধিক স্তরে সরকারের সিদ্ধান্তের সমস্যাগুলি চিহ্নিত করে ৮৫ বছর বয়সী এই অর্থনীতিবিদ এনডিটিভিকে বলেন: ‘গোটা বিশ্বে গণতান্ত্রিক আদর্শ অর্জনের জন্য এত কিছু করেছে ভারত। তবে এখন আর আমি একজন ভারতীয় হিসাবে এই সত্য নিয়ে গর্বিত নই যে, ভারতই গণতন্ত্রের পক্ষে প্রথম প্রাচ্যের দেশ ছিল। কেননা যে পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে তাতে আমরা সেই খ্যাতি হারিয়ে ফেলেছি’।

এ মাসের শুরুতেই জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল এবং দুটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে রাজ্যটিকে দুই ভাগ করার ক্ষেত্রে সরকারের ওই পদক্ষেপ রাজনৈতিক ও জনসমর্থন পায়। এনডিটিভি লিখেছে, রাজ্যটিকে দ্বিখ-িত করার বিলটি বেশ কয়েকটি মূল বিরোধী দল এবং নির্দল নেতাদেরও সমর্থন পেয়েছে। এমনকি কংগ্রেস নেতাদের একটি অংশও বিশেষ মর্যাদার সমাপ্তির প্রশংসা করেছিলেন। ফলে এখন জম্মু ও কাশ্মীর দেশের অন্যান্য অংশের সঙ্গে সমান হয়ে গেছে। আগে এই রাজ্যটি তার নিজস্ব সংবিধান, পতাকা, দ-বিধি এবং রাজ্যে কে জমি কিনতে পারবে সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতা রাখত। অন্য রাজ্যের লোকেরা জম্মু ও কাশ্মীরে জমি কিনতে পারবে এই প্রত্যাশার কথা মনে রেখেও ড. অমর্ত্য সেন বলেন যে, ‘রাজ্যের জনগণের (জম্মু ও কাশ্মীর) কথা ভেবেও কিছু সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিত। এটি এমন একটি বিষয় যেখানে কাশ্মীরিদের বৈধ দৃষ্টিভঙ্গি রয়েছে। কারণ যে এটি তাঁদের জমি’।
জম্মু ও কাশ্মীরের মূলধারার রাজনৈতিক নেতাদের গ্রেফতার করার বিষয়েও সরকারের সিদ্ধান্তের সমালোচনা করেন অমর্ত্য সেন।  তিনি বলেন, ‘জনগণের নেতাদের কণ্ঠস্বর না শুনে আপনারা ন্যায়বিচার করতে পারেন বলে আমি মনে করি না এবং যদি আপনি হাজার হাজার নেতাকে সংযত রাখেন এবং তাদের অনেককে কারাগারে আটকে রাখেন, তাহলে আপনি গণতন্ত্রকে, সেই বৈশিষ্ট্যকে দমন করছেন, যা গণতন্ত্রকে সফল করে তোলে’।

সরকার ‘প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা’ হিসাবে জম্মু ও কাশ্মীরকে বিশাল নিরাপত্তার আওতায় রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে, যেগুলিতে জনসাধারণের ক্ষতি হতে পারে এমন প্রতিক্রিয়া রোধ করতেই এই পদক্ষপ বলে বর্ণনা করেছে সরকার। এই সিদ্ধান্তেরও তীব্র সমালোচনা করে অমর্ত্য সেন বলেন ‘এটি সর্বোত্তম ঔপনিবেশিক অজুহাত। বৃটিশরা এভাবেই ২০০ বছর ধরে দেশ চালিয়েছিল। আমরা যখন স্বাধীনতা পেলাম তখন আমরা প্রত্যাশা করেছিলাম, আমরা আমাদের ঐতিহ্য মেনে কাজ করব ’।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

মাহফুজ

২০১৯-০৮-২০ ০৭:২১:৪০

Salute Mr. Sen.

আপনার মতামত দিন

বিশ্বজমিন অন্যান্য খবর

রয়টার্সের প্রতিবেদন

অ্যান্থনি ফাউসিকে ‘বিপর্যয়’ বললেন ট্রাম্প

২০ অক্টোবর ২০২০

রয়টার্সের প্রতিবেদন

থাইল্যান্ডে বসবে পার্লামেন্টের বিশেষ অধিবেশন

২০ অক্টোবর ২০২০

বিবিসির প্রতিবেদন

শেষ বিতর্কের আগেই ট্রাম্প-বাইডেন বাহাস

২০ অক্টোবর ২০২০

স্কাই নিউজের খবর

চাঁদে বসানো হবে ৪জি নেটওয়ার্ক

২০ অক্টোবর ২০২০

রয়টার্সের প্রতিবেদন

ব্রাজিলে ট্রায়ালে সিনোভ্যাকের টিকা নিরাপদ প্রমাণিত

২০ অক্টোবর ২০২০

কলকাতা হাইকোর্টের ঐতিহাসিক রায়

পূজামণ্ডপে প্রবেশ নিষেধ, ঝুলাতে হবে ‘নো-এন্ট্রি নোটিশ’

১৯ অক্টোবর ২০২০



বিশ্বজমিন সর্বাধিক পঠিত



ব্লুমবার্গে প্রকাশিত নিবন্ধ

প্রথমে বাংলাদেশকে পরাজিত করতে হবে ভারতকে

অনলাইন নিউ স্ট্রেইটস টাইমসের খবর

আনোয়ার ইব্রাহিমকে পুলিশ সদর দপ্তরে তলব