ইসরাইলের ‘বিডিএস ব্ল্যাকলিস্টে’ ২০ সংগঠনের নাম

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ৯ জানুয়ারি ২০১৮, মঙ্গলবার
ইসরাইলের বিরুদ্ধে ‘বয়কট, ডাইভেস্টমেন্ট এন্ড স্যাংশন’ (বিডিএস) ক্যামেপইনের সমর্থন করার দায়ে ২০ সংগঠন ও এর সদস্যদের এখন থেকে ইসরাইলে প্রবেশাধিকার দেয়া হবে না। রোববার ওই সংগঠনগুলোর নাম উল্লেখ করে একটি কালো তালিকা প্রকাশ করেছে ইসরাইল। তালিকাটিকে ‘বিডিএস ব্ল্যাকলিস্ট’ নামে ডাকা হচ্ছে। নতুন এক বিতর্কিত আইনের আওতায় ওই তালিকায় নাম আছে এমন সকল সংগঠন ও সংগঠনের সদস্যদের এখন থেকে ইসরাইলে প্রবেশ করার জন্য প্রয়োজনীয় ভিসা ও বসবাসের অধিকার দেয়া হবে না। ইসরাইল ও ফিলিস্তিন অঞ্চলের ওপর বৃটিশ ক্রস-পার্টি পরামর্শক গ্যারি সেপডিং বলেন, এই ব্ল্যাকলিস্ট শুধুই দেশটিতে বৈধভাবে মানবাধিকার কর্মী ও পর্যবেক্ষকদের প্রবেশ ঠেকানোর একটি অজুহাত। উল্লেখ্য, ব্ল্যাকলিস্টের আওতায় পড়েছেন বৃটিশ লেবার পার্টির নেতা জেরেমি করবিনও।
এ খবর দিয়েছে দ্য ইন্ডিপেন্ডেন্ট ও হারেৎস।
খবরে বলা হয়, তালিকাটিতে মূলত ইউরোপীয় ও আমেরিকান সংগঠনের নাম অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। ইসরাইলি পত্রিকা হারেৎস অনুসারে, তালিকায় যুক্তরাজ্য-ভিত্তিক প্যালিস্টাইন সলিডারিটি ক্যামেপইন (পিএসসি) ও ওয়ার অন ওয়ান্ট’র নাম রয়েছে। পাস হওয়া নতুন আইন অনুসারে, তালিকায় অন্তর্ভুক্ত সংগঠনের সঙ্গে আনুষ্ঠানিকভাবে জড়িত নন কিন্তু ইসরাইলের  সঙ্গে সমপর্ক বর্জনের ক্যামেপইনের সমর্থন করেন এমন ব্যক্তিদেরও প্রবেশাধিকার দেয়া হবে না- যেমন, মেয়র ও রাজনীতিবিদদের।  ইসরাইলের স্ট্র্যাটেজিক এফেয়ার্স মন্ত্রী গিলাদ এরদান বলেন, আমরা আমাদের প্রতিরক্ষাকে আক্রমণে বদলে দিয়েছি। তালিকায় অন্তর্ভুক্ত সংগঠনগুলোর জেনে রাখা উচিত, ইসরাইল তাদের বিরুদ্ধে কাজ করবে ও তাদেরকে ইসরাইলের সীমান্তের ভেতর প্রবেশ করে এর নাগরিকদের ক্ষতি করার সুযোগ দেয়া হবে না। তিনি আরো বলেন, কোনো দেশই তাদের সমালোচকদের সে দেশে প্রবেশ করে ক্ষতি করতে দেবে না। কালো তালিকাটি বাস্তবায়নের দায়িত্বে আছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যারি ডেরি বলেন, এই মানুষগুলো আমাদের আইন ও আতিথেয়তার অপব্যবহার করে  ইসরাইলের বিরুদ্ধে কাজ করার ও দেশটির মানহানি করার চেষ্টা করছে। আমি যেকোনো উপায়ে এদের প্রতিহত করবো।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন