আগ্রহ’র প্লাস্টিক দূষণবিরোধী ক্যাম্পেইন

দেশব্যাপী দূষণরোধে কাজ করবে ‘পলিউশন ফাইটারস ক্লাব’

এক্সক্লুসিভ

স্টাফ রিপোর্টার | ১২ নভেম্বর ২০১৮, সোমবার
‘ঢাকা আমাদের বাড়ি, নিজ বাড়িকে পরিষ্কার করি’ এই স্লোগানকে সামনে রেখে রাজধানীকে প্লাস্টিক দূষণমুক্ত করতে ঢাকা সিটির বিভিন্ন এলাকায় ক্যাম্পেইন শুরু করেছে বেসরকারি সংস্থা ‘আগ্রহ’। এরই অংশ হিসেবে শনিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় ক্যাম্পেইন করে সংস্থাটি। এতে ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজ বিভাগের শিক্ষক, বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষার্থী, আগ্রহের সদস্য এবং বিশ্ববিদ্যালয় এলাকার ছিন্নমূল মানুষ অংশ নেয়।  ওইদিন সকাল ১০টায় রাজু ভাস্কর্যের সামনে ক্যাম্পেইনটি শুরু হয়ে শেষ হয় দুপুর ২টায়। ক্যাম্পেইনের অংশ হিসেবে বিশ্ববিদ্যালয় এলাকার বিভিন্নস্থানে জমে থাকা পরিত্যক্ত প্লাস্টিক, পলিথিন এবং পরিবেশ দূষণকারী বিভিন্ন ধরনের বর্জ্য সংগ্রহ, দূষণবিরোধী পোস্টারিংসহ নানা সচেতনতামূলক কর্মকাণ্ড চালানো হয়। সংগৃহীত বর্জ্য রিসাইক্লিং এর জন্য পাঠানো হয়। ক্যাম্পেইন শেষে ‘আগ্রহ’র চেয়ারপারসন ডালিয়া রহমান বলেন, প্রতিদিন ১৪ মিলিয়ন পলিথিন ব্যাগ আমরা ঢাকা শহরে ফেলছি যেগুলোর প্রায় শতভাগ উন্মুক্ত পরিবেশে থেকে যাচ্ছে, কিংবা ড্রেন এবং স্যুয়ারেজ লাইনে আটকে থেকে বৃষ্টির সময় জলাবদ্ধতার সৃষ্টি করছে। এ ছাড়া প্লাস্টিকের বোতল অথবা অন্যান্য প্লাস্টিক সামগ্রী তো আছেই। তিনি বলেন, প্লাস্টিক দূষণ প্রতিরোধ করতে আমাদের ব্যক্তি পর্যায় থেকেই শুরু করতে হবে।
ডাস্টবিনের যথাযথ ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে। আমরা নিজেরা যত্রতত্র আবর্জনা ফেলা থেকে বিরত থাকবো এবং সন্তানদের শৈশব থেকেই অভ্যস্ত করে তুলবো। তবেই একটি দূষণমুক্ত পরিবেশ নিশ্চিত হবে। ডালিয়া রহমান জানান, প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয় ও দেশের বিভিন্ন এলাকার ছাত্র, শিক্ষক এবং সমাজের অন্যদের সমন্বয়ে ‘পলিউশন ফাইটারস ক্লাব’ নামে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন গড়ে তোলার উদ্যোগের কথা জানান। এই ক্লাব ‘থ্রিআর’ (রিডিউস, রিইউজ এবং রিসাইক্লিং) এর বিষয়ে ব্যাপক গণজাগরণ তৈরি করে দেশব্যাপী দূষণ প্রতিরোধে ইতিবাচক ভূমিকা রাখবে। আগ্রহ’র চেয়ারপারসন পেট বোতল রিসাইক্লিং এর পাশাপাশি পলিথিন ব্যাগসহ সকল ধরনের পরিত্যক্ত প্লাস্টিক সামগ্রী রিসাইক্লিং এ আগ্রহের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা তুলে ধরেন। একইসঙ্গে এই উদ্যোগ দেশব্যাপী ছড়িয়ে দিতে তিনি সরকার এবং দাতা সংস্থাসমূহের সাহায্য কামনা করেন। ক্যাম্পেইনে উপস্থিত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজ বিভাগের অধ্যাপক ড. আবু ইউসুফ আগ্রহের উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়ে বলেন, যত্রতত্র প্লাস্টিকবর্জ্য ফেলা থেকে আমাদের দায়িত্বশীল হতে হবে, না হলে খুব শিগগিরই দেশ এক মহাবিপর্যয়ের সম্মুখীন হবে। অধ্যাপক ড. তৈয়বুর রহমান বলেন, বর্জ্য ব্যবস্থাপনার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সকলকে সমন্বিতভাবে কাজ করতে হবে।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Ebadur

২০১৮-১১-১১ ১২:২২:০৬

What a wonderful job. Can you do something about our tourism spots. These are full of plastic . People damaging our nature by throwing plastic everywhere

আপনার মতামত দিন

‘মাশরাফিদের উপর বিশ্বাস রাখতে হবে’

আইএসআইয়ের নতুন প্রধান জেনারেল ফয়েজ

দেশে ফিরতে রাজি হয়েছেন সাগরে আটকে পড়া ৬৪ বাংলাদেশি

যে মাইলফলক হাতছানি দিচ্ছে সাকিবকে

জামিন নাকচ, কারাগারে ওসি মোয়াজ্জেম

পাকুন্দিয়ায় চোরাই মোটরসাইকেলসহ একজন গ্রেপ্তার

ভূঞাপুরে পরিত্যক্ত ভবনে চলছে পাঠদান

দ্বিতীয় দিনের মতো অবস্থান কর্মসূচিতে ছাত্রদল

বিএনপির আরও অনেক নেতাকর্মীকে মিথ্যা মামলায় গ্রেপ্তার করা হবে: রিজভী

৩০ বছরে বিশ্বে জনসংখ্যা বৃদ্ধি পাবে ২০০ কোটি

লোহার খাঁচায় গঙ্গায় ডুবিয়ে দেয়া হলো জাদুকরকে, অতঃপর... (ভিডিও)

রাজধানীতের শিশু কন্যাকে হত্যা করে মায়ের আত্মহত্যার চেষ্টা

বৃষ্টি বাধা হবে না বাংলাদেশ-ওয়েস্ট ইন্ডিজ ম্যাচে

প্রেমের টানে ঘর ছেড়ে পুলিশ হেফাজতে প্রেমিকা

জনতার রায়ের কাছে মাথানত করেও রেহাই নেই

সাইবার ট্রাইব্যুনালে সাবেক ওসি মোয়াজ্জেম (ভিডিও)