ইএসপিএনক্রিকইনফোর বিশ্লেষণ

বিশ্বকাপের সর্বকালের সেরা একাদশ

স্পোর্টস ডেস্ক

খেলা ২৭ এপ্রিল ২০১৯, শনিবার | সর্বশেষ আপডেট: ৬:০০ পূর্বাহ্ন

ক্রিকেট বিশ্বকাপের সর্বকালের সেরা একাদশ বাছাই করলো জনপ্রিয় ক্রিকেট ওয়েবসাইট ইএসপিএনক্রিকইনফো। বাংলাদেশের কেউ স্থান পাননি এতে। সর্বাধিক ৪ জন অস্ট্রেলিয়ান রয়েছেন তালিকায়। পাকিস্তান ও শ্রীলঙ্কার রয়েছেন ২ জন করে। আর ভারত, দক্ষিণ আফ্রিকা ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের একজন করে ক্রিকেটার স্থান করে নিয়েছেন সর্বকালের সেরা একাদশে। পাকিস্তানের ইমরান খানকে অধিনায়ক করে ক্রিকইনফোর ২২ জন কর্মী মিলে বাছাই করেন এই একাদশ। দু’জন ওপেনারের সঙ্গে চারজন স্পেশালিস্ট ব্যাটসম্যান, দু’জন অলরাউন্ডার ও তিনজন স্পেশালিস্ট বোলার দিয়ে সাজানো হয়েছে এটি। তালিকায় থাকা ১১ জনের মধ্যে কেবল শ্রীলঙ্কার কুমার সাঙ্গাকারা ও দক্ষিণ আফ্রিকার লান্স ক্লুজনার কখনো বিশ্বকাপ শিরোপার স্বাদ পাননি।
সর্বকালের সেরা একাদশে জায়গা পাননি ভারতের প্রথম বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক (১৯৮৩) কপিল দেব। জায়গা পাননি অস্ট্রেলিয়ার প্রথম বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক (১৯৮৭) অ্যালান বর্ডারও।

ওপেনিং জুটিতে রয়েছেন অস্ট্রেলিয়ার উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান অ্যাডাম গিলক্রিস্ট ও ভারতের শচীন টেন্ডুলকার। তিন নম্বরে অস্ট্রেলিয়ার সাবেক অধিনায়ক রিকি পন্টিং। চারে ওয়েস্ট ইন্ডিজ কিংবদন্তি ভিভ রিচার্ডস। পাঁচ নম্বরে শ্রীলঙ্কার কুমার সাঙ্গাকারা। ছয়ে পাকিস্তানি অলরাউন্ডার ইমরান খান। সাতে দক্ষিণ আফ্রিকার লান্স ক্লুজনার। আটে পাকিস্তানের কিংবদন্তির বাঁহাতি পেসার ওয়াসিম আকরাম। নবম স্থানে ইতিহাসসেরা অজি লেগস্পিনার শেন ওয়ার্ন। দশে সর্বকালের সেরা অফস্পিনার শ্রীলঙ্কার মুত্তিয়া মুরালিধরন। আর একাদশ স্থানে রয়েছেন অস্ট্রেলিয়ার ডানহাতি পেসার গ্লেন ম্যাকগ্রা।

অ্যাডাম গিলক্রিস্ট (উইকেটরক্ষক): ৩১ ম্যাচ, ১০৮৫ রান, ৩৬.১৬ গড়, ৫২ ডিসমিসাল। অস্ট্রেলিয়ার হয়ে ১৯৯৯, ২০০৩ ও ২০০৭ সালের বিশ্বকাপ জেতেন বিধ্বংসী ওপেনার অ্যাডাম গিলক্রিস্ট। ২০০৭ বিশ্বকাপের ফাইনালে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ১৪৯ রানের ইনিংস খেলেন তিনি।

শচীন টেন্ডুলকার: ৪৫ ম্যাচ, ২২৭৮ রান, ৫৬.৯৫ গড়, ৬ সেঞ্চুরি। ১৯৯৬ ও ২০০৩ বিশ্বকাপের সর্বাধিক রান সংগ্রাহক ব্যাটসম্যান। ২০১১ বিশ্বকাপে দ্বিতীয় সর্বাধিক রান তার। ওই আসরের ফাইনালে শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে দ্বিতীয়বারের মতো চ্যাম্পিয়ন হয় ভারত।

রিকি পন্টিং: ৪৬ ম্যাচ, ১৭৪৩ রান, ৪৫.৮৬ গড়, ৫ সেঞ্চুরি। অস্ট্রেলিয়ার ১৯৯৯ বিশ্বকাপজয়ী দলের সদস্য রিকিং পন্টিং। তার অধিনায়কত্বে ২০০৩ ও ২০০৭ বিশ্বকাপে অপরাজিত চ্যাম্পিয়ন হয় অস্ট্রেলিয়া। ২০০৩ বিশ্বকাপের ফাইনালে ভারতের বিপক্ষে ১৪০ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলেন পন্টিং।

ভিভ রিচার্ডস: ২৩ ম্যাচ, ১০১৩ রান, ৬৩.৩১ গড়, ৩ সেঞ্চুরি। বিশ্বকাপের প্রথম দুই আসরে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে চ্যাম্পিয়ন বানাতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন স্যার ভিভিয়ান রিচার্ডস। ২০১৫ সালে একটি জুরি বোর্ড তাকে ওয়ানডে ইতিহাসের সেরা খেলোয়াড় নির্বাচন করে।

কুমার সাঙ্গাকারা: ৩৭ ম্যাচ, ১৫৩২ রান, ৫৬.৭৪ গড়, ৫ সেঞ্চুরি। ২০১৫ বিশ্বকাপে টানা চারটি সেঞ্চুরি হাঁকিয়ে রেকর্ড গড়েন কুমার সাঙ্গাকারা। বাঁহাতি ব্যাটসম্যানদের মধ্যে সর্বাধিক রান সংগ্রাহক তিনি। উইকেটরক্ষকদের মধ্যে সর্বাধিক ডিসমিসালের রেকর্ডও তার দখলে।

ইমরান খান (অধিনায়ক): ২৮ ম্যাচ, ৬৬৬ রান, ৩৫.০৫ ব্যাটিং গড়, ৩৪ উইকেট, ১৯.২৬ বোলিং গড়। অধিনায়কের দায়িত্ব কাঁধে নিয়ে পাকিস্তানকে ১৯৯২ সালে প্রথম ও একমাত্র বিশ্বকাপ এনে দেন ইমরান।   

লান্স ক্লুজনার: ১৪ ম্যাচ, ৩৭২ রান, ১২৪ ব্যাটিং গড়, ২২ উইকেট, ২২.২৩ বোলিং গড়। ১৯৯৯ সালে যদি দক্ষিণ আফ্রিকা বিশ্বকাপ জিততো তবে সেটি হতো লান্স ক্লুজনারের বিশ্বকাপ। দুর্ভাগ্য তার, সেমিফাইনালে অস্ট্রেলিয়ার কাছে নাটকীয় হারে স্বপ্নভঙ্গ হয় প্রোটিয়া অলরাউন্ডারের।

ওয়াসিম আকরাম: ৩৮ ম্যাচ, ৫৫ উইকেট, ২৩.৮৩ বোলিং গড়। ১৯৯২ সালের ফাইনালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ওয়াসিম আকরামের এক স্পেল পাকিস্তানকে এনে দেয় আরাধ্য শিরোপা।
এরপর ১৯৯৯ সালের আসরে তার অধিনায়কত্বে ফাইনালে খেলেছিল পাকিস্তান।

শেন ওয়ার্ন: ১৭ ম্যাচ, ৩২ উইকেট, ১৯.৫০ বোলিং গড়। ১৯৯৬ ও ১৯৯৯ বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে শেন ওয়ার্ন ঘূর্ণিতে জয় দেখে অস্ট্রেলিয়া। ১৯৯৯ বিশ্বকাপের ফাইনালেও চমক দেখান ওয়ার্ন।

মুত্তিয়া মুরালিধরন: ৪০ ম্যাচ, ৬৮ উইকেট, ১৯.৬৩ বোলিং গড়। ১৯৯৬ সালে ক্যারিয়ারের প্রথম বিশ্বকাপ খেলতে এসেই চ্যাম্পিয়ন মুত্তিয়া মুরালিধরন। ২০১১ সালের আসরে শ্রীলঙ্কাকে ফাইনালে তুলতেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন এই অফস্পিনার।

গ্লেন ম্যাকগ্রা: ৩৯ ম্যাচ, ৭১ উইকেট, ১৮.১৯ বোলিং গড়। বিশ্বকাপের ইতিহাসে সবচেয়ে সফল বোলার। ২০০৭ সালের আসরে হ্যাটট্রিকসহ ২৬ উইকেট নিয়ে এক আসরে সর্বাধিক উইকেট শিকারের রেকর্ড গড়েন। আর আসরের সেরা খেলোয়াড়ের খেতাব জেতেন।

আপনার মতামত দিন

খেলা অন্যান্য খবর

ছোট পর্দায় আজকের খেলা

৯ মে ২০২১

জিম্বাবুয়ে-পাকিস্তান দ্বিতীয় টেস্টহারারে, তৃতীয় দিন দুপুর ১:৩০(পিটিভি স্পোর্টস)ইংলিশ প্রিমিয়ার লীগউলভারহ্যাম্পটন-ব্রাইটন বিকাল ...



খেলা সর্বাধিক পঠিত



শুধুই কোচকে দায়ী মনে করেন না আকরাম

করোনা বাঁচিয়ে দিচ্ছে ডমিঙ্গোকে!

DMCA.com Protection Status