চলচ্চিত্র নির্মাতা মতিন রহমানকে হুমকি

স্টাফ রিপোর্টার | ২০১৫-১০-১৯ ২:০৪
জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত পরিচালক মতিন রহমানকে বারবার ফোন করে নগদ অর্থ চেয়ে হুমকি দিচ্ছে পরিচয় লুকিয়ে রাখা কয়েকজন ব্যক্তি। গত ২২শে সেপ্টেম্বর অজ্ঞাত এক ব্যক্তি একটি এয়ারটেল নম্বর থেকে মতিন রহমানের মোবাইলে ফোন করে খোঁজখবর নেয়ার পাশাপাশি তার কাছে অর্থ দাবি করে। মতিন রহমান তাদের অর্থ দিতে অপারাগতা প্রকাশ করলে তারা বিরক্ত হয় এবং ঈদের পর যোগাযোগ করবে বলে জানায়। ঈদ চলে গেছে। আবারও আজ অজ্ঞাত কেউ একজন ০১৬২৪৪৪৬৩২৫ নম্বর থেকে ফোন করে মতিন রহমানের কাছে অর্থ দাবি করে এবং একটি বিকাশ নম্বর দেয়। এ প্রসঙ্গে মতিন রহমান বলেন, আমি সবসময়ই সাধারণভাবে জীবনযাপন করার চেষ্টা করি। জীবনে কখনও কারও ক্ষতির চিন্তা করিনি আমি। আমাকে কেন মানুষ এভাবে বিরক্ত করবে। তাছাড়া এভাবে কেউ আমাকে হুমকি দেবে তাইবা আমি কেন মেনে নেবো। দেশে আইন আছে, শাসন আছে। তাদের বিষয়গুলো ক্ষতিয়ে দেখা উচিত কারা এভাবে মুঠোফোনে সন্ত্রাসী কার্যকলাপ চালাচ্ছে। আমরাতো সাধারণ মানুষ, কেন আমরা এমন পরিস্থিতির শিকার হবো? মতিন রহমান আরও বলেন, এভাবে চলতে থাকলে সাধারণ মানুষের জীবন অতিষ্ঠ হয়ে উঠবে। সরকারিভাবে এসব অন্যায়ের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নেয়া উচিত। মতিন রহমান জানান, বিষয়টি খতিয়ে দেখার জন্য আজই তিনি মোহাম্মদপুর থানায় সাধারণ ডায়েরি করবেন। উল্লেখ্য, মতিন রহমান দীর্ঘ ১১ বছর ধরে ‘স্টাম্পফোর্ড ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ’-এ ফিল্ম অ্যান্ড মিডিয়া বিভাগের কো-অর্ডিনেটর হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। পরিচালক হিসেবে তিনি প্রথম নির্মাণ করেন শাবানাকে নিয়ে ‘লাল কাজল’ ছবিটি। এটি ১৯৮২ সালে মুক্তি পায়। প্রথম চলচ্চিত্র নির্মাণের মধ্যদিয়েই মতিন রহমান চলচ্চিত্রাঙ্গনে নিজের মেধার পরিচয় দিয়ে আলোচনায় চলে আসেন। তিনি এরপর নির্মাণ করেছেন ‘চিৎকার’, ‘রাধা কৃষ্ণ’, ‘স্বর্গ নরক’, ‘জীবন ধারা’, রাঙ্গা ভাবী’, ‘বীরাঙ্গনা সখিনা’, ‘অন্ধ বিশ্বাস’, ‘তোমাকে চাই’, ‘এ মন চায় যে’, ‘মন মানে না’, ‘বিয়ের ফুল’, ‘মাটির ফুল’, ‘নারীর মন’, ‘মহব্বত জিন্দাবাদ, ‘রাক্ষুসী’, ‘রং নাম্বার’, ‘তোমাকেই খুঁজছে’। ১৯৯২ সালে ‘অন্ধ বিশ্বাস’ চলচ্চিত্র নির্মাণের জন্য তিনি শ্রেষ্ঠ পরিচালকের পুরস্কার পান। এছাড়া আরো কয়েকটি শাখায় এই চলচ্চিত্রটি জাতীয় পুরস্কার অর্জন করে।