ঠাকুরগাঁওয়ে সড়কে ধান লাগিয়ে এলাকাবাসীর প্রতিবাদ

বাংলারজমিন

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি | ১৫ জুন ২০১৯, শনিবার
 বৃষ্টির ৫ দিন পরেও রাস্তাটি চলাচলের উপযোগী না হওয়ায় ধানের চারা লাগিয়ে প্রতিবাদ করলেন স্থানীয়রা। ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার পটুয়া-জামালপুর রাস্তার আড়াই কিলোমিটার কাঁচা থাকায় রাস্তার এই বেহাল দশা। সামান্য বৃষ্টিতে চলাচল অসম্ভব হয়ে পড়ায় ধানের চারা লাগাতে বাধ্য হন তারা। শুক্রবার সকালে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেরর শিক্ষার্থীদের আয়োজনে পটুয়া-জামালপুর রাস্তার পাইকপাড়া গ্রামের বিভিন্ন স্থানে ধানের চারা রোপণ করা হয়। ঠাকুরগাঁও সরকারি কলেজের শিক্ষার্থী মাসুদ, জাকির, সাদ্দাম বলেন, দীর্ঘদিন থেকে দেখে আসছি রাস্তাটি শুধু মাপজোখ হচ্ছে পাকা করণের কোন খবর নেই। তাই ধানের চারা লাগিয়ে প্রতিবাদ জানিয়েছি। কারণ জনপ্রতিনিধিদের বলে বলে আর বলতে পারছি না। স্থানীয় সংসদ সদস্যকেও বার বার বলেছি- তিনি বলেছেন হবে হবে।
পাইকপাড়া গ্রামের জামালপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী জীবন, শাম্মি, খেলাফত, রহমান জানান, বৃষ্টি হলে ওই রাস্তা দিয়ে ৩-৪ যাওয়া যায় না। তার পরেও রাস্তা বাদ দিয়ে অন্যের বাড়ি দিয়ে বিদ্যালয়ে যেতে হয়। অনেক সময় অন্যের গালাগালিও খেতে হয়।
রহিমানপুর ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল হান্নান হান্নু বলেন, প্রতি বছর ট্রলিতে করে ইট ভাটার গুড়া ইট রাস্তাটিতে দেয়া হয়। তার পরেও কিছুদিন পরপর রাস্তাটির অবস্থা খুব খারাপ হয়। পাকা রাস্তা না হওয়া পর্যন্ত এলাকাবাসীর দুর্ভোগ কমবে না। জামালপুর ইউপি চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, রাস্তার এক পাশে জামালপুর আরেক পাশে রহিমানপুর তার পরেও ৪০ দিনের কর্মসূচির লোকদের পাঠানো হয়েছিল পাশে মাটি না পাওয়ায় জামালপুরের খারাপ অংশ মেরামত সম্ভব হয়নি। সদর উপজেলা প্রকৌশলী নুরুজ্জামান সরদার বলেন, ঠাকুরগাঁও-১ আসনের সংসদ সদস্য রমেশ চন্দ্র সেন মহাদয়ের নিদের্শে পটুয়া-জামালপুর রাস্তটি ২০১৮ সালে মাপজোখ শেষে প্রক্কলন করে পাঠানো হয়েছে। বরাদ্দ পেলে কাজ শুরু হবে। আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও ঠাকুরগাঁও ১ আসনের সংসদ সদস্য রমেশ চন্দ্র সেন বলেন, অনেক রাস্তা পাঁকা করার প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে। সে রাস্তাটিও আছে।




এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

রংপুরেই এরশাদের সমাধি

লক্ষাধিক বিও অ্যাকাউন্ট বন্ধ

যে কারণে পুঁজিবাজারে পতন থামছে না

মিন্নি গ্রেপ্তার

হাসপাতালে হাসপাতালে ডেঙ্গু রোগীদের ভিড়

ছুরি নিয়ে কীভাবে গেল তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে

সব আদালতে নিরাপত্তা বাড়ানো হবে

ঘাতকের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি, মামলা ডিবিতে

উদ্যোক্তা সৃষ্টিতে উপজেলা পর্যায়ে কারিগরি প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলা হচ্ছে

বাসর হলো না নবদম্পতির

১১ কোম্পানির দুধে সিসা ও ক্যাডমিয়াম

চীনা ডেমু ট্রেন আর কেনা হবে না

বিচারকদের নিরাপত্তা চেয়ে রিট

আসাদকে পাল্টা জবাব আরিফের

৩ মাস পর কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে অ্যাকশন শুরু

বাঁচানো গেল না সার্জেন্ট কিবরিয়াকে