গুরু-শিষ্যের অন্যরকম আড্ডা

স্টাফ রিপোর্টার | ২০১৪-১১-১৪ ৮:১৮
আলম খান ও এন্ড্রু কিশোর দেশের সংগীতাকাশের দুই উজ্জ্বল নক্ষত্র। একজন জীবন্ত কিংবদন্তি সুরকার ও সংগীত পরিচালক। অন্যজন প্লেব্যাক সম্রাট। এ দু’য়ের গুরু-শিষ্যের সম্পর্ক তিন যুগ পার হতে চলেছে। সম্পর্কের বিরাট এ দীর্ঘ পথচলায় দু’জনই বাংলাদেশের সংগীতাঙ্গনকে করেছেন সমৃদ্ধ, অলঙ্কৃত। একজন সুর করেছেন আর অন্যজন চ্যালেঞ্জ নিয়ে গেয়েছেন। আর তাতেই যেন ইতিহাস হয়ে গেছে একের পর এক গান। আলম খানের সুর-সংগীতায়োজনে চন্দন চৌধুরীর পরিচালনায় ‘কী যাদু করিলা’ চলচ্চিত্রে এন্ড্রু কিশোর সর্বশেষ গান করলেও গুরু-শিষ্যের মধ্যে যোগাযোগ নিয়মিতই আছে। তবে গত ৮ই নভেম্বর সন্ধ্যায় এক অন্যরকম আড্ডায় মেতে উঠেছিলেন আলম খান ও এন্ড্রু কিশোর। পুরনো দিনের গল্প আর স্মৃতিতে ফিরে গিয়েছিলেন দু’জন। তাদের সঙ্গে সেই আড্ডায় যোগ দিয়েছিলেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত গীতিকার মুন্‌শী ওয়াদুদও। ‘এক চোর যায় চলে পিছনে লেগেছে দারোগা’, ‘হায়রে মানুষ রঙিন ফানুস দম ফুরাইলে ঠুস’, ‘ডাক দিয়াছেন দয়াল আমারে’, ‘ভালবেসে গেলাম শুধু’, ‘চাঁদের সাথে আমি দেবো না তোমার তুলনা’, ‘কারে বলে ভালবাসা কারে বলে প্রেম’, ‘সবাই তো ভালবাসা চায়’, ‘জীবনের গল্প আছে বাকি অল্প’, ‘তুমি যেখানে আমি সেখানে’- এমন অসংখ্য গানের সুর সংগীতায়োজন করেছেন আলম খান এবং গেয়েছেন এন্ড্রু কিশোর। ১৯৭৭ সালে শিবলী সাদিক পরিচালিত ‘মেইল ট্রেন’ চলচ্চিত্রে আলম খানের সুরে এন্ড্রু কিশোর প্রথম গান করেন। এরপর বাদল রহমানের ‘এমিলের গোয়েন্দা বাহিনী’ চলচ্চিত্রে ‘ধুম ধারাক্কা ধুম’ গানটি করেন।
তবে আলম খানের সুরে এ জে মিন্টু পরিচালিত ‘প্রতিজ্ঞা’ চলচ্চিত্রের ‘এক চোর যায় চলে’ গানটি শ্রোতারা এন্ড্রুর কণ্ঠে প্লেব্যাক হিসেবে প্রথম শুনেন। এন্ড্রু কিশোর প্রসঙ্গে আলম খান বলেন, একজন সৎ মানুষ, বড়কে শ্রদ্ধা করা, সম্মান দিয়ে কথা বলা, হিসাবী, অন্যায়ের প্রতিবাদী- এসব গুণের সমন্বয়েই একজন এন্ড্রু। আমি তাকে বাংলাদেশের একজন শ্রেষ্ঠ শিল্পী হিসেবেই মনে করি, যার কণ্ঠে সব ধরনের গান সমানভাবেই প্রয়োগ করা যায়। এন্ড্রু কিশোর বলেন, আমার জীবনাদর্শের নায়ক আলম ভাই। আমার গানের হাতেখড়ি ওস্তাদ আবদুল আজিজ বাচ্চু স্যারের কাছে। তবে আমার প্রফেশনাল জীবনের ওস্তাদ আলম ভাই। আমার পথপ্রদর্শক তিনি, আমার জীবনে মা-বাবার পর যার অবদান অস্বীকার করার কোন উপায় নেই তিনি আলম ভাই। মোহাম্মদ মহিউদ্দিন পরিচালিত ‘বড় ভাল লোক ছিল’ চলচ্চিত্রে একসঙ্গে গুরু-শিষ্য প্রথম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করেন। এ পর্যন্ত আলম খান সাতবার এবং এন্ড্রু কিশোর আটবার একই পুরস্কার অর্জন করেছেন। আলম খান পূর্ণাঙ্গ সংগীত পরিচালক হিসেবে ১৯৭০ সালে আবদুল জব্বার খান পরিচালিত ‘কাঁচ কাটা হীরে’ চলচ্চিত্রের কাজ করেন।