দূতকে ডেকে কড়া প্রতিবাদ

সেন্টমার্টিন নিজেদের দাবি মিয়ানমারের

প্রথম পাতা

স্টাফ রিপোর্টার | ৭ অক্টোবর ২০১৮, রোববার | সর্বশেষ আপডেট: ১:৩৩
মানচিত্রে প্রবাল দ্বীপ সেন্টমার্টিনকে নিজের ভূখণ্ডের অংশ দেখিয়েছে মিয়ানমার। সম্প্রতি জনসংখ্যা বিষয়ক মন্ত্রণালয় দেশটির যে মানচিত্র প্রকাশ করেছে তাতে সেন্টমার্টিনকে মিয়ানমারের রঙে চিত্রিত করে তাদের দেশের ভূখণ্ড হিসেবে দেখানো হয়। এ ঘটনায় মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূতকে ডেকে কড়া প্রতিবাদ জানিয়েছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। তাকে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে একটি লিখিত প্রতিবাদপত্রও দেয়া হয়। মন্ত্রণালয় সূত্র বলছে, রাষ্ট্রদূত বিষয়টি স্বীকার করে জানিয়েছেন, এটি ভুল হয়েছে। শনিবার দুপুরে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সমুদ্র বিষয়ক ইউনিটের প্রধান রিয়ার এডমিরাল এম খুরশেদ আলমের অফিসে মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূত ইউ লুইন ও কে তলব করা হয়।

এ সময় তার কাছে প্রতিবাদলিপি তুলে দেয়া হয়। এক ঘণ্টার মতো রাষ্ট্রদূত সেখানে অবস্থান করে চলে যান। যাওয়ার সময় তিনি সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেননি। এ নিয়ে মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকেও কোনো বক্তব্য দেয়া হয়নি। মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, রাষ্ট্রদূতের কাছে জানতে চাওয়া হয়, কিসের ভিত্তিতে মিয়ানমার এ দাবি করলো? মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূত আশ্বাস দেন তিনি এ বিষয়ে তার সরকারের সঙ্গে কথা বলবেন।

১৯৩৭ সালে যখন মিয়ানমার স্বাধীন হয় তখন সেন্টমার্টিন ছিল বৃটিশ ভারতের অংশ। ভারত ও মিয়ানমারের মধ্যে তখন স্পষ্ট সীমানা টানা হয়েছিল। এরপর ১৯৪৭ সালে ভারত ও পাকিস্তান বৃটিশদের থেকে স্বাধীনতা লাভ করলে সেন্টমার্টিন তৎকালীন পাকিস্তানের অন্তর্ভুক্ত হয়। এরপর ১৯৭১ সালে পাকিস্তান থেকে বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জনের মধ্য দিয়ে এ দ্বীপ বাংলাদেশের অংশে পরিণত হয়। এমনকি ১৯৭৪ সালে সেন্টমার্টিনকে বাংলাদেশের অন্তর্ভুক্ত দ্বীপপুঞ্জ মেনে নিয়েই মিয়ানমারের সঙ্গে সমুদ্রসীমা চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছিল। বাংলাদেশের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, ২০১৭ সালে যখন মিয়ানমারের সঙ্গে সমুদ্রসীমা নিয়ে থাকা বিরোধে বাংলাদেশ জয়ী হয় তখনো স্পষ্ট করে উল্লেখ করা হয়েছিল যে, সেন্টমার্টিন বাংলাদেশের অংশ।  এ অবস্থায় মিয়ানমারের এ ধরনের প্রয়াসকে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত বলে মনে করা হচ্ছে। রোহিঙ্গা সংকট থেকে চোখ সরাতেই মিয়ানমার নতুন করে এ দ্বন্দ্ব সৃষ্টি করতে চাইছে বলে মনে করছেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Kawser Hasan

২০১৮-১০-০৭ ১৭:২৫:১০

The failure to handle the Rohingiya issue has paved way for Myanmar to show such kind of atrocity...

Dupur

২০১৮-১০-০৭ ১২:০৬:২৮

Near future india could claim Bangladesh belongs to them,we become goriber vabi!

আপনার মতামত দিন

বিল বন্ধের নির্দেশ দুই তদন্ত কমিটি

আমদানি খোলা রেখেই চাল রপ্তানির উদ্যোগ লাভ হবে ব্যবসায়ীদের

সৌদিতে ড্রোন হামলায় ঢাকার উদ্বেগ

বাজেটে কৃষিকে গুরুত্ব দিতে শাইখ সিরাজের সুপারিশমালা

বুথফেরত জরিপে মোদির বড় জয়ের ইঙ্গিত

এবার দ্বিতীয় ইনিংস খেলবো

রূপপুর বিদ্যুৎকেন্দ্র প্রকল্পের দুর্নীতির বিচার বিভাগীয় তদন্ত চেয়ে রিট

মুক্তিযোদ্ধাদের ন্যূনতম বয়স নিয়ে জারি করা পরিপত্র অবৈধ

মধ্যরাতে ছাত্রলীগের পদবঞ্চিতদের ওপর ফের হামলা

সিলেটের বশিরকে খুঁজছে নিখোঁজ জিল্লুরের পরিবার

চলমান মামলা নিয়ে সংবাদ প্রকাশে বাধা নেই: আইনমন্ত্রী

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের বিপণন কার্যক্রম শুরু

পশ্চিমবঙ্গে গুলি বোমা, সংঘর্ষ

বগুড়ায় নৌকা প্রতীক পেলেন এস এম টি জামান নিকেতা

পশ্চিমবঙ্গে বিজেপি দ্বিতীয় স্থানে

নির্যাতিত তাতারদের জন্য কে কথা বলবে?